13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঢাকা স্বামীবাগ ইসকন মন্দিরে করোনায় আক্রান্ত ৪৩ জন

Rai Kishori
April 25, 2020 2:15 pm
Link Copied!

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ  ঢাকা স্বামীবাগ ইসকন মন্দিরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ৪০-৪৩ জনের শরীরে। তবে এত নিরাপত্তা থাকা সত্ত্বেও কিভাবে এই ভাইরাস প্রবেশ করলো তা এখনো জানা যায় নি।

আজ শনিবার দি নিউজের প্রতিনিধি বাংলাদেশের ইসকন মন্দিরের প্রধান শাখা ঢাকার স্বামীবাগের সাথে সম্পৃক্ত এবং মন্দিরের আশেপাশে বসবাসরত বাসিন্দাদের থেকে এ তথ্য নিশ্চিত হয়েছেন।

দেশে করোনা শনাক্ত হওয়ার পর আশেপাশে লোকনাথ মন্দির, শিব মন্দিরে হ্যান্ড স্যানেটারাইজার দিয়ে ঢোকা যেত। কিন্তু ইসকন মন্দিরে সন্ধ্যা আরতিতে বাইরের কারো যাওয়া নিষিদ্ধ ঘোষণা করে গেটের বাইরে লিফলেট লাগিয়ে দেয়া হয়। সেই সাথে সারাদিনে ৪টা থেকে ৬টা এই দুই ঘণ্টা বাইরের কেউ ঢোকার অনুমতি ছিল সেই লিফলেটে।

ধীরে ধীরে দেশে করোনার পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেওয়ার আগেই গত ২২ মার্চ পুরোপুরি লকডাউন ঘোষণা করে ভিতর থেকে তালা লাগানো হয় এই মন্দিরে।

গতকাল এক দর্শনার্থী তার বাচ্চা নিয়ে ইসকনের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় বাচ্চাটা ভিতরে ঢোকার জন্য বায়না করে। এক প্রকার বাধ্য হয়ে বাচ্চার গার্ডিয়ান মন্দিরের গেটের দিকে এগিয়ে যেতে থাকলে আশে পাশের লোক বারন করে। বলে কি করছেন, জানেন না ইসকন মন্দিরে ৪৩ জন করোনায় আক্রান্ত। এই পরিস্থিতিতে বাচ্চা নিয়ে বাইরে এসেছেন তারপর আবার ইসকনের দিকে আগাচ্ছেন। দ্রুত ঘরে ফিরে যান আর নিজে ও বাচ্চা দুজনই ঘরে গিয়ে হালকা গরম পানিতে লবন দিয়ে নাক মুখ ধোবেন

সেই খবর দি নিউজের প্রতিনিধি জানলে ইসকনের ভিতরের ব্রহ্মচারীদের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে।

নিতাই চরণ দাস নামে ইসকন মন্দিরের এক ব্রহ্মচারী বলেন, মন্দিরের ভেতরে ৪০ জনের বেশি আক্রান্ত হয়েছে । খুব ভয়াবহ পরিস্থিতি বিরাজ করছে মন্দিরে। আমি এখন রাধাকান্ত মন্দিরে আছি।

গৌরি মল্লিক নামে ইসকন মন্দিরের পাশের এক বাসিন্দা বলেন, আমরা মন্দিরের সকল কীর্তন ঘরে বসে শুনি। এমনকি সামান্য শব্দ ও আমাদের ঘর থেকে শোনা যায়। কিছুদিন ধরে ইসকনে ঢোকা বন্ধ করে দেয় মন্দির কতৃপক্ষ। প্রথমদিকে ভালোই নাম কীর্তন শুনতে পেতাম। ধীরে ধীরে সেগুলো কমতে শুরু করে। আজকাল আর তেমন কোনো শব্দ শোনাই যায় না।

আমার স্বামীকে জিজ্ঞেস করি মন্দিরের কীর্তন কেন প্রায় থেমে গেছে । তখন সে বলে ঠিকই তো, দাড়াও খোঁজ নিয়ে দেখি। তিনি তারপর মন্দিরের ভিতরের অনেকের সাথে যোগাযোগ করে বলেন মন্দিরে প্রায় ৪৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

ইসকনে করোনাভাইরাস

coronavirus in iskcon

ইসকনের পেছনদিকে এক এপার্টমেন্টের বাসিন্দা ও ইসকন ভক্ত বলেন, “মন্দিরে যাওয়া বন্ধ ১ মাসের ও বেশি। ১৯৯১ সালে ওয়ারীতে ইস্কন মন্দির হওয়ার কিছুদিন পরেই আমি ইসকনের সদস্য হই। ২০০০ সালে স্বামীবাগে ইসকন মন্দির হওয়ার পর আমার বাসার কাছে হওয়ায় আমি নিয়মিত যাতায়াত করি। মন্দিরে করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ হওয়ার পর মন্দির যেন থমথমে হয়ে গেছে। ভগবানের কাছে প্রার্থনা এই পরিস্থিতি থেকে যেন তাড়াতাড়ি জগতবাসী মুক্তি লাভ করে।”

গত মাসে দি নিউজের বার্তা সম্পাদক ইসকনে খাবার কিনতে গিয়ে দেখেন অনেক লোকের জটলা। পাশে এজকনের কাছে এরকম কেন জানতে চাইলে সে বার্তা সম্পাদককে বলেন একজন জ্বর হয়ে মারা গেছে। তিনি বলেন জ্বর হয়ে মারা গেল? ভদ্রলোক বলেন ২দিন ধরে অনেক জ্বর ছিল। জ্বর নামছিলোই না। সেই সাথে খুব শ্বাসকষ্ট হয়। তখন করোনা এত প্রবলভাবে না ছড়ানোয় বিষয়টি চাপা পড়ে যায়। বার্তা সম্পাদক মনে করেন ঐ সময়ই ইসকনে কোন ভাবে করোনা প্রবেশ করেছে যা ধীরে ধীরে এখন প্রকাশ পাচ্ছে।

গেন্ডারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাজু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের তাদের কোনো হাসপাতালে না নিয়ে আশ্রমের ভেতরে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। যাদের করোনা পজেটিভ এসেছে তারা আশ্রমের ভেতরেই থাকেন।

গেন্ডারিয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) মামুন শাহ বলেন, আইইডিসিআরয়ের নিদের্শে আক্রান্তরা সবাই আইসোলেশন ও চিকিৎসাধীন আছেন। যাতে এলাকার মানুষের মধ্য ছড়াতে না পারে সেজন্য আমরা আইইডিসিআরয়ের নির্দেশে ওই এলাকার রাস্তা লকডাউন করেছি। সেখানে এখন আর মানুষের যাতায়াতের সুযোগ নাই। মন্দিরের পাশের মসজিদ সহ ঐ গলিতে এখন লোক সমাগম নেই বললেই চলে।

http://www.anandalokfoundation.com/