13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অশৌচ ব্যবস্থা সম্পর্কে হিন্দু শাস্ত্রে কি বলা আছে

admin
November 11, 2019 10:01 am
Link Copied!

অশৌচ শব্দের অর্থ হল শুচিতা বা পবিত্রতার অভাব ৷ মাতা পিতা বা জ্ঞাতিবর্গের মৃত্যুতে হিন্দুরা অশৌচ পালন করে ৷ অর্থ্যৎ প্রিয়জনের মৃত্যুতে কঠোর নিয়ম নীতি পালন করে শ্রাদ্ধের উপযুক্ততা অর্জনই অশৌচ ৷ অশৌচ হিন্দুসমাজের একটি প্রচীন রীতি বা সংস্কার ৷  অশৌচ ব্যবস্থা সম্পর্কে হিন্দু শাস্ত্রে কি বলা আছে-

মনু সংহিতার বিধান অনুযায়ী পুরোহিত দর্পনে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে,-

“শুধ্যেদ্বিপ্রো দশাহেন দ্বাদশাহেন ভূমিপ।

বৈশ্যপঞ্চদশাহেন শূদ্রো  মাসেন শুধ্যতি।।ইতি মনুঃ।

জন্ম বা মরণে ব্রাহ্মণের দশদিন, ক্ষত্রিয়ের দ্বাদশ দিন, বৈশ্যের পঞ্চদশ দিন এবং শূদ্রের একমাস অর্থাৎ ত্রিশ দিন অশৌচ থাকে; ইহার পর শুদ্ধ হয়”। (পুরোহিত দর্পণ, পৃ-৫৮৬)

‘শৌচ’  শব্দের অর্থ পবিত্রতা, শুচিতা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা। তাই ‘অশৌচ’ শব্দের অর্থ অপবিত্রতা, অশুচিতা, অপরিষ্কার-অপরিচ্ছন্নতা।

প্রিয়জনের মৃত্যুতে আমরা শোকাহত হই, মর্মাহত হই, একান্ত আপন জনের বিরহ দুঃখে কাতর হয়ে পড়ি। আবার যখন কেউ জন্মগ্রহণ করে তখন প্রিয়জনকে পাবার আনন্দে আমরা উদ্বেলিত হয়ে উঠি, সবাইকে মিষ্টিমুখ করাই, আনন্দ উৎসব করি। এতে আমরা অপবিত্র বা অশুচি হবো কেন? হ্যাঁ, শ্মশানে মৃত দেহ সৎকার করতে গিয়ে শরীরে বা কাপড়ে দুষিত কিছু লাগতে পারে, তাতে আমরা অবশ্যই অপরিচ্ছন্ন বা অশুচি হতে পারি। ভালভাবে সাবান লাগিয়ে স্নান করে নিলেই তো আমরা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে যাই।

অর্ধেন্দুবাবু  এই অশৌচ ব্যবস্থার যুক্তি দেখাতে গিয়ে বলেছেন,-

“প্রিয়জনের মৃত্যু আমাদের মানসিক বৈকল্য ঘটায়। মানসিক এই বৈকল্য কালে চিত্ত সাধন ভজনের উপযোগী থাকে না। আমরা সাধকের জাতি। সাধন ভজন করাই আমাদের বৈশিষ্ট্য। সাধন ভজন করার মানসিক বা চিত্তগত উপযুক্ততা যখন আমাদের থাকে না তখনই অশুচি অবস্থা”।

https://www.high-endrolex.com/16

কিন্তু বাস্তবে মানুষ যখন বিপদগ্রস্থ হয়, প্রিয়জনের মৃত্যুতে শোকগ্রস্থ হয়, তখনই বেশী করে ঈশ্বরকে ডাকে, তাঁর কাছে প্রার্থনা করে সেই বিপদ থেকে মুক্তি পাবার জন্যে বা শোক সন্তপ্ত হৃদয়ে শান্তি পাবার জন্যে। আর এটাই মানুষের কর্তব্য, কেননা একমাত্র ঈশ্বরের কৃপায়ই আমরা প্রিয়জনের বিরহজনিত এই দুঃখ সাগর থেকে পরিত্রাণ পেতে পারি। তাই এই সময়ে, শোককালে, মানুষের বিলাসিতা ত্যাগ করে, সংযমী হয়ে ঈশ্বরের সাধন ভজনেই অধিক সময় ব্যয় করা উচিত। আর ঈশ্বরকে ডাকার জন্যে তো শুচি বা অশুচির কোন প্রশ্ন নেই। তিনি সব জায়গায়, সর্ব অবস্থায় রয়েছেন। তিনি আমাদের মনের গহনে থেকে আমাদের প্রতিটি স্পন্দন জেনে নিচ্ছেন। তাঁকে বাদ দিয়ে বা তাঁকে লুকিয়ে তো আমরা কোন কিছুই করতে পারি না। তাই অর্ধেন্দুবাবুর এই যুক্তি ধোপে টেকে না। প্রিয়জনের মৃত্যু শোকের ব্যাপার, অশৌচের ব্যাপারই নয়। প্রিয়জনের মৃত্যুতে মানুষ অশুচি হয় না, হয় শোকগ্রস্থ। সেই শোক কাটিয়ে ওঠার জন্যে একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শোককাল পালনের পর প্রিয়জনের বিদেহীমনের কল্যাণ কামনায়, তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে সবাই মিলে মিশে সমবেত ভাবে ঈশ্বরের নিকট প্রার্থনা করা উচিত।

http://www.anandalokfoundation.com/