ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পরীক্ষা দিয়ে শিশুদের ভর্তি কেন

admin
September 8, 2015 7:23 pm
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যখনই একটা শিশুর ভর্তির বয়স হয়ে যাবে সঙ্গে সঙ্গে তাকে স্কুলে ভর্তি করাতে হবে। এটা তার অধিকার। যে শিশুটি ক্লাস ওয়ানে ভর্তি হবে তাকে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে ভর্তি হতে হবে কেন? শিশু যদি ছাপানো প্রশ্নপত্র পড়ে ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার মতো জ্ঞানই অর্জন করে ফেলে, শিশুকে যদি লিখতে-পড়তে শিখেই স্কুলে ভর্তি হতে হয় তাহলে স্কুল পড়াবে কি?

রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের উদ্বোধনকালে এমন মন্তব্য করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বইয়ের বোঝা, তেমন পড়ার বোঝা ও হোম ওর্য়াক। এত বেশি হোম ওয়ার্ক দেওয়া হয়, যেদিন স্কুলে ঢুকলো তার পরই স্কুল সর্ম্পকে শিশুদের একটা ভীতি সৃষ্টি হয়ে যায়। এ বিষয় একটু দেখা দরকার। একটা বাচ্চা পাঁচ বছর বয়সে স্কুলে গেলো, তখনই তাকে সব বিদ্যা শিক্ষা দিতে হবে তা নয়। বাচ্চারা তাড়াতাড়ি শেখে কিন্তু আগেই যদি বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয় তাহলে ধীরে ধীরে পড়াশোনার প্রতি একটা অনীহা সৃষ্টি হয়ে যেতে পারে। খেলাধুলার মধ্য দিয়ে শিক্ষার প্রতি শিশুদের আগ্রহটা সৃষ্টি করতে হবে।

শিক্ষক ও স্কুলের প্রতি তার যেন আগ্রহ সৃষ্টি হয়, আগে সেটি তার মধ্যে সৃষ্টি করতে হবে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী সরকারি স্কুলগুলোকে অবকাঠামোগত ও শিক্ষার মানগত দিক থেকে আরও উন্নত করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অনেকে বেসরকারি স্কুল করেছে, কিন্তু চালাতে পারছে না। কিন্তু ওই এলাকায় স্কুল নাই, এভাবে দেখে এলাকাভিত্তিক স্কুল হওয়ার দরকার ছিল।

তিনি বলেন, ‘উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা আইন-২০১৪ এর আলোকে যথাযথ কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করুন। ব্যাপক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করুন। আপনাদের সকল কাজে সরকারের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সমর্থন ও সহযোগিতার দ্বার অবারিত থাকবে। দেশকে নিরক্ষরমুক্ত ও ১৬ কোটি মানুষকে মানবসম্পদে রূপান্তরের মাধ্যমে ‘মানবপুঁজি’ হিসেবে গড়ে তোলারও আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সবার জন্য শিক্ষা’ এবং সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি) বাস্তবায়নে আমরা অত্যন্ত সফল। দেশের ব্যাপক জনগোষ্ঠীকে মানবসম্পদে রূপান্তরিত করে মানবপুঁজিতে উন্নীত করতে পারলে উন্নয়নের গতি আরও ত্বরান্বিত হবে। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা এবং সবার জন্য শিক্ষার লক্ষ্য অর্জনে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী ২০১৫ সালের মধ্যে সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করার ঘোষণা থাকলেও ২০১১ সালের মধ্যে বিদ্যালয়ে গমনোপযোগী শতভাগ শিশুর বিদ্যালয়ে ভর্তি আমরা নিশ্চিত করেছি। প্রতি বছরের মতো এবারও বছরের শুরুতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে ৩২ কোটি ৬৩ লাখ ৪৭ হাজার ৯২৩টি নতুন পাঠ্যবই বিতরণ করেছি। তিনি বলেন, ‘‘উপবৃত্তির সুবিধাভোগীর সংখ্যা বাড়িয়ে আমরা ৭৮ লাখ ১৭ হাজার ৯৭৭ জনে উন্নীত করেছি। ৯৬টি দারিদ্র্যপীড়িত উপজেলার ২৯ লাখ শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য বিতরণ করা হচ্ছে। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব বর্ণমালায় পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন এবং সংশ্লিষ্ট ভাষা জ্ঞানসম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আমরা দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য এক হাজার কোটি টাকার শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করেছি। নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন, দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে ৪৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘বাংলাদেশ সাক্ষরতা কর্মসূচি’ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল সোনার বাংলা গড়ে তোলা। জাতির পিতা বিশ্বাস করতেন, একটি শিক্ষিত প্রজন্ম ছাড়া সোনার বাংলা গড়া সম্ভব নয়। তাই তিনি স্বাধীনতার পরপরই যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের প্রাথমিক শিক্ষাকে যুগোপযোগী করার জন্য ব্যাপক উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার মাত্র তিন বছরের মাথায় ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশের প্রাথমিক শিক্ষা পাকিস্তানের শেষ বছরের তুলনায় ৫০ শতাংশ বেড়ে যায়।

জাতির পিতা ১৯৭২ সালে কুদরত-ই-খুদা শিক্ষা কমিশন গঠন করেন। কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী তিনি ৩৬ হাজার ১৬৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ এবং এক লাখ ৫৭ হাজার ৭২৪ শিক্ষকের পদ সরকারীকরণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর শিক্ষা কমিশনের অন্যান্য সুপারিশমালা আর বাস্তবায়িত হয়নি। শিক্ষাঙ্গণে নেমে আসে চরম নৈরাজ্য। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘দীর্ঘ ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে সরকার পরিচালনার সময় আমাদের গৃহীত পদক্ষেপের ফলে সাক্ষরতার হার বেড়ে দাঁড়ায় ৬৫ শতাংশে। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত সাক্ষরতা কর্মসূচির মাধ্যমে প্রায় এক কোটি নিরক্ষরকে সাক্ষরতা প্রদান করা হয়। সাত জেলাকে নিরক্ষরমুক্ত ঘোষণা করা হয়। দেশে সাক্ষরতা বিস্তারে এ বিশাল অর্জনের সম্মানজনক স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলাদেশ ‘ইউনেস্কো সাক্ষরতা পুরস্কার ১৯৯৮’ লাভ করে।

তিনি বলেন, ‘২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসার পর বিশ্বব্যাংক উপ-আনুষ্ঠানিক শিক্ষা প্রকল্পে সাড়ে বারশ কোটি টাকা দেয়। এ প্রকল্পে ব্যাপক দুর্নীতির কারণে শেষ পর্যন্ত উপ-আনুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। ২০০৯ সালে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব নেওয়ার পর আমরা এ কার্যক্রম আবার চালু করি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মেছবাহ উল আলম। আরও উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার, উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরোর মহাপরিচালক রুহুল আমিন সরকার, ঢাকায় ইউনেস্কোর আবাসিক প্রতিনিধি বিয়াট্রিস কালডুন। দিবসটি পালনের ৫০তম বর্ষপূর্তিতে এবারের প্রতিপাদ্য হচ্ছে, ‘সাক্ষরতা আর দক্ষতা, টেকসই সমাজের মূলকথা’।

http://www.anandalokfoundation.com/