13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জোয়ারের জলে টলটল করছে নগরবাসীর চোখের জল

admin
September 1, 2015 3:58 pm
Link Copied!

ইব্রাহিম খলিল, চট্টগ্রাম : বর্ষার জলে নয় এবার জোয়ারের জলে টলটল করছে বন্দরনগরী চট্টগ্রামবাসীর চোখের জল। পূর্ণিমার প্রভাবে সৃষ্ট জোয়ারে আজ চতুর্থ দিনের মত নগরীর দুই-তৃতীয়াংশ এলাকা হাটু থেকে কোমর পানিতে ডুবে গেছে। এতে ব্যবসায়ী থেকে চাকুরীজীবি পর্যন্ত এমন কেউ নেই দুর্ভোগ পোহাচ্ছে না।

চট্টগ্রাম পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ শেখ ফরিদ আহমেদ জানান, পূর্ণিমার প্রভাবে মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকায় চট্টগ্রামে সোম ও মঙ্গলবার হালকা বৃষ্টিপাত হচ্ছে। তাতে কোনরকম জলাবদ্ধতার আশঙ্কা না থাকলেও জোয়ারের প্রভাবে হাটু থেকে কোমর পানিতে তলিয়ে গেছে বন্দরনগরীর অনেক এলাকা। আরো দুয়েক দিন প্রবল জোয়ার সৃষ্টির সম্ভবনা রয়েছে বলে জানান তিনি।

আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় সরেজমিনে দেখা যায়, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট প্রবল জোয়ার কর্ণফুলীর তীর উপচে বন্দরনগরীর ব্যবসাকেন্দ্র চাক্তাই, খাতুনগঞ্জ, আসাদগঞ্জ বাহির সিগন্যাল, পুরাতন চান্দগাঁও, বহদ্দারহাট, আগ্রাবাদ এক্সেস রোড, হালিশহর শান্তিরবাগ, রসুলবাগ, বগারবিল, মিয়াখাঁন নগর, রাহাত্তারপুল, মাস্টারপুল বৌবাজারসহ শহরের বেশিরভাগ এলাকার কোথাও হাঁটু, কোথাও কোমর সমান পানি টলটল করছে। দোকানপাট, বিলাসবহুল মার্কেট, শিল্পকারখানা, অফিসসহ নানারকম প্রতিষ্ঠান পানিতে তলিয়ে গেছে।

এসব প্রতিষ্ঠানের লোকজনের পাশাপাশি সাধারণ পথচারীরাও চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। বিশেষ করে আগ্রবাদ, কর্ণফুলী ইপিজেড, খাতুনগঞ্জ ও বাকলিয়া এলাকার অবস্থা খুবই নাজুক। এখানকার সড়কের কয়েক ফুট উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

খাতুনগঞ্জ এলাকার ব্যবসায়ী বাপ্পী চৌধুরী হতাশকন্ঠে বলেন, বর্ষার জলে নয় এবার জোয়ারের জলে ভোগান্তির শেষ নেই আমাদের। জোয়ারের জলে দোকানের মালামাল দুপুর ও রাতে দু‘বার ডুবছে। রাস্তাঘাট ডুবে থাকায় মালামাল সরিয়ে নেয়ারও কোন সুযোগ নেই। গত আগষ্ট মাসের শুরুর দিকে প্রবল বর্ষনে সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় লাখ লাখ টাকার মালামাল নষ্ট হয়েছে। এখন জোয়ারের কারনে আবার ক্ষতির মুখে পড়েছে খাতুনগঞ্জের প্রায় চার হাজার ব্যবসায়ী। লাটে উঠেছে ব্যবসা-বাণিজ্য। ফলে জোয়ারের জলে টলটল করছে এখন ব্যবসায়ীদের চোখের জলও।

এদিকে আগ্রাবাদ এক্সেস রোডে জোয়ারের পানি প্রায় দুই তিন ফুট উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে দাবি স্থানীয়দের। সেখানকার বাসিন্দা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সিরাজুম মুনীরা জানান, ক্লাস থাকার পরেও ঘর থেকে বের হতে পারছি না। নিচু এলাকাগুলোতে অনবরত পানি জমে থাকায় ছোট ছোট খানাখন্দ এখন বিশাল গর্তে পরিণত হচ্ছে।

দেশের ভোগ্য পণ্যের বৃহত্তম পাইকারি বাজার চাক্তাই খাতুনগঞ্জ সকাল সন্ধ্যা জলমগ্ন হওয়া দুঃখজনক উল্লেখ করে চট্টগ্রাম চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম বলেন, কর্ণফুলী নদী সংলগ্ন চাক্তাই খাতুনগঞ্জ ক্রমাগতভাবে পানিতে তলিয়ে যাওয়ার কারণে বিপুল সংখ্যক ব্যবসায়ী তাদের ব্যবসা চালাতে পারছেন না। ফলে দৈনন্দিন ব্যবসা-বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে। এছাড়া বিভিন্ন দোকান ও গুদামে মজুদকৃত কোটি কোটি টাকার ভোগ্যপণ্য জোয়ার ও বৃষ্টির পানিতে নষ্ট হয়েছে। নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হওয়ার কারণে ক্ষতির পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে।

চেম্বার প্রেসিডেন্ট বলেন, এ বছর অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের কারণে গুরুত্বপূর্ণ এই বাণিজ্যিক এলাকা বর্তমানে একটি পরিত্যক্ত বাজারে পরিণত হওয়ার দ্বারপ্রান্তে। এ অঞ্চলের সর্বস্তরের ব্যবসায়ীরা তাদের সমস্ত পুঁজি ও ব্যাংক ঋণ নিয়ে যে বিনিয়োগ করেছেন তা ধ্বংস হতে চলেছে এবং গৃহীত ব্যাংক ঋণ পরিশোধের কোন বিকল্পও তাদের নেই। এ ধরনের নেতিবাচক অবস্থা দেশের অর্থনীতি ও রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রেও বিরূপ প্রভাব ফেলবে।

মাহবুবুল আলম দেশের অন্যতম প্রধান এ বাণিজ্যিক এলাকা সরেজমিনে পরিদর্শন করার জন্য পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদের প্রতি আহ্বান জানান এবং চাক্তাই খাতুনগঞ্জ ও আশপাশের এলাকাকে প্লাবনমুক্ত রাখার লক্ষ্যে স্লুইচ গেট নির্মাণের পাশাপাশি চাক্তাই খাল খননসহ প্রয়োজনীয় জরুরি পদক্ষেপ কামনা করেন।

http://www.anandalokfoundation.com/