13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রতিষ্ঠার ৬০ বছরেও সরকারী উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি ধামইরহাটের পলাশবাড়ী চিমনিয়া দাখিল মাদ্রাসায়

নিউজ ডেস্ক
February 2, 2022 4:49 pm
Link Copied!

ধামইরহাট(নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ নওগাঁ জেলার ধামইরহাট উপজেলার আড়ানগর ইউনিয়ন এর অন্তর্গত পলাশবাড়ী চিমনিয়া দাখিল মাদ্রাসা একটি ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। পড়ালেখা-শিক্ষার্থীদের ব্যাপক সমারোহ থাকলেও প্রতিষ্ঠানটি সরকারের উন্নয়ন বঞ্চিত।

১৯৬২ সালে মাদরাসটি প্রতিষ্ঠিত হয়ে আজ পর্যন্ত ওই এলাকার গরীব অসহায় মানুষের সন্তানদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়ে যাচ্ছে। নানা প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও প্রতিষ্ঠানটিতে বিজ্ঞান ও মানবিক বিভাগে পাঠদান চালু রয়েছে। ৬ষ্ঠ থেকে ১০ শ্রেণি পর্যন্ত ৩শ’জন শিক্ষার্থী ও ১৯ জন শিক্ষক কর্মচারী রয়েছে। এই ব্যাপক সংখ্যক শিক্ষার্থীর শিক্ষা কার্যক্রম সুষ্ঠভাবে পরিচালনা করার জন্য অবকাঠামোগত নানা ধরনের ঘাটতি রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটিতে তথ্য প্রযুক্তির আধুনিক যুগে নানা ধরনের সমস্যা যেমন- কম্পিউটার ল্যাব, ক্লাসরুম, শিক্ষকদের অফিসকক্ষ, ল্যাবরেটরী, গ্রন্থাগার, বিজ্ঞানাগার, খেলারমাঠ, শহীদ মিনার এগুলোর কোনটির একটিও উক্ত প্রতিষ্ঠানটিতে নেই।

তাছাড়া স্বাস্থ্যসম্মত ওয়াসরুম সহ স্যানিটেশন ব্যবস্থা অপ্রতুল। স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় অনেক দিনের পুরোনো একটি দ্বিতল ভবন থাকলেও অনেক আগেই পিলারে ফাটল ধরেছে, এখন তা খুবই ঝুঁকিপূর্ন। এই ঝুুঁকিপূর্ন ভবনটিতেই শিক্ষক ও র্শিক্ষার্থীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিয়মিতভাবে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছেন। ভবনটি ঝুকিপূর্ন হওয়ায় অনেক অভিভাবক প্রতিষ্ঠানে ছেলে-মেয়েকে ভর্তি করাতে চাননা। উল্লেখ্য প্রতিষ্ঠানটি স্থাপিত হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত কোনো সরকারি অনুদানের ফ্যাসিলিটিজ ভবন নির্মিত হয়নি। মাদ্রাসার উত্তর পাশে একটি পুরাতন টিনসেড বিল্ডিং অবস্থিত, টিনগুলো পুরানো হওয়ায় বর্ষাকালে টিন ছিদ্র হয়ে বৃষ্টির পানি পড়ে শিক্ষার্থীদের জামাকাপড়, বইখাতা সহ প্রয়োজনীয় আসবাবপত্রসমূহ ভিজিয়ে যায়। ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র আবু ইউসুফ বলেন, ‘বর্ষাকালে বিল্ডিং এর টিন ছিদ্র হওয়ায় বৃষ্টির পানিতে আমাদের বইখাতা, জামা-কাপড় ভিজে যায়, আমরা সব সময় ভয়ের মধ্যে ক্লাস করতে হয়।’

মাদ্রাসার সুপার আব্দুল হাকিম বলেন, ‘বর্তমান সরকার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে আধুুনিকায়নের লক্ষ্যে নতুন নতুন ভবন তৈরী করে দিচ্ছে, এমতাবস্থায় একটি ভবন পেলে প্রতিষ্ঠানটির লেখাপড়ার মান বৃদ্ধি হতো এবং আমরাও সরকারের কাছে চির কৃতজ্ঞ হতাম ও মান সম্মত পাঠদান সম্ভভ হতো।’

এই বিষয়ে ধামইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার গনপতি রায় বলেন, ‘সরকারী ভাবে অনেক মাদ্রাসায় বহুতল একাডেমিক ভবন নির্মান চলমান রয়েছেন পর্যায়ক্রমে এই মাদ্রাসাটিও যাতে একটি সুন্দর ভবন পায় সেলক্ষে আমি মাননীয় সাংসদ মহোদয়সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে অবহিত করব, যাতে করে একটি একাডেমিক ভবন দেওয়া হয়।’

http://www.anandalokfoundation.com/