13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাজা শিব নারায়নের নির্মিত স্ত্রী দুর্গাবতীর নামে দুর্গাসাগর দীঘি

Link Copied!

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড নামে খ্যাত বরিশালের ঐতিহ্যবাহী দুর্গাসাগর দীঘি । বরিশাল থেকে ১২ কিলোমিটার উত্তরে বরিশাল স্বরুপকাঠি সড়কে বাবুগঞ্জ উপজেলার মাধবপাশায় এ দীঘিটি অবস্থিত। তৎকালীন সময়ে চন্দ্রদ্বীপ রাজ্যের রাজধানীর নাম ছিল মাধবপাশা। রাজা শিব নারায়নের নির্মিত স্ত্রী দুর্গাবতীর নামে দুর্গাসাগর দীঘি ।

ঐতিহাসিক এই দিঘীটির জলাভূমির আয়তন ২৭ একর এবং পাড় ও জমি সহ মোট আয়তন ৪৫.৪২ একর। স্থানীয়দের কাছে এই দুর্গাসাগর মাধবপাশা দিঘী নামেও ব্যাপক পরিচিত। চারপাশে নারিকেল, সুপারি, শিশু, মেহগনি বৃক্ষ দিয়ে ঘেরা দিঘির উত্তর পাশে একটি বড় বাঁধানো ঘাট আছে। বছরের যেকোন সময় দুর্গাসাগর দিঘী দেখতে যাওয়া যায় তবে শীতকালে দুর্গাসাগরে বুকে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখির আগমন ঘটে। সরাইল ও বালিহাঁস সহ প্রায় ৬ প্রজাতির হাজার হাজার পাখির কলরবে চারপাশ মুখরিত থাকে। প্রায় আড়াইশ বছর পুরনো ঐতিহ্যবাহী দুর্গাসাগর দিঘীর সৌন্দর্য্য দেখতে অসংখ্য লোকের আগমন ঘটে।

জানা যায়, বাংলার বারো-ভূঁইয়াদের অন্যতম চন্দ্রদ্বীপ বংশের পঞ্চদশ রাজা শিব নারায়ন ১৭৮০ খ্রিস্টাব্দে এলাকাবাসীর পানির সংকট নিরসনে মাধবপাশায় একটি বৃহৎ দীঘি খনন করেন। তাঁর স্ত্রী দুর্গাদেবীর নামে দীঘিটির নামকরণ করা হয় দুর্গাগাসাগর।

স্থানীয়দের কাছ থেকে এটিও জানা যায় যে রাণী এক রাতে ৬১ একর(কানি) হেঁটেছিলেন তাই এই দিঘিটি পুরো জায়গা জুড়েই খনন করা হয়েছিল। খনন কাজের জন্য ট্রেজারি থেকে তিন লাখ টাকা ব্যয় হয়েছিল।

স্থানীয় উৎস এবং ইতিহাস অনুসারে, চন্দ্রদ্বীপের রাজবংশের চতুদর্শ রাজা শিব নারায়নের অকাল মৃত্যুর সময় তার স্ত্রী রানী দুর্গাবতী গর্ভবতী ছিলেন। শিব নারায়নের মৃত্যুর পর তার পুত্র পঞ্চদশ রাজা জয় নারায়ন জন্মগ্রহণ করেন। বিধবা রানী দুর্গাবতী বুদ্ধিমতি ও প্রজাবৎসল মহিলা ছিলেন। আঠারো দশকের শেষভাগে নাটোরের রানী ভবানী ও চন্দ্রদ্বীপের রানী দুর্গাবতী জমিদারী পরিচালনা করে বাংলার ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে আছেন। রানী দুর্গাবতী প্রজাদের মঙ্গলের জন্য অনেক পুকুর ও দীঘি খনন করেন। রানী দুর্গাবতী ১৮৭০ সালে বরিশালের বাবুগঞ্জে রাজধানী মাধবপাশায় রাজদরবারের সমস্ত সদস্য ও এলাকাবাসীর পানির সংকট নিরসনে এই দুর্গাসাগর খনন করেন। তাই তিনি ১৮৭০ সালে রাজদরবারের সমস্ত সদস্যদের তাদের জন্য পানি নিরসনের অনুমতি নিয়ে এই দিঘিটি খনন করেছিলেন।

প্রত্নতত্ত্ব সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিবর্তে দুর্গাসাগর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করছে জেলা প্রশাসন। দুর্গাসাগর এর তিন দিকে ঘাটলা ও দীঘির ঠিক মাঝখানে ৬০ শতাংশ ভূমির উপর টিলা। দুর্গাসাগরে দর্শনার্থীদের অন্যতম আকর্ষণ মাঝখানের এই দ্বীপটির সৌন্দর্য। ২৫০০ হেক্টর আয়তনের দুর্গাসাগর দীঘিকে সাগর হিসেবে কল্পনা করলে, এ টিলাটি যেন একটি দ্বীপ। বাতাসের বেগ একটু বেশি হলেই দুর্গাসাগরে ঢেউ ওঠে। আর সেসব ছোট ছোট ঢেউয়ে ভেসে ওঠে পাড়ের বৃক্ষরাজির ছায়া। স্থানীয়ভাবে এটি মাধবপাশা দীঘি নামেও পরিচিত।

দুর্গাসাগরে স্নানপ্রতিবছর চৈত্র মাসের অষ্টমী তিথিতে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা পবিত্র স্নানের উদ্দেশ্যে এখানে হাজার হাজার পূর্ণার্থীদের আগমন ঘটে। স্নান উৎসবের সময় এখানে বড় মেলা বসে। ঐতিহ্যবাহী মাধবপাশা দুর্গাসাগড়ের এ স্নান উৎসব উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন ও আইন শৃংঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে কঠোর ব্যাবস্থা গ্রহণ করে।

দুর্গাসাগরকে পর্যটকদের কাছে আরও আকর্ষনীয় করে গড়ে তুলতে নানা উদ্যোগের কথা বলছে বরিশাল জেলা প্রশাসন। পর্যটন কর্পোরেশনের অর্থায়নে প্রায় ১৬ কোটি টাকা ব্যায়ে দুর্গাসাগরে বেশ কিছু অবকাঠামো সহ ২২টি প্রকল্প হাতে নিয়েছে জেলা প্রশাসন। পরিকল্পনায় রয়েছে আরও ৭টি। অবকাঠামোগত নানা উন্নয়নের পাশাপাশি দিঘির মাঝে ঐ টিলাটিতে যাওয়ার জন্য কাঠের তৈরি ঝুলন্ত সেতু স্থাপনের পরিকল্পনা কর্তৃপক্ষের তবে এখানেই আপত্তি পরিবেশবাদীদের।

পরিবেশবাদীরা বলছে এসব উন্নয়নের ফলে হুমকির মুখে পরবে দুর্গাসাগরের জীববৈচিত্র। এরই মধ্যে ডিসি মঞ্চ, দূর্গাসাগর মঞ্চ নামে দুটি স্থাপনা তৈরি করা হয়েছে। নির্মাণাধীন আরও বেশ কয়েকটি স্থাপনা।  পরিবেশবাদীরা বলছেন, উন্নয়নের নামে যা করা হচ্ছে, তা পরিবেশের সাথে সাংঘর্ষিক।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন-বাপা বরিশাল বিভাগের সমন্বয়কারী রফিকুল আলম বলেন, বিদ্যুতের একটা সাব স্টেশন করার কথা, এমন পরিবশ বিধ্বংসী কর্মকান্ডে আমরা দ্বিমত পোষণ করে বাঁধা প্রদান করেছি।

গ্রীন মুভমেন্ট বরিশাল জেলা সমন্বয়কারী কাজী মিজানুর রহমান বলেন, প্রাকৃতিক জিনিস প্রকৃতির অংশ হয়ে গেছে। এমন প্রকৃতির কিছু ক্ষতি হঊক সেটা মনেকরি পরিবেশ জলবায়ুর জন্য একটা বিপর্যয়।

প্রকৃতিপ্রেমীরা বলছে, প্রকৃতি থাকুক তার আপন মহিমায়  প্রকৃতির ভাব ধীরে ধীরে বিলিন হয়ে যাচ্ছে, আমরা চাই না এখানে বিল্ডিং উঠুক।

উল্লেখ্য, ১৯৫০ সালের দাঙ্গায় জমিদার বাড়িতে কয়েকশ’ হিন্দুকে হত্যা করা হয়। বেশকিছু দীঘি থাকলেও তার অধিকাংশই ভরাট হয়ে গেছে। যা কিছু রয়েছে, তা এখন শুধু কালের সাক্ষী। রাজবংশের উত্তরসূরিরা বর্তমানে ভারতে বসবাস করছেন। রাজবাড়ির কিছুই আজ অবশিষ্ট নেই।

ঐতিহ্যবাহী দুর্গাসাগরের সেই জৌলুস এখন আর নেই। সর্বশেষ ১৯৭৫ সালে আবদুর রব সেরনিয়াবাত দীঘিটি পুনঃখনন ও সংস্কার করেছিলেন। এছাড়া স্থানীয় উচ্ছৃঙ্খল যুবকরা দুর্গাসাগরের প্রধান প্রবেশদ্বারের পাশেই সীমানা দেয়াল ভেঙে ফেলেছে, যা মেরামতের কোনো উদ্যোগই নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। ফলে সন্ধ্যা হলেই দুর্গাসাগর নেশাখোরদের দখলে চলে যাচ্ছে। এছাড়া দিনের বেলায় বখাটেদের উৎপাত তো আছেই। সীমানা দেয়াল ভাঙা থাকায় দর্শনার্থী ভোগেন নিরাপত্তাহীনতায়।

http://www.anandalokfoundation.com/