13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শেখ হাসিনার নৌকা প্রতীক নিয়ে যারা চ্যালেঞ্জ ছুড়ছে তাদের বাংলাদেশ আওয়ামীলীগে ঠায় নেই : মেয়র আশরাফুল আলম লিটন

Link Copied!

যশোর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটন বলেছেন, মুঘল সাম্রাজ্য, রোম সাম্রাজ্য, বৃটিশ সাম্রাজ্যর বড় বড় নেতারা মরে গেছে।

আমরা কেউ ঁেবচে থাকব না। আমাদের মুসলিম উম্মাহর জাতির পিতা হযরত ইব্রাহিম (আঃ)। আর আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আমরা সেই নেতার আদর্শে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ করি। কোন অত্যাচার. অনাচার, জুলুম দমন. পিড়ন আমাদের নেতার আদর্শে ছিলা না। আজ বঙ্গন্ধুর নৌকা প্রতীক জননেত্রী শেখ হাসিনার নৌকা প্রতীক নিয়ে এই জনপদের একজন সংসদ শার্শার লনপুর ্ইউনিয়ন এর নির্বাচিত নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যানকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন আমি লনপুরে চেয়ারম্যান দিতে পারলাম না।

তিনি শেখ হাসিনার স্বারিত নৌকা প্রতীক নিয়ে সংসদ নির্বাচিত হয়েছেন তেমনি এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও শেখ হাসিনার স্বারিত নৌকা প্রতিক নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি শেখ হাসিনার নৌকাকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেছেন আমি লনপুরে চেয়ারম্যান দিতে পারলাম না এবং এ¦ই ইউনিয়নের কুকুরগুলোকে মানুষ বানাতে পারলাম না। কথাগুলো লনপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসাবে বলেন মেয়র আশরাফুল আলম লিটন।

বুধবার শার্শার লনপুর ইউনিয়ন এর আয়োজনে লনপুর স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহসভাপতি সাহাবুদ্দিন চান্দু। এসময় চান্দু উপস্থিত ইফতার পার্টির নেতা কর্মীদের মাঝে অত্যান্ত ভারাক্রান্ত হৃদয়ে বলেন, আমি ব্যথিত আমি লজ্জিত। গতকাল মঙ্গলবার এই ইউনিয়নে এই মাঠে শার্শার এমপি শেখ আফিল উদ্দিন বলেন, এই ইউনিয়নে তিনি চেয়ারম্যান দিতে পারেন নাই। আর এই্ ইউনিয়নের কুকুরগুলোকে তিনি মানুষ বানাতে পারেন নাই। বিভেদ সৃষ্টির জন্য তিনি আরো বলেন আমার ৬ টি মেম্বার থাকলে হবে।

এরই সুত্র ধরে যশোর জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটন বলেন,আমরা লজ্জিত আমরা অপমানিত। একজন সংসদ সদস্য মানুষকে কুকুর বলতে পারে। আমার মনে হয় এই ইউনিয়নের মানুষ কুকুর নয় যে কুকুর বলেছেন সেই হয়ত কুকুর সমক। নয়ত একজন সচেতন মানুষ কি ভাবে এসব কথা বলতে পারে।

এই মানুষটি আজ ২০ টি বছর অত্যাচার নিপীড়ন জুলুম করছে এই শার্শার প্রকৃত আওয়ামীলীগ পরিবারের সাথে। এই অত্যাচারী মানুষটি আওয়ামীলীগের ত্যাগি নেতা কর্মীদের নামে মামলা হামলা দিয়ে শার্শার সম্পদ লুন্ঠন করছে একের পর এক। তার শার্শার মানুষের উপর কি ভাবে দয়া মায়া থাকবে। তার পরিবারের কেউ নেই। নেই তার বংশের ৫০ টি ভোট। এই মাটিতে সে বেড়ে উঠে নাই সে কারনে এই জনপদের মানুষের জন্য তার কখনো কোন সময় মায়া মমতা জন্মায়নি। সে একের পর এক অত্যাচার আর দমন পিড়ন করেছে। মানুষগুলোকে ককুর বলায় বিশ্ব মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে বিচার চেয়ে ফরিয়াদ জানায় শার্শার মানুষকে মুক্ত করতে এই দানবের হাত থেকে।

এসময় তিনি বলেন এই মানুষটি শার্শার মানুষের মান সন্মান মর্যদা এবং সম্পদ সহ সবকিছু লুটপাট করে নিয়ে যাচ্ছে। এই রকম মানুষকে আগামিতে মনোনায়ন না দিয়ে তিনি শার্শার যে কোন মানুষকে মনোনায়ন দেওয়ার জন্য আবেদন জানান। আজ শার্শায় প্রায় ৫৮ জন আওয়ামীলীগ নেতা কর্মী হত্যা হয়েছে। এর সাথে কারা বা কে জড়িত তা শার্শার মানুষ জানে।

এসময় উপস্থিত জনগন হাত তুলে বলে আমরা আগামিতে এধরনের সংসদ চাই না। তিনি বলেন আজ জননেত্রী শেখ হাসিনা যেখানে মানুষকে নিরাপত্তা দিচ্ছে। খাদ্য বস্ত্র বাসস্থান দিচ্ছে। দেশকে উন্নয়নের এক উচ্চ শিখরে পৌছে দিচ্ছে আর সেখানে আওয়ামীলীগের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা কিছু অত্যাচারি নেতা মানুষকে দমন পিড়নে ব্যস্ত রয়েছে । তার মধ্যে শার্শার এই সংসদ একজন।

এর আগে লক্ষনপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন এর সাধারন সম্পাদক কামাল হোসেন ফুল দিয়ে মেয়র আশরাফুল আলম লিটনের সাথে আনুষ্ঠানিক ভাবে যোগদান করেন।

তার সংপ্তি বক্তব্য বলেন আমি এমপি শেখ আফিল উদ্দিনের সাথে রাজনীতি করতাম। এখন দেখছি তার কাছে আওয়ামীলীগ নিরাপদ নয়। সে মানুষকে ভালবাসা দিতে পারে না। সে নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে প্রাথী দাঁড় করিয়ে বিভেদ সৃষ্টি করে। আমাকেও সে একই কাজ করিয়েছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক আহাসান উল্লাহ. শার্শা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান, শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ফজলুল হক বকুল, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মালেক, প্রচার সম্পাদক ইলিয়াছ আযম, দপ্তর সম্পাদক আজিবর রহমান শ্রম বিষয়ক সম্পাদক শেখ কোরবান আলী, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শেখ সারোয়ার, অর্থ সম্পাদক খোদাবক্স, শার্শা উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আমেনা খতিব.লনপুর ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারা খাতুন, নিজামপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সেলিম রেজা বিপুল, সাবেক শার্শা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রুহুল কুদ্দুস, আওয়ামীলীগ নেতা মিজানুর রহমান, ওবাইদুর রহমান, বেনাপোল পৌর আওয়ামীলীগের ৯ নং ওয়ার্ডের সাধারন সম্পাদক আশাদুজ্জামান আশা ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম সজল প্রমুখ।

http://www.anandalokfoundation.com/