ঢাকা

গার্গী-যাজ্ঞবল্ক‍্য সমাচার

Ovi Pandey
February 27, 2020 9:46 am
Link Copied!

দেবাশীষ মুখার্জী (কূটনৈতিক প্রতিবেদক) : প্রাচীনকালে ভারত উপমহাদেশের নারীরা খুব স্বাধীনচেতা, ব্যক্তিত্বসম্পন্ন, শিক্ষিত ও স্বাবলম্বী ছিলেন। সেই যুগের অন্যতম প্রধান ব্রহ্মবাদিনী (বেদের ব‍্যখ‍্যাকর্ত্রী) ও বিদুষী দার্শনিক ছিলেন গার্গী।

খ্রিস্টের জন্মের ৭০০ বছর পূর্বে  জন্ম জন্মগ্রহণ করেছিলেন মহীয়সী গার্গী। শুধু জ্ঞান সাধনা ও চর্চায় ডুবে থাকার সংকল্প নিয়ে আজীবন অবিবাহিত ছিলেন, বচক্নু ঋষির এই ব্রহ্মবাদিনী কন্যা – গার্গী। গার্গী নামক এই জ্ঞানতাপসীকে বলা যায় আধুনিক শিক্ষিতা নারীর, বিশেষ করে অবিবাহিতা পেশাজীবী নারীদের পথিকৃৎ।
বৈদিক যুগে সমাজে নারীদের অবস্থান ছিল পুরুষের সমপর্যায়ে। কৃষিকাজ ও মন্দিরের দায়িত্ব ছিল নারীর হাতে – যে দুটি স্তম্ভ সমাজে মানুষের গুরুত্ব নির্ধারণ করে। তখন বিয়ে হতো মেয়েদের স্ব-ইচ্ছায়। লেখাপড়া করে, যথেষ্ট জ্ঞানার্জন করে, পুরুষের মতোই গুরু হতে পারতেন নারীরা। গুরু-শিষ্যের সম্পর্ক ছিল অত্যন্ত মধুর। নারী পণ্ডিতরা শ্লোক লিখতেন, পুরোহিত হতেন, মাথা মুড়িয়ে নিয়ে মাঝখানে টিকি রাখতেন। উপনয়ন (পৈতা) অনুষ্ঠান হতো তাঁদের। নারী গুরু বা পণ্ডিতরা পৈতা পরিধান করতেন। বিধবা বিবাহ প্রচলিত ছিল। সতীদাহ প্রথা ছিল না তখন। নারী-পুরুষ সমানাধিকারের ফলে, সামাজিক পরিবেশ যথেষ্ট সহনশীল ও উদার ছিল।
বেদপাঠে, ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতায় নারীর অংশগ্রহণ গ্রাহ্য ছিল। মেয়েরা সম্পত্তির মালিক হতে পারতেন। স্বামী-স্ত্রী একত্রে পূজা করতেন, যজ্ঞ করতেন। সেই সময় নারী ঋষিরা তাদের পুরুষ সহযাত্রীদের মতো করেই জ্ঞানের শিখরের এতোটাই সুউচ্চে আরোহণ করতেন যে, তাঁরা নিজেরাও শ্লোক নির্মাণ করতেন ; উপমহাদেশের অন্যতম আদি ও প্রধান শ্লোক “সোহম” এর রচয়িতা একজন নারী পণ্ডিত।
মহাঋষি গর্গের বংশে জন্ম হয়েছিল বলে, এই বিদুষীর নাম রাখা হয়েছিল গার্গী। পিতার কাছেই শুরু হয়েছিল দর্শন শিক্ষা। দর্শনের সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে পরিচিত করানো হয়, বিজ্ঞান সাধনার সারিতে। যাজ্ঞবল্ক্য-গার্গীর সেই কালজয়ী বিখ্যাত দার্শনিক তর্ক সর্বজনবিদিত। আজকের গবেষকরা এই কথোপকথনকে বলবেন, মেটাফিজিক্যাল। কেউ বা বলবেন কসমোলজিক্যাল মেটাফোর। কিন্তু আসলে বৈদিক শিক্ষায় – জ্ঞান তপস্যায়, নারীর বলিষ্ঠ অস্তিত্বের প্রমাণ পাওয়া  যায়, এই তর্কের ভিতরে। গার্গীর মতো অসাধারণ বুদ্ধিমতী ও জ্ঞানের অধিকারী নারীর পদচারণে মুখররিত ছিল, পণ্ডিত আখড়া সমূহ ও সভাস্থল।
প্রাচীন ভারতের বিদেহ (ভিন্নমতে মিথিলা) রাজ্যের রাজা জনক ছিলেন, দর্শনের গুণগ্রাহী। রাজসূয় যজ্ঞের পরে তাঁর রাজসভায় বসে আছেন, চারপাশ থেকে আসা আমন্ত্রিত পণ্ডিত-বিদ্বান-দার্শনিকগণ। রাজার আদেশ, যিনি সবাইকে তর্কে পরাজিত করতে পারবেন,তিনি পাবেন ১ হাজার গ্রাম এবং ১ হাজার গাভী – যাদের শিঙ দু’টি সোনায় মোড়া।
তর্ক শুরুর আগেই ঋষি যাজ্ঞবল্ক্য তাঁর শিষ্যদের আদেশ দিলেন – সব গাভী তাঁর আশ্রমে নিয়ে যাওয়ার জন্য। এতে অন্যান্য দার্শনিকরা প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হলেন। তার মানে কি এই যে, যাজ্ঞবল্ক নিজেকে শ্রেষ্ঠতম দাবি করছেন – কোনোরকম চ্যালেঞ্জের ভেতরে না গিয়েই? বিনয়ের সঙ্গে যাজ্ঞবল্ক উত্তর করলেন, “তা নয়। কিন্তু ব্যক্তিগতভাবে গাভীগুলির বড় দরকার আমার। “
শুনে অন্যান্য ঋষিরা জানান, গাভীর প্রয়োজন তাঁদের সকলেরই। কিন্তু সেটা, নিজেকে শ্রেষ্ঠ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে জিতে নিতে হবে।
এরকম অনেক কথা কানাঘুঁষা চারদিকে। গুঞ্জন যেন কুণ্ডুলী পাকিয়ে উঠছে রাজপ্রাসাদে। তারপরেও কেউ যাজ্ঞবল্ক‍্যকে চ্যালেঞ্জ করছেন না। কিন্তু শ্রেষ্ঠ হতে হলে, নিয়ম মতো চ্যালেঞ্জ তো করতেই হবে। শেষে রাজা নিজেই বেছে ঠিক করলেন ৮ জন পণ্ডিতকে – যাঁরা প্রশ্ন করবেন ঋষি যাজ্ঞবল্ক্যকে এবং নির্ধারণ করবেন তিনিই শ্রেষ্ঠ পণ্ডিত কিনা। এঁদের মধ্যে গার্গী ছিলেন একমাত্র নারী, বাকি সবাই পুরুষ। তাঁর ক্রমিক নম্বর ছিল সাত।
একে একে তখনকার দিনের সব বড় বড় পণ্ডিতেরা যেমন, অশ্বল, অর্থভাগ ভূজ্য, উদ্দালকূ উষস্ত-সহ সাত পুরুষ দার্শনিককে পরাস্ত করলেন ঋষি যাজ্ঞবল্ক্য। শেষে পালা এলো গার্গীর। স্মিত মুখে গার্গী প্রকাশ্যে ঘোষণা করলেন – পরাজিত হলে হাসি মুখে মেনে নেবেন ঋষি যাজ্ঞবল্ক্যর শ্রেষ্ঠত্ব। যাজ্ঞবল্ক্যকে হারানোর মতো পাণ্ডিত্য ভূ-ভারতে কারো নেই – এইকথা সর্বজনবিদিত।
যাজ্ঞবল্ককে হারাবার মতো পাণ্ডিত্য যে সত্যি বিরল, সেকথা ভালো করেই জানতেন গার্গী। তারপর শুরু হলো সেই সর্বকালের বিখ্যাত কথোপকথন।
এই পর্বে যাজ্ঞবল্ককে গার্গী সবসময় শ্রদ্ধাভরে “হে ঋষি যাজ্ঞবল্ক‍্য” – বলে সম্বোধন করে গেছেন, আর যাজ্ঞবল্ক‍্যও গার্গীকে সমীহ করে “ভদ্রে বিদুষী গার্গী” – বলে সম্বোধন করেছেন প্রতিবার।
গার্গী পৃথিবীর সৃষ্টিতত্ত্ব নিয়ে প্রশ্ন শুরু করলেন ―
গার্গী:  সারা বিশ্ব সৃষ্টি হয়েছে, বিভিন্ন উপাদান বা একক একত্রিত হয়ে। বলুন জলের উপাদান বা একক কী ;  যা একত্র হয়ে সৃষ্টি হয়েছে জল?
যাজ্ঞবল্ক্য: জলের একক হল বাতাস।
গার্গী: বাতাস কী দিয়ে তৈরি?
যাজ্ঞবল্ক্য: বাতাসের উপাদান আকাশ।
গার্গী: আকাশের একক কী?
যাজ্ঞবল্ক্য: আকাশের একক আদিত্য বা সূর্য।
গার্গী: তাহলে সূর্যের একক কী?
যাজ্ঞবক্য: চন্দ্র।
গার্গী: চন্দ্রের একক কী?
যাজ্ঞবল্ক্য: চন্দ্রের একক নক্ষত্র।
গার্গী: নক্ষত্রের উপাদান কী?
যাজ্ঞবল্ক্য: দেবতারা।
গার্গী: দেবতাদের উপাদান কী?
যাজ্ঞবল্ক্য: তাঁদের উপাদান ইন্দ্র।
গার্গী: তাহলে আমাকে বলুন ইন্দ্রের উপাদান কী!
যাজ্ঞবল্ক্য: তাঁর উপাদান প্রজাপতি।
গার্গী: আমি জানতে চাই,প্রজাপতির একক কী?
যাজ্ঞবল্ক্য: তাঁর একক হল পরম ব্রহ্ম।
গার্গী: তাহলে আমি জানতে চাই, ব্রহ্মের উপকরণ কী ? অর্থাৎ সেটা এমন কী জিনিস – যা পরস্পর একত্রিত হয়ে সৃষ্টি হয়েছে ব্রহ্মের?
যাজ্ঞবল্ক্য বললেন, আপনি অনুগ্রহ করে স্তব্ধ হন ভদ্রে। বেদের নিয়ম আপনি লঙ্ঘন করেছেন।
যাজ্ঞবল্ক‍্যের কথায় স্তম্ভিত হয়ে, আর কোনো কথা না বলে – গার্গী বসে পড়লেন। তবে বসে বসেও শান্তি পান না গার্গী। অন্য যে সব পণ্ডিত উপস্থিত ছিলেন – আগেই যাজ্ঞবল্ক‍্যকে প্রশ্ন করতে না করতেই, পরাজয় স্বীকার করে নিয়েছিলেন। তা সত্ত্বেও উঠে দাঁড়ালেন উদ্দালক। তিনি পরাভূত হয়ে বসতে না বসতেই, গার্গী আবার উঠে দাঁড়ালেন – যাজ্ঞবল্ক্যের সামনে। গার্গী ছিলেন অসামান্যা বেদজ্ঞানী। পণ্ডিত-সভাকে বন্দনা করে তিনি বললেন, আপনারা অনুমতি দিলে ঋষি যাজ্ঞবল্ক্যকে আমি আরো দু’টি প্রশ্ন করতে চাই। সেই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারলে, বোঝা যাবে – ঋষি যাজ্ঞবল্ক্যই আমাদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ।
সভার সমস্ত পণ্ডিতগণের অনুমতি-প্রাপ্ত হয়ে, গার্গী প্রশ্ন করলেন – হে ঋষি যাজ্ঞবল্ক্য, এই দ্যুলোক ও ভূলোকের মধ্যে যা অতীত – যা বর্তমান – যা ভবিষ্যৎ রূপে বিদ্যমান ; তা কিসে ওতঃপ্রোত আছে?
যাজ্ঞবল্ক‍্য : আকাশে।
গার্গী : উত্তম। আচ্ছা, এই আকাশ কিসে ওতঃপ্রোত আছে?
যাজ্ঞবল্ক‍্য : যাঁকে কেউ দেখতে পান না, কিন্তু তিনি সব কিছুই দেখতে পান। যাঁকে কেউ শুনতে পান না, কিন্তু তিনি সব কিছুই শুনতে পান। যাঁকে কেউ জানতে পারেন না, কিন্তু তিনি সবই জানতে পারেন। সেই অক্ষয় বা শাশ্বতই আকাশের ভিত্তি – যাতে আকাশ ওতঃপ্রোত আছে। আর এই অক্ষয়ই হল, পরম ব্রহ্ম। যার কোনো বর্ণ-গন্ধ-স্বাদ-আকার-অবয়ব নেই। এই চির শাশ্বত বা অবিনশ্বর বা অক্ষয়ের নির্দেশে, চন্দ্র-সূর্য-নক্ষত্র-গ্রহ-উপগ্রহ যে যার স্থানে স্ব-কাজে রত রয়েছে। এবং দীর্ঘ তপস্যার পরেও যদি সেই পরম ব্রহ্মকে উপলব্ধি না করা যায়, তাহলে সেই তপস্যা বৃথা।
গার্গী : এটাই চূড়ান্ত। এইখানেই জ্ঞানের শেষ।
গার্গী স্মিতমুখে পরাজয় মেনে নিয়ে বললেন – “হে ঋষি যাজ্ঞবল্ক্য, মহাজ্ঞান-এ আপনি সর্বশ্রেষ্ঠ। আমাদের মধ্যে আর কেউ নেই, যিনি আপনাকে জয় করতে পারেন।”
http://www.anandalokfoundation.com/