13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৫ আগস্ট ‘৭৫ এবং ২১ আগস্ট ‘০৪ এর খুনিরা একই সূত্রে গাঁথা -মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

Rai Kishori
September 4, 2019 6:19 pm
Link Copied!

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সপরিবারে হত্যাকাণ্ড এবং ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনা একইসূত্রে গাথা। বলেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ. ক. ম মোজাম্মেল হক এমপি।

আজ ৪ সেপ্টেম্বর বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী অডিটোরিয়ামে মুক্তিযোদ্ধা জনতার সম্প্রীতি বাংলাদেশ আয়োজিত ‘১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্ট খুনি চক্র একই সূত্রে গাথা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, ১৯৭৫ সালে খুনিরা ব্যক্তি মুজিবকে নয় বরং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও স্বপ্নকে হত্যা করতে চেয়েছিল। ১৯৭৫ সালে মূল উদেশ্য পূরণে ব্যর্থ হয়ে স্বাধীনতা বিরোধী সাম্প্রদায়িক অপশক্তি ২০০৪ সালে জাতির পিতার আদর্শ ও স্বপ্নের ধারক ও বাহক এবং রক্তের উত্তরাধিকার দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনাকে সদলবলে হত্যা করতে উদ্যত হয়েছিল। এবারেও তারা ব্যর্থ হয়।

তিনি বলেন, এসকল মর্মান্তিক ও নৃশংস ঘটনার ঘৃণ্য পরিকল্পনাকারীদের পরিচয় বিশেষ কমিশনের মাধ্যমে বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরা হবে।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সচেতন জনগণ সকল ষড়যন্ত্রের যোগ্য জবাব ব্যালটের মাধ্যমে দিয়ে যাচ্ছে। জাতির পিতার স্বপ্ন লালনকারী ও আদর্শের বাহকেরা রাষ্ট্রক্ষমতায় থেকে তাঁর স্বপ্ন পূরণে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ এখন সুখী, সমৃদ্ধ এবং খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ ডিজিটাল বাংলাদেশ। সকল প্রকার সেবা এখন জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাচ্ছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ সকল প্রকার অত্যাবশকীয় সেবা নিশ্চিতে আন্তরিকভাবে কাজ করা হচ্ছে। সকল নাগরিকের সমান অধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ। হত্যা খুনের রাজনীতিকারীদের জনগণ প্রত্যাখান করেছে। এখন জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সবাই মিলে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার মাধ্যমে তাঁর রক্তের ঋণ শোধ করতে হবে।

বক্তব্যের শুরুতে মন্ত্রী ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ও ২০০১৪ সালে নিহত সকল শহিদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

মুক্তিযোদ্ধা জনতার সম্প্রীতি বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মো. ইব্রাহীম খলিলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় সম্মিলিত মুক্তিযোদ্ধা ফাউন্ডেশনের মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা জি. কে. বাবুল, লায়ন্স ক্লাব ঢাকার চার্টার্ড প্রেসিডেন্ট লায়ন আব্দুস সালাম চৌধুরী,বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক পরিচালক হাফিজ আহমেদ, মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও বাস্তবায়ন সংস্থার মানবাধিকার মুখপাত্র মহাসচিব নূরুল ইসলাম প্রমুখ।

http://www.anandalokfoundation.com/