ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গভীর শোক আর শ্রদ্ধায় স্বাধীনতার মহান স্থপতিকে স্মরণ

admin
August 15, 2015 11:06 pm
Link Copied!

আজ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০তম শাহাদাৎবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে দেশের শোকার্ত বাঙালি পালন করেছে।৪০ বছর আগে সেই রাতে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধু ছাড়াও স্ত্রী বেগম ফজিলাতুন  নেছা মুজিব, তিন  ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল,  শেখ রাসেল, শেখ কামালের স্ত্রী সুলতানা কামাল, শেখ জামালের স্ত্রী রোজী জামাল, বঙ্গবন্ধুর ছোট ভাই  শেখ নাসেরকে হত্যা করে।সেই রাতেই নিহত হন বঙ্গবন্ধুর বোনের স্বামী আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার  ছেলে আরিফ, মেয়ে বেবী ও শিশুপৌত্র সুকান্ত বাবু; বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবনেতা শেখ ফজলুল হক মণি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মণি, নিকটাত্মীয় শহীদ সেরনিয়াবাত ও রিন্টু।ধানমণ্ডির বাড়িতে পুলিশের বিশেষ শাখার সাব ইন্সপেক্টর সিদ্দিকুর রহমান এবং বঙ্গবন্ধু ভবনের অদূরে বঙ্গবন্ধুর সামরিক সচিব কর্নেল জামিলকেও গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়।

শনিবার রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে শুরু হয় ১৫ অগাস্ট জাতীয়  শোক দিবসের আনুষ্ঠানিক কর্মসূচি, ৪০ বছর আগে  যে দিনটিতে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু  শেখ মুজিবুর রহমান। শনিবার সকালে ঢাকার ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে ফুল  দেন রাষ্ট্রপ্রধান  মো. আবদুল হামিদ ও সরকারপ্রধান  শেখ হাসিনা।সকাল ৬টার পর বঙ্গভবন  থেকে রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে  পৌঁছলে তাকে অভ্যর্থনা জানান বঙ্গবন্ধুকন্যা হাসিনা। এরপর দুজনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।ফুল  দেওয়ার পর কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন তারা, এসময় বিউগলে বাজে করুণ সুর। এরপর তারা  মোনাজাতও করেন  সেখানে।এরপর স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা, সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে।প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শ্রদ্ধা জানানোর পর দলীয়  নেতা-কর্মীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী  শেখ হাসিনা।

ফুল দেওয়া হয় মোহাম্মদ নাসিমের নেতৃত্বে ১৪ দল এবং আওয়ামী লীগের সহযোগী বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে।বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ  রেহানা, মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য, তিন বাহিনী প্রধানরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।বঙ্গবন্ধু জাদুঘর থেকে বোন  রেহানাকে সঙ্গে নিয়ে বনানী কবরস্থানে যান  শেখ হাসিনা।  সেখানে মা, ভাইসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের কবরে ফুল  দেন তারা, করেন মোনাজাত।

১৯৭৫ সালে হত্যার পর বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সবাইকে সমাধিস্থ করা হয়েছিল বনানী কবরস্থানেবঙ্গবন্ধুর সমাধি হয়  গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায়  পৈত্রিক এলাকায়। বিদেশে থাকায় তখন  বেঁচে গিয়েছিলেন দুই  বোন শেখ হাসিনা ও  শেখ রেহানা।প্রধানমন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগ  নেতারা পরে যান  গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায়। সেখানে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ফুল  দেওয়ার পর মিলাদেও অংশ নেন তারা।

স্বাধীনতার চার বছরের মধ্যে স্বাধীনতার স্থপতিকে হত্যার পর বাংলাদেশ চলতে থাকে মুক্তিযুদ্ধের  চেতনার উল্টোদিকে, স্বাধীনতার ইতিহাস হয় বিকৃত, নানা ঘটনা প্রবাহের মধ্য দিয়ে পুনর্বাসিত হয় স্বাধীনতাবিরোধীরা, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া হয় ব্যাহত।১৫ অগাস্টের বাণীতে  শেখ হাসিনা বলেছেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত  দেশে বঙ্গবন্ধু যখন সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে  সোনার বাংলা গড়ার সংগ্রামে নিয়োজিত,তখনই স্বাধীনতাবিরোধী-যুদ্ধাপরাধী চক্র জাতির পিতাকে হত্যা করে।এর মধ্য দিয়ে তারা বাঙালির ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, কৃষ্টি ও অগ্রযাত্রাকে স্তব্ধ করার অপপ্রয়াস চালায়। অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের রাষ্ট্রকাঠামোকে  ভেঙে ফেলাই ছিল তাদের মূল লক্ষ্য।

১৫ অগাস্টের বিয়োগান্তক ঘটনা স্মরণ করে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেছেন,  শুধু একজন রাষ্ট্রনায়ককে হত্যা করা নয় বরং মুক্তিযুদ্ধের আদর্শকে মুছে  ফেলা এবং পরাজিত শক্তিকে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করাই ছিল হত্যাকারীদের উদ্দেশ্য।১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যাওয়ার পর রাষ্ট্রীয় কর্মসূচিতে পুনরায়ফেরেন বঙ্গবন্ধু।এখন ১৫ অগাস্ট জাতীয় শোক দিবস। সরকারি ছুটির এই দিনে নানা কর্মসূচিতে জাতির জনককে স্মরণ করছে দেশবাসী।সরকারের পাশাপাশি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। সব সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং বিদেশে বাংলাদেশ দূতাবাসেও এদিন জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে। দূতাবাসগুলোতে থাকছে আলোচনা সভার আয়োজন।

শনিবার সূর্যোদয়ের সময়  থেকে বঙ্গবন্ধু ভবন এবং  কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ আওয়ামী লীগের সব কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়,ে উড়ানো হয়  শোকের কালো পতাকা।শনিবার বনানী কবরস্থানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ  থেকে তার সামরিক সচিব লেফটেন্যান্ট জেনারেল মিয়া মো. জয়নুল আবেদীন কর্নেল জামিলের কবরে ফুল দেন।আদালতের রায়ের পর ২০১০ সালে বঙ্গবন্ধুর খুনি  সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশিদ খান, মহিউদ্দিন আহমদ (আর্টিলারি), বজলুল হুদা ও এ কে এম মহিউদ্দিনকে (ল্যান্সার) ফাঁসিতে ঝোলানো হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বাকি সাতজনের মধ্যে এম রাশেদ  চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয়ে আছেন। এস এইচ এম বি নূর  চৌধুরী আছেন কানাডায়।  মোসলেমউদ্দিনও যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন বলে গণমাধ্যমের খবর।আর আব্দুর রশিদ, শরিফুল হক ডালিম ও আব্দুল মাজেদ অবস্থান পরিবর্তন করে বিভিন্ন  দেশে আছেন। আব্দুল আজিজ পাশা পলাতক অবস্থায় জিম্বাবুয়েতে মারা  গেছেন।জাতীয়  শোক দিবসে মিলাদ ও  দোয়া হবে বাংলাদেশের সব মসজিদে। মন্দির, প্যাগোডা ও গির্জাসহ সব উপাসনালয়ে হয় বিশেষ প্রার্থনা।

আওয়ামী লীগের পক্ষ  থেকে দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।বিকালে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে মহিলা আওয়ামী লীগ। ছাত্রলীগ সব সরকারি  মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে রক্তদান কর্মসূচির আয়োজন করে।এছাড়া আওয়ামী লীগ রোববার বিকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন  কেন্দ্রে আয়োজন করে আলোচনা সভার।এর বাইরে  শোক দিবস উপলক্ষে বিশেষ  ক্রোড়পত্র প্রকাশ,  পোস্টার বিতরণ এবং বঙ্গবন্ধুর উপর নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র  দেখানো হয় ।বাংলাদেশ  টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার এবং  বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলো প্রচার করে বিশেষ অনুষ্ঠান।সন্ধ্যায় ঢাকাসহ সব  জেলা সদরে ও চারটি পার্বত্য উপজেলায় প্রজেক্টরের মাধ্যমে প্রামাণ্যচিত্র  দেখানো হয়।

চট্টগ্রাম: গভীর  শোক, শ্রদ্ধা আর বিনম্র চিত্তে স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে স্মরণ করছেন চট্টগ্রামবাসী।  ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা, প্রতিৃকতিতে পুষ্পস্তবক দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি চট্টগ্রামের বিভিন্ন সংগঠন স্মরণ করছেন বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন আত্মত্যাগ।রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতাকে লাল-সবুজের পতাকা আনতে  যে কঠোর সংগ্রামে অবতীর্ণ হতে হয়েছিল তা-ই উঠে আসছে বঙ্গবন্ধুর অনুসারীদের বক্তব্যে।  নগরীর পাড়া-মহল্লায় মাইকে বাজছে বঙ্গবন্ধুর কালজয়ী সাতই মার্চের ভাষণ। শনিবার সকালে রাউজান কলেজ মাঠে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন প্রবাসী কল্যাণ ও  বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নূরুল ইসলাম বিএসসি।  এসময় মন্ত্রীর সঙ্গে রাউজানের সাংসদ এবং রেলপথ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম  চৌধুরীও ছিলেন। কলেজ মাঠে  শোক দিবসের সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী।   সেখানে ২০ হাজার সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য  মেজবানের আয়োজন করা হয় বলে জানান মন্ত্রীর একান্ত সহকারী নিয়াজ  মোরশেদ নিরু। সকালে  নগরীর দারুল ফজল মার্কেটে দলীয় কার্যালয়ে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি  মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের নেতৃত্বে দলীয় নেতাকর্মীরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য  দেন। এসময়  শ্লোগানে  শ্লোগানে দলীয় কার্যালয় মুখরিত হয়ে উঠে। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল  দেয়ার সময় মেয়র ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন  চৌধুরী বাবুল, আইন বিষয়ক সম্পাদক ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুক, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক চন্দন ধর, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমানসহ শতাধিক নেতাকর্মী।

বরিশাল : বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে সেখানে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়। সকাল ৮টায় অশ্বিনী কুমার টাউন হল চত্বরের বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করেন জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। একই সময় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধু উদ্যানের জাতির পিতার ম্যূরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বরিশাল-২ আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুছ ও নগর আওয়ামীলীগের পক্ষে সদর আসনের সংসদ সদস্য জেবুন্নেছা আফরোজ অশ্বিনী কুমার হল চত্বরের বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধ জ্ঞাপন করেন। এরপর যুবলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগের অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

ফেনী:  নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে ফেনীতে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০ তম শাহাদাত বার্ষিকী  পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে ফেনী জেলা প্রশাসন বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করছে। এরই অংশ হিসেবে জেলা প্রশাসক মো. হুমায়ুন কবির খোন্দকারের নেতৃত্বে সকালে শহরে একটি র‌্যালী বের করা হয়।র‌্যালীতে অন্যান্যের মাঝে জেলা পরিষদ প্রশাসক আজিজ আহাম্মদ চৌধূরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. এনামুল হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামছুল আলম সরকার, ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক মাহবুব মোরশেদ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মীর আবদুল হান্নান, এডভোকেট প্রিয়রঞ্জন দত্তসহ জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। র‌্যালীটি শহরের গুরুত্বপূর্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।এদিকে দাগনভূঞা উপজেলা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন উপজেলা প্রশাসন, থানা প্রশাসন, পৌর পরিষদ, উপজেলা আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। এছাড়াও ওই দিন বিভিন্ন বিদ্যালয়ে আলোচনা সভা, চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা ও রচনা প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়। এছাড়া উপজেলা অফিসার্স ক্লাবে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদা খানম। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা বিবি তহুরার সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহিদা আক্তার শেফালী।অপরদিকে ছাগলনাইয়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন  ফেনী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জাসদ নেত্রী শিরিন আক্তার।উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজী শহীদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এয়ার আহাম্মদ ভুঞা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিবি জুলেখা শিল্পী, ছাগলনাইয়া থানার পরিদর্শক মোঃ রাশেদ খান চৌধুরী, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ইউসুফ চৌধুরী, জাসদের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক কাজী আব্দুল বারী, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এনামুল হক মজুমদার,  ছাত্রলীগ সভাপতি দিদার, সাধারণ সম্পাদক রুবেল প্রমূখ।এর আগে উপজেলার বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে উপজেলার সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি পৌর শহরের প্রধান প্রধান সডক প্রদক্ষিণ করে উপজেলা অডিটোরিয়ামে গিয়ে সমাবেশে মিলিত হয়।

কুড়িগ্রাম:চিলমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪০তম শাহাদৎ বার্ষিকী পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা শনিবার সকালে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত ও কালো পতাকা উত্তোলন করে। এরপর বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে একটি শোক র‌্যালী বের করে। র‌্যালী শেষে কার্যালয়ে ফাতেহা পাঠ, মোনাজাহ ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। পরে উপজেলা পরিষদ চত্তরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার (বীর বিক্রম) এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা শেষে অস্বচ্ছল দুস্থ মানুষদের মাঝে খাদ্য বিতরণ করা হয়। অপরদিকে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে একটি শোক র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালী শেষে উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আসলাম মোল্লার সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি উপজেলা চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার (বীর বিক্রম), বিশেষ অতিথি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম, চিলমারী মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ফজলুল হক মনি, চিলমারী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ শামসুদ্দিন সরকার, চিলমারী প্রেসক্লাবের সভাপতি নজরুল ইসলাম সাবু,  সাপ্তাহিক যুগের খবর সম্পাদক ও প্রকাশক এসএম নুরুল আমিন সরকার, বাংলাদেশ বেতার রংপুর চিলমারী প্রতিনিধি নাজমুল হুদা পারভেজ প্রমূখ উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন।

পাঁচবিবি (জয়পুরহাট):শনিবার জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪০তম শাহাদত বাষির্কী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযথ মর্যাদার সাথে পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে শোক র‌্যালি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে স্মৃতিসৌধে শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূর উদ্দিন আল ফারুকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক মন্ডল, সাধারন সম্পাদক ও পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান হাবিব, পাঁচবিবি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবু হেনা মোস্তফা কামাল, মহীপুর হাজী মহসীন সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ লোকমান হোসেন, পৌর প্যানেল মেয়র নূর হোসেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দৌলতুন নাহার দোলন প্রমুখ। এছাড়াও উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠন বিভিন্ন কর্মসুচির মধ্যদিয়ে দিবসটি পালন করা হয়।জাতীয় শোক দিবসে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যা মামলার আসামীদের ফাসির রায় কার্যকরের দাবী জানিয়েছেন বিশিষ্ট জনরা। শনিবার সকালে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের হুইপ মাহবুব আরা বেগম গিনি এমপি, জেলা প্রশাসক মো. আব্দুস সামাদ, পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলামসহ আওয়ামীলীগ নেতারা। এসময় মাহবুব আরা বেগম গিনি এমপি দ্রুত নরঘাতকদের শাস্তি কার্যকরের দাবী জানান। পরে সেখান থেকে একটি বিশাল শোক র‌্যালী শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।  পরে  জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে আরোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।  দিনটি উপলক্ষে জেলা আওয়ামি লীগ, ছাত্র লীগসহ বিভিন্ন সহযোগী ও সামাজিক-পেশাজীবি সংগঠন পৃথক পৃথক র‌্যালী, আলোচনাসভা ও অন্যান্য কর্মসূচী গ্রহন করে।

লামা :সারা দেশের ন্যয় বান্দরবানের লামা উপজেলাও প্রশাসন ও আওয়ামী লীগের উদ্যোগে পৃথকভাবে স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে শনিবার সুর্যোদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারী, আধা-সরকারী, স্বায়ত্বশাসিত, শিক্ষা ও বেসরকারী ভবন সমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত উত্তোলন করা হয়। সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা শেষে বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা শিক্ষার্থী, রাজনৈতিক ও সরকারী বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের সমন্বয়ে এক শোক র‌্যালী বের করে। উপজেলা চেয়ারম্যান থোয়াইনু অং চৌধুরীর নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত র‌্যালীটি উপজেলা শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিন শেষে স্থানীয় টাউন হলে গিয়ে এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়। সেখানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার খালেদ মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য মো. জহিরুল ইসলাম। সহকারী পুলিশ সুপার আল মাহমুদ হাসান, ৩৩ আনসার ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক হাফিজ আল মোহাম্মদ গাদ্দাফী, মাতামুহুরী ডিগ্রি কলেজ অধ্যক্ষ মো. রফিকুল ইসলাম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি শেখ মাহাবুবুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভুমি) আকতার হোসেন, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সিরাজুল ইসলাম, লামা প্রেসক্লাব সভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রিয়দর্শী বড়–য়া বিশেষ অতিথি ছিলেন। দুপুরে শেখ মুজিবুর রহমানের আতœার মাগফেরাত কামনা, জাতির শান্তি সমৃদ্ধিসহ অগ্রগতি কামনা করে মসজিদ, মন্দির, গীর্জা ও কেয়াংগুলোতে বিশেষ প্রার্থনা এবং দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। পাশাপাশি বঙ্গ বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা বিষয়ে আলোচনা সভা, হামদ ও নাত প্রতিযোগিতা, মিলাদ এবং দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয় উপজেলার সবকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে। এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগেও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে কাঙ্গালী ভোজ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত। সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে প্রমাণ্য চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করে লামা তথ্য অফিস।

মংলা:মংলায় নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে পালিত হয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস। দিবসটি উপলক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসন,  মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও আওয়ামী লীগ পৃথক কর্মসূচী পালন করেছে। শনিবার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে বের হওয়া শোক র‌্যালী শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে। পরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। আলোচনা সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার ও উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মুহম্মদ আলী প্রিন্সসহ প্রশাসনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। সভার শুরুতেই বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে সকলে শ্রদ্ধা জানান। এদিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও তার সকল সহযোগী সংগঠেনের উদ্যোগে শক্রবার জুম্মার নামাজের পর উপজেলার সকল মসজিদে দোয়া ও মিলাদ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

নাটোর :নাটোরে যথাযোগ্য মর্যাদায় নানা কর্মসুচির মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত হচ্ছে। এ উপলক্ষে  শনিবার সকালে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকালে কানাইখালী মাঠ থেকে একটি শোক র‌্যালি বের করা হয়।  শোক র‌্যালিটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে সরকারী গণগ্রন্থাগারে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে অনুষ্ঠিত হয় বঙ্গবন্ধুর জীবন ও মহান কীর্তি সম্পর্কে আলোচনা সভা। এর আগে শহরের কান্দিভিটাস্থ জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন, নিরবতা পালন ও মোনাজাত করা হয়। এ সময় জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস এমপি, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল এমপি সহ দলের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভিন্ন ভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। নানা আয়োজনের  মধ্য দিয়ে পিরোজপুরের কাউখালীতে পালিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস।দিনটি উপলক্ষে শনিবার  সকাল থেকে কাউখালী মুজিব চত্বরে শোকাহত মানুষের ঢল নামে।
সকালে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে মুজিব চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন উপজলা প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা, আওয়ামী লীগ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের জনগণ।সিংগাইর

(মানিকগঞ্জ) : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে সিংগাইরে  শনিবার শোক র‌্যালী, আলোচনা সভা, ঋণ বিতরণ ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে সকাল সাড়ে ১০ টায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এক শোক র‌্যালী বের হয়। র‌্যালীটি পৌর সদরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা, ঋণ বিতরণ ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়।

পাবনা  : যথাযোগ্য মর্যাদায় পাবনা জেলার সর্বত্র জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের ৪০তম  শাহাদত বার্ষিকী ও জাতিয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।দিনটি পালন উপলক্ষে পাবনা প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন পৃথক পৃথক ভাবে দিন ব্যাপী নানা কর্র্মসুচী গ্রহন করেেেছ।
কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে শনিবার সকালে দলীয় কার্যলয়ে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত ও কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অপর্ন, প্রমান্যচিত্র প্রদর্শন, কবিতা আবৃত্তি, রচনা প্রতিযোগীতা, পুরস্কার বিতরন, দিনভর বঙ্গবন্ধুর ভাষন বাজানো, ভিডি চিত্র প্রদর্শন, কোরআন খানী, বিশেষ দোয়া, প্রার্থনা, শোক র‌্যালী. আলোচনা সভাসহ নানা কর্মসুচী । বেলা সাড়ে ১০টায় জেলা প্রশাসনের শোক র‌্যালী শহর প্রদক্ষিন করে টাউন হল মাঠে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

পটুয়াখালী : বর্নাঢ্য র‌্যালী আলোচনা সভা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিল এবং কাঙ্গাালী ভোজের মধ্য দিয়ে পটুয়াখালীতে জাতিয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। সুর্য্যোদয়ের সাথে সাথে জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয় সরকারি বে-সরকারি অফিস আদালতসহ বাসা বাড়িরতে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়েছে। সকাল ৯ টায় পটুয়াখালী সার্কিট হাউজে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পন করে জেলা প্রশাসন। পরে জেলা আওয়ামীলীগ, ও তার অঙ্গ সংগঠন, মুক্তিযোদ্ধারাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা। বেলা ১১ টায় শিল্পকলা একাডেমীতে জেলা প্রশাসনে উদ্যোগে শুরু হয় আলোচনাসভা।

গৌরনদী : বিনম্র শ্রদ্ধায় স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণসহ নানা কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে বরিশাল জেলার গৌরনদী উপজেলা প্রশাসন ও আ’লীগের উদ্যোগে এবং প্রত্যেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। একইদিন মাহিলাড়া ডিগ্রি কলেজ প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও সাবেক মন্ত্রী আবদুর রব ছেরনিয়াবাতসহ অন্যান্য শহীদদের অস্থায়ী প্রতিকৃতিতে মাহিলাড়া ডিগ্রি কলেজ এবং মাহিলাড়া ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। গৌরনদী উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুদ হাসান পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন পৌর মেয়র মো. হারিছুর রহমান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ফরহাদ হোসেন মুন্সীসহ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা।

খাগড়াছড়ি: খাগড়াছড়িতে শোক র‌্যালী, পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৪০ তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। সকালে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে খাগড়াছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ থেকে একটি শোক র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালিতে সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তর, রাজনৈতিক সংগঠন ও বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে। র‌্যালীটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পৌর টাউন হল প্রাঙ্গণে গিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে টাউন হল মিলনায়তনে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জে  বঙ্গবন্ধুর শোক র‌্যালিতে মানুষের ঢল নামে। সকালে জেলা প্রশাসন আয়োজিত এই র‌্যালিটি কালেক্টরেট থেকে বেরিয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে জেলা শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদনের পর শিল্পকলা মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন অ্যাডভোকেট মৃনাল কান্তি দাস এমপি। জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদলের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার, হরগঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. সিরাজুল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা. শহিদুল ইসলাম, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জামার হোসেন, সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এম এ কাদের মোল্লা, জেলা শ্রমিক লীগ সভাপতি এটিএম দেলোয়ার হোসেন, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুফতি সারোয়ার হোসাইন প্রমুখ।র‌্যালিতে আলোচকবৃন্দ ছাড়াও অংশ নেন বঙ্গবন্ধুর চীফ সিকিউরিটি অফিসার জেলা পরিষদ প্রশাসক আলহাজ মো. মহিউদ্দিন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আনিস-উজ-জামান, অধ্যাপক সুখেন চন্দ্র ব্যানার্জী ও জেলা যুবলীগ সভাপতি আক্তার উজ-জামান রাজিব প্রমুখ।

শরীয়তপুর:  সদর উপজেলা মিলনায়তনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রসাসক রাম চন্দ্র দাস। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজ্জানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার মোঃ সাইফুল্লাহ আল মামুন, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব নুর মোহাম্মদ কোতোয়াল, সাবেদুর রহমান খোকা সিকদার, সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল হাসেম তফাদার, আওয়ামী লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম কোতোয়ালসহ আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা।এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় শরীয়তপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে স্থাপিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে জেলাবাসীর পক্ষে প্রথমে জেলা প্রশাসক, এর পরে পুলিশ সুপার, জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল, জেলা পরিষদ, পৌরসভা প্রশাসনসহ পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, সরকারি বিভিন্ন দপ্তর, বেসরকারি অফিস ও সর্বস্তরের জনগণ পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পুস্পস্তবক অর্পণ শেষে শহীদ মিনার থেকে একটি শোক র‌্যালী বের হয়ে জেলা শহরের গুরত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে সদর উপজেলা চত্বরে এসে শেষ হয়। দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন মসজিদ, মন্দিরসহ বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে মিলাদ, দোয়া ও প্রার্থনার আয়োজন করা হয়েছে। দুপুরে শরীয়তপুর জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে কাঙ্গালী ভোজের আয়োজন করা হয়।

একইভাবে দিনাজপুর, কেরানীগঞ্জ, ঝিনাইদহ, নারায়ণগঞ্জ, খাগড়াছড়ি, যশোর, টাঙ্গাইল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, বগুড়া, রাজশাহী, গাইবান্ধা, চাঁদপুর, লালমনিরহাট, মাগুড়া, মেহেরপুর, বিসিএমসি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি মহাবিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জয়পুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, জামালপুর, ঠাকুরগাঁও, পঞ্জগড়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যথাযথ ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে বঙ্গবন্ধুর ৪০তম শাহাদাৎবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের নানা কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

http://www.anandalokfoundation.com/