13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রংপুর বিএনপি জামায়াতকে নিয়ে টেনশনে আছে

admin
December 20, 2015 12:34 pm
Link Copied!

রংপুর প্রতিনিধি: বিএনপির রাজনৈতিক মিত্র জামায়াতকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে রংপুর বিএনপি। ভোটের দিনক্ষণ চলে আসলেও প্রকাশ্যে মাঠে কাজ করছে না জামায়াত। বরং এই বিভাগে ২০টি পৌরসভার মধ্যে ৬ টিতেই বিএনপি জামায়াতের প্রার্থী রয়েছে। জামায়াত স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়ছে। জামায়াত এই নির্বাচনে প্রার্থী দিলেও দলীয় প্রতীকের স্থানীয় এই নির্বাচনে সরগরম ভোটের মাঠে তাদের গভীর নীরবতাই নানা মুখরচক আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, যে সব পৌরসভায় জামায়াতের প্রার্থী নেই সেসব এলাকায় বিএনপির পক্ষে এখনও করছে না জামায়াত শিবিরের কর্মীরা। উল্টো কোথাও কোথাও আওয়ামী লীগ এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী বা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার অভিযোগ উঠেছে।

রংপুরের  বদরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে এক সময়ের ডাকসাইডের আওয়ামী লীগ নেতা ও এবারের স্বতন্ত্র প্রার্থী আজিজুল ইসলামের পক্ষে কাজ করার অভিযোগ উঠেছে জামায়াত নেতাদের বিরুদ্ধে। আজিজুল ইসলামের পক্ষে জামায়াত নেতা মোখলেছুর রহমানসহ কয়েকজন কাজ করছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় বিএনপি কর্মীরা। শুধু তাই নয়, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির মেয়র প্রার্থী শামীম আরা বেগম নিশ্চিত করে জানান, জামায়াত কর্মীরা তার পক্ষে কাজ করছে এবং তাকে ভোট দিবে।

এদিকে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী উত্তম সাহা অভিযোগ করেছেন, জামায়াতের নেতা কর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী আজিজুল ইসলামের পক্ষে কাজ করছে। আর আজিজুল ইসলাম বলছেন, উত্তম সাহ এর পক্ষে কাজ করছে জামায়াত।

তবে প্রকাশ্যে মাঠে জামায়াতের কোনো নেতা কর্মীকে ভোট চাইতে দেখা না গেলেও বিএনপির প্রার্থী পরিতোষ চক্রবর্তির আশা, শেষবেলায় জামায়াত জোটের পক্ষে কাজ করবে। কারণ এখানে জামায়াতের কোনো প্রার্থী নেই।

জানা গেছে, পঞ্চগড়ে বিএনপির বিপক্ষে জামায়াত স্বতন্ত্র প্রার্থী দিয়েছে। জেলা জামায়াতের আমীর আব্দুল খালেক ‘নারিকেল গাছ’ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। আর বিএনপির প্রার্থী রয়েছে তৌহিদূল ইসলাম। আগ থেকেই এই এলাকায় জামায়াতের শক্ত অবস্থান থাকলেও সেখানে বিএনপির সাবেক স্পিকার জমির উদ্দিন সরকারের নির্বাচনী এলাকা।

নীলফারীতে ২ টি পৌরসভাতে বিএনপির বিপক্ষে প্রার্থী দিয়েছে জামায়াত। জলঢাকায় জামায়াতের হাজী মকবুল হোসেন ‘জগ’ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোট করছেন। বিএনপির প্রার্থী আছেন ফাহমিদ ফয়সাল চৌধুরী।

একই অবস্থা সৈয়দপুর পৌরসভাতেও। সেখানে বিএনপির প্রার্থী আমজাদ হোসেন ভবে, জামায়াতের ছিল হাফেজ আব্দুল মোনতাকিন। তবে যাচাই বাচাই-এ তিনি বাদ পড়েন। এ কারণে সেখানে স্নায়ু যুদ্ধ চলছে বিএনপি জামায়াতের মধ্যে।

এদিকে, গাইবান্ধার ৩টি পৌরসভার মধ্যে বিএনপির বিপক্ষে জামায়াতের প্রার্থী আছে ২ জন। এরমধ্যে গাইবান্ধা সদরে নারকেল গাছ প্রতীক নিয়ে জামায়াত স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ফেরদৌস আলম ফিরোজ ভোট করছেন। আর বিএনপির প্রার্থী আছেন আজাদুল করীম প্রামানিক নিপু, সুন্দরগঞ্জে বিএনপি প্রার্থী শহিদুজ্জামান শহিদ আর গবিন্দগঞ্জে বিএনপি ফারুক আহমেদ। সেখানে জামায়াত প্রার্থী দিলেও পরে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ায়।

দিনাজপুরের ৫টি পৌরসভার মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে জামায়াত ৩টি ভোট করছে।

ঠাকুরগাঁও জেলায় ৩টি পৌরসভার মধ্যে এবার ২টি পৌরসভায় নির্বাচন হচ্ছে।  ঠাকুরগাঁও সদরে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচীব মীর্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীর এর ছোট ভাই ফয়সাল আমীন নির্বাচন করছেন। সেখানে জামায়াতের কোনো প্রার্থী নেই। ঠাকুরগাঁও এর পীরগঞ্জ পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী হয়েছেন রাদিউর রহমান রাজু। সেখানেও জামায়াতের কোনো প্রার্থী নেই। প্রার্থী না থাকলেও কাজ করছেন না তারা।

এদিকে আওয়ামী ঘরনার ভোটারদের ধারণা, কুড়িগ্রামের ৩টি পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থীর ওপর প্রতিশোধ নিতে পারে জামায়াত। কারণ হিসেবে জানা গেছে, গত উপজেলা নির্বাচনে জেলা জামায়াতের আমির অধ্যাপক আজিজুর রহমান স্বপন ভুরুঙ্গামারী উপজেলায় উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। সেখানে বিএনপিও প্রার্থী দেয়ায় অল্প ভোটে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর কাছে হেরে যান আজিজুর রহমান স্বপন। এই সুযোগ কাজে লাগাতে চায় আওয়ামী লীগ। এছাড়াও স্থানীয় বিএনপি কর্মীরা আশঙ্কা করছেন, গত উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের ক্ষোভ নিয়ে জামায়াত কাজ করলে বিএনপির প্রার্থীরা অল্পতে হেরে যেতে পারেন। সে জন্য সব ভেদাভেদ ভুলে কাজ করতে হবে। কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী, কুড়িগ্রাম সদর, উলিপুর পৌরসভায় ভোট গ্রহণ হবে।

লালমনিরহাট সদর ও পাটগ্রাম পৌরসভায় ভোট গ্রহ হবে। সেখানে বিএনপির প্রার্থী থাকলেও জামায়াতের কোনো প্রার্থী নেই। তারা প্রকাশ্যে কাজও করছে না।

সরেজমিনে গিয়ে বিএনপি, জামায়াত কর্মী এবং ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে এমন চিত্র পাওয়া গেছে।

স্থানীয় ভোটাররা জানান, এখানে স্নায়ু যুদ্ধ চলছে জোটের প্রার্থীর মধ্যে। তবে যে সব এলাকায় বিএনপি-জামায়াতের আলাদা প্রার্থী আছে সেসব এলাকায় মেয়র পদটি অন্যের ঘরে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান স্থানীয়রা। অন্যসব এলাকায় সমন্বয় না করলে বিপত্তি ঘটতে পারে।

স্থানীয় বিএনপির নেতা কর্মীরা জানান, জামায়াত প্রকাশ্যে অপ্রকাশ্যে বিএনপির পক্ষে কাজ করছে না। এ নিয়ে নানা কথা শুরু হয়েছে। অনেকেই বলাবলি করছে, নিজেদের রক্ষায় অনেকে সম্ভাব্য যারা মেয়র হতে পারেন তাদের পক্ষে কাজ করছে।

বিএনপি ও জামায়াতের নেতা কর্মীরা জানান, ভোটের মাঠ দারুণ উর্বর। বিএনপি জামায়াত সমন্বয় করলে অধিকাংশ মেয়র পদ তাদের ঘরে আসবে।

এ নিয়ে বিএনপির রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পদক আসাদুল হাবিব দুলুর সঙ্গে মোবাইলে একাধিকবার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে রংপুর জেলা বিএনপির সহসভাপতি পরিতোষ চক্রবর্তি জানান, জামায়াত কেন্দ্রের নির্দেশের অপেক্ষায় আছে। তারা আমাদের সঙ্গে কাজ করবে।

রংপুরের জামায়াত নেতা শাহ মোহাম্মদ রোস্তম জানান, এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। কেন্দ্র যেভাবে নির্দেশ দিবে সেভাবে কাজ করবো আমরা।

http://www.anandalokfoundation.com/