13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভোট গ্রহণে প্রস্তুত বরিশালের ২১ আসনের ২৮১৮ কেন্দ্র

Link Copied!

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সবধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করার মধ্যদিয়ে রবিবার সকাল থেকে বরিশাল বিভাগের ছয়টি জেলা ও ৪২টি উপজেলা মিলিয়ে ২১টি আসনের ২৮১৮টি কেন্দ্রে একযোগে শুরু হতে যাচ্ছে ভোটগ্রহণ। এখন শুধু অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে ভোটগ্রহণের অপেক্ষায় আছেন সংশ্লিষ্টরা।

শনিবার সকাল থেকে প্রিসাইডিং অফিসারদের তত্ত্বাবধানে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের সহায়তায় ভোট কেন্দ্রগুলোতে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স থেকে নির্বাচনী সকল সরঞ্জাম পাঠানো শুরু করেছে প্রশাসন। ভোটকেন্দ্রে ব্যালট পেপার পাঠানো হবে ভোটের দিন (রবিবার) সকালে।

তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বরিশালের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ আলাউদ্দিন বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, প্রিসাইডিং কর্মকর্তাসহ ভোটগ্রহণের সাথে সংশ্লিষ্ট সবাই যথাসময়ের মধ্যে স্ব-স্ব ভোট কেন্দ্রে পৌঁছেছেন।

তিনি আরও বলেন, বিভাগের ২৮১৮টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ২৫০ কেন্দ্র দুর্গম হিসেবে চিহ্নিত হওয়ায় একদিন আগে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে ব্যালট পেপার সরবরাহ করা হয়েছে। বাকি কেন্দ্রে নির্দেশনা অনুযায়ী ভোটের দিন (৭ জানুয়ারি) সকালে পাঠানো হবে।

আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা বলেন, আমরা জনগণকে সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার দিতে বদ্ধ পরিকর। সে লক্ষ্যে ভোটের দিন পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। পুরো নির্বাচন প্রক্রিয়াকে ঘিরে ইতোমধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের কার্যক্রম চলমান রেখেছে।

আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল বিভাগে ২১টি আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৭৪ লাখ ২৩ হাজার ৫২২ জন। এর মধ্যে ৩৭ লাখ ৭৪ হাজার ১৪৮ জন পুরুষ এবং ৩৬ লাখ ৪৯ হাজার ৩১৭ জন নারী। হিজড়া (তৃতীয় লিঙ্গ) ভোটার রয়েছে ৫৭ জন। আর এ ভোটারদের জন্য ২৮১৮টি ভোটকেন্দ্রে পুরুষদের জন্য ৮ হাজার ১১৬ এবং নারীদের জন্য ৯ হাজার ১৮০টিসহ ১৭ হাজার ২৯৬টি কক্ষে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে। পাশাপাশি অস্থায়ী ভোট কক্ষের সংখ্যা রয়েছে ১৩২০টি।

সূত্রে আরও জানা গেছে, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর পরই ছয় জেলার ছয়জন জেলা প্রশাসককে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এবং বরিশাল সিটি করপোরেশন এলাকায় অতিরিক্ত তিন জনসহ ৪৫ জন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। একইসাথে বরিশাল জেলায় ১৬ জনসহ গোটা বিভাগে ৬১ জন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটকে নির্বাচনী এলাকায় আসনভিত্তিক নিয়োগ করা হয়। পাশাপাশি ২১ জন বিভিন্ন পদমর্যাদার বিচারকের সমন্বয়ে ইলেক্টোরাল ইনকোয়ারি কমিটি গঠণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গোটা বিভাগের ২১টি আসনে বিভিন্ন দলের ৯৫ জন প্রার্থী ও স্বতন্ত্র ২৫ জন প্রার্থীসহ ১২০ জন প্রার্থী নির্বাচনের ভোটের মাঠে রয়েছেন। এরমধ্যে মৌখিকভাবে জাতীয় পার্টির দুইজন ও স্বতন্ত্র একজন প্রার্থী নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

http://www.anandalokfoundation.com/