13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সংবাদ সম্মেলন

admin
December 11, 2016 10:24 pm
Link Copied!

প্রানতোষ তালুকদারঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলায় দরিদ্র মৎসজীবী হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক নৃশংস হামলায় জড়তিদের শুধু দল থেকে বহিস্কার নয়, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানালেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির।

অদ্য ১১ ডিসেম্বর ২০১৬, রোজ রবিবার সকাল ১১টায় রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটি মিলনায়তনে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির আয়োজনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

নাসিরনগর ও গোবিন্দগঞ্জের সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীজনিত নিরাপত্তা সংকট সম্পর্কে -এ একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির বক্তব্যে বলেছেন ৩০ অক্টোবর ২০১৬, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলায় দরিদ্র মৎসজীবী হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক দুর্বত্তরা নৃশংস হামলা চালিয়ে কীবাবে তাদের ঘরবাড়ি, মন্দির দোকানপাট ধ্বংস করেছে; লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগ করেছে এ বিষয়ে গণমাধ্যমসমূহে বিস্তারিত বিবরণ প্রকাশিত হয়েছে।

শাহরিয়ার কবির বলেন, ২০১২ সালের রামু থেকে ২০১৬ সালে নাসির নগর পর্যন্ত বাংলাদেশকে পাকিস্তানের মতো জঙ্গী মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র বানাবার জন্য জামায়াতে ইসলামী এবং তাদের সহযোগীরা ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর পরিকল্পিতভাবে হামলা করেছে। এইসব হামলার ঘটনায় নিজেদের আড়াল করার জন্য তারা প্রশাসনে জামায়াত সমর্থক ব্যক্তিদের পাশপাশি স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে ব্যবহার করছে। রামুর ঘটনার পর নির্মূল কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল সরকারি দলের কেউ যদি এসব হামলার সঙ্গে যুক্ত থাকে তাদের শুধু দল থেকে বহিষ্কার নয়, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। হামলাকারীদের যাবতীয় সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে ক্ষতিগ্রস্তদের দিতে হবে। দুর্ভাগ্যের বিষয় হচ্ছে রামুতে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা হলেও অভিযোগপত্রের দুর্বলতার কারণে গ্রেফতারকৃত সবাই জেল থেকে জামিনে বেরিয়ে এসেছে। আক্রান্ত যারা মামলা করেছিল তারা ভয়ে মামলা প্রত্যাহার করে নিয়েছে। নাসিরনগরে আমরা একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি লক্ষ্য করছি। রামুর মতো নাসিরনগরেও ঘটনার নেপথ্য নায়কদের এখনও গ্রেফতার করা হয়নি। অজ্ঞাতনামা যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তারা রামুর ঘটনার মতো দ্রুত জামিনে বেরিয়ে আসবে।

নাসিরনগরের আগুন নেভার আগেই হামলা হয়েছে  গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাঁওতালদের উপর। ৬ নবেম্বর স্থানীয় ভূমিদস্যুরা প্রশাসনের সহায়তায় এক হাজারেরও বেশি সাঁওতাল পরিবারের বাড়িতে আগুন দিয়ে ভষ্মীভূত করেছে। এই ঘটনাও গণমাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রচারিত হয়েছে। নির্মূল কমিটি তাৎক্ষণিকভাবে একটি তদন্ত দল উপদ্রুত অঞ্চলে প্রেরণ করে। নির্মূল কমিটির প্রতিনিধিরা দুই দিন এলাকায় থেকে ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তাদের প্রতিবেদনে ঘটনার ভয়াবহতা ও সুদূরপ্রসারী অভিঘাত বিবেচনা করে গত ২১ নবেম্বর সংগঠনের উপদেষ্টা বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক ও বিচারপতি শামসুল হুদার নেতৃত্বে কেন্দ্র ও জেলার ১৮ সদস্যের প্রতিনিধি দল উপদ্রুত এলাকায় ভুক্তভোগী ও প্রত্যক্ষদর্শীদের গণশুনানিতে অংশগ্রহণ করেন। এই গণশুনানিতে দুই শতাধিক সাঁওতাল ছাড়াও স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্ত বাঙালিরাও উপস্থিত ছিলেন, যাদের প্রতিনিধিরা ঘটনার পূর্বাপর বিবরণ দিয়েছেন। নির্মূল কমিটির পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের জন্য ৩০০ কম্বল এবং নগদ দেড় লক্ষ টাকা প্রদান করা হয়।

নাসিরনগর  ও গোবিন্দগঞ্জে নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় তদন্ত দল ঘটনার নেপথ্য কারণ সম্পর্কে যে সব তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহ করেছেন তা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। এই তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বড় মাদ্রাসা কীভাবে শতাধিক বছর ধরে মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিষ ছড়াচ্ছে।

নাসির নগরে হামলার আগের দিন হেফাজতিদের দুটি সমাবেশে কারা ছিলেন, তারা কীভাবে সাম্প্রদায়িক উত্তেজ না সৃষ্টি করেছেন পরদিন কোনও পত্রিকায় তার উল্লেখ ছিল না। আমাদের প্রতিবেদনে তা উঠে এসেছে, যা নির্মূল কমিটির ১৭০ নং প্রকাশনা ‘মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আমাদের মিলিত ‘সংগ্রাম’-এ প্রকাশিত হয়েছে।

গত ২৮ জানুয়ারি ২০১৬, সাম্প্রদায়িক নির্যাতন ও সন্ত্রাসের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তির জন্য আমরা ‘সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন’ প্রণয়ন সহ জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন এবং পৃথক সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রণালয় গঠনের দাবিতে আইনমন্ত্রীকে যে স্মারকপত্র দিয়েছিলাম (অনুলিপি সংযুক্ত) এ বিষয়ে দৃশ্যমান কোনও অগ্রগতি হয়নি। প্রশাসনের রন্ধ্রে রন্ধ্রে জামায়াতের উপস্থিতি ছাড়াও প্রচলিত আইনের সীমাবদ্ধতার কারণে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার সঙ্গে যুক্ত অপরাধীদের শাস্তি এবং ভুক্তভোগীদের ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। আমরা এ বিষয়ে আবারও সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। একইভাবে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের প্রতি আমরা আহ্বান জানাচ্ছি, দলের যারা বিভিন্ন এলাকায় সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস ও মৌলবাদী কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত বলে অভিযোগ রয়েছে সেগুলো খুঁজে বের করে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্দেশ্য একটি দলীয় কশিমন গঠনের জন্য।

তিনি সাংবাদিক বন্ধুগণের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেছেন যে বর্তমানে বার্মায় যে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীর উপর সে দেশের সামরিক বাহিনীর যে ভয়াবহ নির্যাতন ও হত্যাকা- চালাচ্ছে তাকে আমরা গণহত্যা ও এথনিক ক্লেনজিং বলে মনে করি এবং এর তীব্র নিন্দা করি। একই সঙ্গে আমরা আক্রান্ত অসহায় রোহিঙ্গা মুসলিমদের প্রতি গভীর সমাবেদনা ও সহমর্মিতা জ্ঞাপন করছি। বাংলাদেশে মৌলবাদী গোষ্ঠী সরকারের উপর চাপ প্রয়োগ করছে এই বলে যে, কেন বিপন্ন রোহিঙ্গাদের জন্য সীমান্ত উন্মুক্ত করে দেয়া হচ্ছে না। গত ৪০ বছরে বাংলাদেশ তিন লক্ষাধিক রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়েছে। জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী গত ১ নবেম্বর ২০১৬ থেকে বাংলাদেশে নতুনভাবে ২২ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী আশ্রয় নিয়েছে।

রোহিঙ্গাদের উপর অমানবিক নির্যতান ও হত্যাকা- সম্পর্কে গণমাধ্যম যতটা সোচ্চার এর অপর পিঠ সেভাবে আলোচনায় আসছে না। জামায়াতিরা অসহায় রোহিঙ্গাদের দারিদ্র্য ও ধর্মীয় বিশ্বাসকে ব্যবহার করে সাহায্যের নামে তাদের জিহাদের তালিকায় নাম লেখাচ্ছে। ২০০৬ সালে জামায়াত-বিএনপির জমানায় আমরা রোহিঙ্গাদের ১৭টি জঙ্গী মৌলবাদী সন্ত্রাসী সংগঠনের তালিকা তৈরি করেছিলাম, যেগুলো জামায়াতের উদ্যোগে গঠিত হয়েছে।

গত ২৫ বছর ধরে পাকিস্তানের করাচীকে ঘাঁটি বানিয়ে ‘হরকতুল জিহাদ আরাকান’ বাংলাদেশ ও বার্মায় সন্ত্রাসী কর্মকা- চালাচ্ছে। ২০০৬ সালে প্রকাশিত আমার একটি লেখায় হুজি আরাকানের প্রধান আবদুল কুদ্দুস মুজাহিদের ব্যাংক হিসাবের তথ্যও দিয়েছি। বাংলাদেশ ও বার্মায় জিহাদের জন্য কুদ্দুস তাদের মুখপত্র ‘তাযকারায়ে আরাকান’-এ যেখানে টাকা পাঠাতে বলেছে সেটি ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ-এর মতিঝিল শাখা। ‘আইএসআই’-এর মদদে কুদ্দুস এখনও পাকিস্তানে বসে বাংলাদেশ ও বার্মায় তাদের গোপন সন্ত্রাসী কর্মকা- পরিচালনা করছে। ঢাকার গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে কীভাবে আরএসও (রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন) ৩০০০ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে ক্যাম্প থেকে নিয়ে গেছে সামরিক প্রশিক্ষণের জন্য।

বার্মার আরাকান ও বাংলাদেশের বান্দরবান ও কক্সবাজারের একটি অংশ নিয়ে স্বাধীন রোহিঙ্গা মুসলিম রাষ্ট্র গঠনের পাকি-জামায়াতি পরিকল্পনা সম্পর্কে বহু আগে থেকেই আমরা লিখছি। সম্প্রতি বার্মায় নতুভাবে রোহিঙ্গা নির্যাতনকে কেন্দ্র করে যেভাবে শরণার্থী আসছে জামায়াত এবং তাদের মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক সহযোগীতা এ নিয়ে রাস্তায় মাতম করলেও প্রকৃত পক্ষে তরা উল্লসিত হচ্ছে তাদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের পথ সুগম হওয়ার কারণে। তারা বার্মায় সরকারকে বলছে সংখ্যালঘু মুসলমানদের উপর নির্যাতন বন্ধ করতে, অথচ বাংলাদেশে তারা নির্বিচারে সংখ্যালঘু হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃস্টানদের উপর নির্যাতন চালাচ্ছে।

বাংলাদেশের উচিৎ হবে বার্মার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিকভাবে এবং ভারত-চীন ও থাইল্যান্ডের মতো প্রতিবেশীদের সঙ্গে এ বিষয়ে অর্থপূর্ণ আলোচনা করা। রোহিঙ্গারা শুধু বাংলাদেশে আসছে না, তারা ভারত, থাইল্যা- ও মালয়েশিয়া সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশেও যাচ্ছে। সরকারের প্রতি আমরা আহ্বান জানাচ্ছি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে বিশিষ্ট মানবাধিকার নেতা ও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের একটি দল শরণার্থীজনিত সমস্যা এবং এতদসংক্রান্ত নিরাপত্তার বিষয়টি আলোচনার জন্য জাতিসংঘ, ভারত, চীন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ওআইসির গুরুত্বপূর্ণ দেশসমূহে প্রেরণের জন্য। অসহায় রোহিঙ্গাদের এভাবে পাকি-জামায়াতিদের নীলনকশা বাস্তবায়নের জন্য ছেড়ে দিলে তা দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক নিরাপত্তার জন্য সমূহ হুমকির কারণ হবে, যার অভিঘাত পশ্চিম গোলার্ধও এড়াতে পারবে না।

ওআইসি সহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশকে দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে হবে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বোঝা ভাগ করে নেয়ার জন্য এবং বার্মায় সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য। জঙ্গী রোহিঙ্গারা বার্মার সামরিক ঘাঁটিতে হামলা করে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেবে, তার মাশুল দিতে হবে সে দেশের নিরীহ রোহিঙ্গাদের এবং বাংলাদেশকেএ পরিস্থিতি কখনও কাম্য হতে পারে না। রোহিঙ্গা সমস্যা নিঃসন্দেহে সাম্প্রতিক বিশ্বের একটি বড় ধরনের মানবিক বিপর্যয়, যা বাংলাদেশের পক্ষে এক মোকাবেলা যে সম্ভব নয় এটা জোরালো কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বোঝাতে হবে।

সর্বশেষে শাহরিয়ার কবির আওয়ামীলীগকে বলিষ্ঠ পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য বলেছেন। জামায়াতের সমস্ত প্রতিষ্ঠান জাতীয় করণের কথা বলেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে শাহরিয়ার কবির এই বক্তব্য দেওয়ার পর নির্মূল কমিটির উপদেষ্টা বিচারপতি শামসুল হুদা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেছেন সাঁওতালদের ‘মা’ হিসেবে রক্ষার করার জন্য। তিনি বলেন আইন কারো একার নয় আইন সবার জন্য। মিথ্যা মামলা দিয়ে সাঁওতালদের হয়রানী করছে। এটা যেন না করেন। প্রকৃত দোষীদের বিচারের আওতায় আনার জন্য বলেছেন।

সদ্য বেগম রোকেয়া পদকপ্রাপ্ত ধীরেন্দ্র নাথ দত্তের নাতনী আরমা দত্ত বক্তব্যে বলেছেন নাসিরনগর ও গোবিন্দগঞ্জের সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসী হামলাকে একটি হৃদয় বিদারক ঘটনা, তা মেনে নেয়া যায় না। নাসিরনগর এর রসরাজ জেলে সম্প্রদায়ের। সে লেখাপড়া জানে না এবং ফটোশপের কাজ জানে না। এই দেশ সকলের। সকলের রক্তে মাখা এদেশের মাটি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে উল্লেখিত ঘটনার বিচার প্রার্থনা করেছেন আরমা দত্ত এবং বলেছেন ঐ সব ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন আর না হয়।

বিচারপতি সৈয়দ আমীরুল ইসলাম বলেছেন যে দলের নেতৃত্বে আমরা বাংলাদেশ স্বাধীন করেছি; যে দল এখন ক্ষমতায় আছেন কেন এ পর্যন্ত মামলাগুলির অগ্রগতি নেই। জামায়াত বিএনপিকে খেয়ে ফেলেছে। এখন আওয়ামীলীগকেও খেতে চলছে। আর সংখ্যালঘুরা যেন জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে এদেশে বসবাস করতে পারে। সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন করার জন্য আইনমন্ত্রীর নিকট পেশ করা হয়েছে তা যেন বাস্তবায়ন হয়।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নির্মূল কমিটির সাধারণ সম্পাদক কাজী মুকুল, নির্মূল কমিটির উপদেষ্টা বিচারপতি সামসুল হুদা, কেন্দ্রীয় নেতা কলামিস্ট সৈয়দ মাহবুবুর রশিদ, বেগম রোকেয়া পদকপ্রাপ্ত ধীরেন্দ্র নাথ দত্তের নাতনী আরমা দত্ত প্রমুখ।

http://www.anandalokfoundation.com/