13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শিপন কুমার বসুর জেল থেকে মুক্তি ও দাম্পত্য জীবনের ২২ বছর

ডেস্ক
March 13, 2023 4:56 pm
Link Copied!

অ্যাডভোকেট কালিদাস বড়াল হত্যার বিচারের দাবিতে আন্দোলন করার অপরাধে জেল থেকে মুক্তি ও দাম্পত্য জীবন শুরু করার ২২ বছর ওয়ার্ল্ড হিন্দু স্ট্রাগল কমিটির চেয়ারম্যান শিপন কুমার বসুর। ১৪০৭ সালের ২৮ ফাল্গুন (২০০১ সালের ১৪ মার্চ) মিথ্যে অভিযোগের মামলায় কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি। এজন্য এই দিনটি তার জীবনে স্মরণীয় হয়ে আছে।

আজ ১৩ মার্চ সোমবার তার ফেইসবুক পোস্টে এমন তথ্য জানান তিনি।

ফেসবুক পোস্টে তিনি জানান, বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক নেতার নাম ছিল কালিদাস বড়াল। চিতলমারী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও সুধাংশু শেখর হালদারের ভায়রা অ্যাডভোকেট কালিদাস বড়ালকে ২০০০ সালের ২০ আগস্ট সকাল ৮টায় সাধনা ট্রাফিক পয়েন্টে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। সুধাংশু শেখর হালদারের স্ত্রী সাধনা হালদার বর্তমানে সংসদে সংরক্ষিত আসনে আওয়ামী লীগের মহিলা সাংসদ।

তৎকালীন রাষ্টপতি এরশাদের সঙ্গে কালিদাস বড়াল দেখা করলে, এরশাদ তাকে বলেছিলেন, তুই নাকি এলাকায় আমার চেয়েও জনপ্রিয়? জবাবে কালিদাস বড়াল বলেছিলেন, হ্যা। জবাবে এরশাদ বলেছিলেন, তুই হিন্দুর ছেলে না হয়ে কোনো মুসলমানের ছেলে হলে একদিন এই আমার চেয়ারে বসতি! সত্যিই কালিদাস বড়ালের সাংগঠনিক ক্ষমতা ছিল অসাধারণ। যে দু্’বার চিতলমারীর উপজেলা চেয়ারম্যান হয়েছেন, তখন নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বির জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছিল। পরবর্তীতে তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দিলেও তার জনপ্রিয়তায় কোনো ভাটা পড়েনি বরং বেড়েছিল। কালিদাসের প্রধান রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন শেখ হাসিনার চাচাতো ভাই শেখ হেলাল। শেখ হাসিনার চাচাতো ভাই শেখ হেলালের গোপন নির্দেশে ওই দিন সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন অ্যাডভোকেট কালিদাস বড়াল। এলাকাবাসী’র দৃঢ় বিশ্বাস কালিদাস বড়াল হত্যাকাণ্ড সম্পূর্ণ রাজনৈতিক। কারণ, কালিদাস বড়াল চিতলমারী থেকে আওয়ামী লীগের নমিনেশন না পেলেও স্বতন্ত্র নির্বাচন করে এমপি হতেন। রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডের বিচারও বাংলাদেশে রাজনৈতিক ভাবে হয় এটাই স্বাভাবিক। হয়েছেও তাই।

তিনি আরও জানান, অ্যাডভোকেট কালিদাস বড়াল হত্যার প্রতিবাদে সারাদেশে বিক্ষোভ হয়েছে। কালো ব্যাচ ধারণ করে মন্দিরে দুর্গা পূজা করা হয়। ইতোমধ্যে বাগেরহাট জেলাসহ সারাদেশে আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছি। সেদিন আমার নেতৃত্বে তরুণ-বৃদ্ধসহ বিপুল সংখ্যক মানুষ আন্দোলনে নেমেছিল। আন্দোলন ১ মাস ধরে চলে। বিশেষ ট্রাইব্যুনালে অ্যাডভোকেট কালিদাস বড়াল হত্যার বিচারের দাবিতে বাগেরহাট থেকে সুন্দরবনে পরিবহনে শতাধিক লোক নিয়ে ঢাকায় শেখ হেলালের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলাম। আর আমি শেখ হেলালকে সব খুলে বলি। তখন শেখ হেলাল আমাকে আন্দোলন থেকে দূরে থাকতে বলেন। এ সময় তিনি আরও বলেন, আমি তোমাকে ক্ষমা করলেও আপা (শেখ হাসিনা) তোমাকে কখনো ক্ষমা করবেন না। তিনি আমাকে বললেন, তুমি যা করতে চাও, ছাতার নিচে থেকে করবে। সেদিন আমি শেখ হেলালের কথা না শুনে বাগেরহাটে ফিরে যাই। পরদিন সকালে বর্তমান অবৈধ সংসদের এমপি ও শেখ হাসিনার চাচাতো ভাই শেখ হেলাল আমাকে অস্ত্রের মিথ্যা মামলায় কারাগারে পাঠান।

তিনি আরও জানান, মিথ্যা অভিযোগ থেকে আজকের দিনে অর্থাৎ ২০০১ সালের ১২ মার্চ(১৪০৭ সনের ২৮ ফাল্গুন) সোমবার  জামিনে মুক্তি পেয়েছিলাম। আর জামিনে সেদিনই মুক্ত হয়ে সবিতা বসু বিশ্বাসের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধি। সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না আর নানা হাতাহাতির মধ্য দিয়ে কেটেছে ২২টি বছর। এখনো জাতির জন্য কিছু করতে পারিনি!

তিনি আরও বলেন, আমার লক্ষ্য জাতির সেবা করা, সর্বদা গরীবদের পাশে দাঁড়ানো, বঞ্চিতদের পক্ষে কথা বলা এবং সকল সাধারণ মানুষের কল্যাণে কাজ করা। এজন্য আপনাদের অনুপ্রেরণা ও অনুপ্রেরণা চাই।  আপনাদের অনুপ্রেরণা এবং উৎসাহ আমাকে অধ্যবসায়, একাগ্র ও শক্তিশালী হতে সহায়তা করে। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের মূল চালিকা শক্তি এবং সকল ক্ষমতার উৎস হচ্ছে জনগণ। আপনাদের সব সমর্থন এবং ভালবাসার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।

Shipan Kumar Basu’s Release from jail and married life 22 years

http://www.anandalokfoundation.com/