13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সড়কে যাত্রীদের দুর্ভোগ চরমে: স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের হিড়িক

Brinda Chowdhury
April 1, 2021 8:32 am
Link Copied!

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের হিড়িক পড়েছে বাসযাত্রায়। সরকার বাসের প্রতি দুই আসনে একজন বসার শর্তে ভাড়া বাড়িয়েছে ৬০ শতাংশ। বুধবার বাড়তি ওই ভাড়া আদায় করা হলেও রাজধানীর বেশিরভাগ বাসে দুই আসনে একজন যাত্রী বসানোর শর্ত মানেননি পরিবহণ শ্রমিকরা। অনেক বাসে দাঁড়িয়েও যাত্রী বহন করতে দেখা গেছে।

এ নিয়ে যাত্রীদের সঙ্গে অনেক স্থানে পরিবহণ শ্রমিকদের বাগবিতণ্ডা ও হাতাহাতির ঘটনাও ঘটেছে। সরকারি বাস বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন-বিআরটিসির বাসে এ চিত্র বেশি দেখা গেছে। অনেক পরিবহণ শ্রমিক ও যাত্রীদের মুখে মাস্কও ছিল না। গাড়িতে জীবাণুনাশকও দেখা যায়নি। এমন পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার লঞ্চের ভাড়া ৬০ শতাংশ বৃদ্ধি করতে যাচ্ছে নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয়। এতে প্রথম শ্রেণির কেবিন যাত্রীদের ভাড়া বৃদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

এছাড়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে ১১ এপ্রিলের পর ১০৪টি আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট বিক্রি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ।

এদিকে সরকারি-বেসরকারি অফিস খোলা রেখে এবং বাসের সংখ্যা না বাড়িয়ে যাত্রী পরিবহন ৫০ শতাংশ বিধান করায় চরম ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রীরা। বিশেষ করে অফিস শুরু ও ছুটির সময়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বাসের জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে চাকরিজীবীদের। গাড়ির সংকটে পড়েন যাত্রীরা। এর প্রতিবাদে রাজধানীর এয়ারপোর্ট সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ করেন যাত্রীরা।

অপরদিকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে রাইডশেয়ারিংয়ের মোটরসাইকেলে যাত্রী বহন ১৪ দিনের জন্য নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি ঠেকাতে গত সোমবার গণপরিবহণে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলার নির্দেশনা জারি করে সরকার। এরপর বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) সঙ্গে বৈঠকে বসেন বাস মালিকরা।

মঙ্গলবার প্রতি দুই আসনে একজন যাত্রী বহনের শর্তে ৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধির কথা জানান সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বুধবার থেকে এ ভাড়া কার্যকরের ঘোষণা দেন তিনি। বুধবার রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দেখা গেছে, সকাল ও বিকালে বেশিরভাগ বাসেই আসন পূর্ণ করে যাত্রী নিয়ে দরজা বন্ধ করে চলাচল করেছে। অনেক বাসের যাত্রী ও শ্রমিকদের মুখে মাস্ক ছিল না। তবে দুপুরের দিকে যাত্রীর চাপ কমে এলে কোনো কোনো বাস নির্দেশনা অনুসরণ করেছে।

পল্টনে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, রায়েরবাগে বাসা থেকে সকাল সাড়ে ৮টায় বের হয়ে ৯টার মধ্যে অফিসে যেতাম। আজ গাড়ির সংকটের আশঙ্কায় সকাল পৌনে ৮টায় বের হয়ে দেখি সড়কে গাড়ি নেই। শত শত মানুষ গাড়ির জন্য দাঁড়িয়ে আছে। প্রায় এক ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকার পর লোকাল বাস শ্রাবণে উঠতে পেড়েছে। ওই বাসে উঠে দেখি আমার মতো অন্তত ২০ জন দাঁড়িয়ে আছেন। অনেক যাত্রীর মুখে মাস্ক নেই। চালকের মুখে মাস্ক থাকলেও হেলপার থুতনির নিচে মাস্ক ঝুলিয়ে রেখেছেন। আগে এ বাসে ১৫ টাকা ভাড়া নিলেও বুধবার তা বাড়িয়ে ২৫ টাকা নিয়েছে।

একই ধরনের অভিযোগ করেছেন ঢাকা জজকোর্টের আইনজীবী মো. আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, দীর্ঘসময় দাঁড়িয়ে থাকার পর সকাল নয়টার পর কোনোমতে ভিক্টর পরিবহণের একটা বাসে উঠতে পাড়লাম। ভেতরে ঢুকে দেখি, সব কটি আসন যাত্রীতে ঠাসা। কারও মুখে মাস্ক আছে, কারও নেই। বাসচালকের সহকারীর মুখেও কোনো মাস্ক নেই। আগে ৪৫ টাকা ভাড়া নিলেও আজ (বুধবার) নিয়েছে ৭০ টাকা। হেলপার বলেছে, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী ৭২ টাকা ভাড়া। দুই টাকা কম নিয়েছে। তিনি আরও বলেন, এবার সবকিছু খোলা রেখে এই নিয়ম প্রতিদিন দুর্ভোগ বাড়াবে। তার জিজ্ঞাসা, এসব মানুষ কীভাবে অফিসে যাবে? ক্ষোভের সঙ্গে আনোয়ার হোসেন বলেন, বাস মালিকরা তো ঠিকই টাকা পাচ্ছেন। সমস্যা আমার মতো সাধারণ মানুষদের।

http://www.anandalokfoundation.com/