13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মেসোপটেমীয় মহাকাব্য ‘গিলগামেশ’ প্রাচীন সাহিত্য পুস্তক

Link Copied!

মেসোপটেমীয় মহাকাব্য ‘গিলগামেশ’ প্রাচীন সাহিত্য পুস্তক। এটি প্রায় ২১০০ খ্রিস্টপূর্বে রচিত হয়েছে। অ্যাসিরীয় রাজা আশুরবানিপালের গ্রন্থাগারের ধ্বংসাবশেষে এই মহাকাব্যটি পাওয়া গেছে। মানুষের উচ্চাকাঙ্ক্ষা ও মৃত্যুভয়ের কাহিনী সম্বলিত এই মহাকাব্যটিকে – পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীন সাহিত্য পুস্তক হিসেবে গণ্য করা হয়।

গ্রীক মহাকাব্য ‘ইলিয়াড ও ওডিসি’-র প্রায় ১৫০০ বছর পূর্বে রচিত হয়েছে গিলগামেশ। এর মোট চরণ সংখ্যা ৩ হাজার। গিলগামেশ মহাকাব্যটি লেখা হয়েছিল মাটির ট্যাবলেট বা টালিতে ‘কিউনিফর্ম’ লিপিতে।

টাইগ্রিস এবং ইউফ্রেটিস নদী-বেষ্টিত ভূখণ্ডটি মানবসভ্যতার আঁতুড়ঘর। আধুনিক ইরাক, কুয়েত এবং সিরিয়া-সহ আরও কিছু দেশের অংশবিশেষ নিয়ে এই অঞ্চলের প্রাচীন নাম ‘মেসোপটেমিয়া’। সুমেরীয়, আক্কাদীয়, ব্যাবিলনীয়, আসিরীয়— একের পর এক সভ্যতা আর সাম্রাজ্যের উত্থান ও পতন দেখেছে মেসোপটেমিয়া।

গিলগামেশ মেসোপটেমীয় পুরাণের একটি চরিত্র। জনশ্রুতি আছে, গিলগামেশ ছিলেন উরুক রাজ্যের রাজা। এই মহাকাব্যে গিলগামেশের দুঃসাহসীক স্বর্গাভিযানের কাহিনি বর্ণনা করা হয়েছে। গিলগামেশ মহাকাব্য অনুযায়ী ― দেবরাজ আনু আকাশের দেবতা, তার মন্দির ছিল উরুক রাজ‍্যে। ধরিত্রী মাতা আরুরু, বাতাসের দেবতা এনলিল, যৌনতা ও যুদ্ধের দেবী ইশতার, সূর্য দেবতা শামাশ, এবং আরও বহু দেবতা ছিলেন মানুষের দৈনন্দিন সঙ্গী।

রাজা গিলগামেশ প্রচণ্ড সাহসী, সুপুরুষ এবং বীরযোদ্ধা। তিনি দুই-তৃতীয়াংশ দেবতা, এক-তৃতীয়াংশ মানুষ। তার বাবা উরুকের ধর্মযাজক লুগালাবান্দা আর মা হচ্ছেন দেবী নিনসাল। মায়ের দিক থেকেই তার শরীরে দেবত্বের ধারাটি এসেছে। গিলগামেশ তাই মানুষ হয়েও অমর, অপ্রতিরোধ্য।

গিলগামেশ খেয়ালি ও অত্যাচারী। প্রজারা তাকে রাজ্য রক্ষা ও সুনাম ধরে রাখার জন্য- রাজা হিসেবে পছন্দ করতেন। কিন্তু তার খামখেয়ালি ও অত্যাচারে তাদের জীবন বিষিয়ে উঠেছিল। এমনকি, কেউ বিয়ে করতে চাইলে নববধূকে আগে রাজার সঙ্গে কিছুদিন কাটাতে হতো, তার সেবা করতে হতো। রাজা সন্তুষ্ট হলেই কেবল বধূ ফিরে যেতে পারত নিজের স্বামীর কাছে।

ধরিত্রী মাতা আরুরু, পৃথিবীর মাটি-কাদা দিয়েই গিলগামেশের সমশক্তি-সম্পন্ন আর এক পুরুষ গড়ে দিলেন, তার নাম এনকিডু। বনের রাজা এনকিডুকে বশ করতে – তার কাছে সুন্দরী গণিকা শামহাত-কে প্রেরণ করলেন, নাগরিক রাজা গিলগামেশ।

টানা ছয় দিন সাত রাত নগরনটীর সঙ্গে যৌন মিলনে ক্লান্ত-বিবশ এনকিডু, সঙ্গিনীর হাত ধরে চললেন গিলগামেশের মুখোমুখি হতে। কিন্তু নববধূদের প্রতি রাজার অন্যায় ব্যবহারের প্রতিবাদ করে – এনকিডু পরে গিলগামেশের সঙ্গেই যুদ্ধে লিপ্ত হলেন। প্রবল অমীমাংসিত এক যুদ্ধের পর, গিলগামেশ আর এনকিডু দু’জনে হয়ে উঠলেন পরম বন্ধু।

যৌনতা ও যুদ্ধের দেবী ইশতার, গিলগামেশের বীরত্ব ও সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে তাকে বিবাহের প্রস্তাব দিলেন। গিলগামেশ রাজি না হওয়ায়, দেবী ইশতার স্বর্গের অগ্নিময় ষাঁড় ছেড়ে দিলেন উরুক নগরীতে।

গিলগামেশ বন্ধু এনকিডুর সাহায্যে ধ্বংসলীলায় উন্মত্ত সেই ষাঁড়কে হত্যা করলেন। জয়ের আনন্দ স্থায়ী হল না; হঠাৎ এনকিডুর মৃত্যু হল। মৃত্যুর পূর্বাভাস এনকিডু পেয়েছিলেন, কিন্তু কেন ঈশ্বর তাকে এই শাস্তি দিচ্ছেন – তার উত্তর মিলল না। গিলগামেশকে একা করে দিয়ে চলে গেলেন এনকিডু।

বন্ধু এনকিডুর পরিণতি গিলগামেশকে যারপরনাই বিমর্ষ ও মৃত্যুভয়ে ভীত করে তুলল। জীবনের অর্থ ও অমরতার খোঁজে তিনি বেরিয়ে পড়লেন শুরুপ্পক-এর কিংবদন্তী রাজা উটা-নাপিশ্‌তির খোঁজে। যে উটা-নাপিশ্‌তিকে দেবতারা নির্দেশ দিয়েছিলেন, ‘‘গৃহসম্পদ ত্যাগ করে একটি শক্ত ও বৃহৎ নৌকা নির্মাণে মন দাও। সেই নৌকার ভেতরে সমস্ত প্রাণের বীজ সংরক্ষিত করো। শীঘ্রই তোমাদের ভূমিতে নেমে আসবে এক মহাপ্লাবন।”

রাজা উটা-নাপিশ্‌তি এক অভূতপূর্ব বন্যার গ্রাস থেকে নিজেকে এবং সমস্ত জীবনকে রক্ষা করলেন এবং বাতাসের দেবতা এনলিলের বরে সস্ত্রীক অমরতা ও দেবত্ব লাভ করলেন।

দুর্গম গিরি আর ভয়ঙ্কর মৃত্যুসাগর পার হয়ে গিলগামেশ গন্তব্যে পৌঁছলেন বটে, কিন্তু কঠিন পরীক্ষা নিয়েও উটা-নাপিশ্‌তি তার কাছে মৃত্যুহীন জীবনের রহস্য জানালেন না।

গিলগামেশ পুনর্যৌবন লাভ করার আশ্চর্য গাছ হাতে পেলেন ঠিকই, কিন্তু নিয়তির ষড়যন্ত্রে সেই গাছ হারিয়ে ফেললেন! মানুষের জীবন নয়, কীর্তিই অমর — এই উপলব্ধি নিয়ে গিলগামেশ উরুক নগরীতে প্রত্যাবর্তন করলেন।

http://www.anandalokfoundation.com/