13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দরিদ্রতা ওদের কাছে পরাজিত !

admin
September 1, 2015 4:23 pm
Link Copied!

শেখ মামুনুর রশিদ, রংপুর প্রতিনিধি: দীর্ঘ পরিশ্রম ও কষ্ট সহ্য করে অবশেষে দরিদ্রতাকে হারিয়ে সদ্য প্রকাশিত এইচ এসসি ও সমমানের পরিক্ষায় বিজয়ী হয়েছে  রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার পাঁচ অদম্য মেধাবী।  দরিদ্রতা দাবিয়ে রাখতে পারেনি তাদের হার না মানা মনবল ও বিকশিত মেধাকে। এবারের পরিক্ষায় বিজ্ঞান ও মানবিক বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়ে হার না মানা গল্পের সূচনা করেছে তারা। কিন্তু এই অদম্য মেধাবীদের স্বপ্ন পূরণে একমাত্র বাঁধা দারিদ্রতা, তবে পারবে কি সে বাধা ভেদ করতে? এমন প্রশ্নের সাথে সংশয় বিরাজমান সবার মাঝে।

খোজ নিয়ে দেখা গেছে, বিদ্যালয় নাইট গার্ড এর ছেলে শাহরিয়ার, চতুর্থশ্রেণীর কর্মচারীর ছেলে সোহানুর, পিয়নের ছেলে সাজেদুর, বাবা মা হারা এতিম মাসুদা, কোল্ড ষ্টোরের কর্মচারীর মেয়ে ফাতেমাতুজ জোহরা। এরা যেন গোঁবরে পদ্ম ফুল, স্বাদ আছে কিন্তু স্বাধ্য নেই ওদের । নিশ্চয়তা নেই তাদের স্বপ্ন পূরণে এরা সবাই দরিদ্র পরিবারের সন্তান হওয়ায় দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে তাদের।

শাহরিয়ার হোসেন : শাহরিয়ার হোসেন এসএসসির পরীক্ষার ন্যায় এবার এইচএসসি পরীক্ষায় মীরবাগ ডিগী কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে। সে উপজেলার নিভৃত পল্লী দরিমোদন মোহন মাছহাড়ী গ্রামের সামান্য বেতনের আজিজুন নেছা কোল্ড ষ্টোরের নাইট গার্ড মোঃ আঃ জলিল এর পুত্র। নাইট গার্ডের কাজ করে ২ ছেলে ১ মেয়ের পড়াশোনা করাচ্ছেন জলিল । বড় মেয়ে জেসমীন নাহার সুমী হরাগাছ কলেজে বিএসসিতে, ছোট ছেলে শাওন পড়ে ষ্ষ্ঠ শ্রেণীতে। বাড়ী ভিটা সহ ২৪শতক জমি ছাড়া কোন আবাদী জমি নেই তার। অর্ধাহার- অনাহার সহ সব প্রতিবন্ধকতাকে পদদলিত করে ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে শহারিয়ার হোসেন । মা সেলিনা বেগম ছেলের সাফল্যে খুশি হলেও ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। ছেলে চায় ডাক্তার হতে কিন্তু দরিদ্র পরিবারের পক্ষে কিভাবে তা সম্ভব। সংসারে একজন মাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তির ওপর নির্ভরশীল ৫ জনের সংসার। তিনি ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন।

সোহানুর রহমান: কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ পৌরসভার মোল্লাটারী গ্রামের একটি বীমা কোম্পানীর চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী মোঃ আঃ ওয়াব এর পুত্র সোহানুর রহমান। সে হারাগাছ কলেজ থেকে বিজ্ঞান শাখায় এবার এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে। বাবা যে বেতন পান তা দিয়ে সংসার চালনো দায় তার উপর অদম্য মেধাবী সোহানুর সহ আর ৩ সন্তানের লেখাপড়া খরচ জোগার করতে প্রতিনিয়ত হিমশিম খেতে হচ্ছে তাকে। সোহানুর জানান তাদের বসতভিটাও নেই নানার বাড়ীর আঙ্গিনায় চালা তুলে থাকে তারা। দারিদ্র্যতা আমাদের নিত্যসঙ্গি। বড় ভাই পলিট্যাকনিক্যাল কলেজে পড়ে,ছোট বোন ২ জন স্কুলে পড়ে। বাবার বেতনে যা আয় হয় তা দিয়ে কোন মতে অর্ধাহারে- অনাহারে ৬ জনের সংসার চলে। ছেলের সাফল্যের কথা স্মরণ হলে পক্ষাঘাত গ্রস্থ মা নাছরিন বেগম এর চোঁখ দিয়ে অঝড়ে জল ঝরে। ছেলেকে দুইবেলা ঠিক মতো খাবার দিতে পারে না। গ্রামের হৃদয়বানদের কাছে সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে এবং বৃত্তির টাকায় অদম্য আগ্রহে সে পড়াশুনা করে আজ এতো দুরে এসেছে। তিনি বলেন, ছেলের স্বপ্ন ব্যাংক কর্মকতা হওয়ার। কিন্তু অভাবের সংসারে তা কি ভাবে সম্ভব ? তিনি অদম্য মেধাবী ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন।

সাজেদুর রহমান শোয়েব: সাজেদুর রহমান শোয়েব এবারের এইচএসসি পরীক্ষায় হারাগাছ কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়েছে। এটা তার কঠোর পরিশ্রমের ফল। সারাই ইউনিয়নের ধুমের কুঠি জয়বাংলা গ্রামে বাড়ি তার। বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের সামান্য বেতনের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী মোঃ সুজাউর রহমান ও মোছাঃ সাইফুন নাহার এর পুত্র সে। গ্রামের বাড়ি থেকে প্রতিদিন ৪-৫ কিলোমিটার পথ হেঁটে যেত কলেজে। সাজেদুর জানায় তাদের ভিটামাটি ছাড়া কোন জমিজমা নেই। বাবার আয়ে কোন মতে তাদের ৭ জনের সংসার চালায়। তার উপর ছেলে মেয়ের পড়া শুনার খরচ যোগাতে পিতা হিমসিম খাচ্ছে। এতোদিন দরিদ্র পিতা অতিকষ্টে তার পড়াশুনার খরচ জোগালেও দারিদ্রতার কষাঘাতে পিতার পক্ষে তার উচ্চ শিক্ষার জন্য খরচ চালানো সম্ভব না। সে জানায়, পিতা সাফ জানিয়ে দিয়েছে তার পড়াশুনার কোন খরচ আর দিতে পারবে না । সাজেদুরের স্বপ্ন চাটার্ড একান্টার হওয়ার। কিন্তু দরিদ্র দিনমজুর পিতার অভাব- অনটনের সংসারে সে স্বপ্ন কি পূরণ হবে?

সাজেদুরের পিতা সুজাউর জানান, ছেলেকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন ছিল তার। কিন্তু দিন চতুর্থ শ্রেণীর চাকরী করে ছেলেকে উচ্চ শিক্ষার খরচ জোগানো তার পক্ষে সম্ভব না। সে মেধাবী ছেলের জন্য সকলের কাছে দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন। মাসুদা আক্তার: পৃত্রিহীন হেনা পারভীন প্রমাণ করেছে ইচ্ছা আর অধ্যবসায় থাকলে সাফল্যের শীর্ষে ওঠা যায়। জেডিসি তে বৃত্তি,দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ ৫ এবং এবারের আলিম পরীক্ষায় নিজপাড়া আহমদিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা থেকে মানবিক বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়ে সকলকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। চর গোকুন্ডা গ্রামের মৃত সাহের উদ্দিনের ও মাতা কহিনুর বেগমের কন্যা সে। ৪ ভাই ৪ বোন ও মাকে নিয়ে তাদের সংসার। নিজস্ব বসতভিটা ও সামান্য চরের জমি টুকু ছাড়া কোন জমি জমা নেই তাদের,যা ছিল তা সবই গিলে খেয়েছে তিস্তা নদী।

মাসুদা জানায়, পিতা মারা যাওয়ার পর ভাইয়ের আয়ে তাদের সংসার চলে না। অভাবেব সংসারে অর্থ জোগান ও পড়াশুনার খরচ জোগাতে সে প্রাইভেট পড়িয়েছে সে। মাসুদার মা কহিনুর বেগম জানায় মেয়েরস্বপ্ন বিসিএস কর্মকতা হওয়ার। কিন্তু অভাবের সংসারে তার সে স্বপ্ন পুরন হবে কিভাবে ? মেয়ের স্বপ্ন পুরনে সে সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন।

ফাতেমাতুজ জোহরা সাগরীকা: নিজপাড়া পাড়া গ্রামের জসিম উদ্দিন কন্যা এসএসসির ন্যায় এবাও এইচএসসি পরীক্ষায় কাউনিয়া কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে অংশ নিয়ে জিপিএ ৫ পেয়েছে। এইচএসসিতে এ সাফল্য গ্রামের সকলকে সে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। দিনে প্রাইভেট পড়িয়ে রাতে চলতো তার পড়াশুনা । সে জানায় তার বাবা কোল্ড ষ্টোরে শ্রমিকের কাজ করে যা আয় হয় তা দিয়ে সংসারই ঠিক মতো চলে না তার উপর বড় ভাই ও বোন ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ব বিদ্যালয়ে পড়ে তাদেরও পড়া শুনার খরচ যোগাতে হয়। তার পিতার পক্ষে সম্ভব হয়না মা দিন রাত সেলাই এর কাজ করে সংসারে অর্থের যোগান দিতে গিয়ে তিন্ওি এখন অসুস্থ হয়ে পড়েছ। দরিদ্র্যতা তাদের নিত্য সঙ্গি। মা জানায় সংসারে অভাব অনটন এর মাঝেও অদম্য ইচ্ছা শক্তি নিয়ে সাগরীকা পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছে। তার স্বপ্ন সরকারী উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হওয়ার। কিন্তু অভাবের সংসারে তা কি করে সম্ভব? তাই সে বিত্তবানদের সাহায্যের দিকে তাকিয়ে আছে।

http://www.anandalokfoundation.com/