শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

আশাশুনিতে তিন দিন পর বিদ্যুৎ , ১৩ সহস্রাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্থ

১৩ সহস্রাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্থ

সচ্চিদানন্দদেসদয়,আশাশুনি,সাতক্ষীরাঃ প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ এর তান্ডবে আশাশুনি উপজেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।তিন দিন পর মঙ্গলবার আশাশুনিতে বিদ্যুৎ এর দেখা মিলেছে।ক্ষয়ক্ষতিতে প্রাথমিক হিসাবে ১৩ সহস্রাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্থ, গবাদি পশু, ধানের ফসল, বৃক্ষ ও মৎস্য ঘেরের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আশ্রয় শিবিরে আশ্রয় গ্রহনকারী মানুষ প্রায় সবাই বড়ি ফিরেছে।

১৫১২ জন স্বেচ্ছাসেবক নিয়ে সিপিপি সদস্যরা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ প্রশাসন ও জন প্রতিনিধিদের প্রচেষ্টায় শনিবার (৯ নভেম্বর) সন্ধ্যার আগেই উপজেলার সকল ইউনিয়নে ২৭টি সাইক্লোন শেল্টার, ৮১টি দ্বিতল স্কুল ও ১১টি ইউনিয়ন পরিষদে মানুষ আশ্রয় গ্রহন করেন। এসব স্থানে ৩০ সহ¯্রাধিক মানুষ আশ্রয় নেন। এছাড়া বিভিন্ন পাকা বিল্ডিং বাড়িতেও মানুষ আশ্রয় গ্রহন করেন। সারাদিন ও রাতে থেমে থেকে হালকা বৃষ্টিপাত ও হাওয়া বয়ে গেলেও রাত ১ টার দিকে প্রথম প্রচন্ডবেগের ঝড়ো হাওয়ার আঘাত হানে। এরপর কিছুটা কমলেও রাত্র ৩/৩.৩০ টার দিকে প্রচন্ড গতির ঝড়ের থাবায় গোটা এলাকাকে গ্রাস করে ফেলে। মুহুর্তের মধ্যে গাছগাছালি, ঘরবাড়ি মড়মড় করে ভাংতে শুরু করে। সাথে সাথে প্রচুর বৃষ্টিপাত শুরু হয়। গাছ পড়ে বহু ঘরবাড়ি. বিদ্যুৎ লাইন ভেঙ্গে-ছিড়ে যায়, পথঘাট বন্ধ হয়ে যায়। ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টিপাত রোববার সকাল ৮ টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকে।

উপজেলা প্রশাসন, জন প্রতিনিধি ও বিভিন্ন সূত্রে প্রাথমিক হিসাবে জানাগেছে, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ৯ হাজার ২০টি ঘরবাড়ি আংশিক ও ৪ হাজার ২৯২টি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ ভাবে বিধ্বস্থ হয়েছে। ১৭৩৪ হেক্টর জমির মৎস্য ঘের বৃষ্টিপাতে প্লাবিত হয়েছে। ৫১৭ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে। ২৫০০ হাঁস-মুরগি এবং ৫১৭টি গরু-ছাগল মারা গেছে। আশাশুনি সদরের কোদন্ডা গ্রামে অধীর কৃষ্ণ মন্ডলের পুত্র তুলশী মন্ডলের মুরগীর খামারের ঘরের উপর গাছ পড়ে বিধ্বস্থ হওয়ায় খামারের ৫৬০টি বড় মুরগী মারা গেছে। যার মূল্য ১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা। বিদ্যুৎ লাইনের তার ছিড়ে ও খুঁটি উপড়ে যাওয়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রয়েছে। মোবাইল যোগাযোগ ভেঙ্গে পড়েছে। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উপজেলা এখনো অন্ধকারাচ্ছন্ন রয়েছে। শিশু, আম, জাম, নারিকেল, কাঠালসহ হাজার হাজার গাছগাছালি উপড়ে ও ভেঙ্গে পড়েছে। তবে কোন মানুষের প্রাণ হানির খবর পাওয়া যায়নি।

শনিবার রাতে আশ্রয় শিবিরে আশ্রিতদের মাঝে চিড়ি-চিনি, মুড়ি, বিস্কুট সরবরাহ করা হয়। রোববার দুপুরে খিঁচিড়ির ব্যবস্থা করা হয়। সরকারি ভাবে শিশু খাদ্যের জন্য ২০ হাজার টাকা, গোখাদ্যের জন্য ২০ হাজার টাকা, ৩৭ মেঃ টন জিআর চাউল এবং ত্রাণ সহায়তা বাবদ ৯০ হাজার টাকা শনিবার আশাশুনির জন্য বরাদ্দ করা হয়। সোমবার এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন সহায়তার খবর পাওয়া যায়নি। তবে ঢাকা থেকে শুকনো খাবারের প্যাকেট আসছে বলে জানাগেছে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 News Time Media Ltd.
IT & Technical Support: BiswaJit