ঢাকা

মেহেরপুরে শিশু রাজ’র ঈদ আনন্দ!

admin
September 26, 2015 10:34 pm
Link Copied!

মেহের আমজাদ, মেহেরপুর: ঈদুল আযহা মুসলমানদের একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান। এ অনুষ্ঠানকে ঘিরে আত্মীয়-স্বজনরা এক সাথে একই স্থানে ঈদ আনন্দ উপভোগ করার চেষ্টা করে। তাইতে ঈদের ছুটির আগেই চাকরীজীবীরা নাড়ির টানে নিজ গ্রামে ফিরে আসে। একসাথে ঈদ উপভোগ করার যে আনন্দ সেই আনন্দ ভাগাভাগি করার মধ্যে আলাদা একটা অনুভ’তি আলাদা একটা মজা রয়েছে। তাইতো বাস-ট্রেন আর লঞ্চঘাটে যাত্রীদের ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা। বাড়ি ফিরতেও অনেকে জীবন হারাচ্ছেন । তাতে দুঃখ নেই। বাড়িতে সবার সাথে ঈদ করতে হবে এটাইতো বড় কথা। এত কিছুর পরেও সবার কি ঈদ আনন্দ হচ্ছে ?

ঈদ মানে আনন্দ। আর এ আনন্দ শিশুদের জন্য সব চেয়ে বেশি। বাবা-মায়ের আদরে ঈদের আনন্দ বুকে নিয়ে শিশুরা ছুটে বেড়ায় এপাড়া – সেপাড়া। খেলবে, খাবে, ঘুরে ফিরবে এটাইতো তদের ঈদের খুশি- ঈদের আনন্দ। কিন্তু শিশু রাজ’র (৬) ঈদ কেমন হচ্ছে ? ঈদের দিনে ছিল সে একাকি। মা-বাবা তার কাছে নেই। বড় অবহেলায় রয়েছে। ঈদুল ফিতরের কেনা জামা-প্যান্ট এ ঈদে পরলেও তার মনে অনেক কষ্ট। নতুন জামা-প্যান্ট পরে আর সব শিশুরা আনন্দ করছে, খেলছে, ঘুরছে-ফিরছে। সে বড় অসহায়ের মত তাদের পিছে পিছে ঘুরছে-ফিরছে। অন্যদের মত স্বাভাবিক হতে পারছে না। সে কাকে কি বুঝাবে ? কে তাকে বুঝবে ? বড় অবহেলায় বেড়ে উঠতে হবে তাকে। নিয়তি কি তার ভাগ্যে এটিই লিখে রেখেছে ?

রাজ বর্তমানে তার দাদির কাছে রয়েছে। মেহেরপুর শহরের বাসস্ট্যান্ড-কাজি অফিসপাড়ার রাজের বাবা ইমন একজন নেশাগ্রস্ত মানুষ। সম্প্রতি পুলিশ তাকে মাদকসহ আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করলে আদালত তাকে মাদক নিয়ন্ত্রন আইনে ৬ মাসের জেল দিয়েছেন। আদালতের নির্দেশে তাকে ওই দিন বিকেলে পুলিশ তাকে কারাগারে পাঠিয়েছে।

স্থানীয় কয়েকজন সমাজ সেবক জানালেন- রাজের বাবা মাদকাসক্ত। তার মা রিতা বাধ্য হয়ে পরের বাড়ি ঝিয়ের কাজ করতেন। রাজের বাবা ঈমন নেশার টাকা যোগাড় করতে স্ত্রী রিতার শাড়ি, সংসারের হাড়ি পাতিল বিক্রি করে দিত। বাধা দিলে তার উপর চলত অমানুষিক নির্যাতন। স্বামীর অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে রিতা ছেড়ে চলে গেছেন স্বামীর ঘর। অল্প বয়স তার। তাই একমাত্র ছেলে রাজকে সাথে না নিয়ে অন্যের সংসারে উঠেছেন তিনি। মাদকের কারণে এভাবে অনেকের সংসার ভাঙছে। বাবা-মা থাকতেও এতিম তারা। ঈদ আনন্দ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে রাজের মত মেহেরপুরের বহু শিশু।

বাবা জেলে আর মা অন্যের ঘরে। তাইতো রাজ বড় একা। আজ ঈদের দিনে রাজকে খোঁজ নেয়নি মা-বাবার কেউই। রাজ জানায়- বাবা জেলে। মা খোঁজ নেইনি। ঈদের জামা কিনে দেয়নি কেউ। সে এখন দাদী নেগেরার কাছে থাকে। তার দাদা আব্দুল কুদ্দুস নিজেও একজন মাদকাসক্ত ব্যক্তি।

এসব শিশুদের ভবিষ্যৎ কি? এবিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ মঞ্জুরুল কবীর রিপন বলেন- বড়ই অনাদরে বেড়ে উঠছে এসব শিশুরা। এদেরকে এভাবে রেখে দিলে ভবিষ্যতে এরাও মাদক সেবন করবে। কিংবা অনাদরে বেড়ে উঠা এসব শিশু অন্ধকার জগতে পা বাড়াবে। তাই এদের মত শিশুদের সরকারি শিশু পরিবার কিংবা হেফজখানায় ভর্তি করা উত্তম হবে। পাশাপাশি সমাজকে মাদক মুক্ত করা খুবই জরুরি।

http://www.anandalokfoundation.com/