ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মেট্রোরেল পরিচালনায় লাইসেন্স ২৫ বছরের

admin
October 10, 2015 9:57 pm
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ মেট্রোরেল পরিচালনায় সাধারণত ২৫ বছরের জন্য লাইসেন্স দেওয়া হবে। তবে সাময়িক সেবার চাহিদা পূরণে কখনও এর চেয়ে কম সময়ের জন্যও লাইসেন্স দেওয়া যাবে। এ ছাড়া ভাড়া নির্ধারণ কমিটি মেট্রোরেলের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন ভাড়ার হার নির্ধারণ করে সুপারিশ করবে। কর্তৃপক্ষ সরকারের নির্দেশে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন হিসাব ধরে মধ্যবর্তী সাধারণ ভাড়া নির্ধারণ করবে। ‘মেট্রোরেল সাধারণ বিধিমালায়-২০১৫’ এর খসড়া থেকে তথ্য জানা গেছে। মতামত নিতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে খসড়া বিধিমালা প্রকাশ করা হয়েছে। আগামী ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত মতামত দেওয়া যাবে। ‘মেট্রোরেল আইন, ২০১৫’ অনুযায়ী এ বিধিমালা করা হচ্ছে।

খসড়া বিধিমালায় বলা হয়েছে, মেট্রোরেল স্থাপন, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য লাইসেন্স ফিস বাবদ ২০০ কোটি টাকা ব্যাংকে জমা রাখতে হবে। এ পরিমাণ টাকার ব্যাংক ড্রাফট বা পে-অর্ডার আবেদনপত্রের সঙ্গে যুক্ত না করলে আবেদনপত্র গ্রহণযোগ্য হবে না। খসড়া বিধিমালায় বলা হয়েছে, মেট্রোরেল ব্যবস্থা স্থাপন, উন্নয়ন ও পরিচালনায় লাইসেন্সের জন্য সরকার কর্তৃক প্রস্তাব আহ্বানের পর আবেদন করা যাবে। এক্ষেত্রে জামানত হিসেবে ২০০ কোটি টাকার পে-অর্ডার বা ব্যাংক ড্রাফট জমা দিতে হবে। আর দরপত্রে অংশ নিয়ে কাজ না পেলে তিন মাসের মধ্যে জামানতের অর্থ ফেরত দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে সুদ বা লভ্যাংশ দাবি করা যাবে না।

নির্বাহী পরিচালকের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন করবে। লাইসেন্স প্রাপ্ত কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ফৌজদারি আইনে শাস্তি পেলে অথবা দেউলিয়া ঘোষিত হলে লাইসেন্স বাতিল হয়ে যাবে বলে খসড়ায় বলা হয়েছে। এতে আরও বলা হয়েছে, লাইসেন্স হস্তান্তর করতে হলে কমপক্ষে ১০ বছর মেট্রোরেল পরিচালনার পর তা করতে হবে। তবে কর্তৃপক্ষ যৌক্তিক কোনো কারণে লাইসেন্স স্থগিত করতে পারবে। স্থগিতের মেয়াদ এক বছরের অধিক হবে না। স্থগিতের বিষয়টি অপারেটরকে অবশ্যই ৩০ দিন আগে অবহিত করতে হবে। লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হলে সরকার পুনরায় প্রস্তাব আহ্বান করতে পারে। আবার পুরনো চুক্তি নবায়নও করতে পারে। এ ছাড়া সরকার চাইলে মেট্রোরেলের রুট পুনর্বিন্যাস করতে পারে। এক্ষেত্রে রুট অনুসারে লাইসেন্সের শর্ত পরিবর্তন হতে পারে।

মেট্রোরেল পরিচালনায় কোনো ধরনের জটিলতা দেখা দিলে তা নিরসনে আপিল কর্তৃপক্ষ থাকবে। নির্ধারিত চালানে এক হাজার টাকা ফি জমা দিয়ে এ কর্তৃপক্ষের কাছে আপিল করা যাবে বলে বিধিমালায় বলা হয়েছে। আইন অনুযায়ী মেট্রোরেল পরিচালনার জন্য ‘ঢাকা ম্যাস ট্রান্সপোর্ট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল) গঠন করা হবে।

ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ (ডিটিসিএ) হবে ডিএমটিসিএল-এর নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা। প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকায় মেট্রোরেল (ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট- এমআরটি ৬) প্রকল্পের কাজ চলছে। এরমধ্যে সরকার পাঁচ হাজার ৪০০ কোটি ও জাইকা দেবে ১৬ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। মেট্রোরেল উত্তরার তৃতীয় পর্ব থেকে উত্তরা সেন্টার, পল্লবী, মিরপুর-১০ সেকশন দিয়ে কাজীপাড়া, রোকেয়া সরণির পশ্চিম পাশ দিয়ে খামারবাড়ি হয়ে ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, টিএসসি, দোয়েল চত্বর হয়ে তোপখানা রোড দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যন্ত যাবে। এ পথে ১৬টি স্টেশন থাকবে। দুপাশে ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহন করা যাবে বলে সড়ক পরিবহন নও সেতু মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে।

http://www.anandalokfoundation.com/