13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

স্বাধীনতা দিবসে বাঙ্গালী সত্ত্বায় দেশ-ভাষা-সংস্কৃতিতে শিক্ষিত সমৃদ্ধ জাতি গঠনের প্রত্যয়

Link Copied!

স্বাধীনতা দিবসে বাঙ্গালী  ।।  স্বাধীনতা দিবসে বাঙ্গালী ।। আজ ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। ভাষা আন্দোলনের পথ বেয়ে দেশ স্বাধীন হয়। এটাই ইতিহাস। পাকিস্তানের ৬ কোটি ৯০ লাখ মানুষের মধ্যে ৪ কোটি ৪০ লাখ বাংলাভাষী মানুষের মায়ের মুখের ভাষার দাবীতে করাচিতে ২৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮ ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে প্রথম আনুষ্ঠানিক বক্তব্যে প্রস্তাব তুলে আন্দোলনের রূপদান কারী শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত। আর ভাষা আন্দোলনের পথে বেয়ে জাতি পায় মায়ের মুখের ভাষা বাংলা। আর ভাষা থেকেই পায় স্বাধীনতা। আর স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্ব দেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত যে স্বপ্ন দেখেছিলেন বঙ্গবন্ধু এর বাস্তবায়ন করেন। সেই অর্থে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা। সকল হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে স্বাধীনতা দিবসে বাঙ্গালী সত্ত্বায় দেশ-ভাষা-সংস্কৃতিতে শিক্ষিত সমৃদ্ধ জাতি গঠনের প্রত্যয়। স্বাধীনতা দিবসে বাঙ্গালী

ভাষার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত পৃথিবীর একমাত্র দেশ বাংলাদেশ। আর সেই ভাষার পক্ষে প্রথম আনুষ্ঠানিক বক্তব্য শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত’র। পাকিস্তান স্বাধীন হওয়ার মাত্র ছয় মাসের মাথায় করাচিতে ২৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮ ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্পষ্ট ভাষায় দাবি তুলেন-বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করা হোক। বঙ্গবন্ধুর ভাষায়, ‘সেই দাবি প্রত্যাখ্যাত হয়, ভাষা আন্দোলনের সূচনা ঘটে’।

পাকিস্তানের শৃঙ্খল ভেঙে বেরিয়ে আসতে ধাপে ধাপে আন্দোলন গড়ে ওঠে। মহান ভাষা আন্দোলন, ’৫৪ যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ’৬২ শিক্ষা আন্দোলন, ৬ দফা, ’৬৯-এর গণঅভ্যুন্থান, ’৭০-এর নির্বাচনসহ দীর্ঘ প্রায় ২৫ বছরের ধারাবাহিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে জাতি ১৯৭১ সালে এসে উপনীত হয়। পাকিস্তানের সামরিক, স্বৈরশাসন, অত্যাচার নিপীড়নের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক আন্দোলন এক পর্যায়ে স্বাধিকার ও স্বাধীনতার আন্দোলনে পরিণত হয়। আর বাঙালির এ আন্দোলনকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন শেখ মুজিবুর রহমান। পাকিস্তানের অত্যাচার নির্যাতনের বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রামের এক পর্যায়ে স্বাধিকার ও স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতৃত্বে আসেন শেখ মুজিবুর রহমান।

বাঙালির ওপর চাপিয়ে দেওয়া এই রাষ্ট্রটির যাত্রার শুরুতেই পূর্ব বাংলার মানুষ অত্যাচার, শোষণ, নির্যাতন, নিপীড়ন, অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিকসহ বিভিন্ন দিক থেকে বৈষমের স্বীকার হয়। তবে এই পরিস্থিতি তখন থেকেই মেনে নেয়নি এ ভূখণ্ডের মানুষ। পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠীর বৈষম্যমূলক আচরণ, নির্যাতনের বিরুদ্ধে বাংলার ছাত্র, কৃষক, শ্রমিকসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ নিজ নিজ অবস্থান থেকে প্রতিবাদে নামে, আন্দোলন গড়ে তুলতে থাকে।

দ্রুতই এই আন্দোলন সংগ্রামগুলো একত্রিত হয়ে জাতীয় সংগ্রামে রূপ নিতে থাকে, যা স্বাধীন ও মুক্তিসংগ্রামে পরিণত হয়ে রক্ষক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মধ্যমে চুড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়। আর বাঙালির এই আন্দোলন-সংগ্রামকে সংগঠিত ও নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে নিয়ে যান জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের (তৎকালীন রেসকোর্স) বক্তব্যে বাঙালির মধ্যে ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তুলে স্বাধীনতা অর্জনে পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে মরণপণ সশস্ত্র যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে শক্তি ও সাহস যুগিয়েছিলেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে সর্বস্তরের মানুষ মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে থাকে। ২৫ মার্চ কালরাত্রিতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে নিরস্ত্র বাঙালির ওপর আক্রমণ ও গণহত্যা শুরু করে। অপারেশন সার্চ লাইটের নামে গণহত্যা শুরু হলে ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতিকে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান। বঙ্গবন্ধুর এই ঘোষণার মধ্য দিয়ে বিশ্বের মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটে একটি স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের। তাৎক্ষণিকভাবে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয়।

স্বাধীনতার চূড়ান্ত ঘোষণা বার্তা লিখে যান- ‘ইহাই হয়তো আমার শেষ বার্তা, আজ হইতে বাংলাদেশ স্বাধীন। ….চূড়ান্ত বিজয় অর্জন না করা পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাও। ’

বঙ্গবন্ধু এই ঘোষণা প্রথমে ইপিআর-এর ওয়্যারলেসের মাধ্যমে প্রচারিত হয় এবং সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মাধ্যমে এই বার্তা দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে।

বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে বাংলার সর্বস্তরের মানুষ জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে ঐক্যবদ্ধভাবে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে বাঙালির কাছে পরাজিত পাকিস্তানি বাহিনী ১৬ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনীর যৌথ কমান্ডের কাছে আত্মসমর্পণ করে। মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের আত্মত্যাগ ও দুই লক্ষ মা বোনের সম্ভ্রমহানির বিনিময়ে বাঙালি জাতি চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়।

হাজার বছরের সংগ্রামমুখর বাঙালি জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন বাংলাদেশের স্বাধীনতা। দীর্ঘ পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙে বাঙালি জাতি ১৯৭১ সালের এই দিনে কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা অর্জন করে। স্বাধীন বাংলাদেশ এবার ৫২ বছরে পা দিল।

জাতির শ্রেষ্ঠ অর্জন মহানস্বাধীনতা দিবসে রাষ্ট্রীয় কর্মসূচির পাশাপাশি রাজনৈতিক দল ও সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ বিভিন্ন শেণিপেশার মানুষ বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করে।

ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়েছেন। একুশে পদক পাননি। জানা যায়, তাকে ২৯ মার্চ ২৯৭১ সালে পাকিস্তানি দুজন ক্যাপ্টেন নাসিম মালিক ও আগা বোখারি উঠিয়ে নিয়ে যায় বা হত্যা করে। আরো একটি মতবাদ আছে যে, তাকে বেশ কিছুদিন প্রচণ্ড অত্যাচারের পর পঙ্গু অবস্থায় হত্যা করা হয়। তার নিখোঁজ বা মৃত্যু নিয়ে স্বাধীনতার পর থেকে আজ পর্যন্ত কোনো তদন্ত হয়নি। এই মহানায়কের মৃত্যুরহস্য উন্মোচন হওয়া দরকার।

আজ ৫২তম স্বাধীনতা দিবসে বাংলাভাষী মানুষের মুখের ভাষার স্বপ্নদ্রষ্টা, স্বাধীনতা আন্দোলনের রূপকার বীর মহানায়ক ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের মৃত্যুর তদন্ত ও প্রাপ্য সম্মানের জোড় দাবী জানাচ্ছি। সেই যুদ্ধে তিরিশ লক্ষাধিক শহিদ, চার লক্ষ ধর্ষিতা নারীদের প্রতি শ্রদ্ধা। এক কোটি মানুষ শরণার্থী, দেড় কোটি মানুষ বাড়িঘর হারিয়ে নিঃস্ব এবং নিপীড়নের শিকার মানুষদের বড় অংশ সনাতন ধর্মের অনুসারী ছিলেন। বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষের ধর্ম বিশ্বাস ইসলাম এই যুক্তিতে যদি রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম হয় তাহলে বলতে হয় বাংলাদেশ গঠনে যারা জীবন দিয়েছিলেন তাদের বেশিরভাগের ধর্ম বিশ্বাস ইসলাম ছিলো না। পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় ধর্ম-বিদ্বেষ থেকে মুক্ত হতেই অকাতরে তাঁরা নিজেদের জীবন-ইজ্জত-সম্মান-সম্পদ বিলিয়েছেন। তাঁরা একটা আকাঙ্খাতেই এতোটা করেছিলেন-বাংলাদেশে তাঁরা হারানো সম্মান ফেরত পাবেন।  ঐ তিরিশ লাখ লাশ পাকিস্তানীরা ফেলেছিল ধর্মের নামে, ধর্ম রক্ষার নামে, ঐ লাখ লাখ ধর্ষণ হয়েছিলো ধর্মের নামে। আর ৫২ বছরে ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের প্রতি কি গভীর সম্মান প্রদর্শন করে চলেছে স্বাধীন বাংলাদেশ?

বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় পতাকার অন্যতম এবং মূল ডিজাইনার শিবনারায়ণ দাস। স্মরণ করা হয় আজ ওদের? বাঙালি হয়েও, নাম, আচার আচরণ সংস্কৃতিতে খাঁটি বাঙালি হয়েও তাঁদের বংশধরদের আজ অবজ্ঞা গ্লানি শুনতে হয়, বয়ে  বেড়াতে হয়।- “এই মালাউন, ইন্ডিয়া যা”! সূর্য সেন বিনয় বাদল দীনেশ সহ প্রচুর বাঙালি বিপ্লবীর জন্মভূমি এই বাংলাদেশ যাঁরা এই বাংলাদেশ পাকিস্তান সহ পুরো ভারতের স্বাধীনতার জন্য বুকের রক্ত ঝরিয়েছিলেন। স্মরণ করা হয় তাদের? মালাউন! ব্রিটিশের সঙ্গে লড়াই করা সূর্য সেন বেঁচে থাকলে তাঁকেও বাক্স প্যাঁটরা নিয়ে পালিয়ে যেতে হতো।

বাংলাদেশে সবকিছুর উপরে শুধু ধর্মীয় সত্তা। সেই ধর্মীয় সত্তাই আমাদের বাঙালি হতে বাধা দিচ্ছে। বলা হচ্ছে, বাংলা ভাষায় তো হিন্দুয়ানীর ছড়াছড়ি, বাঙালি সংস্কৃতি নাকি হিন্দুয়ানী সংস্কৃতি! এই ধর্ম তো আর সনাতন ধর্মের মত নয় যে, যার যার জাতিগত লোকাচার, সংস্কৃতি পালন করতে পারবে। ধর্মই যাদের সবকিছুর নিয়ন্ত্রক। সেই ধর্মান্ধদের সঙ্গে আবেগ সম্পৃক্ত রাখা যাবে কিভাবে?  আবেগ বরং তোলা থাক প্রথম ভাষার দাবী উত্থাপনকারী ধীরেন্দ্র নাথ দত্তের জন্য, সালাম, বরকত সহ সকল ভাষা শহীদদের জন্য। তোলা থাক, এই বাংলার বুকে উর্দুর বদলে মাতৃভাষা বাংলা চেয়ে গুলি খাওয়া রাজেশ তাপসের জন্য। তোলা থাক, স্বাধীনতা যুদ্ধে তিরিশ লক্ষাধিক শহিদদের জন্য, চার লক্ষ ধর্ষিতা নারীদের জন্য, এক কোটি শরণার্থীদের প্রতি, দেড় কোটি মানুষ বাড়িঘর হারিয়ে নিঃস্ব এবং নিপীড়নের শিকার মানুষদের বড় অংশ সনাতনীদের প্রতি।

স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে বীর শহীদ, পতাকার নকশাকার ও জাতির জনকের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা। দেশের অগ্রযাত্রাকে বেগবান করতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা আর জাতির পিতার আদর্শকে ধারণ করে সকল হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে দেশ-ভাষা-সংস্কৃতির পথে সুন্দর শিক্ষিত সমৃদ্ধ একটি জাতি গঠন করি এবং বিশ্বকে একটি শ্রেষ্ঠ জাতি উপহার দিই। জাতি এগিয়ে যাক বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’ গড়ার পথে – মহান স্বাধীনতা দিবসে এ আমাদের প্রত্যাশা।

http://www.anandalokfoundation.com/