13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

‘৭২-এর সংবিধান পুনঃপ্রবর্তনে বাধা কোথায়

admin
November 4, 2016 11:30 pm
Link Copied!

প্রানতোষ তালুকদার : রাজধানীর ধানমন্ডির ডব্লিউভিএ অডিটরিয়াম, বাড়ী নং-২০, রোড নং-২৭ এ একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি আয়োজিত ৪৫তম সংবিধান দিবস উপলক্ষে বক্তারা বলেছেন ‘৭২-এর সংবিধান পুনঃপ্রবর্তনে বাধা কোথায়।

অদ্য ৪ নভেম্বর রোজ শুক্রবার রাজধানীর ধানমন্ডির ডব্লিউভিএ অডিটরিয়াম-এ একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি আয়োজিত ৪৫তম সংবিধান দিবস উপলক্ষে শুরুতে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলেছেন ১৯৭১-এ মুক্তিযুদ্ধের অবিস্মরণীয় বিজয় যেমন বাঙালির পাঁচ হাজার বছরের লিখিত-অলিখিত ইতিহাসের সবচেয়ে গৌরবময় অর্জন একইভাবে ১৯৭২-এর ৪ নভেম্বর স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের গণপরিষদের গৃহীত সংবিধানে যেভাবে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতিসমূহ ঘোষিত হয়েছে গণতান্ত্রিক বিশ্বের তা বিরল।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর (২০১৬) যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে মার্কিন সরকারের প্রভাবশালী পরামর্শক সংস্থা ‘আটলাণ্টিক কাউন্সিল’-এর সেমিনারে বাংলাদেশে ও অন্যান্য দেশে জঙ্গী মৌলবাদী সন্ত্রাসের উত্থান, কারণ বৈশিষ্ট্য ইত্যাদি বিষয়ে শাহরিয়ার কবির এর বক্তব্যের পর শ্রোতাদের পক্ষ থেকে প্রশ্ন করা হয়েছিল মুসলমানপ্রধান দেশগুলোর ভেতর কোন দেশের সংবিধানকে শাহরিয়ার কবির দৃষ্টান্তমূলক মনে করেন। তখন শাহরিয়ার কবির এর জবাব ছিল নিঃসন্দেহে ১৯৭২-এ গৃহীত বাংলাদেশের সংবিধান।

দেশে ও বিদেশে সংবিধান সংক্রান্ত বহু সেমিনার ও সম্মেলনে শাহরিয়ার কবির বলেছেন বিশ্বের পাঁচটি দেশের সংবিধান বিভিন্ন কারণে আলোচনার শীর্ষে রয়েছে। এই দেশগুলো হচ্ছে (১) আমেরিকা, (২) ফ্রান্স, (৩) সোভিয়েত ইউনিয়ন, (৪) তুরস্ক ও (৫) ভারত। যদিও এখন সোভিয়েত ইউনিয়ন নেই, কামাল আতাতুর্কের ধর্মনিরপেক্ষ তুরষ্কে গত ১৪ বছর ধরে ধর্মীয় মৌলবাদে বিশ্বাসীরা ক্ষমতায় রয়েছে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের সংবিধান রচয়িতরা উদাহরণ হিসেবে এই পাঁচটি সংবিধানই বিশেষভাবে পর্যালোচনা করছেন। ধর্মনিরপেক্ষ মানবিক সমাজ নির্মাণের ব্যবস্থাপত্র হিসেবে বাংলাদেশের সংবিধান নিঃসন্দেহে বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সংবিধান হিসেবে গণ্য হতে পারে।

বিশ্বে ও সকল ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক দেশের সংবিধানে ধর্মকে রাষ্ট্র থেকে পৃথক করা হয়েছে। বাংলাদেশের আদি সংবিধানে ধর্মকে শুধু রাষ্ট্র থেকে নয়, রাজনীতি থেকেও পৃথক করা হয়েছে। এর কারণ হিসেবে স্বাধীন বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৪ নবেম্বও গণপরিষদের অবিস্মরণীয় ভাষণে বলেছিলেন।

‘ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। বাংলার সাড়ে সাত কোটি মানুষের ধর্মকর্ম করার অধিকার থাকবে। আমরা আইন কওে ধর্মকে বন্ধ করতে চাই না এবং করবো না। ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়।

মুসলমানরা তাদের ধর্ম পালন করবে, তাদের বাধা দেওয়ার ক্ষমতা এই রাষ্ট্রে কারো নাই। হিন্দুরা তাদেও ধর্ম পালন করবে, কারো বাধা দেওয়ার ক্ষমতা নাই। বৌদ্ধরা তাদের ধর্ম পালন করবে, খৃস্টানরা তাদের ধর্ম করবে তাদেও কেউ বাধা দিতে পারবে না। আমাদেও শুধু আপত্তি হলো এই যে, ধর্মকে কেউ রাজনৈতিক অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করতে পারবে না।

তিনি বলেন ২৫ বৎসর আমরা দেখেছি, ধর্মেও নামে জুয়াচুরি, ধর্মেও নামে শোষণ, ধর্মেও নামে বেঈমানী, ধর্মেও নামে অত্যাচার, খুন, ব্যাভিচার এই বাংলাদেশের মাটিতে এসব চলেছে। ধর্ম অতি পবিত্র জিনিষ। পবিত্র ধর্মকে রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করা চলবে না। যদি কেউ বলে যে, ধর্মীয় অধিকার খর্ব করা হয়েছে, আমি বলবো ধর্মীয় অধিকার খর্ব করা হয়নি। সাড়ে সাত কোটি মানুষের ধর্মীয় অধিকার রক্ষা করার ব্যবস্থা করেছি। কেউ যদি বলে গণতান্ত্রিক মৌলিক অধিকার নাই, আমি বলবো সাড়ে সাত কোটি মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে যদি গুটি কয়েক লোকের অধিকার হরণ করতে হয়, তা করতেই হবে।’

ধর্মনিরপেক্ষতার রক্ষাকবচ হিসবে ‘৭২-এর সংবিধানের ৩৮ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছিল ‘জনশৃঙ্খলা ও নৈতিকতার স্বার্থে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসঙ্গত বাধানিষেধ-সাপেক্ষে সমিতি বা সঙ্ঘ গঠন করিবার অধিকার প্রত্যেক নাগরিকের থাকিবে;

‘তবে শর্ত থাকে যে, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যসম্পন্ন বা লক্ষ্যানুসারী কোন সাম্প্রদায়িক সমিতি বা সঙ্ঘ কিংবা অনুরূপ উদ্দেশ্যসম্পন্ন বা লক্ষ্যনুসারী ধর্মীয় নামযুক্ত বা ধর্মভিত্তিক অন্য কোন সমিতি বা সঙ্ঘ গঠন করিবার বা তাহার সদস্য হইবার বা অন্য কোন প্রকাওে তাহার তৎপরতায় অংশগ্রহণ করিবার অধিকার কোন ব্যক্তির থাকিবে না।’

৩০ লক্ষ শহীদের রক্তে লেখা বাংলাদেশের মূল সংবিধানে বর্ণিত রাষ্ট্রের চার মূলনীতি থেকে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ ও ‘বাঙালি জাতীয়তাবাদ’ মুছে ফেলার পাশাপাশি ধর্মের নামে রাজনীতির উপর নিষেধাজ্ঞা বাতিল করে বাংলাদেশকে আবার পাকিস্তানের মতো মৌলবাদী, সাম্প্রদায়িক ও সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানাবার উদ্যোগ নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু ও চার জাতীয় নেতা হত্যার প্রধান বেনিফিসিয়ারি বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা জেনারেল জিয়াউর রহমান।

১৯৭৫-এর ৭ নবেম্বও অসাংবিধানিকভাবে রাষ্ট্রক্ষমতা কুক্ষিগত করে সবার আগে তিনি যুদ্ধাপরাধীদেও বিচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন। তারপর মুক্তিযুদ্ধেও চেতনায় ভাস্কও ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক সংবিধানের পাকিস্তানিকরণের মাধ্যমে আলোকাভিসারী বাংলাদেশকে নিক্ষেপ করেছিলেন মধ্যযুগীয় তামসিকতার গহ্বরে। এরই ধারাবাহিকতায় তার উত্তরসুরী জেনারেল এরশাদ সংবিধানের প্রথম ভাগে যেখানে প্রজাতন্ত্রেও সীমানার কথা বলা হয়েছে সেখানে ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম’ যুক্ত করলেন পাকিস্তান ও মধ্যপ্রাচ্যের মোল্লাদের মনোরঞ্জনের জন্য। পৃথিবীর সব দেশেই অবৈধ ক্ষমতাদখলকারীরা তাদেও দুষ্কর্মেও বৈধতা হিসেবে ব্যবহার করে ধর্মকে।

‘একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি’সহ বিভিন্ন মানবাধিকার, পেশাজীবী ও সামাজিক সংগঠন দীর্ঘকাল ধরে ‘৭২-এর সংবিধান পুনঃপ্রবর্তনের জন্য আন্দোলন করছে। নাগরিক সমাজের সম্মিলিত আন্দোলন ও দাবির কারণে ২০০৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় মহাজোট ঘোষণা করেছিল ক্ষমতায় এলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধেও চেতনায় বাংলাদেশ গড় হবে। প্রধানতঃ এই ঘোষণার জন্যই নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধেও স্বপক্ষের অবিস্মরণীয় বিজয় অর্জন কওে সরকার গঠন করতে পেরেছিল। নির্বাচনী অঙ্গীকার অনুযায়ী ২০১০ সালে ‘আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল’ গঠন কওে মহাজোট সরকার যুদ্ধাপরাধীদেও বিচার আরম্ভ করেছে। ২০১১ সালের অক্টোবরে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে চার মূলনীতি পুনঃপ্রবর্তন করা হয়েছে। তবে মূলনীতির সঙ্গে সাংঘার্ষিক হওয়া সত্ত্বেও পাকিস্তানপ্রেমী দুই জেনারেলÑজিয়া ও এরশাদের ‘বিস্মিল্লাহ্….. ও ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম’ রেখে দেয়া হয়েছে। সংবিধানের এই জগাখিচুড়ির ষোলআনা সুযোগ নিচ্ছে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের জন্মশত্রু জামায়াতে ইসলাম এবং তাদেও সহযোগী অপরাপর মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সংগঠনগুলো।

একথা অস্বীকার করা যাবে না যে পঞ্চদশ সংশোধনী ‘৭২-এর সংবিধান এবং পরবর্তী সংশোধনীসমূহের কিছু অস্পষ্টতা এবং অগণতান্ত্রিকতা অপসারণ করেছে। তবে কিছু অস্পষ্টতা দূও হলেও নতুন যে সব অসঙ্গতি সৃষ্টি হয়েছে সেগুলো অপসারণের ক্ষেত্রে এখন সংবিধানের অভিভাবক হিসেবে সুপ্রিম কোর্টকে অগ্রণী ভূমিকা গ্রহণ করার জন্য বলেছেন শাহরিয়ার কবির।

সংবিধানের ৭। (ক) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে ‘প্রজাতন্ত্রেও সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ; এবং জনগণের পক্ষে সেই ক্ষমতার প্রয়োগ কেবল এই সংবিধানের অধীন ও কর্তৃত্বে কার্যকর হইবে।

‘(২) জনগণের অভিপ্রায়ের পরম অভিব্যক্তিরূপে এই সংবিধানে ও প্রজাতন্ত্রের সর্বোচ্চ আইন এবং অন্য কোন আইন যদি এই সংবিধানের সহিত অসমঞ্জস হয়, তাহা হইলে সেই আইনের যতখানি অসমঞ্জস্যপূর্ণ, ততখানি বাতিল হইবে।’ সংবিধান বাংলাদেশের জনগণকে সকল ক্ষমতার মালিক ঘোষণা করেছে।

তিনি বলেন ১৯৭৫-এর পর থেকে সমাজ ও রাজনীতি ‘পাকিস্তানিকরণ’ বা মৌলবাদীকরণের সময়ে যে প্রজন্ম বেড়ে উঠেছে, যাদের মুক্তিযুদ্ধেও ইতিহাস ও চেতনা থেকে দূওে রাখা হয়েছিল তাদেও মুক্তিযুদ্ধেও চেতনায় আলোকিত করছে নির্মূল কমিটির দীর্ঘ আন্দোলন। এই আন্দোলনের কারণেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হচ্ছে এবং ‘৭২-এর সংবিধান আংশিকভাবে পুনঃপ্রবর্তিত হয়েছে।

তিনি বলেন ২০১১ সালে সুপ্রিম কোর্টেও রায়ে যখন বলা হয়েছিল সামরিক শাসন অবৈধ ও অসাংবিধানিক তখন আমরা আশা করেছিলাম পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে অবৈধ সামরিক সরকারের দ্বারা অবৈধভাবে সংবিধান পরিবর্তন বাতিল হয়ে যাবে, আমরা আদি সংবিধানে ফিরে যাব, কিন্তু তা হয়নি। জামায়াত ও তাদের সহযোগী ধর্মব্যবসায়ী মৌলবাদী দুর্বত্তদেও সন্তুষ্ট করার জন্য সংবিধানের বর্ণিত রাষ্ট্রের মূলনীতি ধর্মনিরপেক্ষতার সঙ্গে সাংঘর্ষিক হওয়া সত্ত্বেও ‘বিস্মিল্লাহ….., ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম’ ইত্যাদি রেখে দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন গত বার বছর ধরে আমরা ৪ নবেম্বও সংবিধান দিবস পালন করছি বাংলাদেশের আদি সংবিধানের গুরুত্ব ও মর্যাদা সম্পর্কে নতুন প্রজন্মকে সচেতন করার জন্য। একই ভাবে সরকারের নিকট দাবি জানাচ্ছি ৪ নভেম্বর ও ‘সংবিধান দিবস’ ঘোষণার জন্য, যা মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বপ্রদানকারী বঙ্গবন্ধুর সরকারের একটি অসমান্য অবদান চিরস্মরণীয় করে রাখবে।

পরিশেষে তিনি বলেছেন আমরা আশা করব দেশ ও জাতিকে মৌলবাদী সন্ত্রাস ও সাম্প্রদায়িকতার অভিশাপ থেকে মুক্ত করার জন্য, জাতি-ধর্ম-ভাষা-বর্ণ-বিত্ত-লিঙ্গ নির্বিশেষে সকল মানুষের সমান অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠার জন্য সংবিধানের অভিভাবক এবং জনগণের প্রতিনিধিরা সংবিধান প্রদত্ত অধিকার প্রয়োগ করে বিশ্বের অনন্যসাধারণ সংবিধানটির হৃত মর্যাদা ফিরিয়ে দেয়ার জন্য।

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি আয়োজিত ৪৫তম সংবিধান দিবস উপলক্ষে ‘৭২-এর সংবিধান পুনঃপ্রবর্তনে বাধা কোথায় অনুষ্ঠানে একই মত পোষণ করে বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি মাননীয় বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি, প্রাক্তন আইন মন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, মুক্তিযোদ্ধা আয়শা খানম, এডভোকেট রানা দাস গুপ্ত, কলামিস্ট সৈয়দ মাহবুবুর রশিদ, ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম, তৌহিদ রেজা নূর।

http://www.anandalokfoundation.com/