13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৪৯ বছর ধরে সেতুর অপেক্ষায় সোনাতলা-সারিয়াকান্দি নিবাসী

admin
December 26, 2019 3:45 pm
Link Copied!

দীপক সরকার, বগুড়া প্রতিনিধি: স্বাধীনতার পরবর্তী দীর্ঘ সময়ে কত সরকার আসলো, কত সরকার চলে যাচ্ছে। বছরের পর বছর ধরে এমপি-মন্ত্রীরাও প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসলেও বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের ছলুরঘাটে সেতু নির্মাণ এখন হয়নি। তাইতো এসব নেতা এমপি ও মন্ত্রীদের প্রতিশ্রুতির আশার দোলাচলে দুলতে দুলতে নৌকাকেই একমাত্র সম্বল করে জীবনযাপন করছে বগুড়ার সোনাতলা-সারিয়াকান্দির মানুষ। এভাবেই পাক হানাদারমুক্ত হয়ে দেশ স্বাধীনের দীর্ঘ প্রায় ৪৯ বছর অতিবাহিত হলেও বাঙালি নদীর ছলুরঘাটে সেতু নির্মাণ হয়নি। বগুড়া-১ নির্বাচনি আসনের দুটি উপজেলার প্রায় ৬ লাখ মানুষ আজও অপেক্ষার প্রহর গুণছে।

তবে হাল ছাড়েনি ওই এলাকার মানুষ। বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১৪-১৫ কিলোমিটার দক্ষিণ পূর্বে অবস্থিত সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের পোড়াপাইকড় এলাকা। ওই এলাকার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে বাঙালি নদী। পোড়াপাইকর খোসকাতলী এলাকায় বাঙালি নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণের দাবি দীর্ঘ দিনের। ওই খেয়াঘাট দিয়ে সোনাতলা ও সারিয়াকান্দি উপজেলার ১৮টি ইউনিয়নের প্রায় ৬ লাখ মানুষ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেন। এছাড়াও ওই এলাকার প্রায় ৮৫ ভাগ মানুষ কৃষি কাজের ওপর নির্ভরশীল।

কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কৃষি পণ্য বিক্রির জন্য ওই পথ দিয়ে যাতায়াত করেন। শুষ্ক মৌসুমে কোনো রকমে পারাপার হওয়া গেলেও ভর বর্ষা মৌসুমে পথচারীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে হয়। কখনো কখনো খেয়াঘাটের মাঝি ব্যস্ততার কারণে ঘাটে অবস্থান না করায় পথচারীদের ৮/১০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে যাতায়াত করতে হয়। নৌকায় পারাপারে একদিকে সময় অপচয় হচ্ছে, অন্যদিকে পথচারীদের দ্বিগুণ অর্থও গুণতে হচ্ছে। এছাড়াও ওই নদীর খেয়াঘাটের দুপাশে ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে হয়।

স্থানীয় লোকজন জানান, স্বাধীনতা পরবর্তী বিভিন্ন সময় ওই খেয়াঘাটে নৌকা ডুবির একাধিক ঘটনা ঘটেছে। আর এতে করে মা ও শিশুসহ প্রায় ১০ ব্যক্তি প্রাণ হারান। পোড়াপাইকড় এলাকার সাজু মিয়া, আবু সাইদ মাস্টার, লুৎফর রহমান, তারিন আকতার জানান, গত দুই-তিন বছর আগে ওই খেয়াঘাটে দুই গৃহবধূ নৌকা পারাপার হতে গিয়ে পানিতে পড়ে গিয়ে প্রাণ হারান। ভূক্তভোগী স্থানীয় লোকজন জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান একজন কর্মব্যস্ত মানুষ। একমাত্র তিনিই পারেন ওই খেয়াঘাটে ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নিতে। ইতোমধ্যেই ওই খেয়াঘাটে সেতু নির্মাণের জন্য প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে বলে উপজেলা প্রকৌশলী অফিস সূত্রে জানা গেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী রাশেদ ইমরান জানান, সোনাতলা উপজেলার বাঙালি নদীর ছলুরঘাট একটি গুরুত্বপূর্ণ খেয়াঘাট। ওই খেয়াঘাটে ব্রিজ নির্মাণ করতে সরকারের প্রায় ৫০ কোটি টাকা ব্যয় হবে। তবে ব্রিজটি নির্মাণের জন্য মাটি পরীক্ষাসহ প্রাথমিক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বিশাল অংকের এই অর্থ একনেকে পাশ হলেই ব্রিজ নির্মাণে সংশ্লিষ্ট দপ্তর টেন্ডার আহ্বান করতে পারবে।

http://www.anandalokfoundation.com/