রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০১:৪৪ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনার মাঝেই ফাঁস হল ইরানের পরমাণু প্রস্তুতির গোপন চিঠি শাশুড়ি এবং স্ত্রী সহ দুই প্রতিবেশিকে খুন করে খুনির আত্মহত্যা হিন্দু সংস্কৃতির সুপ্রাচীন রীতি শঙ্খধ্বনি গৃহস্থের মঙ্গল বয়ে আনে পরমাণু চুক্তিতে আমেরিকাকে ফেরাতে ভারত বড় ভূমিকা নিতে পারে আশাবাদী ইরান ধার শোধে বাবার সহায়তায় ১৩ বছরের মেয়েকে নিয়মিত ধর্ষণ, রাজি না হলে নির্যাতন রক্তপাত ছাড়াই কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে ১৫ দেশের রাষ্ট্রদূতদের সন্তোষ প্রকাশ যুদ্ধ পরিস্থিতির মাঝেই মহাকাশ দখলে স্যাটেলাইট পাঠাচ্ছে ইরান কবর খুঁড়তেই বেরিয়ে এলো জীবন্ত নবজাতক ২ সন্তানের বেশি আর নয়, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রনে দেশজুড়ে প্রচারে নামল RSS জেনে নেই ফজর নামাজ পড়তে না পারলে কি করণীয়

হিন্দু ধর্মে শ্রাদ্ধ কি?

শ্রাদ্ধ সম্পর্কে আলোচনা করতে গিয়ে কতগুলো প্রশ্ন আমাদের মনে জাগে। যেমন,-

১) মানুষ মরে গেলে তার ‘বিদেহী মন’ ও ‘বিদেহী আত্মা’ কোথায় যায়? বা কীভাবে ও কোথায় অবস্থান করে?

২) মানুষের মৃত্যুর পরে তার পাঞ্চভৌতিক দেহ যখন অগ্নিতে পুড়ে ছাই হয়ে যায় অথবা মাটির তলায় প্রাকৃতিক নিয়মে পচে-গলে মাটি হয়ে যায়, তখন সেই দেহের ‘বিদেহী মন’ ও ‘বিদেহী আত্মা’ কি কোন প্রকার কাজ করতে পারে?

৩) পাঞ্চভৌতিক দেহ, মস্তিষ্ক বা স্নায়ুকোষ-স্নায়ুতন্তু বিহীন মৃত মানুষের ‘বিদেহী মন’ ও ‘বিদেহী আত্মা’ কি কোন সুখ বা দুঃখের অনুভূতি গ্রহণ করতে পারে? আমাদের দেওয়া খাদ্য-পাণীয়, বস্ত্র, স্বর্ণালঙ্কার, পিণ্ড-সামগ্রী কি সেই দেহহীন, ইন্দ্রিয়হীন,  স্নায়ুকোষ-স্নায়ুতন্তুহীন  বিদেহী মন ও আত্মা গ্রহণ করতে সক্ষম হয়? যদি সক্ষম না হয়, তাহলে আমরা শ্রাদ্ধ ও পিণ্ডদানের নামে এত সব সামগ্রী দান করি কেন? এগুলি কি শুধু ব্রাহ্মণদের ভোগের জন্য, তাদের পরগাছা জীবনের সুখ-সমৃদ্ধি বৃদ্ধি করার জন্যে করা হয়?

৪) শ্রাদ্ধ করলেই কি মৃত মানুষের বিদেহী মন ও আত্মা সারা জীবনের কৃত পাপ, সব সংস্কার থেকে মুক্ত হয়ে যাবে? ব্রাহ্মণরা কি সেটা করতে পারে? তাহলে কি ভগবান শ্রীকৃষ্ণের গীতার ‘কর্মফল তত্ত্ব’,  ‘সংস্কার তত্ত্ব’ ও ‘কর্মফল ভোগ তত্ত্ব’  সব মিথ্যা?

৫) স্বর্গ বা নরক কোথায়? সত্যই কি স্বর্গ-নরকের কোন অস্তিত্ব আছে?

৬) শ্রাদ্ধ কি ও কেন করা হয়?

৭) কেউ মারা গেলে বা কারো জন্ম হলে তার নিকট আত্নীয়দের অশৌচ হবে কেন? আবার শ্রাদ্ধ ও অশৌচ ব্যবস্থায় জাতিভেদ অনুসারে ভিন্ন ভিন্ন ব্যবস্থা কেন?

৮ ) বর্ত্তমান ব্রাহ্মণ্যবাদী  এই বংশগত জাতিভেদ প্রথা শ্রীকৃষ্ণের গীতায় স্বীকৃত নয়। গীতার পরিপন্থী ব্রাহ্মণ্যবাদী শোষণের হাতিয়ার ভেদ বৈষম্যে ভরা মনু সংহিতার  অমানবিক  এই জাতিভেদ প্রথা বা তার  ভিত্তিতে শ্রাদ্ধ ও অশৌচ ব্যবস্থার নামে যুক্তিহীন, বৈষম্যমূলক বিধি বিধান মেনে চলা উচিত কি?

৯) কেউ মারা গেলে ‘ধড়া’ কেন পরতে হবে, ‘মাথামুণ্ডন’ কেন করতে হবে? মুখাগ্নি কেন করতে হবে? বৈতরণী পার হতে গরু কেন দান করতে হবে? গয়ায় পিণ্ডদান কেন করতে হবে?

১০) শ্রাদ্ধান্ন কি খাওয়া উচিৎ?

১১) বেদ যদি আমাদের  প্রধান ধর্মগ্রন্থ হয় তাহলে সেই বেদ ব্রাহ্মণ্যবাদে বাংলার হিন্দু ধর্মের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর কারোর পড়ার অধিকার নেই কেন? যে ধর্মগ্রন্থ আমাদের পড়ার বা শোণার অধিকার নেই, যে গ্রন্থে কি আছে তা আমরা জানি না, বা যে গ্রন্থের নির্দেশ অনুযায়ী কর্ম অনুষ্ঠান করার অধিকারও আমাদের নেই সেই গ্রন্থকে আমাদের ধর্মগ্রন্থ বলে  মেনে চলা কি উচিত?

১২) ‘ভূত’  ও ‘প্রেত’ বলে কিছু আছে কি? আসলে ভূত-প্রেত  জিনিসটা কী? মানুষ কেন ভূত-প্রেত দেখে ভয় পায়? সে যে ভূত বা প্রেত দেখে সেগুলির আসল মনোবৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যাই বা কি?

১৩) মৃত্যুর পর মৃত ব্যক্তির বিদেহী মন ও আত্মা কি তার নিকট আত্মীয়দের বাড়ীতে, বাড়ীর ঘরের কোনায়, বাড়ীর গাছে, জঙ্গলে, ঝোড়ে লুকিয়ে থাকে?ভয় দেখায়? তার পূর্ব জন্মের আত্মীয়দের ক্ষতি করার চেষ্টা করে? মৃত্যুর পরে বিদেহী মনের সে ক্ষমতা কি আছে?

১৪) আসলে জীবন, মৃত্যু, কর্মফল, সংস্কার, পুনর্জন্ম, স্বর্গ-নরক এসব কি  বা কি ভাবে হয়, তার বিজ্ঞান ভিত্তিক যুক্তিপূর্ণ ব্যাখ্যা কি?

১৫) শাস্ত্র কাকে বলে? প্রকৃত শাস্ত্র কি ও কেমন হওয়া উচিত? ইত্যাদি, ইত্যাদি।

এই সব প্রশ্নগুলি জন্ম, মৃত্যু, শ্রাদ্ধ,  ভূত-প্রেত ও পরলোকের ভাবনার সঙ্গে উঠে আসে। এই সব প্রশ্নগুলির বিজ্ঞান ভিত্তিক যুক্তিপূর্ণ ব্যাখ্যা  না জানার জন্যেই  ব্রাহ্মণ শ্রেণী সমাজের সাধারণ মানুষের মনে বিভিন্ন ধরণের অন্ধবিশ্বাস, কুসংস্কার তথা ভাবজড়তা ঢুকিয়ে দিয়ে তাদের দীর্ঘকাল ধরে ব্যায়বহুল, জটিল ও কষ্টকর বিধি-বিধান মানতে বাধ্য করে আসছে ও মানস অর্থনৈতিক শোষণ করে চলেছে। অধ্যাত্ম-বিজ্ঞানের আলোয়, মানব মনস্তত্ত্বের প্রেক্ষাপটে ও সমাজ বাস্তবতার দাবীকে মনে রেখে প্রগতিশীল বিজ্ঞান ভিত্তিক যুক্তির সাহায্যে ও বিবেকপূর্ণ ভাবে এই সব জটিল প্রশ্নের অনেকগুলির সুন্দর, সহজ বিশ্লেষণ ও ব্যাখ্যারই আলোকে এই জটিল প্রশ্নগুলির উত্তর খোঁজার চেষ্টা করবো। পরবর্তী লেখায়—-

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit