রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০, ০৯:৩৬ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
পাইকগাছায় কাগজি লেবুর চাহিদা বেড়েছে আশাশুনিতে ঠিকাদারের গাফিলতিতে ৫২দিনেও সম্ভব হয়নি বিকল্প বেড়ীবাঁধ নির্মান ৬ দিনেও খোঁজ মেলেনি স্কুলছাত্রী মীমের  ঝিনাইদহে মরমী কবি পাগলা কানাইয়ের মৃত্যুবার্ষিকী পালন ঝিনাইদহে করোনা উপসর্গে আরও ২ জনের মৃত্যু ডিজিটাল পেমেন্টের পাশাপাশি পরিবর্তিত নতুন সময়ে ভার্চুয়াল মুদ্রায় ও মনযোগী -পলক শার্শায় বিদ্যুতের স্পর্শ হয়ে শিশুর মৃত্যু দেশের প্রথম ১০০০ শয্যাবিশিষ্ট সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল নির্মাণ, কার্যক্রম পরিদর্শন উপাচার্যের বগুড়া জেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক লেলিনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ডিজিটাল হাটে প্রথম অনলাইনে গরু কিনে ‘মানবসেবা.কম’ এ দান করলেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

নির্ভয়া যেন হিন্দু-সন্তান জন্ম দিতে না পারে তাই ধর্ষণের পর লোহার রড ঢুকিয়ে দেয়

নির্ভয়া হত্যা

দেবাশীষ মুখার্জী (কূটনৈতিক প্রতিবেদক): নির্ভয়া (জ্যোতি সিং) ধর্ষণ ও নির্মম হত্যাকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত চার অপরাধীর ফাঁসি হয়েছে। কিন্তু যার পাশবিক নির্যাতনে নির্ভয়া খুন হয়েছে সেই মোহাম্মদ আফরোজ ধর্মনিরপেক্ষ শাসনব্যবস্থার ছত্রছায়ায় রাষ্ট্র কর্তৃক পুরস্কৃত হয়ে এক ভয়ঙ্কর জেহাদীতে পরিণত হয়েছে।

২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বর দক্ষিণ দিল্লির একটি যাত্রীবাহী বাসের মধ্যে দরিদ্র পরিবারের মেধাবী মেডিকেল ছাত্রী নির্ভয়া নামে খ‍্যাত জ্যোতি সিংকে, ছয় নরপশু মিলে ধর্ষণ করে।

ধর্ষকদের জবানবন্দি থেকে জানা যায়, মোহাম্মদ আফরোজ নির্ভয়াকে পরপর দু’বার ধর্ষণ করার পর তার প্রজনন অঙ্গে একটি মরচে ধরা লোহার রড ঢুকিয়ে দিয়ে বর্ণনাতীত বিকৃত যৌন লালসা চরিতার্থ করতে গিয়ে ভেতর থেকে একটি প্রত্যঙ্গ ছিঁড়ে আনে। যাতে নির্ভয়ার মতো হিন্দু নারীরা কোনদিন হিন্দু-সন্তান জন্ম দিতে না পারে। মোহাম্মদ আফরোজের বিশেষ উদ্দেশ্যে সাধিত – ওই বিকৃত যৌন লালসা চরিতার্থ-ঘটিত নির্ভয়ার অভ্যন্তরীণ ছিন্ন-ভিন্ন শরীরে, ভয়াবহ জীবাণু সংক্রমণ ঘটলে, নির্ভয়া মৃত্যুমুখে পতিত হয়।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, অন্যান্য অপরাধীদের সাথে মোহাম্মদ আফরোজকেও গ্রেফতার করে। সোনিয়া গান্ধীর কংগ্রেস সরকার ও তৎকালীন প্রধান বিচারপতি আলতামাস কবিরের উৎস-শক্তি নেপথ্যে থেকে – মোহাম্মদ আফরোজকে রক্ষা করতে সর্বতো সহায়তা করেছে।

ভারতের জঘন্যতম ক্ষমতালোভী গান্ধী-নেহেরু পরিবার, ইমারজেন্সি দিয়ে সমস্ত গণতান্ত্রিক নেতাদের কারাবন্দী করে, সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা ঢুকিয়ে দিয়ে, হিন্দু জাতিকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার দীর্ঘমেয়াদী নীলনকশা প্রণয়ন করে।
ইতালি থেকে আসা খ্রিস্টধর্মাবলম্বী সোনিয়া গান্ধী রাষ্ট্র-ক্ষমতা হাতে পেয়ে, প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ পদে সংখ্যালঘুদের নিয়োগ দান করলে – ভারত ভূমিকে হিন্দুশূন্য করার সুগভীর কংগ্রেসী-চক্রান্ত একেবারে উলঙ্গ হয়ে যায়। পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত ইসলামপন্থী উগ্রবাদীদের ধ্বংসাত্মক কোন আক্রমণ ঘটলেই, সোনিয়া গান্ধী, আহমেদ প‍্যাটেল ও রাহুল গান্ধী-সহ কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারা বিদেশে গিয়ে প্রচার করতেন, আপনারা অহেতুক পাকিস্তান বা ইসলামপন্থীদের দোষারোপ করছেন – ‘ওই সব জঙ্গি-সন্ত্রাস ঘটিয়েছে গৈরিক সন্ত্রাসবাদী তথা হিন্দু সন্ত্রাসীরা।’

 কংগ্রেস সরকারের লোকজন কোন এক মাদ্রাসা থেকে প্রমাণপত্র বানিয়ে এনে দেখায় যে, মোহাম্মদ আফরোজের আঠারো বছর বয়স হতে ছ’মাস সময় বাকি – অর্থাৎ সে নাবালক। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে,একটা নাবালক কিভাবে একজন প্রাপ্তবয়স্ক থেকেও অধিক হিংস্রতায় ধর্ষণ করতে পারে, বিকৃত যৌন লালসা চরিতার্থ করতে পারে!

হিন্দুরা সমস্ত ধরনের জুলুম-অত্যাচার মুখ বুজে মেনে নিতে খুবই পারঙ্গম। দখলদার তুর্কি-উজবেকরা, হিন্দু জাতিকে ক্রীতদাসের-অধঃ গবাদি পশুতে পরিণত করে, শত শত বছর লাগাতার ধর্ষণ করেছে ; আর এই নির্লজ্জ হিন্দু জাতি তাকে বলে উদারতা – সহিষ্ণুতা – ধর্মনিরপেক্ষতা।

কংগ্রেস মোহাম্মদ আফরোজকে কারাগারে না রেখে – বিশেষ সংশোধনাগারে নিয়ে গিয়ে, এক কাশ্মীরি জেহাদির সাথে রাখে। ওই জেহাদী মোহাম্মদ আফরোজের মগজ ধোলাই করে এবং এক সাচ্চা জঙ্গিতে পরিণত করে।

নির্ভয়ার মা দুঃখপ্রকাশ করে বলেন, হিন্দুরা এই জঘন্য অপরাধী মোহাম্মদ আফরোজের বিচারের দাবিতে রাস্তায় নামেনি। কেন নামবে! হিন্দুদের সেই চেতনা নেই যে! এই আফরোজরা পার পেয়ে গেলে, এরা নির্ভয়ার মতো অগণিত হিন্দু মা-বোনকে যথেচ্ছ ধর্ষণ করে হয় প্রজনন ক্ষমতা নষ্ট করে দেবে নতুবা মেরে ফেলবে। কংগ্রেসের পরিকল্পনা সফল হয়েছে।

পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোহাম্মদ আফারোজের বাড়ি উত্তর প্রদেশের বদায়ুনতে গিয়ে শোনা যায়, মোহাম্মদ আফরোজ এখন এক খতরনাক জেহাদিতে পরিণত হয়েছে এবং পাকিস্তান সীমান্তে অবস্থান করে। ভারতের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে।

কতিপয় কাণ্ডজ্ঞানহীন হিন্দু নেতা গোমূত্র-তত্ত্ব প্রচারে ব্যস্ত। গোমূত্র পান করে কি এই আধুনিক যুগে টিকে থাকা যায়!  মানব সভ্যতা এগিয়ে গেছে – হাজার হাজার বছর।  জাতিকে ইতিহাস পড়তে হবে, ভূগোল পড়তে হবে, রাজনৈতিক-জ্ঞান অর্জন করতে হবে। না হলে তুর্কি-উজবেকদের প্রদর্শিত পথ ধরে এই মোহাম্মদ আফরোজরা দেশি-বিদেশি শত্রুদের সহায়তায় নির্ভয়াদের ধর্ষণ করে তাদের প্রজনন ক্ষমতা নষ্ট করে দিতে থাকবে। নির্বিচারে নারী হত্যা করতে থাকবে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!