13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালীগঞ্জে অদম্য প্রীতিলতার জিপিএ-৫ জয়

Link Copied!

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়নের বারইপাড়া গ্রামের সুজাতা সাহার দুই মেয়েকে নিয়ে নিদারুন কষ্ট সহ্য করেছেন । ১৩ বছর আগে স্বামী প্রশান্ত সাহার আকষ্কিক মৃত্যুতে স্বামীর ভিটা ছাড়তে বাধ্য হন সুজাতা সাহা। দুই পায়ে শক্তি না থাকা ছোট মেয়ে প্রীতিলতা ও বড় মেয়ে প্রিয়াংকাকে নিয়ে ১৩ বছর আগে চলে আসেন নিজ বাবার বাড়িতে । বাবার ভিটা না থাকায় স্থানীয় এক চাচাতো ভাইয়ের সহযোগীতায় সামান্য জমিতে থাকতে শুরু করেন তিনি । এরপর স্থানীয় একটি কারখানার সামান্য উপার্জনে চলে সংসার ।

এর ভিতর দিয়েছেন বড় মেয়েকে বিয়ে আর দুই পায়ে শক্তি না থাকা প্রীতিলতাকে নিয়ে বেধেছেন নানা স্বপ্ন । কারন প্রীতিলতা আর ৫ জন ছাত্রেরমত না। চলাচলে অক্ষম প্রীতিলতা অভাবের সংসারে কখনো পড়ালেখা ছাড়েনি । প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের গন্ডি পার হয়ে সফলতার সাথে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করেছেন । নানা কষ্টের মাঝেও সে এবার সদ্য ঘোীষত এইচ এস সি পরীক্ষায় যশোর শিক্ষা বোর্ডের অধিনে মানবিক শাখা থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। প্রতিলতা সাহা এবার কালীগঞ্জ শহিদ নুর আলী কলেজে থেকে এইচএসসি পরিক্ষা দিয়েছিলো।

নিজের ভবিষ্যত চিন্তা ও উচ্চমাধ্যমিকে জিপিএ ৫ পাওয়ার ব্যাপারে প্রীতিলতা সাহা জানান ,আমার পড়ালেখার ব্যাপারে অনেকে আমাকে সহযোগীতা করেছেন । তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ । আমি পড়ালেখা শেষ করে একটি চাকুরি করে মায়ের পাশে দাড়াতে চাই ।
প্রীতিলতা সাহার মা সুজাতা সাহা জানান ,আমার বড় মেয়েটা বিয়ের পর ভারত চলে গেছে । আমার ভিটা নেই । কারখানায় কাজ করে সামান্য অর্থ পায় । তা দিয়ে সংসার কোনরকম চলে । সবার সাহায্য নিয়ে এ পর্যন্ত এসেছি । আপনারা সবাই আমার মেয়ের পাশে থাকবেন এ কামনা করি।

প্রীতিলতা সাহার লেখাপড়ার অন্যতম পৃষ্ঠপোষক যশোর সরকারী শহীদ সিরাজুদ্দিন হোসেন মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ বিকাশ চন্দ্র রায় মুঠোফেনে জানান ,প্রীতিলতার এ সফলতা আমার কাছে গগনচুম্বি মনে হলো । কালীগঞ্জে আমাদের একটি ছোট স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আছে ,সেখান থেকে তাকে সহয়তা করেছি । এ সহায়তা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে । আমি তার মঙ্গল কামনা করি ।

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইশরাত জাহান প্রতিবেদককে জানান ,প্রীতিলতা সমাজের জন্য অনুকরনীয় । সে নানা প্রতিবন্ধকতা সত্বেও নিজের পড়া লেখা চালিয়ে যাচ্ছে ,এ কারনে আমি তাকে সাধুবাদ জানাই । তার প্রতি আমাদের দৃষ্টি থাকবে ।

http://www.anandalokfoundation.com/