13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বরিশালের রূপকার মহাত্মা অশ্বিনীকুমার দত্তের জন্মদিন আজ

ডেস্ক
January 25, 2024 7:09 am
Link Copied!

অভিভক্ত ভারতের খ্যাতনামা রাজনীতিবিদ, ব্রিটিশ বিরাধী আন্দোলনের অন্যতম পুরাধা ব্যক্তিত্ব, মহান শিক্ষাব্রতী, সমাজসবী, লেখক, চিন্তাবিদ, সমাজ সংস্কারক, নবজাগরণের অগ্রদূত, বরিশালের রূপকার মহাত্মা অশ্বিনীকুমার দত্তের জন্মদিন আজ।

অশ্বিনী কুমার দত্ত ১৮৫৬ সালর ২৫শে জানুয়ারি  পিতার কর্মস্থল পটুয়াখালীতে জন্মগ্রহণ করেন।  তিনি বরিশাল পৌরসভার কমিশনার, ভাইস চেয়ারম্যান  এবং পরবর্তীত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। মহাত্মা অশ্বিনীকুমার দত্ত ই প্রকৃত অর্থে আধুনিক বরিশাল এর নির্মাতা  এবং ব্রিটিশ বিরাধী আন্দোলনের অন্যতম পুরাধা ব্যক্তিত্ব।

অশ্বিনী কুমার দত্তর পৈত্রিক বাড়ি বরিশালের গৌরনদীর বাটাজোর গ্রামে। তাঁর পিতা ছিলেন সাব-জজ ব্রজমোহন দত্ত। কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে এফএ  এবং ১৮৭৯ সালে এলাহাবাদ থেকে মাত্র ২৩ বছর বয়সে আইন (বিএল) পাস করেন তিনি। ওই বছর তিনি শ্রীরামপুরের চাতরা উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন।

বরিশালে বিভিন্ন সমাজহিতৈষী ও কল্যাণমূলক রাজনৈতিক কর্মকান্ডের কারণে তিনি সুপরিচিত ছিলেন। জাতীয়তাবাদী রাজনীতি, জনকল্যাণ ও উন্নয়নমূলক কাজকর্মের জন্যে তাঁকে মহাত্মা অশ্বিনী কুমার বা আধুনিক বরিশাল এর রূপকার বলে অভিহিত করা হতো। দুর্নীতি, সামাজিক গোঁড়ামি, কুসংস্কার ইত্যাদির বিরুদ্ধে ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে নিবেদিতপ্রাণ ছিলেন তিনি। দুর্ভিক্ষে অতুলনীয় সেবাকাজে, চা বাগান শ্রমিকদের ওপর অত্যাচারের প্রতিবাদে তিনি ছিলেন নিবেদিতপ্রাণ, ক্লান্তিহীন নেতা। চারণকবি মুকুন্দ দাস ও রাজনীতিবিদ আবুল কাশেম ফজলুল হকের খ্যাতি প্রতিষ্ঠায় তাঁর সর্বাত্মক অবদান ছিল। কলকাতায় রাজনারায়ণ বসুর প্রভাবে ব্রাহ্মধর্মে আকৃষ্ট হন ও ১৮৮২-তে বরিশালে ব্রাহ্মসমাজের সদস্যপদ গ্রহণ করেন। বরিশাল শহরে নিজের দান করা এলাকায় পিতার নামে ১৮৮৪ সালে ব্রজমোহন ইনস্টিটিউট যা বর্তমানে ব্রজমোহন বিদ্যালয় ও ১৮৮৯ সালে ব্রজমোহন কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। গভীর নিষ্ঠার সঙ্গে কুড়ি বছর বিনা বেতনে কলেজে শিক্ষাদান করেছেন।

অশ্বিনীকুমার দত্ত গণতান্ত্রিক অধিকার ও চেতনায় আস্থাবান ছিলেন। জনগণের অধিকার আদায়ের জন্য সারা জীবন লড়াই করেছেন তিনি। জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস এবং জনপ্রতিনিধিরা রাষ্ট্র পরিচালনা করবে- এ দাবির সমর্থনে তিনি ১৮৮৫-৮৬ সালে জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিশাল জনসভা করেন এবং আইনসভা বা পার্লামেন্ট গঠনের স্বপক্ষে জনমত সৃষ্টি করেন। এ সময় তিনি ৪০ হাজার বরিশালবাসীর স্বাক্ষর সংগ্রহ করে আইনসভা প্রতিষ্ঠার জন্য তা ব্রিটিশ পার্লামেন্টে প্রেরণ করেন।

১৮৮৬-তে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সংগ্রামের জন্য ‘পিপলস্ অ্যাসোসিয়েশন’ স্থাপন করেন। ১৮৮৭-তে তার প্রচেষ্টায় বরিশাল ডিস্ট্রিক্ট বোর্ড স্থাপিত হয়। ১৮৮৭-তে নারী শিক্ষা প্রসারের জন্য ‘বাখরগঞ্জ হিতৈষিণী সভা’ এবং একটি বালিকা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন।

অশ্বিনী কুমার ১৮৮৭ সালে মাদ্রাজে অনুষ্ঠিত কংগ্রেসের সম্মেলনে ভারতে আইনসভা প্রতিষ্ঠার দাবি উত্থাপন করেন। ওই বছর তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে কংগ্রেসে যোগ দেন। তিনি কংগ্রেসের আপোসকামিতা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণসর্বস্ব রাজনীতির ঘোর বিরোধী ছিলেন। অশ্বিনীকুমারই প্রথম ব্যক্তিত্ব, যিনি সর্বপ্রথম কংগ্রেসের প্রাসাদ রাজনীতিকে জনগণের দোরগোড়ায় আনতে ব্রতী হয়েছিলেন।

সরকারি বরিশাল কলেজ তাঁর নিজ বাসভবনেই প্রতিষ্ঠিত। এছাড়াও বাটাজোর অশ্বিনী কুমার মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও বরিশালের অশ্বিনী কুমার হল তাঁর নামে প্রতিষ্ঠিত। আজও অশ্বিনী কুমার হল সকল সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সমাবেশের কেন্দ্রবিন্দু।

১৯০৫-১৯১১ সালের বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের সময় জাতীয় নেতার স্থান লাভ করেন তিনি। তিনি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস দলের মাদ্রাজ অধিবেশনে বাংলার প্রতিনিধিত্ব করেন। জাতীয় কংগ্রেসকে প্রাসাদ রাজনীতি থেকে সাধারণ জনগণের মধ্যে নিয়ে আসার প্রথম কারিগর অশ্বিনী কুমার দত্ত। তাঁর প্রতিষ্ঠিত স্বদেশ বান্ধব সমিতির স্বেচ্ছাসেবকদের সাহায্যে বরিশালকে স্বদেশী আন্দোলনের একটি শক্তিশালী কেন্দ্রে পরিণত করেছিল। জেলার সর্বত্র ১৬০ টিরও বেশি শাখা ছিল এই সমিতির। ব্রিটিশ পুলিশ তাঁকে বরিশালে গ্রেপ্তার করে ও ১৯০৮ সালে তাঁর সমিতি নিষিদ্ধ করে। তাকে ১৯১০ সাল পর্যন্ত লক্ষ্ণৌ জেলে বন্দি রাখা হয়। ১৯২১ সালে মহাত্মা গান্ধী প্রথম বরিশালে এসে অশ্বিনী কুমার দত্তকে জেলার অদ্বিতীয় নেতা হিসেবে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেছিলেন। ১৯২৩ সালে মৃত্যুর কয়েক মাস ব্রজমোহন বিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছিলেন ব্রজমোহন মেডিকেল স্কুল।

মাত্র বক্তৃতা দিয়ে নয়, কাজের মাধ্যমে তিনি ছাত্রদের নৈতিক চরিত্র গঠন করে দেশপ্রেমের মন্ত্রে দীক্ষিত করেন। তিনি বিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষকদের নিয়ে Little Brothers of the poor (দরিদ্র বান্ধব সমিতি), Band of Hope (আশ্বাসী সম্প্রদায়), Band of Mercy (কৃপালু সম্প্রদায়), Friendly Union(বান্ধব সমিতি) গঠন করেন। এই সংগঠনগুলোর মাধ্যমে দরিদ্র ছাত্রদের পড়াশুনার ব্যবস্থা করা, বিদ্যালয় স্থাপন, নারী শিক্ষা বিস্তার, দরিদ্রকে সহযোগিতা, দুর্নীতি, অন্যায়- অত্যচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, মুক্তচিন্তা চর্চার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করা হয়। যে কারণে ১৯০০ সালে বরিশালে গ্রাজুয়েটের সংখ্যা দাঁড়ায় ২৫০ জন।

গণসচেতনতা সৃষ্টির তাগিদে এ সময় অশ্বিনীকুমার দত্ত সংবাদপত্রের অভাব বিশেষভাবে অনুভব করেন। তাঁর চেষ্টার কারণে বিকাশ, স্বদেশী, বরিশাল, বরিশাল হিতৈষী প্রভৃতি পত্রিকা প্রকাশিত হয়। বরিশাল হিতৈষী ও স্বদেশী পত্রিকা অসহযোগ আন্দোলনে এক অনন্য ভূমিকা পালন করে। এই পত্রিকাগুলো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ও শিক্ষাবিস্তারে ব্যাপক ভূমিকা রাখে।

অশ্বিনীকুমারের একান্ত চেষ্টায় স্থানীয় স্বায়ত্তশাসনের প্রতিষ্ঠানিক ভিত্তি স্থাপিত হয়। জনপ্রিয়তার কারণে তিনি বরিশাল পৌরসভা ও লোকাল বোর্ডের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এসময় তিনি এ কে ফজলুল হককে পৌরসভা ও জেলা বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত করেন। মূলত অশ্বিনীকুমারের হাতেই শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকের রাজনৈতিক জীবনের হাতেখড়ি হয়।

সত্য-প্রেম-পবিত্রতার  প্রতীক মানুষটি  অবিভক্ত ভারতবর্ষে বরিশালকে শিক্ষা, সংস্কৃতি ও রাজনীতির অন্যতম প্রধান পীঠস্থানে পরিণত করেন। তাঁর জন্যই ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে বরিশাল ব্রিটিশ সরকারের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে ওঠে। অসাম্প্রদায়িক চেতনার অধিকারী মানুষটি  আজীবন সুখে-দুঃখে অসহায় মানুষের সহায় হয়ে, বিপদে-আপদে তাঁদের পাশে দাঁড়িয়ে আমজনতার মনের মণিকোঠায় স্থায়ী আসন লাভ করেছিলেন এবং একই সঙ্গে হয়ে উঠেছিলেন বরিশালবাসীর মুকুটহীন সম্রাট। পাশাপাশি অনন্য সাধারণ গুণের অধিকারী এই মানুষটি বরিশাল তথা পূর্ব বাংলার(বর্তমান বাংলাদেশ) মানুষের চেতনার উন্নয়নে সারাজীবন কাজ করে গেছেন। সে কারণে দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস তাঁকে “Our friend philosopher and guide” বলে উল্লেখ করেছেন। রাজনীতিবিদ-স্বাধীনতাসংগ্রামী বিপিন চন্দ্র পাল তাঁকে বাংলার একমাত্র লোকনায়ক” হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন।

দেশবন্ধু জননায়ক আধুনিক বরিশাল এর নির্মাতা ১৯২৩ সালের ৭ই নভেম্বর কলকাতায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় এই মহৎ হৃদয়ের অধিকারি মানুষটি পরলোক গমন করেন।

কিন্তু দুঃখের বিষয় বর্তমান প্রজন্মের কাছে তিনি নিজে এবং তাঁর আদর্শ বিস্মৃতির পথে। এমনকি তাঁর তথা তাঁর নামে প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলারও তাঁকে স্মরণ করার মতো তেমন কোন আয়োজন চোখে পরছে না। তাঁর সম্পর্কে পাঠ্য-পুস্তকেও তেমন কোন তথ্য নেই। সরকারি মাধ্যমগুলো যেমন বেতার, টেলিভিশন বিশিষ্ট ব্যক্তিদের জন্ম-মত্যু দিবসে বিশেষ আয়োজন করে থাকে। মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্তকে নিয়ে বেতার, টেলিভিশনেও কোন আয়োজন দেখা যায় না। ব্রজমোহন কলেজে প্রতিষ্ঠিত উত্তরণ সাংস্কৃতিক সংগঠন ও ব্রজমাহন থিয়েটার তাঁর জন্ম-মত্যু দিবসে তাঁকে স্মরণ করছে। ব্রজমোহন থিয়েটার প্রতি বছর তাঁর নামে প্রতিষ্ঠিত বাটাজোড়  অশ্বিনী কুমার মাধ্যমিক বিদ্যালয় অশ্বিনী মেলার আয়োজন করতো, তাও এখন বন্ধ হয়ে গেছে। আমরা মনে করছি, এই মহান ব্যক্তিকে স্মরণ না করল কিংবা তাঁর আদর্শ মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে না পারলে জাতি তথা বর্তমান প্রজন্ম ক্ষতিগ্রস্থ হবে। সে কারণেই  মহাত্মা অশ্বিনী কুমার স্মতি সংসদ এর জন্ম, যার মাধ্যমে আমরা তাঁর আদর্শ মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে এবং তাঁর সত্য-প্রেম-পবিত্রতার আলাকে সমাজকে বিনির্মাণ করতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। প্রতিষ্ঠার পর থেকে প্রতি বছর মহাত্মা অশ্বিনী কুমার স্মৃতি সংসদ তাঁ জন্মদিন উপলক্ষে তাঁরই বাসস্থানে প্রতিষ্ঠিত সরকারি বরিশাল কলেজ মাঠে দুদিব্যাপি অশ্বিনী মেলার আয়োজন করে আসছে যা বরিশালের সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে এক মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে। তাঁর মৃত্যুবার্ষিকীতেও স্মরনোৎসবের আয়োজন করে আসছে স্মৃতি সংসদ।

১৮৮৪-তে ‘ব্রজমোহন স্কুল’ প্রতিষ্ঠা করেন।

১৮৮৬-তে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সংগ্রামের জন্য ‘পিপলস্‌ অ্যাসোসিয়েশন’ স্থাপন করেন।

১৮৮৭-তে তার প্রচেষ্টায় বরিশাল ডিস্ট্রিক্ট বোর্ড স্থাপিত হয়।

১৮৮৭-তে নারী শিক্ষা প্রসারের জন্য ‘বাখরগঞ্জ হিতৈষিণী সভা’ এবং একটি বালিকা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন।

১৮৮৯ ব্রজমোহন কলেজ স্থাপন করেন।

অশ্বিনী ভবন ভেঙ্গে ফেলার পর নাইট কলেজ তৈরি করা হয় যা পরে বর্তমান বরিশাল কলেজ নাম দেয়া হয়।

রচিত গ্রন্থ সমূহঃ

ভক্তিযোগ

কর্মযোগ

প্রেম

দুর্গোৎসবতত্ত্ব

আত্মপ্রতিষ্ঠা

ভারতগীতি

বরিশালবাসির দাবির প্রেক্ষিতে মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত’র স্মৃতি রক্ষার্থে মহাত্মা অশ্বিনী কুমার স্মৃতি সংসদ, বরিশাল তার জন্মলগ্ন থেকে নিম্নোলিখিত দাবিসমূহ জানিয়ে আসছে :

১)  মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত’র বাসস্থানে প্রতিষ্ঠিত সরকারি বরিশাল কলেজের নামকরণ ‘সরকারি মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত কলেজ’ করতে হবে।
২) মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত’র বাসস্থানে প্রতিষ্ঠিত কলেজের দৃশ্যমান স্থানে মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত’র একটি প্রতিকৃতি(ম্যুরাল) স্থাপন করতে হবে।
৩) মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত প্রতিষ্ঠিত সরকারি ব্রজমোহন কলেজের দৃশ্যমান স্থানে মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত’র একটি প্রতিকৃতি(ম্যুরাল) স্থাপন করতে হবে।
৪) মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত’র বাসস্থানে অবস্থিত কলেজের মৃতপ্রায় পুকুরটি সংস্কারসহ মানুষের ব্যবহার উপযোগী করার ব্যবস্থা করতে হবে।

মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্তর বাসস্থানে যেভাবে সরকারি বরিশাল কলেজ হলো:

কর্মজীবী খেটে খাওয়া মানুষদের উচ্চ শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৬৩ সালে “বরিশাল নাইট কলেজ” প্রতিষ্ঠা করা হয়, যা বাংলায় বরিশাল নৈশ মহাবিদ্যালয় নামেও পরিচিত ছিল।

মহাত্মা অশ্বিনীকুমার দত্ত নিঃসন্তান ছিলেন। ১৯২৩ সালে তিনি মারা যাওয়ার পর, তার একমাত্র ওয়ারিশ ভাইপো সরল দত্ত সম্পত্তির উত্তরাধিকার লাভ করেন। ১৯৫৫ সালে তিনি স্থায়ীভাবে ভারতে চলে গেলে, বাসভবনটি ১৯৫৭ সালে অশ্বিনীকুমার স্টুডেন্টস হোম  নামে বি এম কলেজের সকল ধর্মের ছাত্রদের সমন্বিত কসমোপলিটন ছাত্রাবাস হিসেবে পরিচিতি পায়।

১৯৬৩ সালের ২ সেপ্টেম্বর স্থানীয় শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের সহযোগিতায় কালিবাড়ি রোডে অবস্থিত ব্রজমোহন (বিএম) স্কুলের একটি ভবনে বরিশাল নাইট কলেজের কার্যক্রম শুরু হয়। এ সময়ে বি এম স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন জয়ন্ত কুমার দাশগুপ্ত, যিনি ১৯৫৮-১৯৭৫ সাল পর্যন্ত ঐ পদে দায়িত্ব পালন করেন ও নৈশ কলেজে খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে বাংলা পড়ান। প্রতিষ্ঠাকালীন আরেকজন শিক্ষক ছিলেন ভাষা সৈনিক মো: হোসেন আলী।

১৯৬৪ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে উচ্চমাধ্যমিক ও ডিগ্রী (পাশ) কোর্স চালু করা হয়। ক্রমবর্ধমান শিক্ষার্থীদের জায়গা সংকুলানের জন্য শ্রেণীকক্ষের সংকট দেখা দিলে ১৯৬৫ সালে অন্য সূত্রে, ১৯৬৬ সালের জুলাইয়ে অশ্বিনীকুমার দত্তের বাসভবনের জায়গায় কলেজটি স্থানান্তরিত করা হয়। কসমোপলিটন ছাত্রাবাসের পাশে শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষ এবং একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য একটি নতুন ভবন নির্মাণ করা হয়। এ ভবনটি নির্মাণের জন্য আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করেন বরিশালের তৎকালীন জেলা প্রশাসক এটিএম শামসুল হক।

১৯৭০ সালে এখানে দিবা শাখার কার্যক্রম শুরু করে কলেজ কর্তৃপক্ষ। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ১৯৭২ সালে, অন্যসূত্রে, ১৯৮৪ সালে ইতিহাস, রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে বরিশাল কলেজের মাস্টার্স কোর্স চালু করা হয়। এখনও ওই তিন বিষয়েই মাস্টার্স চালু রয়েছে।

১৯৮৬ সালের ১৪ নভেম্বর প্রেসিডেন্ট এরশাদের শাসনামলে কলেজটির জাতীয়করণ করা হয়। বরিশাল নাইট কলেজের পরিবর্তে এর নামকরণ হয় “সরকারি বরিশাল কলেজ”। একই সময় এর নৈশ শাখাও বন্ধ হয়ে যায়। অন্যসূত্রে, সত্তরের দশকেই  দিবাশাখা চালুর পর, নাইট বাদ দিয়ে বরিশাল কলেজ নামকরণ করা হয়।

পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের পুনরায় আন্দোলনের মুখে ২০০৬ সালে সরকারি বরিশাল কলেজে মার্কেটিং, ব্যবস্থাপনা ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ে সর্ব প্রথম অনার্স (সম্মান) কোর্স চালু করে। পরের বছর, ২০০৭ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞান, মৃত্তিকা বিজ্ঞান ও ইংরেজি বিষয়ে অনার্সের আরও ৩টি বিষয় চালু হয়।

বঙ্গভঙ্গ থেকে স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃৎ, বরিশালের নির্মাতা বাঙালি জাতির কাছে চির পূজনীয় ও স্মরণীয় অশ্বিনী কুমার দত্তের মৃত্যু দিবস

http://www.anandalokfoundation.com/