13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যশোরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত

Rai Kishori
May 25, 2020 11:03 am
Link Copied!

আবুল কালাম আজাদ, যশোর: সারা দেশের মতো এবার যশোরেও অন্যরকম ভাবে উদযাপন হচ্ছে মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিভিন্ন মসজিদে মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় এবং একাধিক জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। অন্যবছরের মতো ঈদের জামাতে বৃদ্ধ ও শিশুদের উপস্থিতি ছিলনা বললেই চলে। ছিল না নামাজ শেষে অতি পরিচিত কোলাকুলির দৃশ্য।

নামাজ আদায়ের আগে মুসল্লিরা নিজেদের জায়নামাজ সাথে নিয়ে আসেন পাশাপাশি জীবানমুক্ত হয়ে মসজিদে প্রবেশ করেন। এরপর নিরাপদ দুরত্ব বজায় রেখে তারা শারিরীক দুরত্ব বজায় রেখে সারিবদ্ধ হয়ে বসেন। খুৎবা শোনেন এবং নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষে করোনা ভাইরাস থেকে আল্লাহর কাছে মুক্তি কামনা করে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এবং নামাজ শেষে মুসল্লিরা দ্রুত মসজিদ ত্যাগ করেন। এসময় চির পরিচিত কোলাকুলির দৃশ্য চোখে পড়েনি। প্রথম জামাতের পর মসজিদে দ্বিতীয় জামাতের জন্য জীবানুনাশক ছিটিয়ে মসজিদ জীবানুমুক্ত করা হয়।

যশোর কালেক্টরেট মসজিদে আদায় করেন জেলা প্রশাসক শফিউল আরিফসহ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা। নামাজ শেষে জেলা প্রশাসক বলেন, ধর্মমন্ত্রনালয়ের নির্দেশে আমরা শারিরীক দুরত্ব বজায় রেখে মসজিদে মসজিদে নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা করেছি। মানুষ সতঃস্ফুর্তভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ আদায় করেছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা বিপর্যয়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। এই সময় ধৈয্য ধারণের বিকল্প নেই। আস্তে আস্তে হয়তো শিথিলতা আসবে। কিন্তু স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমাদের জীবনযাপন করতে হবে।

এদিকে সিরাজ হোসেন নামে এক মুসুল্লি জানান, একটু ব্যতিক্রমভাবে শৃঙ্খলার মধ্যে ঈদের নামাজ আদায় করলাম। তবে নামাজ শেষে কোলাকুলির মাধ্যমে কুশলবিনিময় না হওয়ায় একটু কষ্ট থেকে গেল।

মারুফ কবীর নামে অপর এক মুসুল্লি জানান, অন্য বছরের থেকে এবারের ঈদের নামাজ একটু ভিন্ন। ঈদগাহে নামাজ পড়তে পাড়লাম না। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে নামাজ আদায় করেছি। আক্ষেপ যে কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সন্তানকে সাথে নিয়ে আসতে পারেনি এবং বন্ধুদের সাথে কোলাকুলি করতে পারিনি। আশাকরি আগামী ঈদের নামাজ আমাদের চিরপরিচিত রীতিতে পড়তে পারবো। আল্লাহ আমাদের নিশ্চয় ক্ষমা করবেন, ইনশাল্লাহ।

শাহাদৎ হোসেন নামে এক মুসুল্লি বলেন, সারাবিশে^ করোনা ভাইরাসের মহামারির কারণে এবারের ঈদটা অন্যরকম। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মেনে শারীরিক দুরত্ব বজায় ও মাস্ক পড়ে নামাজ আদায় করেছি। শিশু ও বৃদ্ধরা আসেনি। দোয়ার একটি বড় অংশ ছিল করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির জন্য আল্লাহর সাহায্য কামনা। নামাজ শেষে দ্রুত সবাই মসজিদ ত্যাগ করেছেন এবং কুশল বিনিময়টাও হয়নি। শিগগিরই আমরা করোনা মুক্ত হতে পারবো সেই প্রত্যাশাই করি।

http://www.anandalokfoundation.com/