ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অপরাধী যে দলেরই হোক ছাড় নয়

admin
August 19, 2015 11:30 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ অপরাধী  যে দলেরই হোক তাদের ছাড়  দেওয়া হবে না বললেন সড়ক পরিবহন ও  সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, সমাজে একটা অপরাধ হলে, অপরাধীর বিচার না হলে আরেকটি অপরাধ প্রতিষ্ঠিত হয়। সরকার দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে, ভবিষ্যতেও করে যাবে।

বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক  জোট আয়োজনে ২১ আগস্টেও গ্রেনেড হামলারকারীদের বিচারের দাবিতে এক প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।এ সময় দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ওবায়দুল কাদের বলেন, দল করবেন, দলের শৃঙ্খলা মানবেন না, তা হবে না।

তিনি বলেন, ১৫ আগস্টে ফজলুল হক মনির অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছিল,  শেখ রাসেলকে হত্যা করা হয়েছিল। ৩৭ বছর পর তাঁদের হত্যার বিচার হয়েছে। চলমান হত্যারও বিচার হবে।তিনি বলেন, ইতিমধ্যে প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে-অপরাধী কাউকে  যেন ছাড়  দেওয়া না হয়। ২১ আগস্টে  শেখ হাসিনা ছিলেন প্রধান লক্ষ্য। এ হামলার সঙ্গে যারা জড়িত, তারা  দেশে থাকুক কিংবা  দেশের বাইরে থাকুক, তাঁদের বিচার হবে। সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, সাংবাদিকরা আমাকে প্রশ্ন করেছেন, হঠাৎ করেই  দেশের আইন শৃংখলা পরিস্থিতি অবনতি হয়েছে আমি তাদের বলছি হঠাৎ করেই পরিস্থিতি উন্নতি হবে।মন্ত্রী বলেন, যারা অবুঝ শিশু ও অবলা নারী হত্যা করে তারা কেউ পার  পেতে পারে না। অপরাধ করে, খুন করে, চাঁদাবাজি করে, হয়রানি করে পার পেয়ে যাবার উপায় নেই। অপরাধী  যেই হোক বিচারের আওতায় তাকে আসতে হবে। শাস্তি তাকে  পেতেই হবে।মন্ত্রী হুঁশিয়ার করে বলেন, পরিস্কার করে বলতে চাই, অপরাধী সরকারী দলের কিংবা সরকারী দলের বাইরের হোন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে আছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ওবায়দুল কাদের ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, শিশু-নারী হত্যার বিরুদ্ধে আজ সবাই প্রতিবাদ করে। আমরাও করছি। কিন্তু যেদিন অন্তঃসত্ত্বা আরজু মনিকে হত্যা করা হয়েছিল, শিশু রাসেল, সুকান্ত বাবুকে হত্যা করা হয়েছিল, আজকে যারা হতাশ হন, প্রতিবাদ করেন সেদিন তাদের কাউকে একটু প্রতিবাদ করতেও দেখা যায়নি।কাদের বলেন,  শেখ হাসিনা সেদিন মারা  গেলে সমুদ্র বিজয়, সীমান্ত বিজয়ের নেতৃত্ব দিত কে? সেদিন তার মৃত্যু হলে আজকের এই অর্জন আমাদের হতো না। আমি নিজেও  সেদিন আহত হয়েছিলাম। এখন অমাবস্যা-পূণিমায় পায়ের স্প্লিন্টারগুলো যন্ত্রণা দেয়।বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে বলেও মন্তব্য করেন মন্ত্রী।সংগঠনের সভাপতি চিত্রনায়ক ফারুকের সভাপতিত্বে এসময় আরো বক্তব্য রাখেন অভিনেত্রী ফাল্গুনী হামিদ, অভিনেত্রী দিলারা জামান, ড্যানি সিডাক, আওয়ামীলীগ নেতা এমএ করিম প্রমুখ।

http://www.anandalokfoundation.com/