13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যা করবেন ডেন্টাল প্লাক প্রতিরোধে

admin
December 14, 2015 3:29 pm
Link Copied!

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ডেন্টাল প্লাক কী এবং মুখের গহ্বরের অভ্যন্তরে এর ভূমিকাটাই বা কী এই লেখাতে সেটাই ব্যাখ্যা করা হবে।

দন্তচিকিৎসকরা বলে থাকেন, মাড়ির রোগের প্রধান এবং অন্যতম কারণ হলো ডেন্টাল প্লাক। এই প্লাক প্রথমে নরম অবস্থায় থাকে। পরবর্তীকালে যদি দাঁত ভালোভাবে পরিষ্কার না করা হয়, তাহলে শক্ত হয়ে যায় যাকে ক্যালকুলাস বলা হয়।

আর এই ক্যালকুলাসের কারণে মাড়িতে প্রদাহজনিত রোগ যেমন জিনজিভাইটিস, পেরিওডোনটাইটিস রোগ হয়ে থাকে। উল্লিখিত রোগগুলো মাড়িতে দেখা গেলে দাঁতের সঙ্গে মাড়ির যে শক্ত একটা বন্ধন থাকে সেটা আস্তে আস্তে দুর্বল হয়ে যায়। একপর্যায়ে দাঁত নড়ে যায় এবং সেটা পড়ে যায়।

সোজাভাবে বলা যেতে পারে, ডেন্টাল প্লাকের কারণে দাঁত পড়ে যেতে পারে। তবে এই প্রক্রিয়াটি অনেক ধীরগতিতে হয়। যদি কেউ বুঝতে পারেন তাঁর এই ধরনের সমস্যা হচ্ছে, তাহলে খুব সহজেই চিকিৎসা করাতে পারেন। আর এর জন্য ব্যয়ও খুবই অল্প যায়। দাঁত হারানো ছাড়া কোনো উপায় থাকে না।

ডেন্টাল প্লাক কী

ডেন্টাল প্লাক হলো ব্যাকটেরিয়া কিংবা অন্যান্য জীবাণু দ্বারা তৈরি এক ধরনের আঠালো পদার্থ যা দাঁতের চারপাশে লেগে থাকে। একে ব্যাকটেরিয়ান প্লাকও বলা হয়ে থাকে। ব্যাকটেরিয়া ছাড়াও অন্যান্য অণুজীব, প্রোটিন, গ্লাইকোপ্রোটিন, লিপিডম্যাটারিয়ালস, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং সামান্য পরিমাণে সোডিয়াম, পটাসিয়াম এবং ক্লোরাইডের উপস্থিতি পাওয়া যায়।

ডেন্টাল প্লাক ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তৈরি হয়ে থাকে এবং এটি দাঁতের সঙ্গে লেগে থাকে। যদি এটা ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পরিষ্কার না করা হয় তাহলে এটা আস্তে আস্তে শক্ত হতে থাকে এবং ৯ থেকে ২১ দিনের মধ্যে এটা পাথরের রূপ ধারণ করে মাড়ির সঙ্গে শক্তভাবে লেগে থাকে।

এখান থেকে উৎপন্ন কিছু পদার্থ মাড়িতে থাকা পেরিওডেন্টাল টিস্যুকে ধ্বংস করে দেয় এবং এই পর্যায় থেকে তৈরি হয় মাড়ি রোগ পেরিওডেন্টটাইটিস। মাড়িতে এই রোগ হলে রোগীরা কোনো কিছু চিবাতে গেলে মাড়িতে ব্যথা অনুভব করবে এবং মাড়ি থেকে রক্তপাত হতে পারে।

তবে আশার কথা হলো, দাঁতে ডেন্টাল প্লাকের উপস্থিতি বোঝা যায় এবং কিছুটা খালি চোখে দেখা যায়। এই প্লাক যখন শক্ত হয়ে পাথর হয়, তখন অনেক স্পষ্টভাবেই লক্ষ করা যায় যে, মাড়ি এবং দাঁতের সঙ্গে লেগে থাকা শক্ত কিছু আবরণ রয়েছে মুখের ভেতরে।

প্রতিকার

খুব সহজেই আমরা ডেন্টাল প্লাকের সঙ্গে দাঁত না লেগে থাকে সে ব্যাপারে সচেতন হতে পারি। যেমন : কোনো খাবার খাওয়ার পরপরই কুলি করার অভ্যাস গড়ে তোলা। এতে খাবারের ছোট ছোট কণা দাঁতের সঙ্গে লেগে থাকার সম্ভাবনা কম থাকে।

দিনে দুবার না হলেও অন্তত একবার দাঁত ব্রাশ করা। অনেকে ভালোভাবে দাঁত ব্রাশ মানে দীর্ঘক্ষণ দাঁত ব্রাশ করা বুঝে থাকেন। দু-এক মিনিটের মধ্যে সঠিকভাবে, সঠিক নিয়মে দাঁত ব্রাশ করা বাঞ্ছনীয়। এতে দাঁত এবং মাড়ির অধিকাংশ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।

দাঁত ব্রাশ করার পর যদি সম্ভব হয় তা হলে ডেন্টালফ্লস (এক ধরনের সুতা) দিয়ে দুই দাঁতের মাঝখানে পরিষ্কার করতে হবে। কারণ দাঁত ব্রাশ করার পরও দুই দাঁতের মাঝখানে ছোট ছোট খাদ্যকণা লেগে থাকে। এ ছাড়া সম্ভব হলে ছয় মাস পরপর অথবা বছরে অন্তত একবার ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া উচিত। মুখ ও মাড়ির যত্নে নিজের ভূমিকাই মুখ্য।

http://www.anandalokfoundation.com/