13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গোসাইরহাটে স্বাস্থ্য সেবা পাচ্ছে না সাধারণ মানুষ

admin
August 8, 2016 8:40 pm
Link Copied!

সৈকত দত্ত, শরীয়তপুর থেকে: শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ইউনিয়ন পরিষদ পর্যায়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র থাকলেও কোন চিকিৎসক এবং ওষুধ নাই। বাধ্য হয়ে সাধারণ মানুষ চিকিৎসা সেবা পেতে ছুটছে বেসরকারী হাসপাতাল, ক্লিনিক ও পল্লী চিকিৎসকের দিকে। চিকিৎসক সংকটের কারনে এ সমস্যা হচ্ছে বলে জানায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা।

গোসাইরহাট উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের মধ্যে নলমুড়ি ইউনিয়নে মাত্র একটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র রয়েছে। এ ছাড়া সামন্তসার, ইদিলপুর, কোদালপুর ও নাগেরপাড়া ইউনিয়নে রয়েছে চারটি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র। তা শুধু কাগজ কলমে। চিকিৎসা সেবা প্রদানে সেসকল হাসপাতালে কোন কার্যক্রম নাই।

সোমবার গোসাইরহাট উপজেলার নাগেরপাড়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কল্যাণ কেন্দ্রে গিয়ে দুপুর ১২ টার দিকে দেখা যায় পরিবার পরিকল্পনার পরিদর্শিকা মাহফুজা খানম ও তাহমিন বেগম নিজ কক্ষে বসে আছে। এরিমধ্যে ভদ্রচাপ গ্রামের আলমগীর মাঝি তার স্ত্রী শামিমা, কণ্যা সন্তান সামিয়া (৫মাস) ও রাবেয়া (৩) কে নিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে এসে সন্তানদের জ্বর, ঠান্ডা ও নিজেদের নানা সমস্যার কথা বলেন। তখন ভিজিটর মাহফুজা খানম বলেন, এক বছর যাবত কোন ওষুধ নাই। এ কথা বলতে বলতে মুখ ব্যাথা হয়ে যায়। আর তিন মাস যাবত কোন ডাক্তার আসেনা এখানে। আপনারা বাচ্চাদের নিয়ে অন্যত্র যান।

সন্তানদের চিকিৎসা না পেয়ে ফিরে যেতে যেতে আলমগীর মাঝি ও শামিমা জানায়, সরকারী হাসপাতালে এসে সরকারী ডাক্তার ও ওষুধ কিছুই পেলাম না। এটা কেমন সরকারী হাসপাতাল? অসুস্থ্য সন্তানদের নিয়ে এখন কোথায় যাবো। গোসাইরহাট ছাড়া আর কোথাও ডাক্তার নাই। আজ কাজকর্ম নষ্ট করে সরকারী হাসপাতালে আসলাম আবার আগামীকাল কাজকর্ম নষ্ট করে গোসাইরহাট ডাক্তারের কাছে যাবো। আমরা খেটে খাওয়া মানুষ তাহলে খাইমু কি? গোসাইরহাট হাসপাতালে গেলেও সরকারী ডাক্তারকে টাকা না দিলে ভাল করে দেখে না। আমাদের সন্তানরা কি চিকিৎসা পাবেনা।

উক্ত বিষয় নিয়ে গোসাইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ হাফিজুর রহমান বলেন, আমার গোসাইরহাটে চিকিৎসক সমস্যার কারণে চিকিৎসা সেবা ব্যহত হচ্ছে। পত্রিকায় লেখালেখির কারণে দুজন নার্স বরাদ্দ পেয়েছি। আজ তারা যোগদান করছে। ডাঃ নজরুল ইসলাম নাগেরপাড়া স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে প্রতি সোমবার রোগী দেখে। ডাঃ নজরুল ইসলাম তিন মাস যাবত ওই কেন্দ্রে যায় না বললে তিনি আরও বলেন, হয়তো রোগী থাকে না তাই যায় না।

http://www.anandalokfoundation.com/