ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সিলেটে ভারত-বাংলাদেশের কয়লা ব্যবসায়ীদের বৈঠক অনুষ্টিত

admin
October 5, 2015 3:04 pm
Link Copied!

শাফী চৌধুরীঃ দুই দেশের কয়লা ব্যবসায়ীদের বৈঠকে ভারতীয় কয়লার উচ্চমূল্য নিয়েই সোচ্চার ছিলেন বাংলাদেশের আমদানীকারকরা। বাংলাদেশে ভারতীয় কয়লার বাজার রাখতে হলে মূল্য কমানোর পরামর্শ দিয়ে সুনামগঞ্জ ও সিলেটের আমদানীকারকরা বলেছেন, ‘মেঘালয়ের কয়লার মূল্য কমানো না হলে, বাংলাদেশে মেঘালয়ের কয়লার বাজার হারানোর পাশাপাশি সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের ৩ শুল্কস্টেশন এবং সিলেটের শুল্কস্টেশনগুলোতে আমদানী-রপ্তানী ব্যবসার ধস নামবে’।

সিলেটের কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের কার্যালয়ে রবিবার দুপুর ১২ টা থেকে প্রায় ৪ ঘণ্টার এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তাহিরপুর কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের নেতৃবৃন্দ, সিলেট কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের নেতৃবৃন্দ এবং মেঘালয় মাইন ওনার্স এন্ড এক্সপোর্টারস এসোসিয়েশনের কর্মকর্তারা এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সভাপতিত্ব করেন তাহিরপুর কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের সভাপতি আলকাছ উদ্দিন খন্দকার। প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন।

সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন ভারতীয় রপ্তানীকারকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘মেঘালয় থেকে আমদানীকৃত কয়লার ব্যবসার সঙ্গে সিলেটের অর্থনীতি যুক্ত হয়ে গেছে, সুনামগঞ্জের রাজস্ব আদায় অনেকটাই কয়লা ব্যবসার উপর নির্ভরশীল হয়ে উঠেছে। কয়লা আমদানী-রপ্তানী বন্ধ থাকলে এই অঞ্চলে অর্থনৈতিক মন্দাভাব বিরাজ করে। আইনী জটিলতার কারণে ভারতীয় কয়লার আমদানী বন্ধ থাকায় এবং ভারতের কয়লার মূল্য বেশি হওয়ায় অন্যান্য দেশের বিশেষ করে ইন্দোনেশিয়া, সাউথ আফ্রিকার কয়লা ঢুকেছে, এই অবস্থায় আমাদের সুনামগঞ্জ-সিলেট অঞ্চলের কয়লা ব্যবসা রক্ষা করতে হলে এবং মেঘালয়ের রপ্তানীকারকদের এই অঞ্চলে কয়লা রপ্তানী অব্যাহত রাখতে হলে কয়লার মূল্য কমাতে হবে, ভাল কয়লা রপ্তানী করতে হবে । একইসঙ্গে কয়লা রপ্তানী বন্ধও করা যাবে না’।

সভায় সিলেট কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাজী কলন্দর আলী, সিলেট কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সৈয়দ কামাল উদ্দিন, সাবেক সভাপতি হাজী দিলওয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আতিক হোসেন, সাবেক সভাপতি মো. এমদাদ হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শ্রী চন্দন সাহা, তাহিরপুর কয়লা আমদানীকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক মো. নিজাম উদ্দিন, সাবেক আহবায়ক সামসুল হক, উপদেষ্টা মো. জালাল উদ্দিন, সিনিয়র সহ সভাপতি হ্াজী ফরিদ গাজী, সহ সভাপতি জয়ধর আলী, কোষাধ্যাক্ষ মো. জায়ের আলী, কার্যকরী কমিটির সদস্য মনমোহন পাল মতিশ, মো. হাসান মিয়া, আবুল খায়ের, স্বপন কুমার দাস, হাজী সিদ্দিক মিয়া, মোঃ খসরুল আলম, ইউনুছ মিয়া ও আলী হায়দার বক্তব্য রাখেন ।

বক্তারা বলেন, ‘আফ্রিকা-ইন্দোনেশিয়ার কয়লার মূল্য প্রতি মে.টন ৫৫ ডলার থেকে ৬১.৭০ ডলার অথচ ভারতের মেঘালয়ের কয়লার মূল্য প্রতি মে.টনে ৮৫
ডলার। দরের এতো ব্যবধান থাকলে ভারতের কয়লা এনে বিপদে পড়বো আমরা। ইতিমধ্যে যারা ভারতীয় কয়লা আমদানী করেছেন, তারা প্রতি মে.টনে এক থেকে দেড় হাজার টাকা লোকসান দিয়ে বিক্রি করেছেন। এইভাবে চলতে থাকলে ব্যবসায়ীরা টিকে থাকতে পারবেন না’।

মেঘালয়া মাইন ওনার্স এন্ড এক্সপোর্টারস এসোসিয়েশনের পক্ষে বক্তব্য রাখেন- এসোসিয়েশনের সভাপতি জুলিও সিজার ডিংগাং, জেনারেল সেক্রেটারী মোস্তফা কারকংগার, জি তারিয়াং, মি. এন এন, পিযুশ মারউইন, মি. স্কিন মার উইন, ডব্লিউ. ডি হাসা, এস এফ নংব্রি, জে. হাসা, গিগোর মারউইন প্রমুখ।

তাহিরপুর কয়লা আমদানীকারক সমিতির সভাপতি আলকাছ উদ্দিন খন্দকার বলেন, ‘রপ্তানীকারকরা জানিয়েছেন মেঘালয়ের উত্তোলিত কয়লা রপ্তানী করতে এখন আইনী বাধা নেই। গেল জুন মাসে যেভাবে তারা রপ্তানী করেছেন সেভাবেই এখন রপ্তানী করবেন। দর কমানোর বিষয়টি ওখানে (মেঘালয়ে) গিয়ে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নিয়ে বাংলাদেশের আমদানী কারকদের জানাবেন’।

http://www.anandalokfoundation.com/