13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সুস্থ্য থাকার গোপন কৌশল

admin
September 9, 2017 4:34 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ আজকাল আমরা, ঘরে বা বাইরে কাজে সর্বদা এত বেশী চাপজনিত পরিস্থিতির সম্মুখীন হই যে এই ধরণের উত্তেজনা সহ্য করা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমরা সব সময় একটা চাপা উত্তেজনা অনুভব করি, দুশ্চিন্তায় থাকি কিন্তু এই ভিতরে জমে থাকা চাপা উত্তেজনাকে বার করার কোন রাস্তাই খুঁজে পাই না। আমরা সব সময়Red alert’ থাকি আর আমাদের সহানুভূতি সম্পন্ন স্নায়ুতন্তুও সর্বদা উত্তেজিত থাকে। আমরা সর্বদা কেমন যেন খিটখিটে, দ্বিধাগ্রস্থ ও দুশ্চিন্তার মধ্যে থেকে থেকে আত্মবিশ্বাসও হারিয়ে ফেলি। ফলে ক্রমেই আমরা কাজের অযোগ্য হয়ে পড়ি আর অন্যের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রাখাও কঠিন হয়ে পড়ে। আমাদের জীবনকে উপভোগ করার সমস্ত শক্তিই যেন শেষ হয়ে যায়।

এই অবস্থায় আমরা প্রায়ই দ্রুত সমাধান খুঁজি মদ-গাঁজা-হেরোইন-সিগারেট-কফি-ড্রাগ ইত্যাদির মাধ্যমে। আমরা এই ভাবে নেশাগ্রস্থ হয়ে নিজেকে ভুলতে চাই, চাপকে ক্ষণিকের জন্যে দূরে সরিয়ে রেখে মনের শান্তি পেতে চাই। কিন্তু কালক্রমে এগুলিই আমাদের চাপকে আরও বাড়িয়ে দেয়। কফির caffeine আমাদের রক্তের চাপ ও হৃদস্পন্দনকে বাধা দেয়, সিগারেটের নিকোটিন (nicotine) হার্ট ও ফুসফুসের রোগ তথা ক্যানসার তৈরী করে। আর মদ তৈরী করে লিভার, হার্ট ও মস্তিষ্কের রোগ।

আবার এই সব সঞ্চিত আবেগময় চাপা উত্তেজনা আমাদের দেহে স্থায়ী হয়ে গেলে বিভিন্ন ধরণের psychosomatic লক্ষণ দেখা দেয়। যেমন-ক্ষুধামন্দ, অনিদ্রা, স্মরণ শক্তি কমে যাওয়া বা শারীরিক দুর্বলতা ইত্যাদি। এই সাইকোসোমাটিক লক্ষণগুলি তখন শরীরের কোন একটা দুর্বল অঙ্গে ঘনীভূত হয়ে বিভিন্ন ধরণের শারীরিক সমস্যার সৃষ্টি করে, যেমন হার্টের ধড়ফড়ানি, অম্লরোগ বা শ্বাস-প্রশ্বাসের কষ্ট। পরিশেষে এগুলি মারাত্মক ধরণের শারীরিক রোগে পরিণত হয়, যেমন-হৃদরোগ, আল্‌সার, শ্বাসরোগ। এইগুলি আবার আরও অধিক মাত্রায় নতুন চাপের সৃষ্টি করে এই রোগগুলিকেই বাড়িয়ে দেয়।

ডাক্তারেরা আজকাল জানতে পেরেছেন যে দৈনন্দিন জীবনের ছোট ছোট চাপগুলি, ছোট ছোট সমস্যা আসলে জীবনের অনেক বড় গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা থেকেও আমাদের বেশী অসুস্থ করে তোলে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যেতে পারে, ক্রমাগত অসুস্থ আত্মীয়, অফিসের সহকর্মীদের দুর্ব্যবহার, দেরীতে বাস বা ট্রেন আসা বা ট্রাফিক জ্যাম ইত্যাদি সাধারণ চাপগুলি স্বাস্থের পক্ষে তেমনই মারাত্মক ক্ষতিকর হতে পারে, যেমন হতে পারে বিবাহ বিচ্ছেদ, পরিবারের কারো মৃত্যু বা চাকরী হারানোর মত আবেগাহত অভিজ্ঞতার দ্বারা।

কিছু কিছু লোক অবশ্যই আছে যারা অপরের থেকে এই চাপগুলির প্রতি বেশী সংবেদনশীল। অধুনা গবেষণায় দেখা গেছে, যে লোকগুলি খুবই খিটখিটে মেজাজের আর ঝগড়া বা যুদ্ধ প্রিয় তারা খুব সহজেই এই সহানুভূতিসম্পন্ন স্নায়ুতন্তুর ‘লড়ো নতুবা পালাও’ ভাবের শিকার হয়। এই ধরণের লোককে ‘Type A’ ব্যষ্টিত্ব বলা হয়। এই Type A’ ব্যষ্টিরাই সাধারণ লোকের চেয়ে ৪/৫ গুণ বেশী হার্টের রোগে ভুগে থাকে। কারণ তাদের এই খিটখিটে ভাব বা ঝগড়া বা যুদ্ধপ্রিয়তা যা কিনা মনিপুর চক্রের কষায় ও ঘৃণা বৃত্তির সমন্বয়- তা তাদের এড্রিনাল গ্রন্থিকে সর্বদা অত্যধিক উত্তেজিত করে রাখে। ফলে অতিরিক্ত এড্রিনালিন হর্মোন রক্তে মিশে তাদের রক্তের চাপকে বাড়িয়ে দেয় আর তাদের লিভার থেকে চর্বি নিঃসৃত হয়ে রক্তে মিশতে থাকে। সুতরাং তাদের রক্তের Cholesterolএর পরিমানও বাড়তে থাকে। আর এর ফলে ধমনীতে মারাত্মকভাবে চর্বি জমে তাদের ধমনীর গতি বন্ধ হয়ে যায়। এই বর্ধিত Cholesterol জনিত উচ্চ রক্তচাপই হৃদরোগাক্রান্ত হবার কারণ। গবেষণায় দেখা গেছে এই ‘Type A’ ব্যষ্টিরা অধিকাংশই ধূমপায়ী, অতিরিক্ত মদ্যপায়ী আর অতি ভোজনের ফলে অতিরিক্ত মোটা। কারণ তাদের মনিপুর চক্র সন্তুলিত না থাকার ফলে ‘তৃষ্ণা’ বৃত্তি সব সময় খুবই সক্রিয় থাকে, তাই তারা সব কিছুই অতিরিক্ত মাত্রায় গ্রহণ করে থাকে। এটা তাদের হার্ট এটাকের সম্ভাবনা আরও বাড়িয়ে দেয়। আর অতিরিক্ত এড্রিনালিন হর্মোন তাদের রোগ প্রতিরোধকারী ব্যবস্থাকেও (immune system) অবদমন করে রাখে। তাই এই লোকগুলির এই সব রোগে মৃত্যুর সম্ভাবনা সব সময় বাড়তেই থাকে।

ডাক্তারেরা বলেন যে, ‘Type A’ ব্যষ্টিরা যাদের সহানুভূতি সম্পন্ন স্নায়ুতন্তু সব সময় ‘red alert’থাকে তারা প্রায়ই খুব ক্ষমতা লোভী  হয়। এও তাদের মনিপুর চক্রস্থিত ‘তৃষ্ণা’ ও ‘মোহ’ বৃত্তির অতিরিক্ত সক্রিয়তার ফলে হয়ে থাকে। যখন তারা এই ক্ষমতা অর্জন করতে গিয়ে হতাশাগ্রস্থ হয়, তখন তাদের মধ্যে একটা শত্রুতাভাব জেগে ওঠে। ফলে তাদের এড্রিনালিন হর্মোন অতিরিক্ত পরিমানে নিঃসৃত হতে থাকে আর তাদের রক্তের চাপ আরও বেড়ে যায়। 09/11/2015

এই মনিপুর চক্রের সঙ্গে প্রোষ্টেট(Prostrate) গ্রন্থিও যুক্ত। প্রোষ্টেট গ্রন্থির বিকাশের সাথেই লজ্জা বৃত্তি জেগে ওঠে ও ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেতে থাকে। ৩/৪ বৎসরের ছেলেমেয়েদের মনে কোন লজ্জাবৃত্তি থাকে না, কেননা তখনও তাদের এই গ্রন্থি বিকশিত হতে শুরু করে নি। এই বৃত্তি জন্মগত নয়, বয়সের সঙ্গে এই বৃত্তি শিশুদের মনে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। যেমন একটা শিশু ৩/৪ বৎসর বয়স পর্যন্ত উলঙ্গ হয়ে ঘুরে বেড়াতে পারে, তার মধ্যে কোন লজ্জা বৃত্তি নাই। বাবা-মা ই তার মধ্যে লজ্জাবৃত্তি ঢুকিয়ে দেন, কাপড় পরতে বাধ্য করেন। কিন্তু শিশু একটু বড় হ’লে তার প্রোষ্টেট গ্রন্থি বিকশিত হয়, ফলে কাপড় না পরিয়ে কোথাও তাকে বের করা কঠিন।

http://www.anandalokfoundation.com/