13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আপনারা কিছু একটা করুন, আমি রাবিতে ভর্তি হতে চাই

admin
December 3, 2017 1:55 pm
Link Copied!

হাসান মাহমুদ, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: দাদা আগামী ৭ ডিসেম্বর আমার রাবিতে ভর্তির শেষ তারিখ। আমি এখনো কোন টাকা যোগাড় করতে পারিনি। আমি কি তাহলে ভর্তি হতে পারবো না। আমি ভর্তি হতে না পারলে আমার কষ্ট, পরিশ্রম সব বৃথা যাবে। আমার স্বপ্ন দু:স্বপ্নে পরিনত হবে। আপনারা যে ভাবে পারেন, দয়া করে আমার জন্য কিছু একটা করুন। আমি রাবিতে ভর্তি হতে চাই!

রাবিতে ভর্তির সুযোগ পেয়েও অর্থের জন্য ভর্তি হতে না পারার শংঙ্কায় নিয়ে দুশ্চিন্তা ভরা মনে কথা গুলো বলছিলো লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার পূর্ব-নওদাবাস গ্রামের মৃত দোলচাঁদ চন্দ্র বর্মনের ছোট ছেলে দিপক কুমার।

দিপক এই প্রতিবেদককে আরো জানায়, তার ভর্তির জন্য ৭-৮ হাজার লাগবে। তবে ১০-১২ হাজার হলে ভালো হত। যাতায়াত ভারা, থাকা, এছাড়া আনুসাঙ্গিক সব কিছু মিলে ১২ হাজার টাকা হলেই হয়ে যাবে। কিন্তু সে সর্বসাকুল্যে ২০০০ হাজার টাকা যোগাড় করেছে। তার পক্ষে আর সম্ভব হয়নি। তাই সকলের কাছে তার আকুতি ৭ তারিখের আগেই সে যেন ভর্তি হতে পারে। সকলের একান্ত সহযোগীতা কামনা করে।

জানা গেছে, তিন বছর বয়সে বাবাকে হারিয়ে অসহায় মা কিরন বালা কাছেই বড় হন। মা আর বড় ভাই সুকুমারকেই নিয়ে তাদের সংসার। দিপকের বাবা মারা গেলে ঝিয়ের কাজ বেছে নেন কিরন বালা। এমনকি দিপককেও সংসারের হাল ধরতে হয় মায়ের পাশাপাশি। তাই সেও বড় ভাইয়ের সাথে দিন মজুরের কাজ শুরু করে।

দিন মজুরের পাশাপশি দিপক পড়াশুনা চালিয়ে যায়। শত কষ্টের মাঝেও সে এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি সফলতার সাথে পাস করে। উচ্চ শিক্ষার জন্য এ বছর দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরিক্ষায় অংশ গ্রহন করে। এমনকি মেধা তালিকায় স্থান করে জগন্নাথ ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগও পেয়ে যায়। কিন্ত অর্থের কারনে থমকে আছে দিপকের ভর্তি। চুড়ান্ত লক্ষ্যে পৌছানোর পথে এখন তার সব চেয়ে বড় বাঁধা হয়ে দাড়িয়েছে এই অর্থ।

দিপক জানায়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এ ইউনিট থেকে ভর্তি পরিক্ষা দিয়ে- ২৮৮, ই-ইউনিটে- ৩০১ এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ডি ইউনিট থেকে ৫৮০ মেধা স্থান অর্জন করে ভর্তির সুযোগ পায়। সে এসএসসিতে জিপিএ-০.৫ ও এইচএসসিতে জিপিএ ৪.০৮ পেয়েছে। কিন্ত সে এত ভালো ফলাফল ও মেধা স্থান অর্জন করেও অর্থের অভাবে ভর্তি হতে পারছে না। আমি যাতে লেখা পড়া শেষ করে আমার কাঙ্কিত লক্ষ্যে পৌছাতে পারি তার জন্য সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা চাইছি।

তার অসহায় মা কিরন বালা জানান, বাবা ছোয়া কোনা ছোট থাকি খুব কষ্ট করেছে। ওর বাপ মারা যাবার পর থাকি মানুষের বাড়ি বাড়ি কাজ করি খাওয়াছুক। আজ ভালো জায়গাত পড়ির সুযোগ পাইছে। কিন্ত টাকা নাগে। মোরটে তো টাকা নাই। মুই এলা টাকা কোনটে পাং। তোমরালা একনা ব্যবস্থা করি মোর ছোয়া কোনাক ভর্তি করি দেও।

প্রয়োজনে দিপকের সাথে যোগাযোগ করুন, মোবাইল:০১৭৫৭৮৭৮২৫১।

http://www.anandalokfoundation.com/