13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষরীত নৌকা প্রতিকের মানোনায়ন পত্র বিতরন

admin
May 10, 2016 7:22 am
Link Copied!

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ শার্শা উপজেলার ১১ টি ইউনিয়নের ১০টি ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের ১০ জন চেয়ারম্যানকে প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষররিত মনোনায়নপত্র বেনাপোল পৌরমেয়র সমর্থিত ৫ জনকে বেনাপোল পৌর অডিটরিয়মে বিতরন করেছে প্রধান অতিথী হিসাবে যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সহ- সভাপতি একে এম খয়রাত হোসেন।

সোমবার বেলা ১২ টার সময় প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষরিত মনোনায়ন পত্র বিতরনের সময় বিশেষ অতিথী হিসাবে উপস্তিত ছিলেন যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম, আশরাফুল আলম লিটন, যশোর জেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক মাহমুদ হোসেন বিপু, যশোর জেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি মোস্তফা ফরিদ আহম্মদচৌধুরী সহ প্রমুখ। বেনাপোল পৌর অডিটরিয়মে শত শত নেতাকর্মিরা মনোনায়নপত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীদের করতালি দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

শার্শা উপজেলায় মেয়র সমর্থিত যারা মনোনায়ন পেলেন তারা হলো লক্ষন পুর ইউনিয়নের সালাউদ্দিন, শান্তি ডিহি ইউনিয়নে  একে এম ফজলুল হক বকুল, বাহাদুরপুর ইউনিয়নের মিজানুর রহমান, পুটখালি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়রম্যান আ: গফফার সরদার, নিজামপুর ইউনিয়নের সেলিম রেজা বিপুল।

প্রধানমন্ত্রী মাননীয় শেখ হাসিনার স্বাক্ষরিত মনোনায়নপত্র বিতারনের সময় প্রধান অতিথী যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সহ- সভাপতি একে এম খয়রাত হোসেন বলেন, দল মত নির্বিশেষে আওয়ামীলীগের টিকেটে যারা প্রার্থী হয়েছে তাদের ভোট দিয়ে জয়লাভ করাতে হবে। নিজেদের ভিতর ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে দলীয় মানোনায়ন পাওয়া প্রার্থীদের জয়ী করতে হবে।

বেনাপোল পৌরমেয়র ও যশোর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম লিটন বলেন,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ১০ জনকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ করেছেন।  আজ আমাদের নিজেদের ভিতর দলীয় কোন্দলে ৫ জনকে মনোনায়ন পত্র তুলে দিচ্ছি। সবাইকে আজ একমঞ্চে পেলে খুশি হতাম। তিনি শার্শা -১ আসনের এমপি শেখ আফিল উদ্দিনকে উদ্ধেশ্য করে বলেন আজ তিনি ১০ জন এবং আমি ১০ জন প্রার্থীর নাম প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মানোনায়ন পাওয়ার জন্য দিয়েছিলাম। তিনার সমর্থিত ৫ জন এবং আমার সমর্থিত ৫ জন আমরা মনোনায়নপত্র পেয়েছি। কিন্তু অত্যান্ত দু:খের বিষয় আমাদের এমপি শেখ আফিল উদ্দিন আমার সমর্থিত প্রার্থীদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে বিদ্রোহী প্রার্থী দাঁড় করাতে ঘোষনা দিয়েছেন। এবং এ প্রার্থীরা যাতে মাঠে নামতে না পারে এবং তাদের মাঠে নামলে হাত পা ভেঙে দেয়ার ঘোষনা দিয়েছেন এটা অত্যান্ত লজ্জাস্কর ব্যাপার।

তিনি প্রার্থীদের হতাশ না হয়ে মাঠে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়ার জন্য এবং জয়ী হওয়ার জন্য সবাইকে এক সঙ্গে কাজ করার  আহবান জানান। তিনি বলেন আজ প্রধানমন্ত্রী শার্শায় যে ১০ জনকে মনোনায়ন দিয়েছেন সবাই আমাদের ভাই। এ ১০ জনকে জয়ী করতে  হবে। আমার সমর্থিত অন্য ৫ জন না তাতে কিছু যায় আসে না ।

তিনি বলেন সবাই আমাদের আওয়ামীলীগের কর্মী দলীয় কর্মী এটা আমার বা এমপি সাহেবের ব্যাক্তিগত কিছু না। আমরা নৌকা প্রতীক চেয়রম্যান পদপ্রার্থীদের পাশে দাঁড়িয়ে কাজ করব। নিজেদের ভিতর বিভেদ ভুলে যাব। তিনি আরো বলেন, শার্শায় কোন মাস্তানি চলবে না। এখানে মাস্তানি ভুলে গিয়ে শেখ হাসিনার আদর্শের রাজনীতি করতে সকলকে এগিয়ে আসতে বলেন। শার্শাায় যারা মাস্তানি করেছে তাদের মাস্তানির দিন শেষ হয়ে আসছে আগের চেয়ে ছোট হয়ে গেছে। তিনি আদর্শর রাজনীতি এবং আওয়ামীলঅীগের সকল নেতা কর্মীকে সমান চোখে দেখে বিদ্রোহী প্রার্থী না দিতে আহবান করেন এমপি শেখ আফিল উদ্দিনের কাছে।

http://www.anandalokfoundation.com/