13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আগৈলঝাড়া উপজেলা নির্বাচনে প্রচারনায় নতুন মাত্রা দিয়েছে প্রার্থীর স্ত্রী, বিজয়ী করতে ঢাকায়ও নির্বাচনী উঠান বৈঠক

Link Copied!

আগৈলঝাড়ায় উপজেলা নির্বাচনে প্রচারনার তুঙ্গে আনারস প্রতীকের সমর্থকেরা প্রচারনায় নতুন মাত্রা দিয়েছে প্রার্থীর স্ত্রী, বিজয়ী করতে ঢাকায়ও নির্বাচনী উঠান বৈঠক। প্রতীক বরাদ্দর পর দুপুর থেকে রাত পর্যন্ত থেমে নেই প্রচার-প্রচারনা। কোথাও প্রার্থী নিজে উপস্থিত থেকে আবার কোথাও তার সমর্থিত লোকজন ভোটের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন।

মাইকিং, ব্যানার, পোষ্টারে ছেয়ে গেছে হাট-বাজারসহ প্রত্যন্ত এলাকার সর্বত্র। প্রার্থী ও প্রার্থীর সমর্থনে দলের নেতাকর্মীরা গণসংযোগে করে উঠান বৈঠক আর হাট বাজারসহ বাড়ি বাড়ি গিয়ে হ্যান্ডবিল বিতরণের মাধ্যমে ভোট প্রার্থণা করে চলছেন তৃতীয় ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থীরা।

এই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সিদ্ধান্তের প্রার্থী, বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাত (আনারস) এবং বাকাল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান, আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত সাধারণ সম্পাদক, জাতির পিতা ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি অবমাননা করা মামলার আসামী বরখাস্তকৃত শিক্ষক যতীন্দ্র নাথ মিস্ত্রী (দোয়াত কলম)।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সিদ্ধান্তে একক চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান, অসাম্প্রদায়িক নেতা, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাত ১৩মে আনারস প্রতীক বরাদ্দ পেয়েই অব্যাহত প্রচারনায় মাঠে রয়েছেন। আনারস প্রথীককে বিজয়ী করতে ইতোমধ্যেই আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে একাধিক সাংগঠনিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই সকল সাংগঠনিক সভা ছাড়াও বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগ, পথসভা, উঠান বৈঠক করে আসছেন প্রতিনিয়ত।

আনারস প্রতীকে বিজয়ী করতে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সুনীল কুমার বাড়ৈকে আহ্বায়ক ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সালেহ মো. লিটন সেরনিয়াবাতকে সদস্য সচিব করে গঠন করা হয়েছে উপজেলা ও ভোট কেন্দ্র ওয়ারী কমিটি।

আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাতের আনারস প্রতীক বিজয়ী করতে দিন রাত গণসংযোগ করে যাচ্ছেন উপজেলা নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সালেহ মো. লিটন।

আওয়ামী লীগ আনুষ্ঠানিকভাকে প্রার্থী মনোনয়ন না দিলেও দলের সকল পর্যায়ের নেতা কর্মীরা কাজ করে যাচ্ছেন আনারস প্রতীকের প্রার্থী আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাতের জন্য। বসে নেই প্রার্থীর পরিবার সদস্যরাও। প্রার্থী আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাতের স্ত্রী, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এলিনা জাহিন পুতুল। স্বামীর আনারস প্রতীক কিজয়ী করতে উপজেলা বিভিন্ন বাড়িতে গিয়ে ভোট প্রার্থণা করে প্রচারনায় নতুন মাত্রা যোগ করেছেন। তার সাথে রয়েছেন তার মেয়ে ও মহিলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দরা।

আনারস প্রতীকের জন্য নেতা কর্মীদের নিয়ে আচরনবিধি মেনে অব্যাহত গণসংযোগ করেছেন রাজিহার, বাকাল, বাগধা, গৈলা ও রতœপুর ইউনিয়নের পথে প্রান্তরসহ বিভিন্ন হাট বাজারে। এদিকে পোস্টার, ব্যানার আর মাইকিং এর মধ্যেই প্রচার-প্রচারনায় সীমাবদ্ধ রয়েছেন দোয়াত কলমের প্রার্থী যতীন্ত্র নাথ মিস্ত্রী।

অন্যদিকে ঢাকাস্থ আগৈলঝাড়ার আওয়ামী লীগে নেতৃবৃন্দরা শুক্রবার বিকেলে আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাতের আনারস প্রতীকের সমর্থনে তেজকুনী পাড়ায় নির্বাচনী বৈঠক করেছেন। আলবার্ট বিশ^াস এর সভাপতিত্বে ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সৈনিক লীগের সহ-সভাপতি কিরণ সেরনিয়াবাত, উপজেলা সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোর্তুজা খান, এ্যাডভোকেট মিন্টু কুমার মন্ডল, এ্যাডভোকেট হারিচাঁদ বৈরাগী শাওন আওয়ামী লীগ নেতা রমিজ সেরনিয়বাত, গৈলা ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান গিয়াস খান, মাহাবুব সরদার, জয় গোপাল রায়, জগবন্ধু সরকার, বিভাষ জয়ধর, হরসিত বাড়ৈ, লাবিবা পরিবহনের মালিক লিটন সেরনিয়াবাত, এ্যাডভোকেট রনজিত সমদ্দার, কাজী আরিফসহ ঢাকাস্থ নেতৃবৃন্দ ও সাধারন ভোটারগন।

আনারস প্রতীকের প্রার্থীর এক সমর্থক নাম প্রকাশের শর্তে অভিযোগ করে বলেন- আচরন বিধি লংঘন করে যতীন্ত্র নাথ মিস্ত্রী ভোটের জন্য তার বাড়ির পাশের একটি মন্দির এলাকায় বৃহস্পতিবার থেকে ভোটারদের উদ্বুদ্ধ করতে প্রতিদিন তিন’শ লোকের খাবারের ব্যবস্থা করেছেন। এই ধারা অব্যাহত থাকলে নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগ করা হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে প্রচার প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরাও। বিএনপি নির্বাচনে না আসায় প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীরা সবাই আওয়ামী লীগের সাবেক ও বর্তমান বিভিন্ন কমিটির নেতা-কর্মী।

এরা হলেন বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রফিকুল ইসলাম তালুকদার (উড়োজাহাজ), উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসীম উদ্দিন সরদার (মাইক), শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. সবুজ আকন (টিউবওয়েল), উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি সাহাবুদ্দিন মোল্লা (তালা), ছাত্রলীগ নেতা সঞ্জয় বাড়ৈ (চশমা), নারী ভাইস চেয়ারম্যান প্রতিদ্বন্দিতা করছেন বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য মলিনা রানী রায় (প্রজাপতি), উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য হাফিজা ইয়াসমিন (ফুটবল), উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য ও সাবেক ইউপি সদস্য পবিত্র রানী রায় (কলস), উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মনিকা সরকার (হাঁস)।

উপজেলার পাঁটটি ইউনিয়নে মোট ৬০টি ভোট কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ১লাখ ৩৪ হাজার ১শ ৩৩জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৭ হাজার ৬শ ৫৮জন এবং নারী ভোটার ৬৬ হাজার ৪শ ৭৫জন। চেয়ারম্যান পদে ২জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪জনসহ মোট ১১জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। এই উপজেলায় ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে ২৯ মে।

http://www.anandalokfoundation.com/