13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাজা ছত্রপতি শিবাজী মহারাজের জন্মদিনে শ্রদ্ধাঞ্জলী

ডেস্ক
February 19, 2024 7:57 am
Link Copied!

অখণ্ড ভারত জুড়ে গভীর অন্ধকারময় পরিস্থিতি । দেশ যখন পরাধীন, বিদেশী-বিধর্মী মুসলমানেরা তখন দেশের শাসক । চারিদিকে চলছে তাদের ভয়ঙ্কর অত্যাচার। হিন্দু ধর্মের রীতি-নীতি, সংস্কৃতি, সভ্যতা কে সম্পূর্ণ ধ্বংস করার জন্য দিগ্বিদিকে চলছে তাদের নগ্ন, দানবীয়, পাশবিক তাণ্ডব । গ্রামের পর গ্রাম চলছে লুট, ঘরবাড়ি পুড়িয়ে ছারখার করে ফেলা হচ্ছে । যারা ওই অত্যাচারীদের বশ্যতা স্বীকার করছে না তাদের নৃশংস ভাবে হত্যা করা হচ্ছে । নারীদের জোর করে ধরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, জঘন্য অত্যাচার চলছে তাদের ওপর, শিশু ও বৃদ্ধরা পর্যন্ত নির্যাতন থেকে রেহাই পাচ্ছে না । হিন্দুদের মন্দির দেবস্থান কে অপবিত্র করে ফেলা হচ্ছে, ধ্বংস করে ফেলা হচ্ছে হিন্দুদের সমস্ত ঐতিহ্যকে । অথচ এই সমস্ত অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবার সাহস নাই কারও । ….চারিদিকে ভীষণ অন্ধকার ও দুর্যোগঘন পরিস্থিতি । কোনও দিকে আলোর চিহ্নমাত্র দেখা যাচ্ছে না । অন্ধকারের বুক চিরে পূব আকাশে সূর্যের অরুণালোক যেমন সারা জগৎ কে উজ্জ্বল করে, আলোর রোশনাই-এ চারিদিক ঝলমল করে ওঠে, আশা, উৎসাহ ও নবজীবনের ছোঁয়ায় উজ্জীবিত হয়ে ওঠে তেমনি এক নতুন সূর্যের জন্ম হয়েছিল আজ থেকে প্রায় চারশো বছর আগে । সেই দুর্যোগময় অন্ধকার কালরাত্রির বুক চিরে এক নতুন সূর্যের উদয় হয়েছিল ১৬৩০ খ্রিস্টাব্দের ১৯শে ফেব্রুয়ারী মহারাষ্ট্রের শিবনেরি দুর্গে । মাতা জিজাবাঈ শিবের আরাধনা করে যে পুত্র লাভ করলেন তিনি তার নাম রাখলেন শিবাজী । শিবাজী মহারাজের পিতা শাহাজি ভোঁসলে এক প্রবল পরাক্রান্ত বীরপুরুষ ছিলেন । বাল্যকাল থেকেই তার মনে স্বরাজ্য প্রতিষ্ঠার তীব্র আকাঙ্ক্ষা ছিল কিন্তু সমগ্র ভারতের পরিস্থিতি ছিল বিশেষ প্রতিকূল ।

সেই সময়ে ভারতে মুসলমানদের পাঁচটি প্রধান রাজ্য ছিল – দিল্লীর মোগলশাহী, দৌলতাবাদের নিজামশাহী, বিজাপুরের আদিলশাহী, গোলকুন্ডার কুতুশাহী এবং বিদরের বরিদশাহী । এই পাঁচটি মুসলিম শাসক গোষ্ঠী হিমালয় থেকে তুঙ্গভদ্রা পর্যন্ত সমগ্র ভারত কে পদানত করে রেখেছিল । দক্ষিণ ভারতে কয়েকটি ক্ষুদ্র হিন্দু রাজ্য তখনও পর্যন্ত নিজেদের স্বাধীনতা বজায় রাখতে পেরেছিল । দক্ষিণের এই ক্ষুদ্র হিন্দু রাজ্যগুলিকে সম্পূর্ণ বিনষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থেকে বাঁচিয়ে রেখেছিলেন শাহাজি ভোঁসলে কিন্তু রাজ্য প্রতিষ্ঠার জন্য যে ঐক্য, সামগ্রিক চেতনা আবশ্যক ছিল তখন হিন্দুদের মধ্যে তার সম্পূর্ণ অভাব ছিল । তাদের মধ্যে কয়েকজন ক্ষমতাবান মানুষ ছিলেন কিন্তু তারা নিজেদের মুসলিম শাসকদের সেবায় আত্মনিয়োগ করেছিলেন। শিবাজীর জন্মের কয়েক মাস আগে শাহাজি, নিজামশাহীর এর সহিত সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করে পুনায় চলে আসেন এবং তার নিজের জাগিরের অবস্থার উন্নতি সাধন এবং সেখানকার জনসাধারণের আস্থা ফিরিয়ে এনে তার এলাকায় সুখ ও শান্তি প্রতিষ্ঠার কাজে মন দিয়েছিলেন । পুনার এই অঞ্চলটি আদিলশাহীর অধিকারে ছিল এবং সেখানে স্বাধীনভাবে নিজের হাতে শাসন ব্যবস্থা গ্রহণ করাকে বাদশাহ এর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ বলে গণ্য হয়েছিল অতএব আদিলশাহের উজীর খসাবখানের নির্দেশে সর্দার রায়ারাও এক সৈন্য বাহিনী নিয়ে শাহাজী কে দমন করার উদ্দেশ্যে পুনার দিকে রওনা হলেন । আক্রমণের আশঙ্কা করেই সন্তানসম্ভবা স্ত্রী কে শিবনেরি দূর্গে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন, নিজের পরলোকগত কনিষ্ঠ ভ্রাতা শরীফজীর শ্বশুর বিজয়রাও । বিজয়রাও জিজাবাঈ কে খুব স্নেহ করতেন । জিজাবাঈ শিবনেরি দূর্গে পৌঁছানোর অল্পদিনের মধ্যেই রায়ারাও পুনাকে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত করে দিলেন সেইসঙ্গে বিধ্বস্ত হলো শাহাজীর স্বাধীনতার স্বপ্ন । তখন বাধ্য হয়েই মোঘল বাদশাহ শাহজাহানের চাকরি গ্রহণ করতে হয়েছিল । দিল্লিপতি শাহজাহানের এক সরদার দরিয়াখান রোহিলা বাদশার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে দক্ষিণে চলে এসেছিল তখন তাকে দমন করার নেতৃত্ব দেয়া হয়েছিল শাহাজীর কে । শাহাজী যখন শিবনেরি থেকে বহুদূরে ছুটে বেড়াচ্ছিলেন তখন শিবনেরি থেকে দুত এসে তাঁর পুত্ৰ জন্মের শুভ সংবাদ দিয়েছিলেন । এমন শুভক্ষনেও তার পক্ষে শিবনেরি যাওয়া সম্ভব ছিলনা । তার বেশ কয়েকদিন পর দরিয়াখানকে পরাজিত করে তার পুত্র সন্তান শিবাজীর মুখ দর্শন করেছিলেন ।।

ছোট্ট শিবাজীঃ কথিত আছে যে, শাহাজী’র পিতা মালোজী রাজে ছিলেন অত্যন্ত শিবভক্ত । একবার শিবঠাকুর নাকি মালোজী কে স্বপ্নে দেখা দিয়ে বলেছিলেন, “আমি তোমার বংশে জন্মগ্রহণ করব“। মালোজী’র এই স্বপ্নের কথা মালোজী’র কনিষ্ঠ ভ্রাতা বিঠোজী, মাতা জিজাবাঈ কে বলেছিলেন ।
অত্যন্ত বুদ্ধিমতি মাতা জিজাবাঈ সর্বদা চিন্তামগ্ন থাকতেন ভারতমায়ের কথা ভেবে । এই দেশ আমাদের, তবু কেন আমাদের (হিন্দুদের) ধর্মিক কাজকর্ম, রীতি-নীতি পালন ভয়ে-ভয়ে, লুকিয়ে-লুকিয়ে গোপনে করতে হয়…??
হিন্দুরা কেন নিজেদের জীবন, ধন-সম্পদ ও সংস্কৃতির উপর অকারণে অন্যায় অত্যাচার সহ্য করে, কেন তাদের চরম দুঃখ, দুর্দশা ও অপমানের জীবন অতিবাহিত করতে হয়….??
কেন রাম ও কৃষ্ণের এই পবিত্র ভূমিতে আজ বিদেশি বিধর্মীদের অন্যায় শাসন…? মারাঠারা অতীব সাহসী ও নির্ভীক,তবু কেন তারা বিধর্মী ও বিদেশী দের ক্রীতদাস হয়ে সারা জীবন যাপন করতে বাধ্য হয়…??
এইসব হাজারো প্রশ্ন জিজাবাঈ-এর মনে ভীড় করতে থাকে ।

শিবাজীর জন্মের আগে ১৬২৯ খ্রীষ্টাব্দের ২৫ শে জুলাই, দৌলতাবাদের নিজমশাহের প্রকাশ্য দরবারের মধ্যে নেশাগ্রস্ত বাদশাহের নির্দেশে জিজাবাঈ -এর পিতা লখুজী যাধবরাও ও তাঁর দুই পুত্র (জিজাবাঈ -এর দুই ভাই) এবং পৌত্র জশবন্ত রাও-কে হত্যা করা হয়, অত্যন্ত নিষ্ঠুরভাবে । এই ঘটনা জিজাবাঈ এর মনের মধ্যে এক গভীর ক্ষতের সৃষ্টি করে এবং তার মন থেকে অবিরত রক্তক্ষরণ হতে থাকে ।

দেশকে স্বাধীন করার তীব্র আকাঙ্ক্ষা অগ্নিশিখার মতো তার অন্তরে জ্বলতে থাকে । দিল্লির বাদশাহ আকবর তারপরে তার পুত্র জাহাঙ্গীর এই দেশ আক্রমণ করেছে কিন্তু তাদের হয়ে যুদ্ধ করেছে আমাদের দেশের স্বদেশীরা । আমাদের সমস্ত শক্তি আমরা শত্রুদের হাতে সঁপে দিয়ে নিজেরাই নিজেদের ধ্বংস করছি । কিন্তু এসব এবার শেষ হবে ভগবান শিবের কৃপায় । সেই সময়ই বিঠোজী জিজাবাঈ কে মালোজী’র স্বপ্নের কথা বলেছিলেন । জিজাবাঈ -এর পুত্র জন্মের সংবাদ শিবনেরি দূর্গে এক অপরিসীম আনন্দের পরিবেশ তৈরি করেছিল, সকলে দীপ জ্বালিয়ে, ঘরে ঘরে শঙ্খ বাজিয়ে আনন্দের বহিঃপ্রকাশ হয়েছিল । এই পুত্র যে পূজনীয় শশুর মহাশয় মালোজী-এর স্বপ্নের সাক্ষাৎ রূপায়ণ তাতে তার কোন সন্দেহের অবকাশ ছিল না । মাতা জিজাবাঈ ভগবানের কাছে প্রার্থনা করেন- “আমার প্রাণ সর্বস্ব পুত্র যেন ভারতমাতার আশার প্রদীপ হয়ে জ্বলতে থাকে । শুধু মাত্র মহারাষ্ট্র নয়, তাদের পুত্র যেন সারা ভারতবর্ষের মুখ উজ্জ্বল করে । তুমি আমাকে যে অমূল্য রত্ন দিয়েছো তা শুধু আমার একার নয় সমগ্র দেশের ও ধর্মের সম্পদ হোক। মা আমাকে করুণা করো । হে শক্তিদায়িনী মা, আমাকে শক্তি দাও যেন তোমার এই দানকে আমি আমার সর্বশক্তি ও সামর্থ্য দিয়ে মানুষের মত মানুষ করে তুলতে পারি ।

জন্মের দ্বাদশ দিনে বালকের নামকরণ সম্পন্ন হয়েছিল । শিবনেরি দূর্গে ‘দেবী শিবাই’ এর ছত্রছায়ায় শিবের আরাধনায় জন্ম হয়েছে বলে তার পুত্রের নাম রাখা হয়েছে শিবাজী । জ্যোতিষী রা ভাগ্য গণনা করে বলেন, “অত্যন্ত ব্যক্তিত্বসম্পন্ন, সাহসী ও বীরপুরুষ হবে, অতি ক্ষুরধার বুদ্ধি ও তীক্ষ্ণ ধী-শক্তির অধিকারী হবে এবং চতুর্দিকে ভারতীয় সভ্যতার গৌরব তার পতাকা উড্ডীন করবে” ।

এরপর থেকেই মাতা জীজাবাঈ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতে থাকে এবং মনে মনে এই কামনা করতে থাকেন, “তাড়াতাড়ি বড় হয়ে ওঠো আমাদের রাজা । অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ তোমার পথ চেয়ে অপেক্ষা করছে “।
ক্রমেই বালক শিবাজী হাঁটতে শিখলো, তারপর দুর্গের মধ্যে চারিদিকে ছুটাছুটি করে খেলে বেড়াতে থাকলো । তখন জিজাবাঈ-এর অবস্থা হয়েছিল মা যশোদার মত । শ্রীকৃষ্ণের মতোই চপল, চঞ্চল শিবাজী তার মাতা জিজাবাঈ কে সর্বক্ষণ ব্যতিব্যস্ত করে রাখত । অতীব স্নেহে, যত্নে জিজাবাঈ নিজের হাতে শিশুপুত্রকে স্নান করিয়ে মন্দিরে নিয়ে যান । ছোট্ট শিবাজীর হাত দিয়ে দেবতার চরণে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করান, নিজে পূজা করেন, নিজের পুত্র ও দেশের মঙ্গল কামনা করেন । মাতার এই ভক্তিভাব ধীরে ধীরে ছোট্ট শিবাজীর মধ্যে সঞ্চারিত হতে থাকে । এইভাবে মন্দিরে গিয়ে ছোট্ট শিশুর আশ্চর্য পরিবর্তন লক্ষ্য করে মা তো অবাক হয়ে যান । দেবতার সামনে উপস্থিত হলে তার সব দুষ্টুমি যেন কোথায় পালিয়ে যায় । সে একমনে মায়ের পুজো দেখে। মায়ের মতোই হাত জোড় করে শান্ত হয়ে বসে থাকে শিবাজী ।

রাত্রে মায়ের কাছে শুয়ে তার পিতা শাহাজীর বীরত্বের গল্প কাহিনী শোনে । উপযুক্ত ভাষায় রামায়ণ মহাভারতের কাহিনী শোনাতেন, মুখে গল্প শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে পড়ত ছোট্ট শিবাজী । দিনের বেলায় খেলার সময় শিবাজী নিজেই পাথরের টুকরো সাজিয়ে কেল্লা তৈরি শুরু করে, গাছের সরু ডাল বা কঞ্চি হতো তলোয়ার । তারপর শুরু হয় কাল্পনিক শত্রুর সঙ্গে প্রবল যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা । শত্রু ধ্বংস করে যখন মার কাছে ফিরে আসত, তখন যুদ্ধের বর্ণনা শুনে বড় বড় চোখ করে বীর পুত্রের দিকে মুগ্ধ দৃষ্টিতে চেয়ে থাকেন মাতা জিজাবাঈ ।

এভাবে ধীরে ধীরে প্রবল দেশপ্রেম ছোট্ট শিবাজীর মধ্যে সঞ্চারিত হতে থাকে ।

ব্যাঙ্গালোরে ছোট্ট শিবাজীঃ শিবাজীর বয়স যখন ছয় বছর, তখন শাহাজী জিজাবাঈ ও শিবাজীকে বাঙ্গালোরে নিয়ে এলেন। আদিলশাহ সিদ্ধান্ত নিলেন যে তাঁকে মহারাষ্ট্রে রাখা নিরাপদ হবে না। সেই কারণে তিনি শাহাজীকে কর্ণাটক প্রান্তে নিযুক্ত করেন। মহারাষ্ট্রের তুলনায় সেই সময় হিন্দুত্বের আবহাওয়া অপেক্ষাকৃত ভালো ছিল দক্ষিণের এই প্রদেশে। ছোট ছোট নৃপতিরা দুর্বল হলেও তাঁরা ছিলেন হিন্দু । তাছাড়া, সারা জীবন পরিবারের সান্নিধ্য থেকে দূরে সর্বক্ষণ যুদ্ধের উত্তেজনার মধ্যে কাটাতে হয়েছে তাকেঁ, সেই কারণে শাহাজীও চাইছিলেন তাঁর নিজের ও নিজ পরিবারের জন্য কিছুটা স্বস্তি ও শান্তির জীবন। অতএব, বাঙ্গালোরে পৌঁছুতে তিনি একটুও দেরী করলেন না ।
শাহাজীর অপ্রতিম পরাক্রম দেখে সেনাপতি রণদুল্লা খুবই প্রীত হয়েছিলেন। ঐ রমণীয় নগরটিকে শাহাজী কিম্পগৌড়ার কাছ থেকে জয় করে নিয়েছিলেন। খুশি হয়ে রণদুল্লা খান পারিতোষিক হিসাবে বাঙ্গালোর নগরটি শাহাজীকে দিয়ে দেন। তাই, সেখানেই শাহাজী সপরিবারে বসবাস করার ব্যবস্থা করলেন।

এই সময়ে শাহাজী বালক শিবাজীর সব রকম শিক্ষা-দীক্ষার জন্য জনৈক পণ্ডিত ব্যক্তিকে দায়িত্ব দিলেন ― তার নাম দাদাজী কোণ্ডদেব । বালক শিবাজী গুরুর কাছে বসে প্রথম অক্ষর-জ্ঞান ও অন্যান্য প্রাথমিক শিক্ষাগ্রহণ শুরু করে। তার মেধা ছিল অপূর্ব, তেমনই ছিল তার প্রখর স্মরণ-শক্তি। শুধু একবার গুরুর কাছে সে, যে সব পাঠ শিখত, সহজেই তা আয়ত্ব করে নিত ―সে পাঠ যতই কঠিন হোক না কেন। গুরুর কাছে শিবাজী ক্রমে ন্যায়শাস্ত্র, রাজনীতি, ইতিহাস, ইত্যাদির সঙ্গে-সঙ্গে মাতৃভাষা ছাড়াও সংস্কৃত, ফার্সী, আরবী ইত্যাদি ভাষাও শিখতে আরম্ভ করল ।

গুরু কোণ্ডদেব শিবাজীকে শুধু লেখা-পড়াই নয়, কুস্তি, মালখাঁব, খড়্গ (তলোয়ার), ছুরিকা, বর্শা, বল্লম, তীর-ধনুক ইত্যাদি অস্ত্র চালনা, যুদ্ধবিদ‍্যা, ধনুর্বিদ্যা, অশ্ব-পরীক্ষা, অশ্বারোহণ প্রভৃতি নানাবিধ শিক্ষা দিতেন একেবারে নির্দিষ্ট দিনলিপি অনুযায়ী। তার মধ্যে কোনরকম ব্যতিক্রম হওয়ার উপায় ছিল না। প্রত্যেকটি শিক্ষার ও দৈনন্দিন কার্যক্রমে সময়-সূচি নির্দিষ্ট ছিল। এইভাবে শৈশব-অবস্থা থেকেই শৃঙ্খলাবোধ তথা অনুশাসনের শিক্ষা ও মজ্জাগত হয়ে গিয়েছিল।

জননী জিজাবাঈয়ের সঙ্গে মন্দিরে যাওয়ার শিবাজীর নিত্য-নৈমিত্তিক কাজ ছিল। সেখানে দেব-দর্শন করা রামায়ণ-মহাভারতের পাঠ শোনা ছিল তার প্রিয় কাজ। মাঝে-মাঝে শাহাজী শিবাজীকে নিয়ে বিভিন্ন গ্রামে বেড়াতে যেতেন। সেই সঙ্গে নানান ধরনের মানুষের সঙ্গে মেলা-মেশা করার এবং রাজনৈতিক কূট-কৌশল শেখার‌ও সুযোগ হত। অত অল্প বয়সেই শিবাজীর মধ্যে মানুষ চেনার এক অনুপম গুণের বিকাশ ঘটেছিল। কোন ব্যক্তি সম্পর্কে শিবাজী অনেক সময়ে পিতার কানে-কানে নিজের মতামত প্রকাশ করত। বালক-পুত্রের কথা শুনে শাহাজী তার তীক্ষ্ণ বুদ্ধির পরিচয় পেয়ে বিস্মিত ও মুগ্ধ হয়ে যেতেন।

বিজাপুরের দরবারে বালক শিবাজীঃ একবার শাহাজীকে বিজাপুরের দরবারে যেতে হয়েছিল। দরবার হালচালের সঙ্গে পরিচিত করার উদ্দেশ্যে তিনি বালক শিবাজীকেও সঙ্গে নিয়ে গেলেন। বিজাপুরে পৌঁছে তিনি আগেই শিবাজীকে শিখিয়ে দিয়েছিলেন, দরবারে প্রবেশ করে কিভাবে বাদশাহকে কুর্নিশ করতে হয়।

দরবারে প্রবেশ করে শাহাজী, বাদশাহের সামনে মাথা নিচু করে করে দরবারী কায়দায় কুর্নিশ করলেন এবং শিবাজীকেও এভাবে কুর্নিশ করতে বললেন। শিবাজী তা না করে সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে দরবারে মানুষগুলোর মুখ আর তাদের হাব-ভাব লক্ষ্য করতে লাগল। শাহাজী বললেন – “শিউবা, বাদশাহকে প্রণাম কর। ইনি শাহেনশাহ আদিলশাহ, আমাদের রক্ষা-কর্তা ও অন্নদাতা। এঁকে প্রণাম করতে হয়।” কাছাকাছি অন্যান‍্য যাঁরা ছিলেন, তাঁরা বললেন― “আরে বেটা বাদশাহকে সেলাম কর। তোমার ওপর খুশী হবেন, এই ভাবে মাথা নিচু হয়ে বাদশাহকে কুর্নিশ কর”― বলে কীভাবে কুর্নিশ করতে হয় দেখিয়ে দিলেন।

শিবাজী কিন্তু মাথা নিচু হলো না। অভিবাদনের জন্য হাত‌ও উঠল না। সে ভাবতে লাগল, এ আমি কোথায় এসেছি ?
আর সিংহাসনের উপর যে বিলাসী মাতালটা বসে আছে, তার সামনে মাথা নিচু করব ? কখনো না ! এই সব বিধর্মী ও দেশের শত্রুদের মধ্যে অনেক হিন্দু শূর-বীরও বসে আছেন। হায় ! তাঁরাও ওদের সঙ্গে কী করে এক হতে পারেন ? ওদের বুঝিয়ে দিতে হবে, এটা আমাদের দেশ। এখানে আমাদের রাজ্য হবে ― বিধর্মীদের নয়। হ্যাঁ, আমি স্বরাজ্য প্রতিষ্ঠা করব― আজ‌ই আমি এই সংকল্প গ্রহণ করলাম। ঈশ্বর হয়তো এ কাজের জন্য জন্য কাজের জন্য জন্য‌ই আমাকে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। দস‍্যুর সামনে মাথা নিচু করব ? কখনো না। “না কখনো না!” বলে শিবাজী হঠাত হঠাত চীৎকার করে উঠল।

শিবাজীর মনের অবস্থা বুঝে নিতে শাহাজীর দেরী হইল না। তিনি হাতজোড় করে বালক শিবাজীর অশিষ্ট আচরণের জন্য বাদশাহের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিলেন। এত সব আড়ম্ভর দেখে বালক ঘাবড়ে গেছে গেছে, ওকে বাড়ী ফিরে যাবার অনুমতি প্রার্থনা করুন ।
বাদশাহ বললেন ― “ঠিক আছে। এখন ও খুবই ছোট। আর একটু বড় হলে ওকে আবার নিয়ে আসবেন। আপনার ছেলে খুব তেজী। ওকে ভালো করে শিক্ষা দিন। আমি ওকে খুব বড় পুরস্কার দেব।”

শাহাজী তাঁর কর্মচারীদেকে সঙ্গে শিবাজীকে বাড়ি পাঠিয়ে দিলেন।

বিজাপুর শহরের রাজপথে যাবার সময়ে সর্বত্র ঐশ্বর্য, প্রাচুর্য, আরাম ও ভোগ-বিলাসিতার প্রদর্শনী দেখে শিবাজীর মনে হল।
এখানে থেকে শুধু বাদশাহের আদরের মানুষ, কিন্তু এসব সম্পদ ও ঐশ্বর্যের প্রকৃত অধিকারী কে ?
এর সত‍্যিকারের অধিকারী তো এসব দরিদ্র বনবাসী, গিরিজন আর অসহায় গ্রামবাসীরা। তখনই বালক শিবাজী আবার মনে মনে সংকল্প করল― এই সব বিদেশি বিধর্মী শাসকদের আমিই এই পূণ্যভূমি থেকে উচ্ছেদ করব এবং এ দেশের সব মানুষের দুঃখ-দুর্দশা দূর করব।

পথে যেতে যেতে শিবাজী দেখে চারিদিকে।
তখনই হঠাৎ এক জায়গায় চোখে পড়ল– এক কসাই একটি গরুকে প্রকাশ্য রাজপথেই হত্যা করতে উদ্যত হয়েছে। বিদ্যুৎবেগে শিবাজী তার কাছে ছুটে গেল এবং কেউ কিছু বোঝবার আগেই নিজের ছোট্ট তলোয়ারের এক কোপে কসাইয়ের হাত কেটে ফেলল। চারিদিকে ভীষণ হৈ-চৈ পড়ে গেল, কিন্তু শিবাজীর ক্রুদ্ধ আরক্ত চোখ আর রক্তমাখা তলোয়ার দেখে তার কাছে যাবার কারো সাহস হলো না। কর্মচারীরা অনেক বুঝিয়ে তাকে তাড়াতাড়ি বাড়ি নিয়ে এল, কিন্তু যাবার আগে শিবাজী চীৎকার করে সবাইকে সাবধান করে দিল― এখানে আর কখনো যেন গোহত্যা না করা হয়।

পথের এই চাঞ্চল্যকর ঘটনা সংবাদ শাহাজীর কাছেও পৌঁছুল এবং দরবারের কয়েকজন উচ্চপদস্থ কর্মচারীও জানতে পারলেন। শাহাজী কালবিলম্ব না করে বাড়ি ফিরে এলেন এবং শিবাজীকে বাঙ্গালোরে পাঠিয়ে দিলেন।

কথিত আছে যে শিবাজীর এই ক্ষোভের কথা কথা জানতে পেরে বিজাপুরের সুলতান প্রকাশ্য রাজপথে গোহত্যা ও গোমাংস বিক্রী বন্ধ করা আদেশ দেন।

বিজাপুরের কাজ শেষ করে শাহাজী বাঙ্গালোরে ফিরে এসে তাঁর ছেলের সব কাণ্ড-কারখানা বিবরণ করে বললেন― ” ধন্যি ছেলেকে জন্ম দিয়েছো জিজাবাঈ ! ওঃ বাদশাহের সামনে কিছুতেই মাথানত করল না ― ক্রুদ্ধ দৃষ্টিতে তাঁর দিকে আর অন্য সব সর্দারদের মুখের দিকে তাকিয়ে চীৎকার করে বলল― কখনোই সেলাম করবে না !”

জিজাবাঈ শিবাজীর কাছে সবই শুনেছিলেন। প্রত্যক্ষ বাদশাহের সামনে গিয়ে বালক পুত্রের অমন দুর্দমনীয় সাহস ও আত্মসম্মান-বোধের কথা শুনে গর্বে বুক ভরে গর্বে বুক ভরে উঠেছিল। মুসলমান অধ্যুষিত প্রত্যক্ষ রাজপথে গোমাংস বিক্রেতার হাত কেটে ফেলায় তিনি যে যে যে কিছুটা বিচলিত হয়ে পড়েছিলেন, সে কথাও তিনি অস্বীকার করতে পারলেন না। তখনই তিনি শিবাজী কে সুন্দর ভাবে বুঝিয়ে বুঝিয়ে সুন্দর ভাবে বুঝিয়ে বুঝিয়ে বলেছিলেন― “শিউবা অকারণ দুঃসাহসের পরিচয় দিয়ে জীবনকে বিপন্ন করা বুদ্ধিমানের কাজ নয়। রাজনীতিতে কূট-কৌশল একটা বড় গুণ, খুব দরকারী। ক্রোধকে সংযত করা, ভয়ঙ্কর প্ররোচনাতেও মনের ধৈর্য না হারানো হারানো না হারানো হারানো― শ্রেষ্ঠ রাজার মধ্যে, শাসকের মধ্যে এই সব গুণ থাকা একান্ত প্রয়োজনীয়।”

একটু থেমে জিজাবাঈ স্নেহমাখা স্বরে বললেন― “তুই তো আমার রাজা শিবাজী ! তুই দেশে স্বাধীন করবি, দুঃখ-কষ্ট-দূর করবি। তোকে এখন অনেক কাজ করতে হবে― অনেক দিন বাঁচতে হবে।”

শাহাজীর কথা শুনে জিজাবাঈ মুচকি হেসে বললেন―”তোমার এই ছেলে যে আর পাঁচটা ছেলের মত সাধারন ছেলে নয় সে কথা তোমার বাদশাহ আর তাঁর দরবারের সকলে বুঝে গেছেন !”
“খুব ভালো করে বুঝছেন,” শাহাজী উওর দিলেন। “আমি এখন ভাবছি, শিবাজীকে বাঙ্গালোরে রাখা ঠিক হবে না। তোমার কি মনে হয় ?”
জিজাবাঈ বললেন ― “আমার মতে শিবাজীকে নিয়ে পুনাতে চলে যাই। ওখানেই ওর শিক্ষা-দীক্ষার ব্যবস্থা হোক।”
“হ্যাঁ আমারও সেই মত। তবে এ ব্যাপারে দাদাজি পন্তের সঙ্গে পরামর্শ করতে হবে,” শাহাজী জবাব দিলেন।
শিবাজীর শিক্ষক তথা গুরু দাদাজী কোণ্ডদেবের সঙ্গে পরামর্শ করে জিজাবাঈ ১৬৩৯ সালের প্রথম দিকেই শিবাজীকে নিয়ে পুনা রওনা হলেন। সঙ্গে দাদাজী কোণ্ডদেব এবং শাহাজীর কয়েকজন বিশ্বাসভাজন কর্ম-কৎপর কর্মচারী ছিলেন। শিবাজীর শিক্ষা-দীক্ষা এবং পুনার জাগীরের সম্পূর্ণ শাসন ব্যবস্থার সমস্ত দায়িত্ব দাদাজী উপরেই সমর্পণ করে শাহাজী নিশ্চিত হলেন।

বালক শিবাজী ও দাদাজী কোণ্ডদেবঃ  কর্তব্য-নৈপুণ্য, সু-ব্যবস্থা, শৃঙ্খলা ও ন্যায়পরায়ণতার জন্য দাদাজী কোণ্ডদেব সর্বত্র সুপরিচিত ছিলেন। তাঁর কর্তব্য-কঠোরতা সম্বন্ধে মহারাষ্ট্রে এক কথা প্রচলিত আছে। একবার তার জনৈক এক কর্মচারী শাহবাগ থেকে কিছু ফল নিয়ে এল। একটা ফল কাটা হল। তিনি সে সুস্বাদু ফলের টুকরো মুখে তুলতে যাবেন তখনই তাঁর মনে একটা খটকা লাগল। জিজ্ঞেস করলেন – “এই ফলটা কোথা থেকে এনেছ ?” কর্মচারী বলল শাহবাগ থেকে। দাদাজী বললে উঠলেন ― “ওহ! তাহলে তো আমার হাত দিয়ে বিরাট অপরাধ হয়ে গেছে, পরের জিনিস চুরির অপরাধ।” পুরানো কর্মচারী বলল ― “আপনি এ কথা কেন বলছেন ? আপনিই তো এই জাগীরের সব কিছুর মালিক।”
দাদাজী বললেন― “না, সে কথা ঠিক নয়। আমি মালিক নই। আমি এই জাগীরকে রক্ষা করার জন্য এবং এর উন্নতি করার জন্য নিযুক্ত সেবক মাত্র। প্রভুর অগোচরে তাঁর কোন জিনিস ভোগ করার অধিকার আমার নেই।
তখন একজন বলল ― “এ রকম তো সকলেই করে। তাছাড়া, দু-একটা ফল পেড়ে খাওয়াটা এমন কিছু মারাত্মক ব্যাপার নয়।”
দাদাজী বললেন ― আমি অন্য সকলের মত হতে চাইনা। বিনা অনুমতিতে অপরের জিনিস নেওয়া চুরি ছাড়া কিছুই নয়। সে জিনিস ছোট হোক বা বড় তাতে কিছু তফাৎ হয়না। আমি চুরি দোষে দোষী। এর দণ্ড আমাকে পেতেই হবে।”
পুরনো কর্মচারীটি বলল ― “এটা আমার হাত দিয়ে হয়েছে হয়েছে, দণ্ড আপনি কেন ভোগ করবেন ? আপনি আমাদের শাস্তি দিন।”
দাদাজি উত্তর দিলেন ― “কর্মচারী দোষ করলে উপরওয়ালার উপরেই তার দায়িত্ব বর্তায়। ন‍্যায়শাস্ত্র এই কথা বলে। যাও, তলোয়ার নিয়ে এসো। প্রভুর বাগানের ফল আমি ডান হাত দিয়ে খেতে উদ্যত হয়েছিলাম। আমার এই হাত কেটে ফেল।”
দাদাজীর এ কথা শুনে ভয়ে কেঁপে উঠল। বয়স্ক ব্যক্তিরা তাঁকে বোঝাবার চেষ্টা করতে লাগলেন। সে কর্মচারীটি বাগান থেকে ফল পেড়ে এনেছিল সে কাঁদতে শুরু করল। তারপর সে ছুটে গিয়ে জিজাবাঈকে সব ঘটনার কথা বলল। জিজাবাঈ শিবাজীকে নিয়ে তৎক্ষণাৎ দাদাজীর কাছে এসে তাঁকে ঐ মারাত্মক দণ্ড গ্রহণ থেকে নিবৃত্ত করলেন।
কথিত আছে সেই দিন থেকে দাদাজী একটা হাত-কাটা জামা পড়তেন এবং এইভাবে সবসময়ে নিজের একনিষ্ঠ সেবাব্রত ও কর্তব্য পরায়নতার কথা মনে রাখতেন। তাঁর সততার প্রভাবে অধস্তন কর্মচারী বা সর্দার কখনো কোনো দুর্নীতি, কর্তব্যে অবহেলা বা অন্যায়ের পথে যাবার সাহস পেতনা। দাদাজীর নামের উল্লেখ মাত্রই সুশৃঙ্খলার সঙ্গে কাজ হত।

দাদাজী কোণ্ডদেব কাছে শিবাজী লেখাপড়া, অস্ত্রবিদ্যা, রাজনীতি ও সমর শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যক্ষ জীবনের ব্যবহারিক ও নৈতিক শিক্ষার ও পাঠ নিতেন। শাসন কার্যের ছোট-বড় সব ব্যাপারেই দাদাজী, শিবাজীকে তাঁর কাছে রাখতেন, সর্বত্র সঙ্গে নিয়ে যেতেন। কোথায় নূতন কী কাজ করতে হবে, তার পরিকল্পনা রচনা করা, কোথাও কোনো অন্যায় ঘটে থাকলে ন্যায় বিচার করা – সব শিবাজীর উপস্থিতিতেই চলত। শিবাজী সুক্ষ্ম দৃষ্টিতে সব দিকে নজর রাখতেন এবং কোন কাজ কিভাবে করা উচিত করা উচিত সে বিষয়ে তাঁর অনন্য বুদ্ধি ও মেধার সাহায্য পরিস্কার ভাবে বুঝে নিতেন।

দাদাজী এর পর শিবাজীকে সঙ্গে নিয়ে জাগীরের অন্তর্গত প্রত্যেকটি গ্রামে একে একে পরিদর্শন শুরু করলেন। এই জন-সম্পর্কের সময়ে গ্রামের প্রধান ও অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সমবেত করা হত। শিবাজী কে উঁচু আসনে বসিয়ে সভার কাজ শুরু হত। গ্রামে কোথায় কী অসুবিধা, আর কী অভিযোগ শোনা হতো। কোন বিবাদ-বিসংবাদ থাকলে সামনেই তার মীমাংসা করা হত।
গ্রামবাসীরাও উপলব্ধি করত যে রাজা তাদের সব রকম নিরাপত্তা ও সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের ব্যবস্থা করতে তৎপর।

গ্রামের মানুষদের সঙ্গে শিবাজী অত্যন্ত অন্তরঙ্গভাবে মিশতেন। তাদের মধ্যে কর্মঠ, নিষ্ঠাবান ও বুদ্ধিমান যুবকদের সঙ্গে শিবাজী বন্ধুর মতো ভাব জমিয়ে নিতেন।
এইভাবে গ্রামে গ্রামে তার ঘনিষ্ঠ ও একান্ত অনুগত বন্ধুর সংখ্যা বিপুলভাবে বৃদ্ধি শিবাজী কে প্রাণ দিয়ে ভালবাসতে লাগল। তারা শিবাজীকে প্রাণ দিয়ে ভালবাসতে লাগল, তাঁর নির্দেশে সবকিছু করার জন্য তারা সর্বক্ষণ প্রস্তুত। এভাবে গ্রামে-গ্রামে এইসব বন্ধুর দল এক তেজস্বী, নির্ভীক, সুশৃঙ্খল, কর্তব্যনিষ্ঠ সংগঠনের রূপ গ্রহণ করল। এইসব তরুণরা ছিল পুনা এবং সংলগ্ন সহ‍্যাদ্রি পর্বত অঞ্চল বনাঞ্চলের প্রকৃত প্রাণ-সম্পদ। তাদের মাধ্যমে পুনার সীমিত অঞ্চল ছাড়িয়ে দূর-দূরান্ত পর্যন্ত শিবাজীর অনুপ্রেরণায় এক নূতন রক্তের, নতুন প্রজন্মের সৃষ্টি হতে লাগল। সর্বত্র দেশাত্মবোধ, পারস্পরিক ঐক্য, সাহস, পরাক্রম ও স্বাভিমানে উদ্বুদ্ধ হয়ে উঠতে লাগল সেই সব মানুষ যারা এযাবৎ ছিল ম্রিয়মান, হতাশ, হতচেতন ও নিদ্রিত ।

শিবাজীর আত্মনির্ভরতার পরিকল্পনাঃ দাদাজী কোন্ডদেব গ্রামবাসীদের আত্মনির্ভর ও স্বচ্ছল করে তোলার এক অভিনব পরিকল্পনা হাতে নিলেন। তিনি এক বিশাল উৎসবের আয়োজন করলেন। একটি লাঙ্গলে সোনার ফলা লাগানো হল। মহাসমারোহে ভূমি পূজা হলো এবং শঙ্খ-ঘন্টা ধ্বনির মাঝে স্বয়ং শিবাজী মাঠে লাঙ্গল চালালেন। গ্রামবাসীরা দারুণ উৎসাহ এই উদ্যোগে সাড়া দিল এবং প্রত্যেকের‌ই নিজ হাতে চাষ করার আগ্রহ প্রকাশ করল।
চাষীদের জমি, বীজ, হাল-বলদ লাঙল প্রভৃতি সবরকম সাহায্য দেওয়া হল। তারা যাতে ঠিক মত চাষের কাজ করে ভালো ফসল ফলাতে সক্ষম হয় তারজন্য তাদের যথাযথ প্রশিক্ষণ দেওয়া হল। গ্রামে-গ্রামে চাষিরা এতদিন ফেলে রাখা জমিগুলিকে কঠোর পরিশ্রমে চাষের উপযুক্ত করে তুলল এবং পরম উৎসাহে চাষের কাজে নেমে পড়ল। তাদের এমন অভূতপূর্ব উদ্যম দেখে মাতা জিজাবাঈ এগিয়ে এলেন তাঁর সন্তানসম প্রজাদের উৎসাহ দিতে। জননী বসুন্ধরাও প্রসন্ন হয়ে তাঁর সম্পদ উজাড় করে দান করলেন। চতুর্দিকে সুখ-সমৃদ্ধি দেখা দিল।

দাদাজী দেখলেন, বহু গ্রামের কাছাকাছি গভীর অরণ্য থাকায় হিংস্র বন্য পশুদের আক্রমণে অনেক মানুষ ও গবাদি পশুর মৃত্যু ঘটে। অপঘাত-মৃত্যুর এইসব খবর প্রায় প্রতিদিনই আসে আসে । দাদাজী ঘোষণা করলেন, এই হিংস্র পশুদের হত্যা করে প্রমাণ হিসাবে নিহত পশুর লেজ শিবাজীর নির্দিষ্ট কর্মচারীর কাছে জমা দিলে বড় পুরস্কার দেওয়া হবে। সাহসী গ্রামবাসী যুবকেরা গভীর অরণ্যে প্রবেশ করে হিংস্র পশুদের সংহার শুরু করে দিল। এর ফলে অচিরেই গ্রামবাসীরা হিংস্র পশুদের আক্রমণ থেকে রেহাই পেল।

সেই সময় মাঝে-মাঝে মুসলমান শাসকদের উচ্চপদস্থ কর্মচারীরা কর আদায় করার অছিলায় গ্রামে-গ্রামে লুটতরাজ করতে আসত, আর তাদের মধ্যে যারা গ্রামগুলির কাছাকাছি বসবাস করত, তাদের পেশা ছিল চুরি-ডাকাতি, রাহাজানি, মেয়েদের অপহরণ করা, তাদের উপর অকথ্য অত্যাচার, সাধারণ মানুষকে হত্যা করা, খুন-খারাপি। তাই সর্বত্র ভীতি এবং ত্রাসের রাজত্ব বিরাজ করত। তাদের সমূলে উৎখাত করার জন্য দাদাজী এক বিশেষ বাহিনী গঠন করলেন। তারা খুঁজে-খুঁজে চোর-ডাকাত ও লুণ্ঠনকারীদের পাকড়াও করে দরবারে হাজির করত। তাদের মধ্যে যারা অসামাজিক জীবনের ত্যাগ করে সৎ জীবন-যাপনের অঙ্গীকার করত তাদের কোন কাজে নিযুক্ত করা হতো, অথবা অন্য কোন কর্মসংস্থানের মাধ্যমে তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হত।
কিন্তু যারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসত না, অথবা পূর্বের ঘৃণ্য জীবনে ফিরে যেত তাদের কঠোর শাস্তি দেওয়া হত। কয়েকজনের এই রকম শাস্তি দেওয়ার পর চতুর্দিকে শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরে এল। এইসব ন্যায়-বিচার ও শাস্তি বিধানের সিদ্ধান্ত শিবাজীকে সামনে রেখে অথবা অনেক সময় প্রত্যক্ষ তাঁরই নির্দেশ অনুযায়ী করা হত, এর ফলে শিবাজীর প্রভাব-প্রতিপত্তি সর্বত্র ছড়িয়ে পরল আরো ব্যাপকভাবে।
এ সম্পর্কে একটি ঘটনা উল্লেখযোগ্য। এই সময়ে ক্ষমতাশালী ও অত্যন্ত ত্রূর প্রকৃতির লোকেরা যেখানে যা খুশি তাই করে বেড়াত। বাদশাহী শাসন-ব্যবস্থা সাধারণ মানুষের সুবিচার পাওয়ার উপায় ছিল না। এই রকম পরিস্থিতিতে গ্রামের জনৈক শান্তিপ্রিয় স্বচ্ছল গৃহস্থ দমাজী প্যাটেলের উপর তাঁরই এক দুরাচারী আত্মীয় দত্তাজী হঠাৎ আক্রমণ করে এবং তাঁর সম্পত্তি ছিনিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্যে তাঁকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। দমাজী প্যাটেলের বিধবা পত্নী প্রাণভয়ে তাঁর শিশু সন্তানদের নিয়ে বাস্ত-ভিটা ছেড়ে পালিয়ে গেলেন, কারন দত্তাজীর পক্ষে যেকোন রকম নিষ্ঠুর কর্ম করা সম্ভব ছিল । সকলেই তাকে ভয় করত। তার বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস কারো ছিল না।
দমাজীর ছেলেরা যখন একটু বড় হল, তখন তাঁর জ্যেষ্ঠপুত্র সূর্যাজী সোজা বাঙ্গালোরে গিয়ে শাহাজীর কাছে দত্তাজীর নৃশংসতা ও নিজেদের অসহায় অবস্থার কথা তাঁকে জানাল। শাহাজী একটি পত্র লিখে তাকে দাদাজী কোণ্ডদেবের কাছে পাঠালেন। দাদাজী তৎক্ষণাৎ দত্তাজীকে ও তার ততোধিক নিষ্ঠুর পুত্র সন্তাজীকে গ্রেপ্তার করে রাজা শিবাজীর সামনে হাজির করার নির্দেশ দিলেন। শিবাজী ওদের দুজনকেই কঠোর শাস্তি দিলেন এবং দামাজী প‍্যাটেলের বিধবা পত্নী ও তাঁর সন্তানদের ন্যায্য সম্পত্তি তাঁদের হাতে সঁপে দিলেন।

এই ঘটনার পর আর কোনো দুষ্কৃতীর সাহস হয়নি অনুরূপ অন্যায় অত্যাচার করার।

শিবাজী মহারাজের ঐক্যের আহ্বানঃ সহ‍্যাদ্রি পর্বতমালার অভ্যন্তরভাগের কোন কোন স্থানে ছোট ছোট নদী অববাহিকা অঞ্চলে খানিকটা করে সমতল ক্ষেত্রের সৃষ্টি হয়েছে। এই স্থানগুলোকে ‘মাবল‘ অঞ্চল বলা বলা হয়। সহ‍্যাদ্রি পূর্ব দিকে প্রায় পঞ্চাশ মাইল দীর্ঘ এই এলাকার চারটি মাবল আছে। প্রত্যেক মাবলের যিনি প্রধান প্রশাসক তাঁকে বলা হতো দেশমুখ। এই দেশমুখরা মুসলমান সুলতানদের উচ্চপদস্থ কর্মচারীদের পদলেহন করে প্রায় স্বাধীনভাবে জমিদারের মত থাকত, কিন্তু পরস্পরের মধ্যে সর্বদাই তাদের বিবাদ ও সংঘাত চলত।
শিবাজী এদের সকলকে দেশের কাজে সংঘবদ্ধ করার সংকল্প নিলেন এবং দাদাজী পন্ডকে সঙ্গে নিয়ে একে একে প্রত্যেক দেশমুখের কাছে গেলেন। এ ব্যাপারে শাহাজীর বিশ্বস্ত কর্মচারী কানহোজী জেধে এবং জনৈক বাজী পাসলকর নামক শক্তিশালী, সদাশয় ও ধার্মিক প্রকৃতির ব্যক্তি তাঁকে বিশেষ সাহায্য করেন।
শিবাজী ও দাদাজী প্রত্যন্ত অরণ্য প্রদেশে এক-এক করে প্রত্যেক দেশমুখকে বোঝাবার চেষ্টা করেন ― “আসুন আমরা সকলে একসাথে মিলে স্বাধীন স্বরাজ প্রতিষ্ঠা করি। কোন ব্যক্তির একার স্বার্থের জন্য নয়, দেশের মঙ্গলের জন্য, সকলের কল্যাণের জন্য, ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আপনারা সকলে এক হলে লুণ্ঠনকারী ও আক্রমণকারীদের এদিকে আসার সাহস হবে না । এত দিন আমাদের অসহায় দরিদ্র গ্রামবাসীরা ওদের অনেক অকথ্য অত্যাচার সহ্য করেছে, কিন্তু আর আমরা তা হতে দেব না। ধর্ম ও ঈশ্বরের নামে আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে, বিধর্মী আক্রমণকারীদের আমাদের পবিত্র ভূমি থেকে বিতাড়িত করি। ভয়ের কোন কারণ নেই । সংকটের সময়ে সবাই আমরা আপনাদের পাশে এসে দাঁড়াব আমাদের সমস্ত শক্তি নিয়ে। আসুন, আমরা এই পবিত্র কাজের সংকল্প গ্রহণ করি।”

এমন আবেগভরা আন্তরিক আহ্বানে সাড়া না দিয়ে উপায় ছিল না। বিশেষ করে প্রতিটি মাবলের তরুণ ও যুবকরা শিবাজী কে প্রচণ্ড ভালোবেসে ফেলেছিল। তাদের চাবুকের মতো শক্ত-সমর্থ কালো শরীরের মধ্যে শিবাজী যেন এক নূতন উৎসাহ-উদ্দীপনার বিদ্যুৎপ্রবাহ সঞ্চারিত করলেন। শিবাজী রাজার জন্য তারা প্রাণ দিতেও প্রস্তুত।
এইভাবে যেমন বিস্তীর্ণ মাবল প্রদেশ স্বরাজের কাজে সঙ্ঘবদ্ধ হল, তেমনি শিবাজী নতুন এক দুর্ধর্ষ এবং পরম বিশ্বস্ত সৈন্য-বাহিনী গড়ে তোলার উপযুক্ত নির্ভীক, চরম কষ্ট-সহিষ্ণু বিশাল সংখ্যক তরুণদের পেয়ে গেলেন। এই মাবলী তরুণ‍রাই পরবর্তীকালে শিবাজী যাবতীয় স্বরাজ প্রচেষ্টার প্রধান অবলম্বন হয়ে উঠেছিল।

অবশ্য সংগঠনের এই সময়-সাপেক্ষ কাজের জন্য যথেষ্ট পরিশ্রম ও দক্ষতার প্রয়োজন ছিল।
দাদাজীর শিক্ষায় শিবাজী ক্রমে সবদিক থেকে পরিণত হয়ে উঠেছিলেন। দাদাজি রাজ্য-শাসনের প্রত্যেকটি বিষয় শিবাজী কে প্রত্যক্ষ দৃষ্টান্তের সাহায্য ভালো করে বুঝিয়ে দিতেন আর তীক্ষ্ণ বুদ্ধিসম্পন্ন শিবাজী তৎক্ষনাৎ তাঁর সমস্ত শিক্ষা আয়ত্ত করে নিতেন। শিবাজীর কুশাগ্ৰ বুদ্ধি, প্রতিভা, মেধা, ব্যবহার-কৌশল― সব যেন খাঁটি সোনার মতো উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর হয়ে উঠতে লাগল। তাই দেখে বৃদ্ধ দাদাজী যেমন আনন্দিত, তেমন‌ই পরিতৃপ্ত হলেন।

একদিন দাদাজী শিবাজীকে নিয়ে জিজাবাঈয়ের সঙ্গে দেখা করলেন। বললেন― “রানী মা, আপনার ছেলে এখন সব দিক থেকে তৈরি হয়ে গেছে। এখন থেকে বাইরে, গ্রামাঞ্চলে এবং জাগীরের মধ্যে শিবাজী একাই যেতে পারবে এবং যা করণীয় ভালোভাবেই করতে পারবে। আমার এই বৃদ্ধ বয়সে যতটা সম্ভব পুনাতে থেকেই জাগিরের কাজকর্ম করতে চাই।”
শিবাজী সম্পর্কে দাদাজীর কথা শুনে জিজাবাঈ অত্যন্ত সন্তুষ্ট ও আনন্দিত হলেন। তিনি স্মিত মুখে শিবাজীর দিকে একবার দেখে নিয়ে দাদাজীকে বললেন― “পন্ত, শিবাজী আপনার হাতে তৈরি হয়েছে। ওর সম্বন্ধে আপনার মতামত ও সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত ।আপনি যা ভালো বুঝবেন তাই করবেন।”

এবার শিবাজী মাকে বললেন― “কিন্তু, দাদাজী যদি একবারেই কোথাও না যান তাহলে আমি খুবই বিপদে পড়ে যাব। কিছু লোককে বাগে আনা খুবই খুবই কঠিন। সেসব ক্ষেত্রে দাদাজীকে ছাড়া কাজ চলবে না।”
এর উত্তর দিলেন দাদাজী― তিনি সস্নেহে শিবাজীর মাথায় স্পর্শ করে বললেন― *”যতদিন এ দেহে প্রাণ আছে ততদিন শিবাজী মহারাজের আদেশ মতো সব কাজই করবো । তবে, ধীরে ধীরে তোমাকে নিজের হাতে সব কাজ করতে হবে। আমাকে সঙ্গে না নিয়েও সকল সমস্যার কথা শুনে সেগুলো সমাধানের উপায় খুঁজে বের করা, যথাসময় ঠিকমতো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে স্বাধীনভাবে শাসনকার্য চালাবার চেষ্টা শুরু করলে তোমার আত্মবিশ্বাস বাড়বে নিজের বুদ্ধি-বিবেচনা অনুসারে চললে তোমার কর্ম-ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। আমি তো সব সময়ে তোমার পাশেই আছি, তোমার সব প্রয়োজনে সর্বদা প্রস্তুত হয়ে থাকব।
এই কথার পর শিবাজী মাকে ও দাদাজীকে প্রণাম করে তাঁদের আশীর্বাদ গ্রহণ করে তাঁর সংকল্পিত পথে নতুন যাত্রা শুরু করলেন ।

শিবাজী মহারাজের যাত্রা হল শুরুঃ  শিবাজীর এখন থেকে এক নতুন পর্যায়ের জীবন আরম্ভ হল। তিনি এখন দাদাজী পন্তের সাহায্য ছাড়াই একজন বিশ্বস্ত রক্ষীকে সঙ্গে নিয়ে ঘোড়ায় চেপে গ্ৰাম-গ্রামাঞ্চলে পরিভ্রমণ শুরু করলেন। ক্রমে নিজের জাগীরের সীমা ছাড়িয়ে নিজ প্রভাব ক্ষেত্রকে বিস্তৃত করার কাজে মনোনিবেশ করলেন। মাবলের গ্রামগুলি থেকে শিবাজী কয়েকজন বীর ও কর্মঠ যুবককে সংগ্রহ করলেন। তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য― তানাজি মালুসরে ও তার ভাই সূর্যাজী, সূর্যাজী কাকড়ে, ত্র্যম্বক সোনদেব, দেশপাণ্ডে বংশের নারায়ণ, চিমনাজী ও বালাজী এবং নরসিংহ গুপ্তে প্রমুখ। শিবাজীর অনুগামীরূপে স্বরাজের জন্য প্রাণ দিতেও তৎপর এই যুবকেরা শিবাজীর ঘনিষ্ঠ বন্ধু হয়ে উঠলেন।

স্বরাজ প্রতিষ্ঠার যে পরিকল্পনা তাঁর মনের মধ্যে দানা বেঁধে উঠছিল, তার সফল রূপায়ণের জন্য অরণ্য-পর্বতের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলির সঙ্গে নিবিড় পরিচয়ের প্রয়োজন ছিল। শিবাজী জানতেন, তিনি যে কাজে সংকল্প গ্রহণ করেছেন তাকে কার্যকর করার পথ অতিশয় কণ্টকাকীর্ণ। একাধিক প্রবল প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে তাঁকে প্রত্যক্ষ যুদ্ধে অবতীর্ণ হতে হবে। সুতরাং এই ভয়ঙ্কর সহ্যাদ্রির পর্বতমালা, গুহা-কন্দর, নিবিড় অরণ্যের দুর্গম শ্বাপদ-সঙ্কুল পথ নদীনালা-নির্ঝারণী প্রভৃতি সম্বন্ধে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জেনে নিতে হবে এবং তাঁর বিশ্বস্ত দুঃসাহসী বীর বন্ধুদের‌ও তার সঙ্গে পরিচিত করতে হবে, অরণ্য-পর্বত ও গ্রামাঞ্চলের মানুষদের বন্ধুত্ব, আস্থা ও সহযোগিতা অর্জন করতে হবে, যাতে স্বরাজের সকল প্রয়োজনে, সব রকম বিপদে-আপদে আপামর জনসাধারণের অকুণ্ঠ সাহায্য লাভ করা যায়। শিবাজী অতি দরিদ্র, নিরক্ষর চাষী বনবাসী ও গিরিজনদের সঙ্গে একান্ত আপনজনের মত মিশতেন, তাদের কষ্ঠ লাঘব করার জন্য সবরকম ব্যবস্থা অকুস্থলেই গ্রহণ করতেন। এভাবে তিনি হাজার হাজার মানুষের হৃদয় জয় করে নিয়েছিলেন।

শিবাজী তাঁর নুতন বন্ধুদের যথাযথ প্রশিক্ষণ দেওয়ার‌ও ব্যবস্থা শুরু করে দিয়েছিলেন, যাতে তাঁরা সর্ব প্রকারে সফল যোদ্ধা ও নীতিনিষ্ঠ কুশল প্রশাসকের দায়িত্ব গ্রহণে সক্ষম হয়ে ওঠেন। গুরুর কাছে পাওয়া শারীরিক ও সামরিক শিক্ষা এবার তিনি দিতে শুরু করলেন তাঁর বীর বন্ধুদের। গ্রামের পথে যেতে-যেতে মুসলমানদের অসহিষ্ণুতার নিদর্শন-স্বরূপ ভগ্ন দেবালয়গুলি দেখে সকলেরই রক্ত গরম হয়ে উঠত। এসব ধ্বংসস্তূপের কাছে বসে শিবাজী তাঁদের মানসিক ও বৌদ্ধিক বিকাশের জন্য নানা প্রসঙ্গের অবতারণা করতেন ।

দু-একজন অতি উৎসাহী যুবক খাপ থেকে তলোয়ার বের করে বলে উঠত ― “রাজে ! আপনি আদেশ দিন, এখনই গিয়ে এই মন্দির ধ্বংসকারীদের মাথা কেটে এনে আপনার কাছে হাজির করি।” শিবাজী তখন সেই ছোটবেলার বিজাপুর দরবার থেকে ফিরে আসার সময় মায়ের শিক্ষার কথা মনে পড়ল। সেই কথাটিই তিনি তাঁর এই মাথাগরম সহকর্মীদের বুঝিয়ে সহকর্মীদের বুঝিয়ে বলতেন, ― “দেখ ভাই, রাগের মাথায় হঠাৎ কিছু করে ফেলার মধ্যে কোন বাহাদুরি নেই। একটা নয়, ওরা অসংখ্য মন্দির ধ্বংস করেছে, গ্রামকে গ্রাম উজাড় করে দিয়েছে, কত নারীকে স্বামীহারা ও সন্তানহারা করেছে। অসংখ্য মানুষকে গৃহহীন করেছে, কত সহস্র সংসারকে ধ্বংস করেছে। সুতরাং আমাদের এমন ভেবে-চিন্তে সুপরিকল্পিতভাবে কাজ করতে কাজ করতে হবে যাতে ভবিষ্যতে আর কখন‌ও কোথাও এরকম না ঘটে। সেই কারণেই এসব বিদেশী বিধর্মী শাসকদের শাসন থেকে আমাদের মুক্তি পেতে হবে, হিন্দু সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করতে হবে। তার জন্য গ্রামে-গ্রামে গিয়ে, বনাঞ্চলে― পর্বতঞ্চলে ছোট-বড় সকলকে সঙ্ঘবদ্ধ করতে হবে। তোমাদের এই রাগ মনের মধ্যে পুষে রাখ। যখন উপযুক্ত সময় আসবে, তখন ঐ রাগের সদ্ব্যবহার সকলে এক সঙ্গে মিলে করতে হবে― শত্রুদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের সময়ে।”
এইসব উৎসাহী বন্ধুদের নিয়ে শিবাজী পুনার দক্ষিণ দিকে প্রায় পঞ্চাশ মাইল দূরে রায়রায়েশ্বর মন্দিরে উপস্থিত হলেন, সেখানে সারারাত ধরে চলে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা ও সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয় এবং এক অভূতপূর্ব উৎসাহ-উদ্দীপনায় উজ্জ্বল হয়ে ওঠে এইসব বীর যুবকদের মুখ । ভোরের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে নিকটবর্তী নদীতে স্নান করে এসে রায়রায়েশ্বর মহাদেবের সম্মুখে উপস্থিত হয়ে সর্বাগ্রে শিবাজী শিবের পূজা করেন । এরপর প্রত্যেক যুবক বিল্বপত্র হাতে নিয়ে পরম ভক্তি সহকারে ভগবানের উদ্দেশ্যে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন, ব্যক্তিগত পূজা শেষ হলে শিবাজীর নেতৃত্বে সকলে, সমবেতভাবে স্বরাজ প্রতিষ্ঠা এবং দেশ ও ধর্ম রক্ষার কাজে নিজেদের জীবন উৎসর্গ করার প্রতিজ্ঞা গ্রহণ করেন ।
শিবাজী তাঁর যুবক বন্ধুদের নিয়ে সর্বত্র পরিভ্রমণের সময়ে কাছাকাছি দুর্গগুলিও পরিদর্শন করতেন, যেগুলি ঐ সময়ে আদিলশাহীর অধীনে ছিল। কোন দূর্গের সুবেদার তথা দুর্গরক্ষক কে, কোন্ দূর্গের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কী রকম, কোথায় কতজন প্রহরী বা রক্ষী নিযুক্ত আছে, দুর্গে প্রবেশের প্রধান দ্বার ও গুপ্ত পথ কোথায়, দুর্গের মধ্যে অস্ত্রশস্ত্র রসদের ভান্ডার কোথায়, দুর্গরক্ষকের মধ্যে কী কী দুর্বলতা আছে ― ইত্যাদির সব রকম তথ্য তিনি এই সমস্ত অভিযানের সময় খুব যত্ন সহকারে সংগ্রহ করতেন।

শিবাজী মহারাজের প্রথম দুর্গ তোরণা জয়ঃ এইভাবে পরিভ্রমণ করতে করতে এবং নানা প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ করার পর শিবাজী দেখলেন যে পুনার কাছেই মাত্র চল্লিশ মাইল দূরে ‘তোরণা’ দূর্গটিই প্রথম অভিযানের পক্ষে সবচেয়ে উপযুক্ত। দুর্গটির উপর বিজাপুর দরবারের বিশেষ একটা নজর ছিল না । কোথাও, কোনো দিক থেকে হঠাৎ আক্রমণের ভয় বা আশঙ্কা না থাকায় দুর্গটি এক রকম অরক্ষিত অবস্থাতেই ছিল। তবু প্রথম দুর্গ জয়কে একবারে সুনিশ্চিত করার জন্য যে স্বল্প সংখ্যক প্রহরীর দল ছিল তাদের সঙ্গে তাঁর মাবল সর্দারদের দেখা-সাক্ষাৎ করার পরামর্শ দিলেন। তাঁরা তাদের সঙ্গে দিব্যি বন্ধুত্ব পাতিয়ে ফেললেন এবং একে-একে বেশ কয়েকজন প্রহরী শিবাজীর অনুগত ও ভক্ত হয়ে উঠল। দুর্গ-রক্ষকও সাধারণ শ্রেণীর সর্দার ছিল যে, সর্বক্ষণ আরামে ও ভোগ বিলাসিতায় ডুবে থাকত।

শিবাজী একদিন দাদাজী কোণ্ডদেবের সঙ্গে দেখা করে, তাঁর পরিকল্পনার কথা তাঁকে বললেন। শিবাজীর সব কথা শুনে দাদাজী তাঁর এই ষোল বছর বয়স্ক তরুণ শিষ‍্যের বুদ্ধি, সাহস ও সংকল্প দেখে মুগ্ধ হলেন।

দাদাজী জিজ্ঞেস করলেন ― “কিন্তু সুবেদার কি সহজে দুর্গ ছেড়ে দেবে ?“
শিবাজী বললেন ― “আমি কয়েকজন বিশ্বস্ত সঙ্গীকে সুবেদারের সঙ্গে দেখা করতে পাঠাচ্ছি। ওরা সুবেদারকে বলবে যে, সুলতান তোরণা দুর্গ আমাদের হাতে সঁপে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন।”
দাদাজী শিবাজীর এই ছেলে-মানুষী প্রস্তাব শুনে হাঃ হাঃ করে হেসে উঠলেন। বললেন ― সুবেদার সেকথা শুনবে কেন ? সুলতানের মুদ্রাঙ্কিত সরকারী নির্দেশ ছাড়া সে তার এই আরামের জায়গা কিছুতেই ছেড়ে দেবে না।”

এবার শিবাজী চিন্তায় পড়ে গেলেন। “তাহলে কী করা যায় পন্তজী ?” তিনি জিজ্ঞেস করলেন।

“প্রথমে দুর্গের চারিদিকে তোমরা সৈনিকদের শক্ত পাহারা বসাও। যেমন করে পারো দুর্গের সৈনিকদের পূর্ণ বিশ্বাস অর্জন কর । রাজনীতিতে সাম-দাম-দণ্ড-ভেদ সবগুলি নীতিকেই যেখানে যেমন প্রয়োজন কাজে লাগাতে হবে । তারপর তোমার একান্ত বিশ্বস্ত বলবান্ ও সাহসী সঙ্গীদের সঙ্গে নিয়ে অকস্মাৎ সুবেদারকে হত-চকিত করে খোলা তলোয়ার হাতে নিয়ে একেবারে ওর সামনে গিয়ে উপস্থিত হও। ওর মুষ্টিমেয় দেহরক্ষীরা কিছু বোঝার আগেই সুবেদারকে বন্দী কর।”

শিবাজী বুঝলেন তিনি ব্যাপারটাকে যত সহজ ভেবেছিলেন, সেটা তত সহজ নয়। দাদাজীর আশীর্বাদ নিয়ে তিনি জননী জিজাবাঈয়ের কাছে গেলেন ― স্বরাজের প্রথম অভিযাত্রায় মার আশীর্বাদ নিতে। মাকে তাঁর সংকল্পের কথা বলার সঙ্গে-সঙ্গে জিজাবাঈ পুএকে পরম স্নেহে কাছে টেনে নিলেন― “ওরে আমার শিউবা রাজা, এতদিনে আমার স্বপ্ন সার্থক হতে চলেছে। মা ভবানী তোকে অবশ্যই যশস্বী করবেন। তুই জয়ী হবি এতে আমার কোনো সন্দেহ নেই―” বলতে বলতে জিজাবাঈয়ের কন্ঠে আবেগে রুদ্ধ হয়ে এল। শিবাজীকে সঙ্গে নিয়ে তিনি দেবালয়ে গিয়ে মা ভবানীর পূজা করলেন এবং শিবাজীর মাথায় দেবী চরনের পুষ্প দিয়ে তাঁকে আশীর্বাদ করলেন‌। শিবাজী পরম ভক্তিভরে দেবীকে ও মাকে প্রনাম করে জয়যাত্রায় বেরিয়ে পড়লেন।

দাদাজীর কথামতো দুর্গের বাইরে সর্বত্র তিনি নিজের দুর্ধর্ষ সৈনিকদের মোতায়েন করলেন এবং দুর্গের প্রহরীদের সঙ্গে নিজে গিয়ে দেখা করলেন।
দুর্গের মধ্যে প্রবেশের আগে সব ব্যবস্থা পাকা করার পর শিবাজী প্রথমে বাজীরাও পাসলকর, তানাজী মালুসরে ও য়েসাজী কঙ্ককে সুবেদারের সঙ্গে দেখা করতে পাঠালেন এবং তাদের ঠিক পেছনেই ছোট্ট একটি সশস্ত্র দল নিয়ে শিবাজী সেখানে হাজির হলেন। সেই সময় সুরার পাত্র হাতে নিয়ে সুবেদার আয়েশ করে বসে ছিল। হঠাৎ তিন জন শক্ত-সমর্থ সশস্ত্র অচেনা যুবককে একেবারে সামনেই দেখতে পেয়ে ভীষণ রেগে উঠল। “অ্যাই, কে এদের এদের ভেতরে ঢুকতে দিয়েছে ? অ্যাঁ ? এই কে আছিস ?”
“আরে এত চেঁচামেচি করছেন কেন সুবেদার সাহেব। আমাদের রাজা শিবাজী আসছেন। এই দুর্গের তিনি মালিক। আপনি তাঁকে দুর্গের অধিকার ছেড়ে দিন,” বাজিরাও বেশ কড়া সুরেই বললেন।

“কে শিবাজী ? কেন ছাড়বো ? অ্যাঁ,এ কী…” বলতে বলতে সুরার পাত্র হাত থেকে পড়ে গেল।

“এই যে আমি শিবাজী !” শিবাজী ঠিক তখনই প্রবেশ করে তলোয়ার বের করে বললেন― “আমরা স্বরাজ প্রতিষ্ঠার সংকল্প নিয়েছি। এই দুর্গ আমাদের।”

হৈ চৈ শুনে সুবেদারের দেহরক্ষীরা ছুটে এল।
তারা বুঝতে পারেনি কখন কোথা থেকে শিবাজী ও তাঁর সশস্ত্র সঙ্গীরা একেবারে সুবেদার সাহেবের খাস কামরায় ঢুকে পড়েছেন। কিন্তু ওদের তখন খুবই দেরী হয়ে গিয়েছিল। কিছুটা রক্তপাত ঘটলেও, প্রায় বিনা প্রতিরোধে তোরণা দুর্গ দখল করে নিলেন শিবাজী। তোরণা স্বাধীন হল। ঢাক-ঢোল শিঙা এবং “হর-হর মহাদেব” ও “শিবাজী মহারাজ কী জয়” ধ্বনিতে আকাশ-বাতাস মুখরিত হয়ে উঠল। সাড়ে তিনশো বছর পর সহ‍্যাদ্রির হৃদয় স্বাধীনতার স্পর্শে স্পন্দিত হয়ে উঠল। সদর দেউড়ির উপর শিবাজী গৈরিক পতাকা তুলে দিলেন।

জননী জিজাবাঈ ও গুরু দাদাজী পন্তও স্বরাজ‍্যের প্রথম স্বাধীন দুর্গে প্রবেশ করে তোরণাদেবীর মন্দিরে পুজো দিলেন। এই নবলব্ধ স্বাধীনতার ছোঁয়ায় দেবীও প্রাণ ফিরে পেলেন।

তোরণার মেরামতির কাজ আরম্ভ করার সঙ্গে সঙ্গে মা ভবানীর প্রসাদ লাভ হল প্রসাদ লাভ হল।দুর্গের ভিত পাকা করার জন্য খোঁড়াখুঁড়ি করার সময়ে কয়েকটি বহুমূল্য রত্ন-পরিপূর্ণ কলস উদ্ধার করা হল। চতুর্দিকে আনন্দবার্তা ছড়িয়ে পড়ল এবং সকলে মনে-প্রাণে একথা বিশ্বাস করতে আরম্ভ করল যে দেবী ভবানী স্বয়ং এই স্বাধীন হিন্দু সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার জন্য এই বিপুল অর্থ শিবাজীকে দান করেছেন।

শিবাজী মহারাজের তোরণা থেকে রাজগড়ঃ সহ‍্যাদ্রির দুর্গম পার্বত্য প্রদেশে তোরণা বাস্তববিক‌ই এক শক্তিশালী দুর্গ। যেমন উঁচু, তেমনিই মজবুত, দুর্গের দুই দিকে দুটি সুউচ্চ পর্বত-শিখর বুধ্লা মাচী ও ঝুঞ্ঝার মাচী। একটি থেকে অপরটির দূরত্ব প্রায় এক ক্রোশ । ঝুঞ্ঝার মাচী থেকে নীচে নামার একটিমাত্র পথ আছে অতীব দুর্গম। ঝুঞ্ঝার মাচীকে ঘিরে রয়েছে গভীর খাদ। খাদের চারিদিকে কয়েকটি বুরুজ যার উপর কামান রেখে বহুদূর পর্যন্ত শত্রুদের নিশ্চিহ্ন করা যায়। দুর্গের প্রবেশ পথ দুটি, একটা আছে পুনার দিকে, অপরটি কোকণের দিকে দিকে। দুর্গের উপর থেকে সহ‍্যাদ্রির অপরূপ মনোরম অথচ ভয়াল ভয়ঙ্কর রূপ প্রত্যক্ষ করা যায়।

শিবাজি দুর্গের মধ্যে আগেই ছদ্মবেশে প্রবেশ করে তার সমস্ত অবস্থান বর্ণনা ও প্রয়োজনীয় খবরাখবর জেনে নিয়েছিলেন। এই দুর্গটিকেই তার স্বরাজ্যের প্রথম দুর্গ হিসাবে নির্বাচিত করার আরও একটি কারণ ছিল, দুর্গটির প্রতি বিজাপুরের তেমন নজর ছিল না। পাহারা ছিল ঢিলে-ঢালা, কামান, গোলা-বারুদ, সিপাই-সান্ত্রীও আক্রমণের হাত থেকে দুর্গকে রক্ষা করার পক্ষে একান্তই অপর্যাপ্ত ছিল। এতএব, দাদাজী পন্তের মূল্যবান উপদেশ অনুযায়ী পরিকল্পনা অনুযায়ী তোরণা অধিকার করলেন।

দাদাজী ও শিবাজী আগে থেকেই এমন একটি দুর্গ চেয়েছিলেন, যেটা হবেন তোরণার চেয়ে বড় এবং খুব দুর্গম পাহাড় ও নিবিড় অরণ্যের মধ্যে প্রতিষ্ঠিত। তোরণা থেকে প্রায় আড়াই ক্রোস দূরে মুরুম্বদেব পর্বতের উপর এক অর্ধনির্মিত দুর্গ পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়েছিল। অথচ এককালে এখানে রসদ, গোলা-বারুদের একটি ভান্ডার গড়ে তোলার ব্যবস্থা বাদশাহ আদিলশাহ করেছিলেন। শিবাজী কালক্ষেপ না করে এই পরিত্যক্ত দুর্গটি অধিকার করে নিলেন এবং তোরণায় প্রাপ্ত অর্থ দিয়েন এই দুর্গের নির্মাণ কার্যে হাত দিলেন। নূতন দুর্গের নামকরণ করলেন “রাজগড়।”

এর পর শিবাজী দ্রুত পদক্ষেপে এগিয়ে চললেন । দেশমুখদের কাছ থেকে দাদাজী কুবারীগড়টি কিনে নিলেন। এই দুর্গ পুনা থেকে পশ্চিম দিকে প্রায় কুড়ি ক্রোশ দূরে অবস্থিত। শিবাজী কালবিলম্ব না করে কয়েকটি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দুর্গের অধিকার নিজের হাতে তুলে নিলেন। পরিত্যক্ত ও বেকার অবস্থায় পড়ে থাকায় এগুলি গ্রহণ করার জন্য করার জন্য কোন লড়াই করার প্রয়োজন হয়নি।

এই পুরো এলাকার বাদশাহের আমিন হিসাবে নিযুক্ত ছিল সুভানমঙ্গলের এক রাজকর্মচারী। সেই ওই অঞ্চলের রাজস্ব আদায় করত। হঠাৎ একদিন তার কাছে খবর পৌঁছুল যে শাহাজীর ছেলে, বাদশাহের কয়েকটি দুর্গ দখল করে নিয়েছে। সেই সঙ্গে “রাজগড়” বলে নতুন দুর্গ নির্মাণের‌ও সংবাদ তার কাছে পৌঁছাল। দেশমুখদের মধ্যে কয়েকজন এমন লোক ছিল, যারা শিবাজী ও দাদাজী পন্তের কাজকর্ম সহ্য করতে পারছিল না । এ যাবৎ স্থানীয় রাজত্ব রাজকোষে জমা দিয়ে যেত রাজভক্ত দেশমুখ ও দেশপান্ডেরা নিজেরা গিয়ে। এখন সব খাজানা শিবাজীর ‘স্বরাজ’-এর তহবিলে জমা পড়ছে জানতে পেরে আমিনের টনক নড়ল।

কিন্তু ইতিমধ্যে সর্বত্র স্বাধীনতার হাওয়া ছড়িয়ে পড়েছে। চারিদিকে উৎসাহ ও আনন্দের মধ্যে সকলেই শিবাজীকে তাদের রাজা বলে গ্রহণ করে নিয়েছে। শিবাজী ও তাঁর বিশ্বস্ত অনুগামীরা ও নিজেদের দায়িত্ব সম্বন্ধে পুরোপুরি সচেতন। যে
কোন সময়ে শত্রুর আক্রমণ হতে পারে নিশ্চিত জেনে তার প্রস্তুতিও চলছে পুরোদমে।

দৃঢ়-প্রতিষ্ঠ বলিষ্ঠ জোয়ান মাবল বীরেরা দলে -দলে এগিয়ে আসছে স্বরাজ‍্যের সৈন্যবাহিনীতে যোগ দিতে।
এই বিদ্রোহের খবর পেয়ে সুভানমঙ্গলের আমিন বিজাপুরে বাদশহের কাছে লিখে জানাল যে শাহাজী ভোঁসলের ছেলে তোরণা ও মুরুম্বদেব দুর্গ দখল করেছে এবং মুরুম্বদেবকে নূতন করে সংস্কার করে তার নাম দিয়েছে ‘রাজগড়’। এখনকার সব দেশমুখ ও দেশপান্ডেরা শিবাজীর সঙ্গে যোগ দিয়ে বাদশাহের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করছে । সব খাজনা শিবাজীর কাছে চলে যাচ্ছে, ইত্যাদি।
কিন্তু বাদশাহ এই খবরকে মোটে আমলই দিলেন না। তাঁর বিরাট ও শক্তিশালী সাম্রাজ্যের কেউ বিরোধিতা করে নিজের মৃত্যু ডেকে আনবে, একথা তিনি বিশ্বাস‌ই করলেন না। এসব নেহাৎ ছেলেখেলা, এর জন্য চিন্তা করার কিছু নেই।

অতএব রাজগড়ের পুনর্নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলল। বড়-বড় পাথর কেটে সুদৃঢ় প্রাচীর গাঁথার গাথার কাজ জোরকদমে চলতে থাকল।

স্বাধীন মহারাষ্ট্রের নূতন রাজধানী রাজগড় ক্রমেই তার বিশাল বাস্তব রূপ নিয়ে সহ‍্যাদি পর্বতের ওপর মাথা তুলে দাঁড়াল।

সেই সঙ্গে শুরু হল নবগঠিত সেন‍্যবাহিনীর কঠোর প্রশিক্ষণ । যুবশক্তির শিরায়-শিরায় নব উৎসাহ, নূতন উদ্যমের বিদ্যুৎ সঞ্চারিত ও দিকে-দিকে সংক্রামিত হতে লাগল ।

শিবাজী মহারাজের সহ্যাদ্রির বুকেঃ মহারাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূলের অদূরে অবস্থিত সহ্যাদ্রি পর্বতমালা। হিমালয়ের মতই সুদৃঢ় ও বলিষ্ঠ ― চিরজাগ্রত প্রহরীর মত রক্ষা করছে ভারতবর্ষকে । সহ্যাদ্রির বিশাল বক্ষ জুড়ে গভীর অরণ্যে, গিরি-অঞ্চলে, গুহা-কন্দরায়, পার্বত্য নদী-নালার আশে-পাশে বাস করে মাবল অধিবাসীরা। সহ্যাদ্রির মতই তারাও বলিষ্ঠ, সাহসী, বীর এবং হৃদয়বান ।

শিবাজী যখন প্রথম এই সব অঞ্চলের অধিবাসী দের সঙ্গে পরিচয় করার জন্য ঘুরে বেড়াতেন, তখন ভয়ে এখানকার মাবলরা কাছে আসত না, কারণ রাজারা বড় অত্যাচারী, দুরাচারী হতো ― তারা সব সময়ে দরিদ্র গ্রামবাসীদের আতঙ্কের কারণ। কিন্তু শিবাজী তাঁর মধুর হাসি, অন্তরঙ্গ ব্যবহার ও লোকসংগ্রহের যাবতীয় সৎ গুণের সদ্ব্যবহার করে তাদের একান্ত আপন করে নিয়েছিলেন । বাস্তবিকই এদের তিনি নিজের ভাইয়ের মতোই ভালোবাসতেন, আর তারাও শিবাজী রাজাকে প্রাণ দিয়ে ভালোবাসত, শ্রদ্ধা করত ।

সহ্যাদ্রির কোলেই তখন আরো দুজন মহাপুরুষের আবির্ভাব ঘটেছিল । তাঁরা হলেন সমর্থ শ্রী রামদাস এবং সন্ত তুকারাম। পাহাড়-পর্বত, গ্রামে, অরণ্যে তারা ঘুরে বেড়াতেন এবং তাদের গভীর ভক্তি-সিক্ত সুরেলা কণ্ঠের প্রাণমাতানো ভজন-কীর্তন গানের সুর শুনে মরে যাওয়া মানুষগুলো যেন নতুন জীবনে বেঁচে উঠতে লাগল ।

সন্ত তুকারাম শুদ্ধভক্তি, সরল অনাড়ম্বর জীবন, নিষ্পাপ ভালোবাসার কথা শোনালেন গানের মাধ্যমে অতি সহজ ভাষায় । সাধারণ গ্রামবাসী যারা ধর্মের নামে কতগুলি মিথ্যা আচার ও কুসংস্কার এবং সামাজিক অনাচারের পাঁকে ডুবে প্রকৃত ধর্মকে ভুলতে বসেছিল, তাদের কাছে গিয়েও তুকারাম বললেন― ওরে, নিজে যে শুদ্ধ নয়, সারা ত্রিভুবনই তার কাছে খারাপ। এই জন্য আগে তুই নিজেকে সবদিক থেকে শুদ্ধ করে তোল, দেখবি সব খারাপ আপনা থেকেই ভালো হয়ে যাবে ।

একই ভাবে সমর্থ শ্রীরামদাস মানুষের মনের সকল নিরাশা, হীনমন্যতা ও আত্মবিশ্বাসের অবক্ষয়কে যেন ফুঁ দিয়ে উড়িয়ে দিলেন। তাঁর সুমধুর অথচ তোজোদ্দীপ্ত গান অরণ্য-পর্বত অতিক্রম করে দিকে দিকে ভেসে যেত, আর ভাসিয়ে নিয়ে যেত সকল শ্রেণীর জনসাধারণকে এক অনাস্বাদিত আনন্দের স্রোতে ― তার ফলে সমস্ত অবসাদ বাষ্প হয়ে উড়ে যেত, মনের মধ্যে নতুন বল, নব বীর্য, নতুন ভক্তি ও দারুণ উৎসাহ- উদ্দীপনার সঞ্চার হত । ধর্মের পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য জন্য তিনি এমন সাড়া জাগিয়ে তুললেন যে হেরে যাওয়া, ভেঙে পড়া মনগুলো যেন তরতাজা হয়ে হয়ে উঠল ― পরাজয়ের সকল গ্লানি ঝেড়ে ফেলে যুবশক্তি নতুন উদ্যমে জেগে উঠল । মুসলমান শাসকদের অত্যাচারে যাদের ঘর-সংসার ভেঙে-গুঁড়িয়ে গিয়েছিল, আবার তাদের নিজ নিজ সংসার-ধর্মে উৎসাহ দিয়ে তাদের জীবনকে সহনীয়, বরণীয় করে তোলার জন্য তিনি সকলকে অনুপ্রাণিত করে তুললেন । নিজে সংসার-ত্যাগী সন্ন্যাসী হয়েও সকলকে শুধু পরলোকের কথা না বলে ইহলোক সংসারী মানুষের কর্তব্যের কথা বললেন।

সামর্থ্য শ্রীরামদাস সাধারণ মানুষের কাছে তাদের সহজে বোধগম্য হয় এমন ভাষায় ছন্দোবদ্ধ সুললিত সুরে গান করে বললেন―
―তোমার জীবনকে সবদিক থেকে থেকে শতগুন সমৃদ্ধ করে তোলো ।
―মূর্খতা ও আলস্য ত্যাগ কর ।
―নিজের ভাগ্য ও দৈবকে দোষ দিয়ে কাঁদতে বস না ।
―কাজ কর, চেষ্টা কর, পরিশ্রম কর।
―প্রচেষ্টাই তোমার পরমেশ্বর ।
―যে যেমন তার সঙ্গে সেই রকম ব্যবহার কর । দুষ্টকে দমন করতে হলে নির্ভয়ে এ দুষ্টতার আশ্রয় গ্রহণ করায় কোন পাপ নেই ।
―বুদ্ধির সঙ্গে, হিসেব করে নিজের কর্তব্য-কর্ম সম্পাদন করে যাও ।
―যাঁরা ভক্তির পাত্র, হৃদয় দিয়ে তাঁদের ভক্তি কর ।
―কখন‌ও ধৈর্য হারিও না ।
―যা কিছু ভাল, তা-ই গ্রহণ কর, যা খারাপ তা তা ত্যাগ কর ।
―ঐক্যের সঙ্গে, মিলে-মিশে কাজ কর । ―বিবেককে ত্যাগ করোনা, শিক্ষাকে ত্যাগ করোনা ।
― শরীর সুস্থ ও সবল রাখ ।
―বৃথা আলস্যে ও নিদ্রায় আয়ু ক্ষয় করো না ।
―ভালোদের সঙ্গ লাভ কর ।
―ভালোভাবে সংসার ধর্ম পালন কর ।
―সতত উদ্যম কর ।
―সর্বদা সাবধানে থেকো ।
―প্রত্যেক মানুষের মধ্যেই ভগবান বাস করছেন, তাঁকে উপলব্ধি কর ।
―কঠিন অবস্থাকে ভয় করো না ।
―পরের উপর নির্ভর না করে নিজেই কষ্ট কর, পরিশ্রম কর ।
―নিজের মধ্যে ঝগড়া-বিবাদ পরিহার কর । ―শত্রু কে আর বন্ধু কে, তার সঠিক নির্ণয় কর । ―সংযমের সঙ্গে চল ।
―কোন মহৎ কাজে জীবনকে সার্থক কর ।

এই ধরনের শত শত সহজ সুন্দর বাণী তিনি তাঁর সরল ভাষায় আর গানের মধ্যে গ্রামে, বনে-পর্বতে, প্রত্যন্ত প্রান্তরের মানুষদের মধ্যে ছড়িয়ে দিলেন । তিনি আরো গাইলেন― “ওরে আগুন জ্বালা, আগুন জ্বালা। জ্বলবে জ্বলবে। কাজ করলে পরে তবেই কাজ হয় রে। আগে কাজ করে দেখা তারপর সেই কাজ করতে বল। রামের প্রতি অক্ষয় ভক্তি মনের মধ্যে রেখে শুধু কাজ করে যা, ওরে তোরা সবাই কাজ করে যা।”

সহ্যাদ্রির অসংখ্য ঝর্ণাধারার মত শ্রী সমর্থ রমদাস ও সন্ত তুকারামের অমূল্য বাণী মহারাষ্ট্রে ঘরে-ঘরে ছড়িয়ে পড়ল।

এসব বাণী শিবাজীকে যেমন তাঁর মহৎ ব্রতে আরো বেশী উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করে তুলল তেমনি অলক্ষ্যে থেকে এই দুই দুই মহাপুরুষ শিবাজীকে বিপুল ভাবে সাহায্য করলেন, তাঁর ভবিষ্যৎ ফসলের জমিকে তৈরি করে দিলেন, উর্বর করে তুললেন। শিবাজীকে প্রত্যক্ষভাবে সাহায্য করতে দলে দলে যে হাজার হাজার মাবল বীর তরুণ, যুবক, প্রৌঢ়-বৃদ্ধ ছুটে এল, ঐ মহাপুরুষদের বাণীই তাদের এই মহৎ কাজে অনুপ্রাণিত করেছিল। সমর্থ শ্রীরামদাসকে শিবাজী তাঁর স্বরাজ্য-প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নিজের গুরু বলে গ্রহণ করেছিলেন।

শিবাজী মহারাজের বাদশাহের আদেশঃ শিবাজীর নেতৃত্বে সহ্যাদ্রির এই প্রান্তে, যে বিদ্রোহ শুরু হল সুভানমঙ্গল দুর্গের আমিন রহিম মহম্মদ তাতে অত্যন্ত বিচলিত হয়ে পড়েছিল । তার আশা ছিল বিদ্রোহের সংবাদ পেয়েই বিজাপুর থেকে বাদশাহ বিরাট সৈন্য বাহিনী পাঠাবেন, রাজদ্রোহীদের উপযুক্ত সাজা দেবেন এবং সেই ফাঁকে তার ভাগ্যেও মোটা পুরস্কার জুটবে। কিন্তু কিছুই হলো না, কারণ বাদশাহ মনে করেছিলেন একটা চৌদ্দ-পনের বছরের বালকের কতটুকুই বা শক্তি থাকতে পারে এবং তাকে শায়েস্তা করতে কিছুই সময় লাগবে না । এ ছাড়া আরো একটা কারণ ছিল, বাদশাহের সমস্ত লক্ষ্য ও শক্তি তখন কর্নাটকে নিয়োজিত ছিল, কারণ দাক্ষিণাত্যের অবশিষ্ট কাফের রাজ্যগুলিকে ধ্বংস করে তাদের সম্পূর্ণ রূপে নিশ্চিহ্ন করার কাজে স্বয়ং বাদশাহ আদিলশাহ ও তাঁর সর্দাররা ব্যস্ত ছিলেন। রামেশ্বরের শিব মন্দির ধ্বংস করে সেখানে মসজিদ তৈরি করে সেখানকার সব ব্রাহ্মণ পুরোহিতদের পৈতে ছিঁড়ে তাদের সকলকে মুসলমান করার ‘পবিত্র’ উচ্চাকাঙ্ক্ষা ছিল মহম্মদ আদিলশাহের ।
একমাত্র শাহাজী রাজা কর্ণাটকের এই সব স্বাধীন রাজ্যগুলিকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য তাদের যথাসাধ্য সাহায্য করার চেষ্টা গোপনে চালিয়ে যাচ্ছিলেন।
এই সময় হঠাৎ বাদশাহ খুব অসুস্থ হয়ে পড়েন, সুতরাং শিবাজীর ‘ছেলেমানুষী‘ কাণ্ড-কারখানার প্রতি উপেক্ষা আরো স্বাভাবিক হয়ে দাঁড়াল। কিন্তু সুভানমঙ্গলের আমিন বার বার বিজাপুরের দূত পাঠাচ্ছিল ।
অবশেষে বাদশাহ সাড়া দিলেন । বিজাপুর থেকে এক বিরাট ফরমান এল শিরবলের দেশমুখ দেশপান্ডেদের নামে। ফৌজের বদলে ফরমান আসায় আমিন বড় হতাশ হল। কিন্তু কী আর করা যায়। এই ফরমান দেশমুখ দেশপাণ্ডেদের মধ্যে জারি করার জন্য পাঠিয়ে দিল। একটি ফরমান ছিল শিবাজীর অন্যতম বিশ্বস্ত সহকর্মী দাদাজী প্রভু গুপ্তে দেশপাণ্ডের পিতা নরসপ্রভু দেশপান্ডের নামে । তাতে লেখা হয়েছিল :
“আমি খবর পেয়েছি যে শাহাজীর ছেলে শিবাজী তার পিতার সঙ্গে বেইমানি করে রোহিরেশ্বর পার্বত্য এলাকার ছোট জাতের মাবল দের সঙ্গে জোট বেঁধে দল গড়েছে এবং আমার দুর্গে প্রবেশ করেছে । সম্প্রতি আমার এক দুর্গের নাম দিয়েছে ‘রাজগড়‘। ওই দলে নাকি তোমরাও যোগ দিয়েছ । তোমরা এই এলাকার রাজস্ব আদায় করা বন্ধ করেছ, শিরবলের আমিনের আদেশ পালন করছ না । এই সব কার্যকলাপ তোমরা যদি অবিলম্বে বন্ধ না কর তাহলে বাদশাহ তোমাদের গর্দান নেবেন এবং জমিদারী কেড়ে নেবেন ।”
ফরমান পাঠ করে নরসপ্রভু স্বভাবতঃই অত্যন্ত স্বন্ত্রস্ত ও বিচলিত হলেন এবং ভাবলেন, যদি আমিন ধরে নিয়ে যায়, তাহলে কে বাঁচাবে ? সংসার ও ভিটেমাটির কি অবস্থা হবে ? বাদশাহের কোপে পড়লে কী পরিণাম হয় তার বহু ভয়ঙ্কর দৃষ্টান্ত তিনি এই বৃদ্ধ বয়স পর্যন্ত স্বচক্ষে দেখছেন । শ্রী-পুত্র পরিবারের চরম লাঞ্চনা, কুমারী কন্যা ও কুলবধূদের প্রকাশ্য বাজারের মধ্যে অমানুষিক নিগ্রহ করে বিক্রি করা, নির্বিচারে হত্যাকাণ্ড, ঘরে-ক্ষেতে-খামারে আগুন লাগানো, তোপের মুখে উড়িয়ে দেওয়া, জোয়ান মেয়েদের ধরে জাহাজে করে তুর্কিস্তান, আরব প্রভৃতি দূর দেশে জোর করে চালান করে দেওয়া― এই সবই তিনি প্রত্যক্ষ করেছেন। ভীষণ ভীত ও স্বন্ত্রস্ত হয়ে নরসপ্রভু বাড়ি থেকে পালিয়ে গা-ঢাকা দিলেন । কিন্তু তাঁর ছেলে দাদাজী প্রভু গুপ্তের অত ভয়-ডর ছিল না । তিনি সোজা শিবাজী রাজার কাছে তাড়াতাড়ি সব কথা লিখে জানালেন ।
শিবাজী আগে সব খবর পেয়েছিলেন। তিনি দাদাজী নরসপ্রভু গুপ্তে ও অন্যান্য দেশমুখ দেশপান্ডেদের কাছে চিঠি পাঠিয়ে তাদের আশ্বস্ত করলেন ও তাদের তাদের সাহস দিলেন। তিনি লিখলেন―
“শ্রীরোহিরেশ্বর হলেন আমাদের কুলদেবতা। তিনি আমাদের সকলকে স্বাধীনতার এই মহান ব্রতে এগিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন, তাঁরই কৃপায় আমরা এই কাজে এত সাফল্য অর্জন করেছি । দেশকে আমরা স্বাধীন করবো― এটাই ভগবানের ইচ্ছা । আপনার পিতাকে উদ্বিগ্ন হতে নিষেধ করুন এবং আপনি এই ফরমানের কাগজ নিয়ে এখানে চলে আসুন । চিন্তার কোন কারণ নেই, আমরা ঈশ্বরের কাজে নেমেছি । তিনি নিশ্চয়ই আমাদের রক্ষা করবেন ।”
শিবাজী রাজার চিঠি পড়ে নরসপ্রভু আশ্বস্ত হলেন । নির্ভীক যুবক দাদাজী প্রভু গুপ্তের শিবাজী রাজার প্রতি নিষ্ঠা ও শ্রদ্ধা আরও বেড়ে গেল । শিরবলের আমিনের কাছে শাহী ফরমানের জবাব একজনও পাঠালনা। হুমকির কোন ফল হল না দেখে সে আরো চটে উঠেছিল ।

শিবাজী মহারাজের দাদাজী কোন্ডদেবের বিদায়ঃ এদিকে দাদাজী কোণ্ডদেব, এই নতুন ছোট্ট স্বাধীন রাজ্যটিকে সবদিক থেকে সুশৃংখল ও সুসংহত করে তুলতে শিবাজীকে প্রয়োজনীয় সাহায্য ও পরামর্শ দিয়ে তার মহৎ লক্ষ্য পূরণের পথে দৃঢ় পদক্ষেপে এগিয়ে নিয়ে চলেছিলেন। কোথায় কী ব্যবস্থা করতে হবে, জায়গা-জমির সঠিক বন্টন ও তার সমুচিত সদ্ব্যবহার, রাজস্ব আদায়ের ব্যবস্থা ইত্যাদি সমস্ত কাজ সুপরিকল্পিতভাবে চলছিল । পদাতিক ও অশ্বারোহী বাহিনী গড়ে তোলা হল এবং তাদের যথাযথ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হল । শত্রুবেষ্টিত ক্ষুদ্র রাজ্যের নিরাপত্তার জন্য সুচতুর ব্যক্তিদের নিয়ে গুপ্তচর বাহিনী তৈরি হল । তারা চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ল এবং গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ বিদ্যুৎবেগে কাছে পৌঁছে দিতে লাগল ।
দুর্গগুলি এবং অস্ত্রাগার ও কোষাগার রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা করা হল । ন্যায়-বিচারের কাজ শুরু হল । দেবস্থান ও ধর্মস্থান তথা মন্দিরগুলি সংস্কার ও নির্ভয়ে সকলের পূজা করার ব্যবস্থা হল । দাদাজী পন্ত শিবাজীকে যেভাবে গড়ে তুলতে চেষ্টা করেছিলেন, নিজস্ব প্রতিভা, উৎসাহ, দৃঢ় সংকল্প ও দেশাত্মবোধে পরিপূর্ণ শিবাজী যেন তার থেকেও শতগুন শ্রেষ্ঠ হয়ে উঠতে লাগলেন ।
দাদাজীর শিক্ষা ও জননী জিজাবাঈয়ের সাধনায় সার্থকতা ও সাফল্যের প্রতীক শিবাজীর মধ্যে বাস্তবিক ও বিপুল সম্ভাবনা উদ্ভাসিত হয়ে উঠতে লাগল।
স্বরাজ‍্যের সমস্ত কাজকর্ম ক্রমে শিবাজী নিজেই নিজেই করতে আরম্ভ করলেন । বৃদ্ধ দাদাজী পন্ত অত্যন্ত ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন। তিনি অসুস্থ হয়ে শয্যা নিলেন। তাঁর জীবন-সন্ধ্যা ঘনিয়ে এল । তিনি তাঁর নিজের স্ত্রী-পুত্র পরিবারের জন্য চিন্তিত ছিলেন না, কারণ জিজাবাঈ ও শিবাজী, আপনজনের মতই তাদের দেখবেন তা তিনি জানতেন । তাঁর চিন্তা শুধু শিবাজীর জন্য, আর স্বরাজ‍্যের এই নূতন চারাগাছটির জন্য । পরম করুণাময় পরমেশ্বরের কাছে তাঁর শুধু এই একটি প্রার্থনা― “স্বাধীনতার এই ক্ষুদ্র দীপশিখাটিকে ঈশ্বর যেন রক্ষা করেন।”
শিবাজীকে ডেকে তিনি বললেন― ‘দেখ রাজা! আমার ক্ষুদ্র বুদ্ধি-বিবেচনায় যেটুকু পেরেছি তোমাকে শেখাবার চেষ্টা করেছি। তুমি যে সেই শিক্ষার চমৎকার আয়ত্ত করেছ তা দেখে আমি খুবই সন্তুষ্ট ও আনন্দিত হয়েছি । আমার বিশ্বাস, তোমার তীক্ষ্ণ বুদ্ধি, দেশের জন্য ও সর্বসাধারন মানুষের জন্য আন্তরিক ভালবাসা এবং নিঃস্বার্থ পরিশ্রম অবশ্যই তোমাকে জয়ী করবে, সর্বতোভাবে সফল করবে । তোমার হাত দিয়ে স্বরাজ ও ধর্ম পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হবে― এটা ঈশ্বরেরই অভিপ্রেত বলে আমি সুনিশ্চিত ।”

শিবাজীর কাছে দাদাজী পন্ত কোণ্ডদেব একধারে গুরু ,শিক্ষক, অভিভাবক ও মন্ত্রী তথা উপদেষ্টা ছিলেন । সেই কারণে শিবাজীর হৃদয়ে দাদাজী স্থান ছিল অতি উচ্চে । তাঁর প্রত্যেকটি শব্দ শিবাজীর কাছে ছিল মন্ত্রের মত । জীবনের শেষ দিনে দাদাজী শিবাজীকে ডাকলেন, ক্ষীণ স্বরে ধীরে ধীরে বললেন, “শিবাজী রাজা, আমি এত দিন তোমার রাজ্যের সেবক হিসাবে আমার যথাসাধ্য করার চেষ্টা করেছি । তোমার পিতার জমি, জায়গা, প্রজা ও সম্পদের যত্ন করেছি, উন্নত ও সমৃদ্ধ করার চেষ্টা করেছি । এখন থেকে তুমি এই সমস্ত দায়িত্ব গ্রহণ কর। স্বাধীনতার যে দীপ তুমি জ্বেলেছ, তার আলো চারিদিকে ছড়িয়ে দিও। আমি বিদায় নিচ্ছি। তোমার জয় হোক।”

একথা বলে দাদাজী কোণ্ডদেব চিরকালের মতো চোখ বুজলেন ।

শিবাজী মহারাজের কোণ্ডানা দুর্গ জয়ঃ দাদাজীর মৃত্যুর পর শিবাজীর উপর সমস্ত কাজের একক দায়িত্ব এসে পড়ল। তখন তাঁর বয়স ষোল বছর পূর্ণ হয়ে সতেরোয় পড়েছে। এই সময়ে শিবাজীর অন্যান্য সহকর্মীদের মধ্যে রাজকার্যে নিযুক্ত ছিলেন শ‍্যামরাজ পন্ত পেশোয়া, সোনোপন্ত, রঘুনাথ পন্ত, পন্তাজী গোপীনাথ, মনকোজী দহাতোণ্ডে ইত্যাদি প্রবীণ ও বিচক্ষণ ব্যক্তিরা। তাছাড়া ছিলেন তুকোজী সরনৌবৎ ও তাঁর অধীনে তানাজি,এসাজী প্রমূখ বীর যুবকবৃন্দ।
দাদাজী কোণ্ডদেবের মৃত্যু-সংবাদ বিজাপুরে পৌছানোর সঙ্গে সঙ্গে বাদশাহ শিরবলের মিয়া রহিম মোহম্মদকে কোণ্ডানা দুর্গে গিয়ে থাকার হুকুম পাঠালেন। শিবাজী আগেই বুঝেছিলেন যে মিয়া রহিম আমাদের খুবই কষ্ট দিতে পরে, তাই কেমন করে তাড়াতাড়ি কোণ্ডানা দখল করা যায়, তিনি গভীরভাবে এই চিন্তায় নিমগ্ন হলেন। এই সময় সিদ্দি অম্বর নামে এক পুরাতন ও অভিজ্ঞ ব্যক্তি কোণ্ডানার দুর্গ রক্ষকের পদে বহাল ছিল। সেই কারণে এই দুর্গ জয় করা অত্যন্ত কঠিন সে কথা শিবাজী উপলব্ধি করেছিলেন। রাজগড় থেকে ঈশান কোণে প্রায় ছয় ক্রোশ দূরে কোণ্ডানা দুর্গ অবস্থিত। কোণ্ডানাকে স্বরাজের অন্তর্ভুক্ত করতেই হবে― এই ছিল শিবাজীর দৃঢ়সঙ্কল্প।

রাজা তার মনোবাসনা বাপুজী মুদ্গল দেশপান্ডেকে জানালেন এবং বললেন, যেমন করেই হোক কোণ্ডানা দখল করতেই হবে। বাপুজী ছিলেন কোণ্ডানার দক্ষিণে অবস্থিত খেড়েবারার দেশপান্ডে এবং ঐ দুর্গের সমস্ত আট-ঘাট ছিল তার নখ-দর্পণে। তিনি জানতেন, ছয় মাস ধরে যুদ্ধ করলেও কোণ্ডানা দখল করা প্রায় অসম্ভব। কিন্তু শিবাজী যখন আমার উপর এতখানি আস্থা রাখেন তখন কর্তব্য-নিষ্ঠা ও কর্মক্ষমতাও আমি প্রমাণ করব । এই দৃঢ় সংকল্প নিয়ে বাপুজী একাই যাত্রা করলেন কোণ্ডানার উদ্দেশ্যে।

আর সত্যিই তারিফ করতে হয় বাপুজীর সূক্ষ্ম বুদ্ধির। না জানি কোন কৌশলে তিনি কোণ্ডানার প্রহরীদের ভুলিয়ে হাত করলেন এবং তাঁর নিজের বিশ্বস্ত অনুগামীদের নিয়ে নিঃশব্দে দুর্গে প্রবেশ করেন একবারে বিনা রক্তপাতে কোণ্ডানা দখল করে নিলেন। কোণ্ডানা দুর্গের উপর স্বাধীনতার গৈরিক পতাকা উড্ডীন হল। এত দ্রুত ও বিনা যুদ্ধে কোণ্ডানা অধিকার হওয়ায় শিবাজী ও জননী জিজাবাঈ বাস্তবিকই অত্যন্ত আনন্দিত হলেন। রাজা শিবাজী বাপুজী মুদগল দেশপান্ডেকে যথোচিত সম্মানে ও পুরস্কারে ভূষিত করলেন।

ওদিকে মিয়া রহিম মোহম্মদ মনের আনন্দে যখন কোণ্ডানাতে ঘাঁটি স্থাপন করার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছে তখন মাঝ পথেই খবর পেল যে ‘ভোঁসলের ছোকরা’ কোণ্ডানা দখল করে নিয়েছে। শিরবল ফিরে গিয়ে সে তাড়াতাড়ি বিজাপুরে খবর পাঠাল, কারণ এর চেয়ে বেশি কিছু করার ক্ষমতা তাঁর ছিল না ।
বিজাপুর দরবারে শিবাজী সম্বন্ধে এত দিন যেসব সংবাদ পাঠানো হয়েছিল, সেগুলি বাদশাহ মোটেই আমল দেননি, কিন্তু কোণ্ডানা দখলের সংবাদ শুনে বাদশাহ খুব রেগে উঠলেন। শাহাজীর ছেলে এত বড় দুঃসাহস। আশ্চর্যের ব্যাপার, পলকের মধ্যে চুপচাপ দুর্গ দখল করে নিল ! তাহলে তো শিবাজীকে আর বাড়তে দেওয়া ঠিক হবে না।
কোণ্ডানা অধিকার করে তৎপরতার সঙ্গে তার যাবতীয় সুবন্দোবস্ত করার পর শিবাজীও চুপ করে বসে রইলেন না। একটুও সময় নষ্ট না করে তিনি অকস্মাৎ একেবারে খাস শিরবলের থানাই আক্রমণ করে দিলেন এবং মিয়া রহিম মোহম্মদকে চিন্তা করার একটুও সময় না দিয়ে শিবাজীর মাবল বীর সৈনিকরা সুভানমঙ্গল দুর্গ অধিকার করে নিয়েছিল ।

শিবাজী মহারাজের গভীর ষড়যন্ত্র ও শাহাজী গ্রেপ্তারঃ শিবাজীর সুভানমঙ্গল দুর্গ অধিকারের খবর যথাসময়ে বাদশাহের কাছে পৌঁছুল। এতটুকু একটা ছেলের এই সব কাণ্ড-কারখানা এবার বাদশাহকে বড়ই বিচলিত করল। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে ছেলেটি খুব সাধারণ বালক নয় এবং তাকে দমন করা হয়তো খুব সহজ হবে না। তবে একজন সর্দারের সঙ্গে কিছু সৈন্য ও কয়েকখানা কামান পাঠিয়ে তাকে ঠান্ডা করা যেতে পারে। কিন্তু শাহাজী যখন জানতে পারবেন যে তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে বাদশাহ সৈন্য-সামন্ত পাঠিয়েছেন তখন তিনি নিশ্চয়ই ক্রুদ্ধ হবেন। কর্ণাটকে তাঁর হাতে পনের হাজার সৈন্য আছে এবং তাঁর বিদ্রোহ করার অভ্যাস‌ও বাদশাহের সুবিদিত। তাছাড়া, দক্ষিণের হিন্দু রাজারা শাহাজীকে খুব ভালোবাসে। অতএব তারাও যে তাঁর সঙ্গে যোগ দেবে না, সে কথা বলা যায় না। শাহাজী বীর ও অত্যন্ত বিচক্ষণ ব্যক্তি। তিন বছর ধরে নিজামশাহীকে নিজের কোলের মধ্যে আগলে রেখে ক্রমান্বয়ে দিল্লীর সঙ্গে লড়াই করেছেন। অতএব, শিবাজীর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণের আগে শাহাজীর সঙ্গে পরামর্শ করা উচিত।

ইতিমধ্যে দিল্লি থেকে বাদশাহ আদিলশাহের অত্যন্ত প্রিয় সর্দার আফজাল খাঁ বাদশাহের কাছে একটি পত্র পাঠালেন। তিনি লিখলেন― শাহাজীরাজে ভোঁসলে, বাদশাহের সঙ্গে বেইমানি আরম্ভ করেছে । ভিতরে ভিতরে সে বাদশাহের শত্রুদের মদত জোগাচ্ছে। বাদশাহ যেন এই বিশ্বাসঘাতকের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করেন।
আফজাল খাঁয়ের চিঠি পড়ে বাদশাহ আরো উদ্বিগ্ন হলেন। শিবাজীকে ধরতে গেলে শাহাজী নিশ্চয়ই বিদ্রোহ করবে, এবং শাহাজীকে ধরতে গেলে সে আমার বিরুদ্ধেই বিদ্রোহের আগুন জ্বালিয়ে দেবে। তাছাড়া কুতুবশাহ ও মোগলরা তো বিজাপুরের বিরুদ্ধে ওৎ পেতেই আছে । এই সুযোগকে ওরা কাজে লাগাতে ছাড়বে না নিশ্চয়ই। বাদশাহ চিন্তায় পড়লেন ― কী করা যায় ?
বাদশাহ তাঁর মন্ত্রী মোস্তফাখানের সঙ্গে পরামর্শ করলেন। মোস্তফাখান বাদশাহকে পরামর্শ দিলেন যে, অত্যন্ত গোপনে শাহাজীকে গ্রেফতার করা হোক এবং শিবাজীর বিরুদ্ধেও সৈন্যবাহিনী পাঠানো হোক । এই ষড়যন্ত্রের কথা খুব গোপন রাখা হলো এবং বাদশাহের অত্যন্ত বিশ্বস্ত কয়েকজন লোক ছাড়া কেউ জানতে পারল না।
ওদিকে যখন গোপন ষড়যন্ত্র অনুযায়ী মুস্তাফাখানের ফৌজ এগিয়ে চলেছে, তখন এদিকে শিবাজী ও চতুর্দিকে সতর্ক দৃষ্টি রেখে তার সংকল্প-সিদ্ধির পথে অগ্রসর হচ্ছিলেন। কিন্তু সেই মুহূর্ত শাহাজী বা শিবাজী কেউই জানতেন না তাঁদের বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর এক সংকট ঘনিয়ে আসতে চলেছে ।
এদিকে শাহাজীরাজার শিবির ছিল জিঞ্জীর কাছেই । মুস্তাফাখানের আগমন বার্তা পেয়ে বাদশাহী রীতি অনুযায়ী শাহাজী তাকে অভ্যর্থনা জানাতে এগিয়ে গেলেন। মুস্তাফাখান শাহাজীর শিবিরের কাছেই তার সৈন‍্যবাহিনীর শিবির স্থাপন করার আদেশ দিল এবং শাহাজীর সঙ্গে অত্যন্ত ভালবাসা ও বন্ধুত্বের অভিনয় শুরু করে দিল। মুস্তাফাখান বুঝতে পেরেছিল যে শাহাজীর সৈনিক ও সর্দাররা তাঁকে খুবই শ্রদ্ধা করে, সুতরাং সহজে শাহাজীকে বন্দী করা যাবে না । অতএব, শাহাজীর আস্থা অর্জনের জন্য প্রতিদিন নতুন-নতুন উপহার নিয়ে তাঁর সঙ্গে একেবারে পরম আত্মীয়ের মত ব্যবহার শুরু করে দিল। কথায় কথায় একদিন শাহাজীকে একথাও বলল, “আমি কোরান এবং আমার পুত্র অতিশ খানের নামে কসম খেয়ে বলছি যে আমার হাত দিয়ে রাজা শাহাজীর কখনো, কোনো ক্ষতি হবে না।।” ক্রমে শাহাজীরাজারও মনে হতে লাগল যে মুস্তফাখানের মতো ভালো মানুষ আর হয় না । এমন সময় একদিন গভীর রাত্রে মুস্তাফাখান অতি গোপনে সব সর্দারদের নিজের তাঁবুতে সমবেত করল। সর্দারদের মধ্যে ছিল আফজল খাঁ, বাজী ঘোরপড়ে, ইয়াকুৎ খান, আজম খান, রাঘো মম্বাজী, বেদাজী ভাস্কর, বালাজী হৈবৎরাও, সিধোজী পাওয়ার, মম্বাজী ভোঁসলে প্রমুখ। মুস্তফাখান তাদের বলল, “আমরা বাদশাহের বিশ্বস্ত সর্দার এবং যে কাজে তিনি আমাদের পাঠিয়েছেন, প্রাণ দিয়েও আমাদের সে কাজ করতে হবে। এখন শাহাজী ও তার সৈন্যরা গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন তাই তারা অচেতন ও অসতর্ক হয়ে আছে। আপনারা সৈনিকদের তৈরি রাখুন এবং শাহাজীর শিবির আক্রমণ করুন। আজ রাতেই শাহাজীকে গ্রেফতার করতে হবে। সকলে যখন ঘুমে অচেতন, সেই সময় মুস্তাফাখান নিজে না গিয়ে, পিছন থেকে আক্রমণ পরিচালনা করতে লাগল। নিশুতি রাতে হঠাৎ চারিদিকে প্রচণ্ড চিৎকার হৈ-হল্লা শুনে শাহাজীর ঘুম ভেঙে গেল এবং শিবির আক্রান্ত হয়েছে বুঝতে পেরে তৎক্ষনাৎ ঢাল-তলোয়ার বর্শা নিয়ে তৈরি হয়ে নিজের ঘোড়ার পিঠে সওয়ার হয়ে বেরিয়ে পড়লেন। কিন্তু ইতিমধ্যে শাহাজীর অসতর্ক সৈন্যবাহিনীকে একেবারে তছনছ করে শাহাজীর তাঁবুর দিকে ছুটে গেল বাজী ঘোরপড়ে, তার সঙ্গে গেল তার তিন ভাই খন্ডোজী, অম্বাজী ও ভানাজী এবং শাহাজীর আর এক ব্যক্তিগত শত্রু যশোবন্তরাও বাড়বে। খন্ডোজী পাটিল নামে শাহাজীর এক বিশ্বস্ত কর্মচারী প্রভুর বিপদের সংকেত পেয়েই তীব্রবেগে ঘোড়া ছুটিয়ে বাজি ঘোরপড়েও তার লোকজনের উপর আক্রমণ করল । একা অনেকক্ষণ লড়াই করে সে এদের আটকে রাখার চেষ্টা করল, কিন্তু অবশেষে বাজীর গদার আঘাতে সে ঘোড়া থেকে পড়ে গেল এবং তৎক্ষণাৎ বীরের মতো মৃত্যু বরণ করল।
শাহাজী রাজাও ঢাল-তলোয়ার নিয়ে লড়াই করেছিলেন, অকস্মাৎ তাঁর সামনে রক্তের সম্পর্কিত, নিকট-আত্মীয় বাজী ঘোরপড়ে উপস্থিত হল, যার জন্য শাহাজী কত রকম কষ্ট সহ্য করে তাকে উচ্চ পদে প্রতিষ্ঠিত হতে সাহায্য করলেন। মুস্তাফাখান ভাইয়ের বিরুদ্ধে ভাইকে লাগিয়ে তার ‘কসমের’ মর্যাদা রক্ষা করেছে ! বাজীর সঙ্গে আরও বহু সৈনিক এসে শাহাজীর উপর ঝাঁপিয়ে পড়ল। শাহাজী বীরের মত তাদের আক্রমণ প্রতিহত করলেন এবং কয়েকজন শত্রু-সৈন‍্যকে নিমেষে খতম করে দিলেন।
কিন্তু একা এতজনের বিরুদ্ধে সর্বশক্তি দিয়ে লড়াই করতে-করতে হঠাৎ শাহাজী অচৈতন্য হয়ে ঘোড়া থেকে পড়ে গেলেন এবং বাজী ঘোরপড়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে গেল। যিনি একই সঙ্গে সঙ্গে মোগল সম্রাট শাহাজাহান ও বিজাপুরের আদিলশাহকে বছরের পর বছর ধরে ঠেকিয়ে রেখেছিলেন, সেই দুর্ধর্ষ সাহসী বীর শাহাজী আজ বিশ্বাসঘাতকের লৌহ-শৃঙ্খলে আবদ্ধ হলেন, সেই ভয়ঙ্কর দিনটি ছিল ১৬৪৮ খ্রিষ্টাব্দের ২৫ শে জুলাই ।

ভারতমাতার বীর সন্তান শিবাজী মহারাজের চরণে প্রনাম জানাই। জয় ভবানী জয় শিবাজী।

http://www.anandalokfoundation.com/