13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জগৎ রায় ঠাকুরের(চড়া) বংশীয় মহাসম্মেলন

রাই কিশোরী
March 20, 2022 11:40 am
Link Copied!

বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দুই দিন ব্যাপী বংশীয় সম্প্রীতি, রক্তের বন্ধন, পারস্পারিক সু-সম্পর্ক সৃষ্টি, রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ঐক্য ও আধ্যাত্মিক উন্নয়নের প্রয়াসে জগৎ রায় ঠাকুরের বংশীয় মহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গত ১৮ ও ১৯ মার্চ(শুক্র ও শনিবার) বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়া থানাধীন রামানন্দের আঁক গ্রামে বড় গাইন বাড়ীতে এ মহা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানের প্রথম দিনে(১৮ মার্চ) শুক্রবার সকাল ১০ঘটিকায় শ্রীমদ্ভগবদ গীতা পাঠ ও মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর প্রয়াত পূর্বপুরুষদের উদ্দেশ্যে জলদান করা হয়।

সকাল ১১-০০টা থেকে মেডিকেল ক্যাম্পের মাধ্যমে চলে ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান।  সকাল ১১-৩০মিনিটে বংশীয় মেধাবী ছাত্রদের পরিচয় ও তরুণ প্রজন্মকে নিয়ে বিশেষ আলোচনা।

দুপুর-০১-৩০মিনিটে মধ্যাহ্ন ভোজন।

বিকেল ০৩-০০টায় জ্ঞাতি পরিচয় ও সম্পর্ক নির্ধারণ পর্ব।

বিকাল ০৫ ঘটিকায় আলোচনা সভা।

সন্ধ্যা ০৬-১৫মিনিটে সন্ধ্যা আরতি ও প্রার্থনা অনুষ্ঠান।

রাত ৮টায় শ্রীমদ্ভগবদ গীতা পাঠের পর প্রথম দিনের অনুষ্ঠান সমাপ্তি হয়।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিনে(১৯ মার্চ) শনিবার সকাল ৯ ঘটিকায় শ্রীমদ্ভগবদগীতা পাঠ এর মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান আরম্ভ হয়। এর পরে প্রয়াত পূর্বপুরুষ ও কুলমাতাদের আত্মার শান্তি কামনায় প্রার্থনা করা হয়।

সকাল ১০ ঘটিকায় বংশের বয়োজ্যেষ্ঠ ও কুলমাতা সম্বর্ধনা ও আশীর্বাদ বাণী প্রদান। সকাল ১১ ঘটিকায় ২০২০ ও ২০২১ সালের এসএসসি ও  এইচএসসি মেধাবী শিক্ষার্থীদের সম্বর্ধনা প্রদন।

সকাল ১১-৪০ মিনিটে সম্মাননা স্মারক প্রদান।

দুপুর ১২ঘটিকায় বংশের উৎপত্তি ও ক্রমবিবর্তন ইতিহাস পাঠ করা হয়। দুপুর ১২-৩০ মিনিটে এলাকা ভিত্তিক প্রতিনিধিদের বক্তব্য পর্ব।

দুপুর ০২ঘটিকায় মধ্যাহ্ন ভোজন। বিকেল ৩ ঘটিকায় আমন্ত্রিত অতিথি ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের ভাষণ পর্ব।

বিকেল ৫ ঘটিকায় সাংগঠনিক আলোচনা ও পরবর্তী সম্মেলনের স্থান নির্ধারণ।

সন্ধ্যা ৬-১৫ঘটিকায় সন্ধ্যা আরতি ও প্রার্থনা অনুষ্ঠান।

সন্ধ্যা ৭ ঘটিকায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

বংশীয় মহাসম্মেলনে  শিশু সাহিত্যিক ও ঔপন্যাসিক প্রফুল্ল চন্দ্র গাইন, ডাঃ সুশান্ত বৈদ্য, ডাঃ শিশির গাইন, কৃষি কর্মকর্তা সুজিত মন্ডল, মেডিকেল শিক্ষার্থী শুক্লা গায়েন ও ঐশ্বরিয়া জ্যোতি গায়েনকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।

জানা যায় জগৎ রায় ঠাকুর এর পূর্বপুরুষ সত্ত্বগুণের অধিকারী ছিল বলেই ব্রাহ্মণ বর্ণের ঠাকুর পদবী লাভ করেছিল। তার আদি নিবাস ছিল যশোর জেলার ভিমের টিলা নামক স্থানে।

জগৎ রায় ঠাকুর ছিলেন খ্যাতিমান গায়ক। তার গানের সুর ছিল খুব চড়া। সেই চড়া সুর থেকে চড়া গাইন নামে পরিচিতি পান তিনি। আর সেসময় সেবা কর্ম অনুযায়ী শূদ্র পদবীতে পরিবর্তন হয়ে যায়। অর্থাৎ রায় ঠাকুর পদবী থেকে চড়া গাইন পরিবর্তিত হয়। আর এই পদবী থেকে বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে জীবন ধারনের জন্য বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত হয়। কর্ম অনুযায়ী ঠাকুর, চৌধুরী, সরদার, চড়া, গাইন, গায়েন, কীর্তনীয়া, সরকার, সেন, হালদার, বৈদ্য, বিশ্বাস, মন্ডল, রায়, তালা, ঘরামী প্রভৃতি পদবী প্রকাশ পায়।

পবিত্র গীতায় শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন,

শমো দমস্তপঃ শৌচং ক্ষান্তিঃ-আর্জবমেব চ।

জ্ঞানং বিজ্ঞানমাস্তিক্যং ব্রহ্মকর্ম স্বভাবজম্‌।।১৮/৪২

গুণ ও কর্মের বিভাগ অনুসারে চারটি বর্ণ সৃষ্টি করিয়াছি। সেরূপ আদি কালে মনসংযম(শম), ইন্দ্রিয়কে সংযমের ক্ষমতা(দম), নিজ ধর্ম পালনে চিত্তে প্রসন্ন স্বীকার(তপস্যা), মন/বুদ্ধি/ইন্দ্রিয়/শরীর ইত্যাদি পবিত্র রাখা(শৌচ), শক্তি/অধিকার/যোগ্যতা থাকলেও কায়মনোবাক্যে অপরাধ স্বীকার করলে প্রসন্নভাবে ক্ষমা করা(ক্ষান্তি), কায়মনো বাক্যে সরল থাকা(আর্জব), বেদ/শাস্ত্র/পুরাণ ইতিহাস সম্পর্কে জ্ঞান, যজ্ঞ-কর্ম বিধি ঠিকমতো জানা ও পালন করা(বিজ্ঞান), বেদ/শাস্ত্র/পরমাত্মা/পরলোক ইত্যাদির প্রতি অন্তরে শ্রদ্ধা(আস্তিক্য) প্রভৃতিতে সত্ত্বগুণের অধিকারী ছিল বলেই ব্রাহ্মণ বর্ণের পদবী লাভ করে ঠাকুর পদবী ছিল।

পরবর্তীতে সত্ত্বগুণের সাথে রজোগুণ মিশে জীবিকা কর্ম আলাদা হয়ে যায়। শৌর্য বা পরাক্রম,তেজ, ধৈর্য,প্রজা পরিচলনের ক্ষমতা, যুদ্ধে অপরান্মুখতা,দানে মুক্তহস্ত,শাসন ক্ষমতা নিয়ে ক্ষত্রিয় স্বভাবজাত কর্ম প্রবৃত্ত হয় চৌধুরী/সরদার/সেন প্রভৃতি পদবী লাভ করেছিল।

আবার সত্ত্ব গুণ হারিয়ে রজ ও তমো গুণের প্রভাবে কৃষিকাজ, গোরক্ষা করা, তাদের বংশ বৃদ্ধি করানো এবং শুদ্ধ ব্যবসায়-বানিজ্যের দিকে মন চালিত হয়ে বৈশ্য স্বভাবজাত কর্ম প্রবৃত্ত হয়ে হালদার/সরকার/রায়/সেন প্রভৃতি পদবীতে পরিবর্তিত হয়।

আবার সত্ত্ব ও রজ গুণের প্রভাব হারিয়ে গিয়ে শুধু তমো গুণে প্রবৃত্ত হয়ে চারি বর্ণের লোকের সেবা করা, সেবার সামগ্রী প্রস্তুত করা এবং চার বর্ণের মানুষের কাজে যাতে কোন বাঁধা না আসে, সকলে যাতে সুখে-আরামে থাকে সেই ভাবনাতে নিজ শক্তি, সামর্থ্য, যোগ্যতা দ্বারা সকলের কাজে ব্যাপৃত থাকা উদ্দেশ্যে শূদ্রের কর্ম নিযুক্ত হয়। গান গেয়ে জ্ঞান ও আনন্দ দান করতো বলে গাইন, কীর্তনীয়া। জীবের চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে বৈদ্য পদবী লাভ। জীবিকা নির্বাহে অন্যান্য সেবাকর্মে প্রবৃত্ত হয়ে বিশ্বাস, মন্ডল, তালা, ঘরামী প্রভৃতি পদবী প্রকাশ পায়।

জগৎ রায় ঠাকুর এর পূর্বপুরুষ ব্রাহ্মণ স্বভাবজাত ছিলেন। পরবর্তীতে গুণের প্রভাবে জীবিকা নির্বাহের পথে ধীরে ধীরে ক্ষত্রিয়, বৈশ্য ও শূদ্রের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়।

অর্থাৎ প্রত্যেক ব্যক্তি জন্মের পরেই শূদ্র হয়। তার কর্ম ও গুণের প্রভাবে দ্বিজত্ব লাভ করে ভিন্ন বর্ণের পদবী লাভ করে সকলের সাথে সম্পর্কের বন্ধনে যুক্ত হওয়া সনাতন ধর্মের অন্যতম বৈশিষ্ট।

http://www.anandalokfoundation.com/