13yercelebration
ঢাকা
শিরোনাম

পাকিস্তানে অস্ত্র সরবরাহকারী চারটি প্রতিষ্ঠানকে নিষিদ্ধ করেছে আমেরিকা

আজ ২১ এপ্রিল রবিবার রাশিফল ও গ্রহদোষ দূর করার উপায়

আজ ২১ এপ্রিল (৮ বৈশাখ) রবিবারের দিনপঞ্জি ও ইতিহাসের এইদিনে

সন্ত্রাসী অপরাধে গ্রেপ্তারদেরও নিজেদের কর্মী দাবী করছে বিএনপি -পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্দিরে আগুন ও দুই সহোদর নিহতের ঘটনায় অপরাধী যেই হোক কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না -ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রী

শান্তিচুক্তির পর থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়নে অসামান্য পরিবর্তন ঘটেছে -জাতিসংঘে পার্বত্য সচিব

সাংবাদিকতার জন্য চমৎকার পরিবেশ তৈরি এবং তথ্য প্রবাহ অবারিত করতে চাই -তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

আজকের সর্বশেষ সবখবর

শ্যামমোহিনী দেবীর প্রয়াণ দিবস আজ

ডেস্ক
February 26, 2024 10:48 am
Link Copied!

নিখিল ভারত নারীশিক্ষা পরিষদের প্রতিষ্ঠাত্রী ও স্ত্রীশিক্ষা বিস্তারসহ ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের এক অগ্রণী ব্যক্তিত্ব শ্যামমোহিনী দেবীর প্রয়াণ দিবস আজ। ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দে ২৬ শে ফেব্রুয়ারি প্রয়াত হন তিনি।

শ্যামমোহিনী দেবী ১৮৮৮ খ্রিস্টাব্দের ১০ ফেব্রুয়ারি অধুনা বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার সহবৎপুর গ্রামে মাতুলালয়ে জন্মগ্রহণ করেন।

শ্যামমোহিনীর পূর্বপুরুষেরা পুরুষানুক্রমে জমিদার ও জোতদার ছিলেন। পিতামহ স্বনামধন্য গুরুপ্রসাদ চৌধুরী ছিলেন ইংরেজ সরকারের অধীনে পুলিসের দারোগা। প্রচুর অর্থ উপার্জন করলেও তাঁর দানধ্যানের বিস্তর খ্যাতি ছিল।

শ্যামমোহিনীর জন্মের ঘটনাটিও বিশেষ উল্লেখযোগ্য। সেইসময় আঁতুড়ে আসন্নপ্রসবিনীকে আলাদা করে রাখা হত যাতে ছোঁয়াছুঁয়ি না হয়। সেইমতো শ্যামমোহিনীর জন্মের সময়েও সেই সংস্কার অনুযায়ী বাড়ির বাইরে অস্থায়ী আঁতুরঘর করা হয়েছিল। কিন্তু ঠিক জন্মের সময়ে প্রবল ঝড়বৃষ্টিতে সেই আঁতুড়ঘর ভেঙেচুড়ে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল। উপায় না দেখে শোয়ার ঘরেই নিয়ে আসা হয় মা গোবিন্দময়ীকে। সেখানেই জন্ম হয় যাদবচন্দ্র চৌধুরী ও গোবিন্দময়ী দেবীর প্রথম সন্তান শ্যামমোহিনীর।

গুরুপ্রসাদের মধ্যম পুত্র যাদবচন্দ্র ছিলেন শ্যামমোহিনীর পিতা। আত্মভোলা, পরোপকা্রী, বিদ্যোৎসাহী এই মানুষটি বড় বড় রাজ স্টেটের যেমন দীঘাপাতিয়া, তাহেরপুর, নাটোর, রাজসাহীর পুটিয়া প্রভৃতির উকিল নিযুক্ত ছিলেন। তাঁর স্ত্রী গোবিন্দময়ী ছিলেন ময়মনসিংহ জেলার সহবৎপুর গ্রামের জমিদার নন্দকুমার বক্সীর একমাত্র কন্যা। মাত্র দশ বছরে বিয়ে হলেও গোবিন্দময়ী ছেলেবেলায় গ্রাম্য পাঠশালায় ও গৃহশিক্ষকের কাছে কিছুটা লেখাপড়া করেছিলেন। ১৮৬০ খ্রিস্টাব্দে পাবনা সম্মিলনী সভার উদ্যোগে অন্তঃপুর স্ত্রীশিক্ষার প্রসার ঘটলে শ্বশুরবাড়িতে তার সুযোগ পান গোবিন্দময়ীও। গোবিন্দময়ী কৃতিত্বের সঙ্গে সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত পড়েছিলেন। অন্যদিকে শ্যামমোহিনীর পিতা তাঁর রাজসাহীর বাড়ির বাইরের অংশে ষাট-সত্তরজন গরীব ছাত্রকে খাওয়া ও থাকার ব্যবস্থা করে দিয়ে তাদের পড়াশোনার সুযোগ সুবিধা করে দেন। এছাড়া আরো কিছু গরীব লোকজনও তাঁর বাড়িতে বসবাস করতেন। জীবনে তিনি প্রচুর উপার্জন করেছেন কিন্তু সবই পরহিতে ব্যয় করেছেন। সঞ্চয় করেননি কিছুই।

মায়ের কাছে প্রাথমিক পাঠ একটু সড়গড় হতেই তার জন্য লাইব্রেরি থেকে বই এনে দিত ছাত্রেরা। ছোট্ট শ্যামমোহিনীকে বড়ই স্নেহ করত তারা। পিতার কাছাড়িতে গিয়ে চুপটি করে বসে থাকতেন তিনি। তাঁর পিতা তাঁকে হাতিতে চড়িয়ে দীঘাপাতিয়া রাজবাড়ীতে নিয়ে যেতেন। মেয়ে জন্মানোর পর তিনি নতুন নতুন অনেক স্টেটের কাজ পেয়েছিলেন। তাই বারবারই আদর করে শ্যামমোহিনীকে তাঁর পয়মন্ত মেয়ে বলতেন।

১৮৯৩ সালে মাত্র পাঁচ বছর বয়সে শ্যামমোহিনী স্কুলে ভর্তি হন। স্কুলের নাম প্রমথনাথ বালিকা বিদ্যালয়। অসুখ-বিসুখ ছাড়া যাতে কামাই না করে সেদিকে ছিল মায়ের কড়া নজর। এদিকে ন’বছর বয়স হয়ে গেল বিয়ে হল না গ্রামে ছিছিক্কার পড়ে যাচ্ছে। ন’বছরে মেয়েকে গৌরীদান করলে মহাপুণ্য। তবু শ্যামমোহিনীর শিক্ষিত মা-বাবা মেয়ের শিক্ষার দিকেই নজর রেখেছিলেন। শৈশবে মা-ই ছিলেন শ্যামমোহিনীর প্রেরণা। শ্যামমোহিনী তাঁদের সেই আশা পূরণও করলেন। তিনি যে কেবল উচ্চ প্রাথমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেন তাই নয়, পুরো রাজসাহী বিভাগের মধ্যে প্রথম হয়ে স্বর্ণপদক পেলেন। সেসময় বাংলাদেশে এই উচ্চ প্রাথমিকই ছিল মেয়েদের পড়াশোনার সর্বোচ্চ সীমা। পড়াশোনার পাশাপাশি পড়াতেও ভালোবাসতেন শ্যামমোহিনী। পাশের বাড়ির এক বৃদ্ধার অনুরোধে তাঁকে কিছুটা লেখাপড়া শিখিয়েছিলেন যাতে তিনি অন্তত রামায়ণ-মহাভারত নিজে পড়তে পারেন। বৃদ্ধার তাই ইচ্ছা ছিল। নিজে রামায়ণ-মহাভারত পড়তে পেরে শ্যামমোহিনীর বহু সুখ্যাতি করেছিলেন তিনি।

১৮৯৮ সালে শ্যামমোহিনী ও আরো তিনটি ছোট ছেলেমেয়েকে নিয়ে বিধবা হলেন গোবিন্দময়ী। শ্যামমোহিনীর বয়স তখন দশ। সেইসময় রাজসাহীতে তাঁদের অনেকগুলি কাঁচা বাড়িঘর ছিল। বাংলা ১৩০৪ সালের প্রবল ভূমিকম্পে দীঘাপাতিয়ার রাজবাড়ির অনেকগুলি দালানকোঠা ভেঙে গেলে রাজা সেই ধ্বংসপ্রাপ্ত বাড়িগুলির সাজ-সরঞ্জাম স্টেটের উকিল যাদবচন্দ্রকে দিয়ে দেন। যাদবচন্দ্র সেসব দিয়ে পাকা দালানকোঠা তৈরির কাজ শুরু করেছিলেন কিন্তু ঠিক তার পরেপরেই তাঁর মৃত্যু হয়। গোবিন্দময়ীকে তাঁর শুভানুধায়্যীরা অসমাপ্ত বাড়ি তৈরির কাজ আবার আরম্ভ করার পরামর্শ দিলেন।

কিন্তু ভাবা যত সহজ গোবিন্দময়ীর পক্ষে তা করা মোটেও সহজ ছিল না। তাঁর ছেলেরা ছোট ছোট। সবচেয়ে বড় সন্তান শ্যামমোহিনীর বয়সই মাত্র দশ। সে যুগে মেয়েরা ছিলেন অসূর্যস্পর্শা। তার ওপর গোবিন্দময়ীর মতো সম্ভ্রান্ত ঘরের বউ বাইরে বেরিয়ে বাড়ির তদারক করলে সমাজে ছিছিক্কার পড়ে যাবে। শেষপর্যন্ত উপায় একটা পেয়ে গেলেন। ছাত্রবৃত্তি পাশ করা শ্যামমোহিনীর ওপরের দালান তৈরির কাজ দেখাশোনা, রাজমিস্ত্রী খাটানো, জানলা-কপাটের যাবতীয় হিসেবের ভার দিলেন। আর কন্যাও তেমনি দক্ষতার সঙ্গে তা পালন করতে শুরু করে দিলেন।একটি পয়সার হিসেব এদিক ওদিক হয় না। ঠিক ঠিক মাকে বুঝিয়ে দেন প্রতিদিন। স্বল্পব্যয়ে অচিরেই বাড়ি তৈরি হয়ে গেল।

বাড়িঘর হয়ে গেলে এবার কন্যার বিবাহ দেওয়ার জন্য গোবিন্দময়ী ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। ততোদিনে বারো বছরে পড়েছেন শ্যামমোহিনী। গোবিন্দময়ী একাজে তাঁর দাদা প্রসন্নকুমার বক্সীর সাহায্য চাইলেন। প্রসন্নকুমার ঢাকার এক পাত্রকে নির্বাচন করলেন। পাত্রের নাম ললিতচন্দ্র মৈত্র। শ্যামমোহিনীকে দেখতে এলেন পাত্রের দাদা যাদবচন্দ্র মৈত্র। তিনি মেয়ে দেখে বাড়ি ফিরে জানালেন, মেয়ে কালো কিন্ত খুব লেখাপড়া জানে। পাত্রী কালো শুনে পাত্র ললিত মৈত্র কিছুটা ইতস্ততঃ করলেও, উৎসাহী হয়ে উঠলেন তাঁর খুড়তুতো ভাই সুরেন্দ্রনাথ। সেকালে শিক্ষিতা মেয়ে পাওয়া খুব সহজ ছিল না। আর সুরেন্দ্রনাথের ইচ্ছে ছিল শিক্ষিত মেয়েকেই বিবাহ করা। তাই জ্যেঠতুতো দাদার বিয়ে ভেঙে দেওয়ার জন্য তাঁর কানের কাছে বারবার করে কালো মেয়ের নিন্দা করতে লাগলেন। শেষমেষ বিয়ে গেলোও ভেঙে। এবারে সুরেন্দ্রনাথ তাঁর মা ভবানীসুন্দরীকে গিয়ে বললেন, ও মেয়ে লেখাপড়া জানে, ছাত্রবৃত্তি পাশ, সোনার মেডেল পেয়েছে, ওরসঙ্গেই আমার বিয়ে দাও।

বিয়ে ভেঙে যাওয়ায় গোবিন্দময়ী খুব চিন্তায় পড়েছিলেন। এমনসময় হঠাৎ শ্যামমোহিনীর পিতার সেরেস্তার কর্মচারী গোবিন্দ চক্রবর্তীর কাছ থেকে তিনি একটা চিঠি পেলেন। আসলে গোবিন্দ চক্রবর্তী ঢাকা জেলার হাটাইল মধুপুর গ্রামেরই বাসিন্দা। তিনি নিজের গ্রামে এলে তাঁকে দিয়ে আবার বিয়ের প্রস্তাব পাঠানো হল গোবিন্দময়ীর কাছে। এবারে সুরেন্দ্রনাথের সঙ্গে শ্যামমোহিনীর বিবাহের প্রস্তাব। উদ্যোক্তা স্বয়ং সুরেন্দ্রনাথ। ভবানীসুন্দরীর অনুরোধে গোবিন্দ চক্রবর্তী লিখলেন – ওই বাড়িরই আর এক ছেলে দেখতে পরম সুন্দর, বি এ পড়ে, নাম সুরেন্দ্রনাথ – তিনি স্ব-ইচ্ছায় বিবাহ করতে একান্ত ইচ্ছুক, মেয়ে লেখাপড়া জানে বলে। অতএব আপনি চিন্তা করবেন না। আমরা আপনাদের আনতে যাচ্ছি। আপনারা প্রস্তুত হয়ে থাকবেন।

ইংরেজি ১৯০০ সাল, বাংলা ১৩০৭ সালের শ্রাবণ মাসে ঢাকা জেলার হাটাইল মধুপুর গ্রামের বিখ্যাত মৈত্রবংশের ছেলে সুরেন্দ্রনাথের সঙ্গে শ্যামমোহিনীর বিবাহ হয়। প্রথম কন্যার বিবাহ – খুব জাঁকজমক করে প্রচুর সোনাদানা যৌতুক সহ দিলেন গোবিন্দময়ী। কন্যার বিবাহকার্য সুসম্পন্ন হওয়ার পর নাবালক পুত্রদের নিয়ে তিনি গ্রামে ফিরে গেলেন।

http://www.anandalokfoundation.com/