সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৮:৫০ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
অপরাধ অনুসারেই বিচার হবে পাপিয়ার -সেতুমন্ত্রী ড. কামাল চৌধুরীর সাথে ভারতীয় হাই কমিশনারের সাক্ষাৎ আগামী জুলাই মাসে শুরু ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ছয়লেনে উন্নীতকরণ কাজ মাগুরায় ডিজিটাল বিদ্যালয়ের স্বীকৃতি পেল রাঘবদাউড় মাধ্যমিক বিদ্যালয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের টার্মিনাল চার্জ ও লঞ্চঘাটের প্রবেশ ফি মওকুফ দৌলতখানে দাখিল পরীক্ষার্থীকে গনধর্ষণের ঘটনায় মামলা দায়ের নাগেশ্বরীতে বাল্যবিবাহ নিরোধ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্য সমন্বয়ে ভারত পৃথিবীতে সর্বশ্রেষ্ঠ -ট্রাম্প কেরাণীগঞ্জে বায়ুদূষণ বিরোধী অভিযানে ৭ টি ইটভাটা ধ্বংস এবং ৫০ লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় পুলিশের কব্জায় অটোরিক্সা, ক্যান্সার আক্রান্ত মাকে বাঁচাতে শেষ আশ্রয়স্থল বিক্রি সন্তানের

আমি অস্পৃশ্য হয়ে জন্ম গ্রহন করলেও অস্পৃশ্য হয়ে মরব না -আম্বেদকর

আমি অস্পৃশ্য হয়ে জন্ম গ্রহন করলেও অস্পৃশ্য হয়ে মরব না -আম্বেদকর

ড: দেবাশীষ মুখার্জী, কূটনৈতিক প্রতিবেদকঃ মহাত্মা আম্বেদকরের প্রকৃত নাম ভীমরাও শাকপাল। দলিত পরিবারে জন্ম। ঐ যুগে দলিতদের লেখাপড়া শেখা সহজ ছিল না। কৃষ্ণ কেশব আম্বেদকর নামক এক ব্রাহ্মণ শিক্ষক, ভীমরাও-কে যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন। ভীমরাও ঐ ব্রাহ্মণ শিক্ষকের পদবী ‘আম্বেদকর‘ আজীবন ব‍্যবহার করেছেন।

ভীমরাও আম্বেদকর ছিলেন ভারতবর্ষের প্রথম দলিত ‘আইএ’পাশভীমরাও আম্বেদকরের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হলে,বরোদার বৃটিশ নিয়ন্ত্রিত ব্রাহ্মণ রাজা সয়াজিরাও গায়কোয়ার আম্বেদকরের শিক্ষার যাবতীয় খরচ জুগিয়েছেন – পাশাপাশি তাঁর পরিবারের ব‍্যয়ভার বহন করেছিলেন। উল্লেখ্য, পারিবারিক সিদ্ধান্তে আম্বেদকর অল্প বয়সে বিবাহ করেছিলেন।

মহারাজা গায়কোয়ারের প্রদত অর্থে আম্বেদকর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট ডিগ্রী অর্জন করে,লণ্ডনের বিখ‍্যাত স্কুল অফ ইকোনমিক্স থেকে এম এস সি ; ডিগ্রী লাভ করেন ; এরপর জার্মানির বন বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছুদিন পড়াশোনা করে, পুনরায় লণ্ডনে ফিরে এসে, D.Sc উপাধি লাভ করেন এবং সবশেষে Bar-at-Law ডিগ্রী অর্জন করেন।

একজন দলিতকে এত উচ্চশিক্ষিত ব‍্যক্তিতে পরিনত করতে, একজন ব্রাহ্মণ রাজা কেন এত বিশাল অর্থ ব‍্যয় করলেন – তা নিয়ে বামপন্থী সেক‍্যুলার বুদ্ধিজীবীরা না না রকম ব্রাহ্মণ‍্যবাদী ষড়যন্ত্রের গন্ধ পেয়েছেন। সে যা – ই হোক, আম্বেদকরজী দেশে ফিরে এলে, সেই ব্রাহ্মণ রাজা গায়কোয়ার, আম্বেদকর-কে অর্থমন্ত্রী পদে নিয়োগ দিলেন।
এক সেক‍্যুলার বুদ্ধিজীবীর লেখা পুস্তক থেকে হুবহু তুলে ধরছি : ―

“ডঃ আম্বেদকর এক পার্সী হোটেলে অবস্থান করছিলেন। ক’দিন পর পার্সীদের কিছু লোক জানতে পারলো যে, তাদের হোটেলে অবস্থানকারী লোকটি একজন অস্পৃশ্য শ্রেণীভুক্ত, সে হিন্দু নয়। তেলে-বেগুনে জ্বলে ওঠলো তারা। পার্সিরা দলবদ্ধ হয়ে লাঠি-সোটা নিয়ে অপেক্ষা করতে লাগলো। আম্বেদকর অর্থ মন্ত্রকের দায়িত্বপালন শেষে হোটেলে প্রবেশের পূর্বেই,তিনি বিক্ষুব্ধ পার্সী লোকজন কর্তৃক বাধাগ্রস্ত ও লাঞ্ছিত হলেন। এরপর তারা জোর করে তাঁকে সে স্থান ত্যাগ করতে বললো এবং তাঁর ব্যবহৃত জিনিসপত্র ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি ছুঁড়ে ফেলে দিলো।

পাশ্চাত্যের সুধীমহলে বিপুলভাবে অভিনন্দিত কীর্তিমান এই ছাত্রটিকে শেষপর্যন্ত স্বদেশের অশিক্ষিত, মুর্খ ও কুসংস্কারাচ্ছন্ন লোকদের তাড়া খেয়ে নিরাশ্রিত হয়ে সারাদিন গাছতলায় বসে বড় বিষণ্ন মন নিয়ে ভাবতে হয়েছিলো,ব্রাহ্মণ‍্যবাদের জঘন্য নিষ্ঠুরতার কথা।”

লক্ষ্য করুন, মধ‍্যবর্ণের হিন্দু পদবীধারী এই সেক‍্যুলার বুদ্ধিজীবী লিখেছেন,”তিনি অস্পৃশ্য – হিন্দু ন’ন।” – অর্থাৎ অস্পৃশ‍্যদের হিন্দু সমাজ থেকে তাড়িয়ে, হিন্দুর সংখ্যা কমানোর – সেক‍্যুলারদের গভীর ষড়যন্ত্র। এখানে আরেকটি বিষয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ – আম্বেদকরজীকে অপমান করলো পার্সিরা, আর দোষ চাপানো হলো ব্রাহ্মণ‍্যবাদের ঘাড়ে।

মুসলমানরা ইরান জয় করার পরে, ভারতে পালিয়ে এসে ইরানের আদি ধর্মজরাথুস্ট্রবাদ‘ – রক্ষা করতে পারা জণগোষ্ঠীকে বলা হয় পার্সি। এদের সাথে ভারতীয় ব্রাহ্মণ‍্যবাদ তথা বৈদিক ধর্মের আদৌ কোন সম্পর্ক নেই। তাহলে ঐ সে‌ক‍্যুলার ব্রাহ্মণ‍্যবাদকে অভিযুক্ত করা হলো কেন? বুদ্ধিমান লোকরা একটু চিন্তা করে দেখবেন।

১৯৩৫ সালের ১৩ অক্টোবর ইয়োলা সম্মেলনে ড. আম্বেদকর অভ্যর্থনা কমিটির সভাপতি স্বাগত ভাষণে বলেন- “ভারতে সনাতন ধর্মের নামে চলছে ব্রাহ্মণ্য ধর্ম, সমস্ত প্রকার সুযোগ সুবিধার পাকাপাকি ব্যবস্থা করাই ব্রাহ্মণ্যবাদের মূল কথা, ‘ভাগ কর ও শাসন কর’ এই নীতি ব্রাহ্মণ্যবাদের মৌলিক কৌশল। এই নীতিকে ধর্মের সঙ্গে যুক্ত করে এবং তা চিরস্থায়ী করার জন্য, বর্ণাশ্রম প্রতিষ্ঠাপূর্বক ব্রাহ্মণদের বর্ণশ্রেষ্ঠ বলে ঘোষণা করা হয়। তাদের আর একটি কৌশল দেব-দেবীর সৃষ্টি, দেব-দেবীর উদ্দেশ্যে ভক্তদের দানীয় বস্তু দেব-দেবীর পক্ষে গ্রহণ করে ব্রাহ্মণ পুরোহিত কর্তৃক আত্মসাৎকরণ।…


নির্যাতিত শ্রেণীর মানুষদের হিন্দু হয়েও যদি সম অধিকার থেকে বঞ্চিত থাকতে হয়, বিগত ১৫ বছর ধরে বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক, শিক্ষা, রাজনৈতিক শোষণ, বঞ্চনার বিরুদ্ধে আন্দোলন বা সংগ্রাম করেও তাদের কাছ থেকে বিন্দুমাত্র ন্যায়বোধের পরিচয় পাওয়া না যায়, তাহলে নির্যাতিত সমাজকে ভাল করে ভেবে দেখতে হবে। তাই দীর্ঘ বাস্তব অভিজ্ঞতার আলোকে আমাদেরকে আত্মসম্মান ও মানবিক অধিকার লাভ করতে হলে হিন্দু ধর্ম থেকে বিচ্ছিন্ন হতে হবে। … আমার চরম দুর্ভাগ্য যে, অস্পৃশ্য সমাজে জন্মেছি বলে আমাকে আত্মসম্মানহীন অপমানজনক সমাজ ব্যবস্থার মধ্যে দিন কাটাতে হচ্ছে।”…
তিনি দৃঢ়কণ্ঠে ঘোষণা করেন-
আমি অস্পৃশ্য হয়ে জন্মগ্রহণ করলেও অস্পৃশ্য হয়ে মরবো না।”
এই সম্মেলনে গৃহীত গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হলো-
১) অস্পৃশ্যদের সামাজিক সমতা লাভের আন্দোলনের প্রতি উচ্চবর্ণের হিন্দুদের উদাসীনতা অথবা বিরোধিতাকে এই সম্মেলনে কঠোর ভাষায় নিন্দা জানায়।২) সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ঐক্যবদ্ধ ও শক্তিশালী করার জন্য বিগত ১৫ বছর ধরে উচ্চবর্ণের হিন্দুদের সঙ্গে নির্যাতিত শ্রেণীর হিন্দুদের সমান সামাজিক অধিকার লাভের নিমিত্ত যে আন্দোলন ও সংগ্রাম তারা চালিয়ে আসছে তা এখন থেকে বন্ধ করা হবে।

৩) অতঃপর তারা সমাজে সম্মানজনক ও সমানাধিকার লাভের জন্য ভারতের অন্য যে কোন ধর্ম গ্রহণ করবে।ইয়োলা সম্মেলনের সিদ্ধান্তগুলো প্রকাশিত হওয়া মাত্র মুসলিম, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ, শিখ প্রভৃতি বিভিন্ন ধর্মের নেতৃবর্গের কাছ থেকে এদের স্ব-স্ব ধর্ম গ্রহণের জন্য আহ্বান পত্র আসতে লাগলো এবং ড. আম্বেদকরের ধর্ম পরিবর্তনের সিদ্ধান্তে সারা ভারতে প্রচণ্ড আলোড়ন সৃষ্টি হলো। এর প্রতিক্রিয়ায় নানা জনের নানা মত ব্যক্ত হতে লাগলো।

গান্ধিজী ও সমমনা নেতৃবৃন্দ চিন্তা করলেন, অস্পৃশ্যরা যদি হিন্দু সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, তাহলে হিন্দুর সংখ্যা কমে যাবে এবং এই অনুপাতে কংগ্রেসের শক্তি হ্রাস পাবে। অনেকে আশংকা করলেন ড. আম্বেদকর যদি তার অনুগামীদের নিয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে,তাহলে ভারতে মুসলমানদের শক্তি বেড়ে যাবে এবং হিন্দুদের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দাঁড়াবে। ফলে হিন্দু মিশনারী নেতারা আম্বেদকরের সাক্ষাত প্রত্যাশা করলেন।আম্বেদকর স্পষ্ট ভাষায় জানালেন, ‘একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে যদি উচ্চবর্ণের হিন্দুরা সনাতন ধর্ম থেকে অস্পৃশ্যতা তুলে নেয়, তবে তারা সনাতন ধর্ম ত্যাগ করবেন না।’ কিন্তু বর্ণ হিন্দুদের কাছে এ প্রস্তাব কোন গুরুত্ব পেলো না।

পরবর্তীতে অধ্যাপক এন. শিবরাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে, শিবরাজ আম্বেদকরের সিদ্ধান্তকে সমর্থন জানিয়ে বলেন, “সনাতন ধর্ম আজ প্রতিক্রিয়াশীল চক্রের কায়েমী স্বার্থের ঘাঁটিতে পরিণত হয়েছে। অতএব এই ধর্ম পরিত্যাগ করা ছাড়া নির্যাতিতদের আর কোন উপায় নেই।’

একই সম্মেলনে ড. আম্বেদকর বলেন, সনাতন ধর্মের পুনর্জীবনের আর কোন সম্ভাবনা নেই, তাই অতীব দুঃখের সাথে আমাদেরকে সনাতন থেকে সম্পর্ক ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।”

আমি মনে করি, মানুষের পক্ষে অসম্ভব কিছুই নেই। সনাতন ধর্ম রক্ষা করা সম্ভব ; এমনকি বিশ্বজয় করাও সম্ভব – জাতিভেদ প্রথা দূর করে, হিন্দু জাতিকে জ্ঞানমুখী করতে পারলে।

 

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
22232425262728
29      
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ ||
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit