13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দুই কোটি টাকার ব্রীজ এখন বাঁশের সাঁকো

admin
November 8, 2016 3:46 pm
Link Copied!

সৈকত দত্ত, শরীয়তপুর প্রতিনিধি ॥ শরীয়তপুর থেকে তুলাসার, বিনোদপুর, চন্দ্রপুর হয়ে শিবচর সংযোগ সড়কের দুই কোটি টাকার ব্রীজ এখন বাঁশের সাকো হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পরেছে ব্যবসায়ী, পেশাজীবী, ও চাকুরিজীবী সহ সাধারণ মানুষ। লোকশান গুনতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। কর্তৃপক্ষ বলে প্রকল্পের আওতায় এনে মেরামত করতে ২ বছর সময় লাগবে।

শরীয়তপুর সদর উপজেলার পশ্চিম অঞ্চলের একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম রাজগঞ্জ-আড়িগাঁও কৃর্ত্তিনাশা নদীর সেতু। সদর উপজেলার তুলাসার, বিনোদপুর, মাহমুদপুর, চন্দ্রপুর, চিকন্দী ইউনিয়ন, জাজিরা উপজেলার জয়নগর ইউনিয়ন ও মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার সাথে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এ ব্রীজ। প্রায় ২ কোটি টাকা ব্যায়ে ১০ বছর পূর্বে নির্মান করা হয় ব্রীজটি। এক মাস পূর্বে ব্রীজের পশ্চিম পাড়ের এ্যাপ্রোজ নদীতে বিলিন হয়ে যায়। হাজার হাজার মানুষের পাড়াপাড়ের মাধ্যম হয়ে পড়ে একটি ছোট্ট নৌকা। ২০ দিন হলো নৌকায় পাড়াপাড় হয়েছে। কর্তৃপক্ষ রাস্তা থেকে ব্রীজ পর্যন্ত ভেঙ্গে পড়া অংশে বাঁশের সাকো নির্মাণ করেছে। বাঁশের সাকো দিয়ে মানুষ পাড় হলেও গাড়ি পাড়াপাড়ের কোন ব্যবস্থা হয়নি ৪০দিনেও।

শরীয়তপুর স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী বিভাগ (এলজিইডি) সূত্রে জানা যায়, বিষয়টি চীফ ইঞ্জিনিয়ারের কানেও আছে। প্রকল্পের আওতায় এনে কার্যাদেশ পর্যন্ত ২ বছর লাগবে। আপদকালীন সময়ের জন্য বেইলী সিস্টেম করে দেয়া হবে। যাতে গাড়ি চলাচল করতে পারে। তবে সন্ধান চলছে কোথাও কোন অকেজ বেইলী ব্রীজ পরে থাকলে এখানে শেট করা হবে। নওগাঁ জেলায় এক বেইলী ব্রীজের সন্ধান পাওয়া গেছে।

চন্দ্রপুর ইউনিয়নে মেম্বার রিপন শিকদার জানায়, তিনি একজন ঠিকাদার। ঠিকাদারী পেশা ও জনস্বার্থে নিয়মিত তাকে জেলা শহরে আসতে হয়। চন্দ্রপুর থেকে শরীয়তপুরের দূরত্ব ১২ কিলোমিটার। ব্রীজ ভাঙ্গার পরে ২০ কিলোমিটার ঘুরে জেলা শহরে আসতে হয়। এতে তার পেশাগত কাজে ও জনস্বার্থের ব্যাঘাত ঘটে।

বেবী ট্যাক্সি চালক মফিজ সরদার বলেন, এ লাইনে গাড়ি চালিয়ে তিনি হাজার টাকা উপার্জন করতেন। ব্রীজ ভাঙ্গার পরে তেমন যাত্রী আসে না। এখন গয়াতলা বাজার থেকে আড়িগাঁও বাজারের বেশী যাওয়া যায় না। তাই ভাড়াও কমে গেছে। ব্রীজ তাড়াতাড়ি মেরামত না করলে তাদের স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে পথে নামতে হবে।

আড়িগাঁও বাজারের কাঁচামাল ব্যবসায়ী শাহ আলম বলেন, প্রতিদিন পালং বাজার থেকে কাঁচামাল এনে বিক্রি করি। ব্রীজ ভাঙ্গার আগে ব্যবসা-বানিজ্য ভাল ছিল। ব্রীজ ভাঙ্গার পরে বাজারে খরিদদারও কম আসে। যাতায়াত খরচও বেড়ে গেছে। আগে পালং বাজার থেকে মালামাল নিয়ে আসতে যা খরচ হতো এখন তার দ্বিগুন হয়। তারপরেও মাথায় নিয়ে বহন করতে হয়। খরিদদার কম আসায় বিক্রিও কম হয়। দ্রুত ব্রীজ মেরামত চাই।

বিনোদপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের আয়া ফাতেমা জানায়, ব্রীজ ভাঙ্গার কারণে অফিসে যেতে সময় বেশী লাগে। ঠিক মতো কাজ কর্ম করতে পার না সে। বারবার গাড়ি বদলাতে হয়। খুব বিরক্ত লাগে তার। অতি তাড়াতাড়ি ব্রীজের কাজ করে সচল করা দরকার বলে তিনি মনে করেন।

আড়িগাঁও বাজারের চায়ের দোকানে বসে আলাপ হয় স্থানীয় জন সাধারণের সাথে। তখন জানা যায়, ব্রীজ না থাকতে তার নৌকায় নদী পার হতো তা বিরক্ত লাগতো না। কয়েক বছর ব্রীজ দিয়ে পার হয়ে অভ্যাস পরিবর্তন হয়ে গেছে। এখন আর নৌকায় পাড় হতে ভালো লাগে না। কয়েকদিন নৌকা দিয়েও নদী পার হয়েছে তারা। এখন বাঁশের সাকো দিয়ে পার হতে হবে। তাহলে ডিজিটাল বাংলাদেশ মানেকি ঘুরে ফিরে আবার পেছনে চলে যাওয়া।

শরীয়তপুর স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সাজ্জাদ হোসেন বলেন, প্রকল্পের আওতায় এনে কাজ করতে ২ বছর লাগবে। আপদকালীন হিসেবে সাকো দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করা হয়েছে বেইলী ব্রীজের জন্য। বেইলী ব্রীজ পাওয়া গেলে শেট করা হবে। তখন গাড়িও চলাচল করতে পারবে।

http://www.anandalokfoundation.com/