ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাশিয়া–ইউক্রেন যুদ্ধে লাভবান হয়েছে ভারত

Link Copied!

জনপ্রিয় লেখক রজার কোহেন নিউইয়র্ক টাইমস-এ-এ এক প্রতিবেদনে লিখেছেন, “রাশিয়া–ইউক্রেন যুদ্ধে যথেষ্ট লাভবান হবে ভারত। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর, ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার তেল-গ্যাসে নানা ধরনের নিষেধাজ্ঞা দেয়। কিন্তু সেই নিষেধাজ্ঞায় কর্ণপাত না করে রাশিয়ার তেল-গ্যাস কেনা অব্যাহত রাখে ভারত। ফলে এই যুদ্ধের কারণে ভূরাজনীতিতে যে পরিবর্তন আসছে, তাতে সবচেয়ে বেশি লাভবান হবে ভারত।”

যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপ যেখানে রাশিয়ার তেল-গ্যাস কেনা কমিয়ে দিয়ে বিপদে পড়েছে। মূল্যস্ফীতি যেখানে আকাশ ছুঁয়েছে; সেখানে ভারত এখনো উচ্চ মূল্যস্ফীতির কবলে পড়েনি। জ্বালানির উচ্চ মূল্যের কারণে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোর আমদানি ব্যয় বেড়েছে। এতে সেই সব দেশের মুদ্রার অবমূল্যায়ন হয়েছে। গত বছর ভারতীয় রুপিরও দরপতন হয়েছে। কিন্তু রাশিয়ার কাছ থেকে কম দামে বিপুল তেল কেনার কারণে, ভারতের আমদানি ব্যয় অতটা বাড়েনি। তাদের রিজার্ভ কমলেও বড় ধরনের সংকট হয়নি। এই বাস্তবতায় বড় বড় বৈশ্বিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, ২০২৩ সালে বিশ্বের বড় অর্থনীতিগুলো মন্দার কবলে পড়বে, এমন আশঙ্কা থাকলেও ভারতের প্রবৃদ্ধি হবে সবচেয়ে বেশি।

রজার কোহেন আরও লিখেছেন, মার্কিন-চীন বাণিজ্যযুদ্ধ এবং তারপর কোভিডের কারণে বৈশ্বিক কোম্পানিগুলো এখন আর একটি উৎসের ওপর নির্ভর করতে চাইছে না। চীন থেকে কারখানা সরিয়ে আনছে তারা। এই প্রক্রিয়ায় সবচেয়ে লাভবান হয়েছে ভিয়েতনাম। তবে ভারতেও অনেক কারখানা আসছে। বাস্তবতা হচ্ছে, দ্রুত উত্থান হচ্ছে ভারতের অর্থনীতির। ১ লাখ কোটি ডলারের জিডিপি অর্জন করতে স্বাধীনতার পর ভারতের ৫৮ বছর লেগেছে, এরপর ১২ বছর লেগেছে ২ লাখ কোটি ডলারের অর্থনীতি হতে; তবে সেখান থেকে ৩ ট্রিলিয়ন ডলারের জিডিপি হতে লেগেছে মাত্র ৫ বছর। ফলে ২০৩০ সালের মধ্যে ভারত বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি হতে যাচ্ছে।

http://www.anandalokfoundation.com/