ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যানজটের শহর এখন অনেকটাই ফাঁকা: এ যেন অন্যরকম দৃশ্য

admin
September 26, 2015 12:32 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ  স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে কয়েক লাখ মানুষ ঢাকা ছাড়ায় বদলে  গেছে রাজধানীর চিত্র; প্রচণ্ড যানজটের শহর ঢাকা এখন অনেকটাই ফাঁকা।শুক্রবার সকাল  থেকেই রাজধানীর পল্টন, রমনা, কাকরাইল, মিন্টো  রোড, শাহবাগ, রাজারবাগ, পান্থপথ, এলিফ্যান্ট রোড ও উত্তরা এলাকা ঘুরে এমন দৃশ্য  চোখে পড়েছে।রাজধানীর অভিজাত বিপণীবিতানগুলোর সামনেও  চোখে পড়েনি চিরচেনা ভিড়।

রাস্তার পাশের ছোট বিপণীবিতানগুলোতে লোকজন নেই বললেই চলে। সড়কে  দেখা যায়নি বাসের জন্য সারিবদ্ধভাবে অপেক্ষা।জাতীয় প্রেসক্লাবের উল্টো দিকের চায়ের  দোকানি আলম বলেন, ঢাকা ফাঁকা হইয়া গেসে মামা। আগে দুপুরের সময় প্রেসক্লাবের সামনে অনেক গাড়ি জ্যামে বইসা থাকত। আইজ কিসু নাই।ঢাকা মহানগর পুলিশের কনস্টেবল  মো. কামরুল আলম হৃদয় রাজধানীর কাকরাইল, প্রেসক্লাব, বেইলিরোড এলাকায় দায়িত্ব পালন করেন।তিনি  বলেন, অন্যান্য দিনের মতো ঢাকায় মানুষের ভিড় নেই। রাস্তাগুলো অনেকটাই ফাঁকা। পথে চলাচল করতে কোনো ধরনের যানজটে পড়তে হচ্ছে না কাউকে।

বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্সের সামনে ঈদের  কেনাকাটা করতে আসা একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা আবদুল জলিল বলেন, “ঈদের আগে ঢাকা ফাঁকা থাকে বলে  কেনাকাটা করতে বের হয়েছি।  কেনাকাটা শেষে খুব সহজেই মিরপুর ফিরে যেতে পারব।শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে প্রাইভেট কারে উত্তরা থেকে যাত্রা করে গুলশান-২ নম্বর মোড়ে আসতে তার ১৭ মিনিট সময় লেগেছে, যেখানে অন্য সময় এই রাস্তা পাড়ি দিতে ঘণ্টাখানেক লেগে যায়।রাজধানীর সড়কগুলোতে গণপরিবহনও ছিল তুলনামূলক কম।সকালে রামপুরা থেকে নতুন বাজার, গুলশান, মহাখালী, ফার্মগেইট, শ্যামলী, কল্যাণপুর, গাবতলী, নিউ মার্কেট এলাকা ঘুরে কোথাও যানজট  চোখে পড়েনি।ট্রাফিক সিগন্যালে গাড়িগুলোকে এক মিনিটও অপেক্ষা করতে হচ্ছে না বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার রাতেও যানজটের কারণে শাহবাগ, নিউ মার্কেট, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, গুলিস্তান, মহাখালী, মগবাজার এলাকায় গণপরিবহনগুলো ঠাঁই দাঁড়িয়ে ছিল ঘণ্টার পর ঘণ্টা। আর শনিবার একেবারেই ফাঁকা।প্রতিবছর ঈদে গ্রামের বাড়িতে ফিরে গেলেও এবার ঢাকায় ঈদ করছেন একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থী ইনাম আহমেদ।তিনি বলেন, শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন সড়কের  যে চিত্র দেখা গেছে তা খুবই উপভোগ্য। ঈদে ঢাকা ফাঁকা হয়ে যায়-এমন কথা পত্রপত্রিকা,  টেলিভিশনে দেখলেও এবার নিজেই উপভোগ করছি।রাজধানী ঢাকায় একদিন আগেও যানজট, বৃষ্টির জলাবদ্ধতায় সৃষ্ট জনদুর্ভোগের যে চিত্র ছিল তা রাতারাতি বদলে গেছে।একটি  বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, এই শহরের দুই প্রান্তে যদি দুই কাজ থাকে, তাহলে কখনই একদিনে করা যায় না। আজ সকালে সায়েদাবাদ গিয়ে বোনকে গাড়িতে তুলে দিয়েছি। আরেক বোনকে টঙ্গী গিয়ে দেখে এসেছি। বেলা ১টার দিকে টঙ্গী  থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায়  ফেরা আজাদ বলেন,  দেখেন এখনো দুপুরই হয়নি। আরও কত কাজ করা যাবে।এদিকে, ঈদের নামাজের পর রাজধানীর বিভিন্ন রুটে অল্প সংখ্যক যাত্রীবাহী বাস চলাচল শুরু হয়েছে। বিকেলের দিকে বাসের সংখ্যা বাড়বে বলে জানিয়েছেন চালকরা।অধিকাংশ বাসে যাত্রী কম থাকায়  বেশি ভাড়া দাবি করছেন বাসের কন্ডাকটররা। তবে ঈদের দিনের এ অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই যাত্রীদের।যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঈদের আগের দিন  থেকেই রাজধানীতে গণপরিবহনের সংখ্যা কমতে থাকে। তাই ঈদের ছুটির তিন দিন রাজধানীতে যাত্রীবাহী বাস কম থাকায় কিছুটা দুর্ভোগে পড়তে হয়।অতিরিক্ত ভাড়া প্রসঙ্গে যাত্রীরা বলেন, ঈদের দিন। রাস্তায় যাত্রীও কম, গাড়িও কম। বাসের অধিকাংশ সিটই খালি। তাই চালকরা বাড়তি ভাড়া আবদার করছেন। যাত্রীরাও কোনো ঝামেলা না করেই ওদের চাহিদা মতো টাকা দিচ্ছেন।বাস চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঈদের ছুটির তিনদিন যাত্রী কম থাকায় অধিকাংশ চালাকই রাস্তায় গাড়ি বের করেননি। অল্প কিছু গাড়ি চলাচল করলেও যাত্রী পাওয়া যায়না। অনেক সিট খালি থাকে।

রাসেল খান নামের এক যাত্রী বলেন, স্ত্রী আর দু’সন্তান নিয়ে মিরপুরের পাইকপাড়ায় থাকি। বাবা-মাসহ পরিবারের অন্যরা থাকেন পুরান ঢাকায়।তিনি বলেন, প্রতিবছরই নামাজ শেষ করে পুরান ঢাকায় যাই। ঈদের দিন রাস্তায় যানবাহন কম থাকায় চলাফেরা করতে কিছুটা দুর্ভোগে পড়তে হয়।কল্যাণপুর  থেকে ১০ টাকার ভাড়া ৩০ টাকা দিয়ে শাহবাগে আসেন রাসেল। অতিরিক্ত ২০ টাকা দিয়েও  কোনো অভিযোগ না করে তিনি বলেন, ঈদের দিন বলে চালকরা চেয়ে কিছু টাকা বেশি নিচ্ছেন।ঈদের ছুটিতে নাড়ির টানে অনেকে  দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছুটে গেলেও কিন্তু রাজধানী একেবারে ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে না। অনেক মানুষ পরিবার নিয়ে স্থায়ীভাবে  তো থাকেনই, পাশাপাশি যাঁরা ঢাকার আদি বাসিন্দারাও এখানে থাকবেন। ছুটির দিনগুলোতে ঘুরে বেড়াতে পছন্দ করেন অনেকে।যানজটের শঙ্কা আর বিভিন্ন কাজে আটকা পড়ে যারা আগে গ্রামের বাড়ি যেতে পারেননি, তাদের কাছে ঈদের দিন  বেশি ভাড়া পেয়ে পরিবহন ব্যবস্থাপকরাও ‘খুশি’।শুক্রবার সকালে গাবতলী ও কল্যাণপুর ঘুরে েেদখা যায়, গাড়ির সংখ্যা কম হলেও  বেশ কিছু যাত্রী ভিড় করে আছেন কাউন্টারে।

শুক্রবার তাই প্রিয়েজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে গ্রামে ছুটে  গেছেন ব্যস্ততম রাজধানী ঢাকা। এখন প্রায় অধিকাংশ এলাকা ফাকা। নেই যানজট আর দূর্ভোগ। ফাঁকা রাস্তায় মানুষের উপস্থিতি ছিল অনেক কম। তবে পরিবহন সংকট এই কম সংখ্যক যাত্রীকেই  দেখা বাসের জন্য অপেক্ষা করতে। রাজধানীর নিউমার্কেট, সাইন্সল্যাব, শাহবাগ, কাকরাইল  মোড়, নয়া পল্টন, পুরানা পল্টন এবং গুলিস্তান এলাকার রাস্তার বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীদের পরিহনের জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে  দেখা  গেছে। রাজধানীর আট নম্বর বাস। বলা হয় একটি আদর্শ  লোকাল বাস। বসার আসন ৫২। এ বাসের ইঞ্জিনের বনেটে বসে বা দাঁড়িয়ে প্রতিদিন গাবতলী  থেকে যাত্রাবাড়ী অথবা যাত্রবাড়ী  থেকে গাবতলী যেতে অভ্যস্ত এ রুটের মানুষেরা। এ বাসে বসে যাওয়ার ভাগ্য সহসাই হয়না রাজধানীবাসীর। লক্করঝক্কর, হেলেদুলে রাজধানীর রাস্তায় চলে আসা  লোকাল বাসটি এখন সিটিং সার্ভিস। দাঁড়িয়ে  কোন যাত্রী  তো নেই-ই, গাবতলী  থেকে যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত টানা রাস্তায় কেউ নামতেও পারে না এখন। আর দু-একজন যাও নামছেন তাদের কাছ  থেকে আদায় করা হচ্ছে দ্বিগুণেরও বেশি ভাড়া।

ঈদের ছুটিতে ফাঁকা ঢাকায় এমনভাবেইেএকচেটিয়া ব্যবসা চালাচ্ছেন রাজধানীর  লোকাল বাসের মালিকেরা। ফলে ফাঁকা ঢাকা এখন পড়েছে পরিবহন সংকটে। নির্দিষ্ট রুটের যাত্রীরা পাচ্ছে না পরিবহন।  দীর্ঘ অপেক্ষার পর যখনই  কোনো গাড়ি আসছে,  সেটি কোন রুটে যাবে তা না  জেনেই হুমড়ি  খেয়ে উঠছে যাত্রীরা। একই সঙ্গে এ সংকটে মধ্যে শুরু হয়েছে বাস কন্ডাক্টরের বকশিস আদায়ের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়।ঈদে ঘরমুখো মানুষকে বাড়ি  পৌঁছে দিতে দূরপাল্লার পরিবহনের পাশাপাশি  যোগ হয়েছে নগরীর এসব লোকাল পরিবহনগুলোও। যার ফলে দুর্ভোগে পড়েছেন নগরবাসী। আর তাই গোটা রাজধানীতে বাস যেন এখন সোনার হরিণের মত।

রাজধানীর বিভিন্ন রুটে  দেখা যায় এসব  ভোগান্তির চিত্র। ফাঁকা রাস্তায় মানুষের উপস্থিতি ছিল অনেক কম। তবে পরিবহন সংকট এই কম সংখ্যক যাত্রীকেই  দেখা বাসের জন্য অপেক্ষা করতে। রাজধানীর নিউমার্কেট, সাইন্সল্যাব, শাহবাগ, কাকরাইল মোড়, নয়া পল্টন, পুরানা পল্টন এবং গুলিস্তান এলাকার রাস্তার বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীদের পরিহনের জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে  দেখা  গেছে।মহাখালী  থেকে ৬ নম্বর বাসে উঠেছিলেন আহমেদ ইসলাম। গন্তব্যস্থল পল্টন  মোড়। কন্ডাক্টর ভাড়া চাইতেই বের করে দিলেন ৫০ টাকার নোট। টাকাটা নিয়েই কন্ডাক্টর নির্লিপ্তের মতো অন্য যাত্রীর কাছে ভাড়া হাঁকলেন। আহমেদ টাকা ফেরত চাইতেই কন্ডাক্টর জানালেন ঈদ উপলক্ষে বকশিস। এরপর শুরু হয় বচসা। পরে ১৫ টাকার ভাড়া ৩০ টাকায় রফা হয়।গুলিস্থান  থেকে সাইন্সল্যাবে যাবেন ষাটোর্ধ্ব রইস উদ্দিন খান। যাবেন ল্যাবএইড হাসপাতালে। হাতে কিছু রিপোর্টের কাগজপত্র নিয়ে চাতক পাখির মত দাঁড়িয়ে আছেন বাসের অপেক্ষায়। সব বাস আসলেও তার রুটের বাস আসছে না।তিনিবলেন, বিকাল তিনটায় ল্যাবএইডে রিপোর্টগুলো দেখাতে হবে। আর আমি জানতাম যে আজ রাস্তায় যানজট থাকবে না। তাই একটু  দেরিতেই বের হয়েছি। কিন্তু রাস্তায় এসে কোন গাড়ীই পাচ্ছি না। জানি না সময়মত পৌঁছাতে পারবো কি-না।’একটু এগিয়ে এসে পল্টন  মোড়েও  দেখা  গেল একই চিত্র। বেশ কয়েকজন যাত্রী তাদের নির্দিষ্ট রুটের বাস পাচ্ছেন না। অপরদিকে মতিঝিল টু গুলশান রুটের চলাচলকারী ৬নাম্বার বাসের হেলপার আগে  থেকেই ফার্মগেটের ভাড়া ৩০টাকা হাঁকাচ্ছেন। বাসের ওঠার আগে যাত্রীদের সতর্ক করে দিচ্ছেন,  ফার্মগেইট ছাড়া উঠবেন না।জানতে চাওয়া হলো -এতো বেশি ভাড়া কেন? ৬ নাম্বার বাসের  হেলপার বাশার আলী হাসতে হাসতে বললেন, ‘বেশি কই মামা! ১০ টাকা বখশিস নিচ্ছি মাত্র।ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) জানিয়েছে, বাসা-বাড়ি, ব্যাংক,  দোকান এবং ফাঁকা রাস্তার নিরাপত্তায় পুলিশের সঙ্গে র‌্যাব ও আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন সমন্বয় করে নিরাপত্তা প্রদান করবে। তাছাড়া এলাকাভিত্তিক নিরাপত্তায় স্থানীয় কমিটি ও ব্যক্তিগত নিরাপত্তা কর্মীদের সঙ্গেও সমন্বয় করে কাজ করবে ডিএমপি। ঢাকার ঈদগাহগুলোকেও বিশেষ নিরাপত্তা পরিকল্পনার আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে।পুরো ঢাকার নিরাপত্তায় ১২ হাজার পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবে বলে জানিয়েছে ডিএমপি। এরমধ্যে  পোশাকধারী ১০ হাজার এবং সাদা  পোশাকে দুই হাজার পুলিশ সদস্য  মোতায়েন থাকবে। তাছাড়া চামড়া পাচার রোধে ১৩টি বহির্গমন পথে পুলিশের  চেকপোস্ট থাকবে।পুলিশ সদর দপ্তরের প্রধান তথ্য অফিসার কামরুল আহসান জানিয়েছে, ঈদে পুলিশের বিশেষ নিরাপত্তা পরিকল্পনার কারনে অধিকাংশ পুলিশ সদস্যের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। র‌্যাব সদর দপ্তর জানিয়েছে, সারা দেশে ঈদের নিরাপত্ত্য়া অন্তত ১০ হাজার র‌্যাব সদস্য সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা প্রদান করবে। জাতীয় ঈদগাহ ময়দানসহ সারা  দেশে যেসব জায়গায় ঈদের জামাত হবে সেসব স্থানে র‌্যাব বিশেষ নিরাপত্তা দিবে।র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, জাতীয় ঈদগাহ ছাড়াও  দেশের বিভিন্ন এলাকার ঈদগাহ ও মসজিদগুলোতে ঈদের নামাজ হবে। এসব স্থানেও স্থানীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থার পাশাপাশি র‌্যাব সদস্যরা নিরাপত্তা দেবে।ঈদকে  কেন্দ্র করে জনসাধারণের নিরাপত্তায় র‌্যাব সবসময় নিয়োজিত রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিভিন্ন বাস টার্মিনাল ও লঞ্চ টার্মিনালের নিরাপত্তায় র‌্যাব সদস্যরা নজরদারি করছে।

http://www.anandalokfoundation.com/