13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঠাকুরগাঁওয়ের রুহিয়ায় ধুম ধামে চলছে আজাদ মেলা না, যৌন মেলা

admin
December 8, 2015 3:30 pm
Link Copied!

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি: ইতিহাসখ্যাত ঠাকুরগাঁও জেলার রুহিয়া আজাদ মেলায়, কৃষি পণ্য মেলার নামে চালানো হচ্ছে বিশ্ব চ্যালেঞ্জ অশ্লীলতা। দেশের একমাত্র এ মেলার নিয়ন্ত্রনাধীন ক্যাম্পাস ‘সুসজ্জিত’ হোটেল মোটেল ও যাত্রা প্যান্ডেল সহ বিনোদন স্থাপনার গুলো ঢাকা থেকে নিয়ে আসা বিশেষ ডেকোরেশন আলোক সজ্জিত। দিনের বেলা থেকে রাত্রী ৮ টা পর্যন্ত উন্মুক্ত থাকলেও, রাত্রী ৯টার পর এই মেলা ক্যাম্পাস পরিনত হয় যৌন পল্লীতে এখানে নেই কোন কৃষি পণ্য ও গরু মহিষের ক্রয় বিক্রয়। সেই সময় থেকে সূর্য ওঠা পর্যন্ত দেখতে পাওয়া যায়নি কোন শিশু বালক বা অপ্রাপ্ত বয়স্ক কাউকে। ওই সময় বোখাটে যুবক ও পতিতাদের অবাধ বিচরণ, সেই সঙ্গে মাদকের ছড়াছড়ি ও যৌন কর্মীদের বিনোদনের জমজমাট ব্যবসা।

রাত্রী ৯ টার পর শুরু হয় ‘কাটাখেলা’ এর পর ২টি আলোক উজ্জ্বল প্যান্ডেল চলে, শুধু নাচ আর যৌন বিনোদন। তাজার দর্শকের সামনে চলে উন্মুক্ত যৌন কার্যক্রম। যাত্রা প্যান্ডেল ও লটারী থেকে আদায় করা হয় প্রতি রাত্রে ৫১ হাজার টাকা। মেলা কমিটির সেক্রেটারি বিশেষ খরচের জন্য ১০ হাজার, মেলা কমিটি ১২ হাজার, ও অন্যান্য খরচ সাংবাদিক সহ প্রশাসনের লোকজনকে দিয়ে এর সর্বমোট ৫১ হাজার টাকা মেলা কমিটির সেক্রেটারি পইমউদ্দীন এই ভাবে হিসেব দিয়েছেন। পুরো বিনোদন সময়ে দেখা গেছে মেলা কমিটির সঙ্গে সাংবাদিকদের এক জনকে প্রেস ক্লাব এর জন্য টাকা তুলতে, ইহা ছাড়াও রুহিয়া থানা পুলিশের লোকজনকেও।

যেভাবে যাত্রা প্যান্ডেলে ‘যৌন নৃত্য শুরু হয়’ তার সংস্কৃতি ও ভিন্ন, একবার কোন নর্তকি ষ্ট্যাজে এলে তার ফিরে যাওয়ার সুযোগ থাকে না। এই নর্তকিকে প্যান্ডেলের ভিতরে বিভিন্ন সাইডে দর্শকদের অনেকে টাকা উপঢোকন দিয়ে, তার ওপর চালানো হয় ধর্ষন, সেই সময় আংশিক বাতি বন্ধ থাকে। এমনি ভাবে চলতে থাকে একের পর এক ধর্ষন নৃত্য, যা অদ্ভুত দেখার মতো।

নর্তকিরাও মদ খেয়ে মাতাল হয়ে ষ্ট্যাজে আসে, ফলে তাদের তেমন কোন বিরক্ত না থাকলেও ফিরে যাওয়ার দৃশ্য অবাক হওয়ার মতো। শরীরে তাদের ইতো মধ্যেই কাপড় ফেলে দেওয়ার শেষ। উলঙ্গ শরীরে, ক্লান্ত দেহে তারা ষ্ট্যাজে লাফিয়ে প্রশাব করা শুরু করলে তাদের ষ্ট্যাজে ত্যাগ করতে আর বাধা থাকে না। ইতো মধ্যে তাদের সময় শেষ হয়েছে ৪০ মিনিট থেকে ৪৫ মিনিট।

এ বিষয়ে রুহিয়া থানা ওসি খান সাহারিয়ার আমাদের প্রতিনিধিকে জানান, তিনি অশ্লীলতা ওই বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে ইচ্ছুক নন, তিনি আরো জানান মেলা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ১নং রুহিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মনিরুল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে আমাদের প্রতিনিধিকে জানান,  এই মেলার সভাপতি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম, আপনি ওনার কাছে কৃষি মেলা না যৌন মেলা জানার চেষ্ট্ াকরেন। তিনি আরো জানান ওই মেলা আমার ইউনিয়নে নই ১০ নং রুহিয়া ইউনিয়নে। এলাকার বিষিষ্ট সমাজ সেবক আবদুল জব্বার জানান, এত অশ্লীলতা এই মেলায় কখনোও ছিলনা, সম্প্রতি রুহিয়া থানা হওয়ায় এ থানার পুলিশ এসে এই অশ্লীলতার সুযোগ করে দিয়েছে, এতে অশ্লীলতা মনে হয় আত্মহত্যা করি তিনি আরো জানান এই লশ্লীলতা কারণে রুহিয়া আজাদ মেলা ১ যুগ আগেই ইন্তেকাল করেছে।

এখন এ মেলার নামে যা চলছে  তা হচ্ছে যৌন মেলা। জেলা প্রশাসনের একজন উর্দ্ধতন কর্মকর্তা জানান কোন অনুমতি দেওয়া হয়নি, তার পরেও মেলা  ও অশ্লীলতা কিভাবে চলে। স্থানীয় সংসদ রমেশ চন্দ্র সেনের আঙ্গিনায় এই মেলায় অশ্লীলতা বন্ধ হউক, পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসকের এই ঠাকুরগাঁওয়ে অশ্লীলতার অভয় নগর রুহিয়া আজাদ মেলা ঠাকুরগাঁও বাসী দেখতে চাইনা। তারা অনতি বিলম্বে জেলা প্রশাসনের নিকট এই অশ্লীতা বন্ধের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন।
মোঃ আব্দুল আওয়াল

http://www.anandalokfoundation.com/