13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গোলাপগঞ্জে বাজারগুলো ছেয়ে গেছে শীতের সবজিতে, কমেনি দাম

admin
December 15, 2016 10:05 am
Link Copied!

জাহিদ উদ্দিন :সারাদেশের মত গোলাপগঞ্জ উপজেলায়ও শীতের আমেজ অনুভব করা যাচ্ছে। দেশের প্রতিটি গ্রামে এখন পুরোপুরি শীতের আমেজ। সেইসঙ্গে মাঠ ভরেছে শীতকালীন সবজিতে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন উপজেলার বাজারগুলোতে আসছে সেই সবজি।
বুধবার উপজেলার প্রতিটি বাজার ভরপুর ছিল শীতকালিন সবজিতে। কিন্ত এর প্রভাব দেখা যায়নি দামে। উপজলার গোলাপগঞ্জ, ঢাকাদক্ষিণ, হেতিমগঞ্জ, ভাদেশ্বরসহ  কয়েকটি কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা গেছে, গত কয়েক সপ্তাহে বিক্রি হওয়া দামেই বাজারে বিক্রি হচ্ছে সব ধরনের শীতকালীন সবজি।সবজির আমদানি বাড়ায় বছরের এই সময়টিতে দাম নিম্নমুখী হওয়ার কথা থাকলেও তার কোনো আলামত দেখা যাচ্ছে না। ফলে চাহিদা মতো সবজি কিনতে হিমশিম খাচ্ছে ক্রেতারা। উপজেলার বাজারগুলো পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়,আলু, বেগুন, টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, ঢেঁড়শ, করলা, বরবটি, কুমড়া, চিচিঙ্গাসহ কোনো সবজির দামই কমেনি। কাঁচাবাজারগুলোতে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকা সত্ত্বেও চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে বেশিরভাগ সবজি।গোলাপগঞ্জ বাজারে আসা হারুন আহমদ নামে একজন  ক্রেতা বলেন, মনে করেছিলাম শীতের মৌসুমে সবজির দাম কমবে। অথচ এখনও কমেনি। অসৎ ব্যবসায়ীদের কারণে সবজি বাজার এখনও সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে। তাদের কাছে আমরা জিম্মি হয়ে আছি।
শীতকালীন পণ্যে বাজার পরিপূর্ণ হলেও বিক্রেতাদের দাবি,  চাহিদার তুলনায় বাজারে সবজির সরবারাহ অনেক কম। ফলে অধিকাংশ সবজিই বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে। কালো বেগুন ৪০ টাকা, সাদা বেগুন ৩০ টাকা, প্রতি কেজি শিম (কালো) ৫০ টাকা, শিম (সাদা) ৩৫ টাকা, টেমেটো ৫০ টাকা, গাজর ৫০ টাকা, ঢেঁড়স ৬০ টাকা, ঝিঙ্গা ৫০ টাকা, করলা ৪০-৫০ টাকা, কাকরোল ৫০ টাকা, শশা ৫০ টাকা, আলু ৫০ টাকা এবং পেঁপে ২৫-৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া শীতকালীন সবজির মধ্যে কেজি প্রতি মূলা ৩০ টাকা, জালি ৩৫-৪০ টাকা, কচুর লতি ৫০ টাকা, কচুরমুখী ৪০ টাকা, পটল ৫৫-৬০ টাকা, বরবটি ৬০ টাকা, কাঁচাকলা ৩০-৩৫ টাকা, শালগম ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতিটি ফুলকপি ৩৫-৪০ টাকা, বাঁধাকপি ৩০-৩৫ টাকা; লেবু হালি প্রতি ২০ টাকা, আঁটি প্রতি পালং শাক ২০ টাকা, লালশাক ১৫ টাকা, পুঁইশাক ৩০ টাকা এবং লাউশাক ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
http://www.anandalokfoundation.com/