13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হিন্দুত্বের জনক বীর সাভারকর এর ১৮৯ তম জন্মদিবস আজ

নিউজ ডেস্ক
May 28, 2022 6:30 am
Link Copied!

বিনায়ক দামোদর সাভারকর ১৮৮৩সালে এইদিনে মারাঠায় জন্মগ্রহণ করেন। ‘বীর সাভারকর’ নামে যিনি পরবর্তীকালে কিংবদন্তীতে পরিণত হয়েছেন।  আজ ১৮৯ তম জন্মদিনে বীর সাভারকরের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলী।

বিনায়ক দামোদর সাভারকর বা বীর সাভারকর আসলে কে? ভারতের জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের প্রথম সারির যোদ্ধা, গাঁধীহত্যার নেপথ্য কুশীলব? ভারতীয় হিন্দুদের মসিহা? এই প্রশ্নগুলোর যথার্থ উত্তর খোঁজার চেষ্টা ইতিহাসবিদরা, বিশেষত ভারতীয় ইতিহাসবিদরা, করেননি। তার ফল হয়েছে বিষম— ‘বীর’ সাভারকর চরিত্রটি হয়ে উঠেছেন চলমান অশরীরী, তাঁর সম্বন্ধে যা শোনা যায়, সবই অরণ্যের প্রাচীন প্রবাদ। এখনও অবধি তাঁর কোনও প্রামাণিক জীবনী নেই। যে জমানায় লিখিত ইতিহাসই পাল্টে যায় সেখানে এমন একটি কার্যত অচর্চিত চরিত্র— বিশেষত, যাঁর প্রধান পরিচিতি ‘হিন্দুত্বের জনক’ হিসেবে— মহানায়ক হয়ে উঠতে পারেন, সেই সম্ভাবনা বিপুল।

কলকাতা থেকে ডাক্তারি পাশ করা কেশব বলীরাম হেডগেওয়ার গান্ধীজির ডাকে অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দিয়ে জেল খেটে বেরিয়ে এসে ১৯২৫ সালে তাঁর হোম টাউন নাগপুরে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা আরএসএস প্রতিষ্ঠা করেন। কারণ তাঁর গান্ধীজির পথ ও পদ্ধতি নিয়ে মোহমুক্তি ঘটেছে। মার্চ, ১৯২৫-এ তিনি দেখা করেন রত্নগিরি জেলায় অন্তরীণ সাভারকরের সঙ্গে এবং তাঁর ‘হিন্দুত্ব’ বইটি তাঁকে প্রভাবিত করেছিল।

লন্ডনে থাকাকালীন সাভারকর ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের সাথে যুক্ত হন। সাভারকরকে হিন্দুত্ব  রাজনৈতিক মতাদর্শের প্রবক্তা বলে গণ্য করা হয়। তিনি হিন্দু জাতীয়তাবাদী আদর্শের প্রবক্তা ছিলেন। তিনি চেয়েছিলেন সব ধর্ম ও আদর্শের উপরে উঠে সবাই নিজেকে আগে ভারতীয় ভাবুক। আধুনিক হিন্দু জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক দলগুলো সাভারকরকে পরম পূজনীয় হিসাবে সম্মান করে থাকে। বীর সাভারকর অভিনব ভারত সোসাইটি প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি হিন্দু মহাসভার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি হিন্দু সমাজের কুখ্যাত জাতিভেদ প্রথার বিরোধিতা করেন।

বিনায়ক দামোদর সাভারকার তার বিভিন্ন ধরনের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সমাজের একটি বিশেষ গোষ্ঠীকে জাগ্রত করতে পেরেছিলেন। অস্পৃশ্যতা নিয়ে বিনায়ক দামোদর সাভারকর এর যে লড়াই সেটা ভারতের ইতিহাসে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এমনকি অস্পৃশ্যতার বিরুদ্ধে তার আন্দোলনে মুগ্ধ হয়েছিলেন আম্বেদকর পর্যন্ত। সাম্প্রদায়িক, ফ্যাসিবাদী, নাতসি এবং হিটলারের প্রতি মর্মস্পর্শী এই স্বাধীনতা সংগ্রামীর তথা সামাজিক বিপ্লবীর জীবনের অনেকগুলো অধ্যায় এখনো পর্যন্ত জানা যায়নি। বিদেশি লেখক-লেখিকারাও তার কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করেছেন। তবে তার সব থেকে বড় অবদান ছিল ভারতে হিন্দুত্ব প্রতিষ্ঠা নিয়েই। হিন্দুত্বের সঙ্গে পাশ্চাত্য রীতিনীতির একটা মিলন ঘটিয়েছিলেন তিনি।  সঙ্ঘ পরিবার দেশে এখন হিন্দুত্বের জনক বলতে একজনকেই প্রায় দেবতার আসনে বসিয়েছে।  ভারতীয় জনতা পার্টির ক্ষেত্রে তার চিন্তা ভাবনা ভবিষ্যতের অক্সিজেন।

তিনি মনে করতেন নাৎসি এবং ফ্যাসিবাদী নীতিগুলি জার্মানি এবং ইতালিতে অন্যভাবে কাজে লাগানো যেতে পারে। তবে তিনি কোথাও হিটলারকে সমর্থন করেন না। তার মতে বলশেভিক এবং গণতন্ত্র এই দুটি নীতিও দুনিয়ায় সব থেকে বেশি জনপ্রিয় চারটি রাজনৈতিক রীতিনীতির মধ্যে অন্যতম। ভারতের আন্তর্জাতিক রীতিনীতি বিষয় নিয়ে তিনি আগ্রহী ছিলেন। সে দিক থেকেই তিনি হিটলারের প্রতি কিছুটা মর্মস্পর্শী।

ইতিহাস বিখ্যাত নাসিক ষড়যন্ত্র মামলার দ্বিতীয় পর্যায়ে অভিযুক্ত করা হয়েছিল সাভারকরকে। তাঁর বিরুদ্ধে বিপ্লবীদের ব্রাউনিং পিস্তল সরবরাহ করার অভিযোগ ওঠে। ১৯১১ সালের ৩০ জানুয়ারি মামলার চূড়ান্ত বিচারে দীর্ঘ ২৫ বছর সশ্রম কারাবাস হয় তাঁর।

অভিযোগ করা হয় মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকাণ্ডের সাথে সাভারকর জড়িত ছিলেন। তার বিরুদ্ধে মহাত্মার হত্যা করার অপরাধে চার্জশিট ফাইল করা হয়েছিল। কিন্তু প্রমাণের অভাবে সাভারকারের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি।

সাভারকর ১৯৬৬ সালে মুম্বইয়ে ৮৩ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। সে সময়ে বা মৃত্যুর পরেও প্রায় তিন দশক ধরে তাকে নিয়ে কেউ বিশেষ হইচই করেনি। পরবর্তীতে বিজেপি সরকার বাজপেয়ি খমতায় এলে তার বীরত্ব তুলে ধরা হয়।

http://www.anandalokfoundation.com/