13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মানব কল্যাণে যুব সমাজের ভূমিকা- বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু যুব মহাজোট

admin
September 23, 2016 3:53 pm
Link Copied!

ডেস্ক রিপের্ট: বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু যুব মহাজোট অদ্য ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬ শুক্রবার সকাল ১০.০০টায় বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট বার অডিটোরিয়ামে “মানব কল্যাণে যুব সমাজের ভূমিকা”  ও  বিকাল ৩ টায় “২য় পর্বে “সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে যুব সমাজের ভূমিকা” বিষয়ে এক হিন্দু যুব সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। হিন্দু যুব মহাজোটের সভাপতি সুমন কুমার রায় এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভার প্রথম পর্বে প্রধানঅতিথি হিসেবে বেগম রওশন এরশাদ এম.পি, মাননীয় বিরোধী দলীয় নেতা, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ ও বিশেষ অতিথি হিসেবে শ্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ এম.পি, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রনালয় এবং দ্বিতীয় পর্বে  প্রধান অতিথি হিসেবে জনাব আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এম.পি, মাননীয় মন্ত্রী স্বরাস্ট্র মন্ত্রনালয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার উপস্থিত উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন হিন্দু মহাজোটের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডঃ দীনবন্ধু রায়, সিনিয়র সহ সভাপতি ডঃ সোনালী রাণী দাস, ডঃ অচিন্ত কুমার মন্ডল, মানিক চন্দ্র সরকার, ডাঃ এম. কে রায়, বিবি গোস্বামী, লায়ন বিমল শীল, লায়ন সমীর দত্ত, সুবীর সাহা,  সাজন মিস্ত্রি, দিপঙ্কর সিকদার, বিপুল চন্দ্র সরকার, প্রধান সমন্বয়কারী বিজয় কৃষ্ণ ভট্টাচার্য, মহাসচিব অ্যাডঃ গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব উত্তম কুমার দাস, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক প্রতীভা বাকচী, আর্ন্তজাতিক সম্পাদক রিপন দে, যুব বিষয়ক সম্পাদক সমীরন বড়াল, হিন্দু সাংস্কৃতিক মহাজোটের সভাপতি সাধন লাল দেবনাথ, ঢাকা উত্তরের সাধারণ সম্পাদক মণিশঙ্কর হালদার, স্বামী সঙ্গীতানন্দ মহারাজ, রুপানুগ গৌর দাস ব্রহ্মচারী, শ্রীমৎ স্বামী শঙ্করানন্দ পুরী মহারাজ, হিন্দু যুব মহাজোটের নির্বাহী সভাপতি দেবাশীষ সাহা, সাধারণ সম্পাদক মিল্টন বসু, ছাত্র মহাজোটের সভাপতি নিহার কুমার প্রামাণিক, সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত হালদার, সাংগঠণিক সম্পাদক সাজেন কৃষ্ণ বল, বিচারপতি গৌর গোপাল সাহা,  রমেশ চন্দ্র ঘোষ, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী মনোরঞ্জন ঘোষাল, ঝুমুর গাঙ্গুলী, স্বামী চিদানন্দ সরস্বতী, বিমান বিহারী তালুকদার, শ্যামল সরকার, ভট্টচার্য নন্দ দুলালসুভাষ সাহাসুজিৎ কুমার কুন্ডু, দিপঙ্কর সরকার, চিন্ময় মজুমদার, এসকে বাদল, সোমেন সাহা, মিঠু রঞ্জন দে ডাঃ পি.ভি ভট্টাচার্য, কিশোর কুমার বর্মন, নিহার প্রামাণিকপ্রশান্ত হালদারগৌতম গাইন, মোহন লাল প্রমূখ।

বক্তাগণ বলেন হিন্দু সম্প্রদায় মহা আতঙ্কের মধ্যে দিনাতিপাত করছে। গত কয়েক বছরে বিভিন্ন স্থানে মঠ মন্দির প্রতিমা বাড়ীঘর ভাংচুর অগ্নি সংযোগ, জমি দখল মহামারী আকার ধারন করেছে। ফলে হিন্দুরা দলে দলে নিরবে দেশত্যাগ করছে। এ অবস্থ চলমান থাকলে অচিরেই এদেশ হিন্দু শুন্য হবে। এর থেকে পরিত্রানের সন্য সংখ্যালঘু সুরক্ষায় জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসন ও পৃথক নির্বাচন ব্যবস্থা পূনঃ প্রচলন, সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রনালয় প্রতিষ্ঠার দাবী জানান। বক্তাগণ দূর্গা পুজায় ৩ দিনের সরকারী ছুটি, দূর্গা পুজায় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা বিধান, রমনা কালী মন্দির সহ সকল দেবোত্তর সম্পত্তি পূনরুদ্ধার এবং বিভিন্ন স্থানে উদ্ধারকৃত দেবমুর্তি হিন্দু সম্প্রদায়ের নিকট ফেরত দানের জোর দাবী জানান। বক্তগণ ১৯৭২ সাল হতে হিন্দু নির্যাতন, জমি দখল, মঠ মন্দির ভাংচুর, ধর্মান্তর, দেশ হতে বিতারন এবং হিন্দু জনসংখ্যা নির্ণয় এর সুস্পষ্ট রিপোর্ট ও শ্বেতপত্র পেশ করার জন্য একটি কমিশন গঠণের দাবী করেন।

http://www.anandalokfoundation.com/