13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মুসলিমদের ‘ওবিসি’ সংরক্ষণ বাতিলকে ঘিরে উত্তপ্ত পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতি

Link Copied!

ভারতে লোকসভা নির্বাচনের মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গে ২০১০ সালের পর জারি করা অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণি বা ‘ওবিসি’-দের শংসাপত্র বাতিলের রায়কে ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে রাজনীতি। এই রায়ের পর পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল বলছে, মুসলিমদের সংরক্ষণ কেড়ে নিতে চায় বিজেপি সরকার।

ভারতে ষষ্ঠ দফা ভোটের আগেই বুধবার কলকাতা হাইকোর্ট তার রায়ে ২০১০ সালের পর থেকে জারি করা রাজ্যের সমস্ত ‘অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণি’ বা ওবিসি সার্টিফিকেট বাতিল করে দিয়েছে। এর ফলে বাতিল হয়ে গিয়েছে পাঁচ লক্ষ ওবিসি সার্টিফিকেট, যার অধিকাংই মুসলিম সম্প্রদায়ের।

রাজ্য সরকারের তীব্র সমালোচনা করে আদালত জানিয়েছে, মূলত ‘নির্বাচনি মুনাফার’ জন্য ওই ৭৭টি শ্রেণিকে ওবিসি তালিকায় যোগ করা হয়েছিল। যা শুধুমাত্র সংবিধানের লঙ্ঘনই নয়, মুসলিমদের অবমাননাও।

এই তালিকায় রয়েছে মোট ৭৭টি শ্রেণিকে দেওয়া অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণির (ওবিসি) শংসাপত্র, যাদের মধ্যে বেশির ভাগই ছিলেন মুসলিম। প্রসঙ্গত, রাজ্যে মুসলিমদের ওবিসি সংরক্ষণের আওতায় আনা হয়েছিল বামফ্রন্ট জমানায়। এরপর পশ্চিমবঙ্গে ২০১১ সালে ক্ষমতায় আসে তৃণমূল সরকার।

তবে আদালতের তরফে জানানো হয়েছে ২০১০ সালের পর থেকে জারি করা ওবিসি শংসাপত্র বাতিল হলেও- সেটা ব্যবহার করে যারা কোনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়েছেন, চাকরি করছেন, পদোন্নতি হয়েছে বা অন্যান্য সুবিধা পেয়েছেন তাদের উপর এই রায়ের কোনও প্রভাব পড়বে না।

বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী ও বিচারপতি রাজাশেখর মান্থার ডিভিশন বেঞ্চ তার রায়ে ২০১২ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অনগ্রসর জাতি সংক্রান্ত বিধিকে বাতিল করেছে। ওই বিধির ১৬ নম্বর ধারা রাজ্য সরকারকে অনগ্রসর শ্রেণি সংক্রান্ত তফসিল “সংযোজন, সংশোধন বা পরিবর্তন” করার অনুমতি দেয়।

ওই বিধি মেনে যে ৩৭টি শ্রেণিকে অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণির তালিকায় যোগ করেছিল রাজ্য সরকার, তাও বাতিল করেছে আদালত। কারণ তা ‘নিয়ম বহির্ভূতভাবে’ করা হয়েছিল বলে তারা বলছে।

আবার বামেদের অভিযোগ, পিছিয়ে পড়া সম্প্রদায়ের মানুষের উন্নয়নের জন্য যে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল তার ‘অপব্যবহার’ করেছে তৃণমূল। ভোটের কথা মাথায় রেখে নিয়ম না মেনেই জারি করা হয়েছে ওবিসি শংসাপত্র। অন্য দিকে হাইকোর্টের রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার মতে, “ভোটব্যাঙ্কের দিকে তাকিয়ে ‘তোষণের রাজনীতি’ করছে তৃণমূল এবং কংগ্রেস – যা বন্ধ হওয়া দরকার।”

http://www.anandalokfoundation.com/