ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হাসপাতাল ব্যবস্থাপনায় অখুশি ঢাকার সংসদ সদস্যরা

admin
September 10, 2015 8:19 pm
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ নিজেদের নির্বাচনী এলাকায় সরকারি হাসপাতাল না থাকায় অখুশি ঢাকার কয়েকজন সংসদ সদস্য। জনসংখ্যা অনুযায়ী পরিকল্পনা না করেই রাজধানীতে স্থাপন করা হয়েছে সরকারি হাসপাতালগুলো। এতে কোনো এলাকায় সরকারি হাসপাতালের আধিক্য আছে, আবার কোনো এলাকায় একটিও নেই।

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ঢাকা মহানগর এলাকার সংসদ সদস্যদের এক বিশেষ বৈঠকে এই বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে আলোচিত হয়েছে। বৈঠকে ঢাকার সাতজন সংসদ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। এদের মধ্যে পাঁচজনই তাদের এলাকায় সরকারি জেনারেল হাসপাতাল নেই বলে অভিযোগ করেন।

গত বছর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন জারি করে সংশ্লিষ্ট এলাকার সংসদ সদস্যদেরকে সরকারি হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি করতে বলেছে। নতুন এই উদ্যোগের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার সংসদ সদস্যরা শহরের স্বাস্থ্যসেবার বিষয়টি কেমন দেখছেন সে বিষয়টি জানতে গত মঙ্গলবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে মন্ত্রণালয়ে।

রাজধানীতে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল তিনটি ও বিশেষায়িত হাসপাতাল রয়েছে ১৪টি।

সংসদ সদস্যরা যা বললেন : বৈঠকে ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিম বলেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও মিটফোর্ডের সামনে দিয়ে গেলেই দুর্গন্ধ আসে। হাসপাতালের বর্জ্য ফেলা হয় সাধারণ বর্জ্যের সঙ্গে। হাসপাতালের সামনেই থাকে ডাস্টবিন। অসুস্থ মানুষকে সুস্থ করার প্রতিষ্ঠানের সামনে এমন পরিবেশ গ্রহণযোগ্য নয়। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া দরকার।

ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য সাহারা খাতুন বলেন, ‘ঢাকার নির্বাচনী এলাকাগুলোর মধ্যে আমার নির্বাচনী এলাকায় সবচেয়ে বেশি মানুষ বাস করে। কিন্তু সেখানে কোনো সরকারি হাসপাতাল নেই।’ নিজের এলাকার স্বাস্থ্যসেবার বেহাল অবস্থার উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘১৭ নাম্বার ওয়ার্ডে সরকারি-বেসরকারি কোনো রকম চিকিৎসাকেন্দ্র নেই। যদি আমার মায়ের নামে সরকার কোনো হাসপাতাল করার উদ্যোগ নেয়, সেক্ষেত্রে আমি নিজেই হাসপাতালের জমি দান করব’—নিজের এলাকায় সরকারি হাসপাতাল না থাকায় ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আসলামুল হক এই প্রস্তাব দেন।

ঢাকা-৪ আসনের সংসদ সদস্য আবু হোসেন বাবলা তার বক্তব্যে বলেন, আমার আসনে সরকারি কোনো হাসপাতাল নেই। স্বাস্থ্যমন্ত্রী একটি পাঁচ শ’ শয্যার হাসপাতাল করে দিলে আমার নির্বাচনী এলাকাসহ আশপাশের প্রায় ২৫ লাখ মানুষ স্বাস্থ্যসেবা পাবে।

অন্য সংসদ সদস্যরা যখন নিজের এলাকায় সরকারি হাসপাতাল না থাকার আক্ষেপ করছিলেন তখন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন নিজের এলাকায় (ঢাকা-১২) সবচেয়ে বেশি হাসপাতাল আছে জানিয়ে বলেন, আমার এলাকায় সরকারি আটটি বিশেষায়িত হাসপাতাল আছে। বেসরকারির মধ্যে উচ্চবিত্তদের জন্য যেমন স্কয়ার হাসপাতাল আছে তেমনি নিম্ন আয়ের লোকজনের জন্য আল-রাজী হাসপাতালও আছে।

বেসরকারি বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন (ঢাকা-৮) হাসপাতাল সংশ্লিষ্টতায় তার অভিজ্ঞতার কথায় বলেন, তিনটি বড় হাসপাতাল আমার সংসদীয় এলাকায় আছে। তার মধ্যে বাংলাদেশের সেরা হাসপাতালটিও (ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ) রয়েছে। কিন্তু চাহিদার তুলনায় এই হাসপাতালটির ক্ষমতা কম, রোগীর আসন বাড়াতে পারলে নিম্ন আয়ের মানুষের সেবা দেওয়ার মান বাড়ানো সম্ভব।

ঢাকা-৫ আসনের সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার সংসদীয় এলাকায় একটি মেটারনিটি ছাড়া আর কোনো সরকারি হাসপাতাল নেই বলে জানান। তিনি বলেন, ওই হাসপাতালটিতে শুধু মা ও শিশুর চিকিৎসা হয়। তাই একটি জেনারেল হাসপাতাল স্থাপনের জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

পুরান ঢাকায় ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজকে আর্থিক বরাদ্দ বাড়িয়ে দেওয়ার দাবি করেন ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ। এই চিকিৎসাকেন্দ্রটি প্রতি বছর পাঁচ কোটি টাকা পায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে। বরাদ্দের পরিমাণ আরও বাড়ালে চিকিৎসাপ্রার্থীদের আরও ভাল সেবা দেওয়া সম্ভব বলে দাবি তার। সংসদ সদস্যদের এ সব দাবি ও তথ্যের পরিপ্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, সরকার চায় সবাইকে ভাল স্বাস্থ্যসেবা দিতে। কিন্তু আমাদের পুরো সামর্থ্য নেই। তবে এই বৈঠকের মাধ্যমে রাজধানীর সরকারি স্বাস্থ্যসেবার একটি গুরুত্বপূর্ণ চিত্র ফুটে উঠেছে। তাই এই বিষয়ে পরিকল্পনা করে উদ্যোগ নেব।

ক্ষমতা বাড়ছে পরিচালকদের : বৈঠকে ঢাকার প্রায় সব সরকারি হাসপাতালের পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় ঢাকা মেডিকেল ও মিটফোর্ড মেডিকেলের পরিচালকরা জানান, হাসপাতালের কোনো একটি এসি, ফ্যান, বেসিনের কল নষ্ট হলেও গণপূর্তের দ্বারস্থ হতে হয়। এ সব দায়িত্ব পরিচালকদের হাতে থাকলে কাজে গতি আসবে। এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, হাসপাতালের পরিচালকের হাতে সংস্কার সংক্রান্ত কিছু আর্থিক ক্ষমতা দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। আশা করি এই সমস্যা থাকবে না।

প্রাইভেট হাসপাতালে ও নিয়ন্ত্রণ আসছে : বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে কীভাবে সরকারি নিয়ন্ত্রণের সঙ্গে যুক্ত করে সাধারণ মানুষের সেবার মান বাড়িয়ে এসডিজি (সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল) অর্জনে পদক্ষেপ নেওয়া যায় সে বিষয়টিও চিন্তা-ভাবনা করছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, কর্পোরেট হাসপাতালগুলোতে কীভাবে সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা করা যায় সে বিষয়ে চিন্তা করছে সরকার।

বিভাগ-জেলাতে ও এমন বৈঠক : স্থানীয় সংসদ সদস্যদেরকে সরকারি হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি করার প্রজ্ঞাপন জারির পর কখনও এমন বৈঠক হয়নি। প্রথম বৈঠকটি খুব ফলদায়ক হয়েছে বলে মনে করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। পর্যায়ক্রমে এটি বিভাগ ও জেলা পর্যায়ে করা হবে বলে জানিয়েছেন মোহাম্মদ নাসিম।

http://www.anandalokfoundation.com/