13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভিন ভাষার দাপটে অবহেলিত ভাষা ও ভাষাযোদ্ধা

Link Copied!

পৃথিবীতে বাংলাদেশ একমাত্র দেশ যে দেশে মাতৃভাষা বাংলা প্রতিষ্ঠায় প্রাণ দিতে হয়েছে। সেই বাংলা ভাষা অবহেলিতগোষ্ঠির ভাষায় পরিণত হয়ে হারিয়ে যাবার পথে। সেই দেশেই ধর্ম আর ভিন ভাষার দাপটে অবহেলিত ভাষা ও ভাষা যোদ্ধা।

পৃথিবীতে বাংলাদেশ একমাত্র দেশ যা ভাষার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত। মুখের ভাষার দাবীতে প্রাণ দিতে হয়েছিল। পাকিস্তান স্বাধীন হয় ১৯৪৭ খ্রীষ্টাব্দের ১৪ই আগস্ট। মাত্র ছয় মাসের মাথায় করাচিতে ২৩শে ফেব্রুয়ারি ১৯৪৮ খ্রীষ্টাব্দে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে যিনি স্পষ্ট ভাষায় দাবি তুলেন – “বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করা হোক”, সেই মানুষটির নাম ‘ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত’। ধীরেন্দ্রনাথ দত্তই সর্বপ্রথম বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবি তুলে ছিলেন। ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের সেই দাবি পাকিস্তান পার্লামেন্টে প্রত্যাখ্যাত হয়। তারপরই ভাষা আন্দোলনের সূচনা ঘটে।

ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত পাকিস্তান পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে বলেছিলেন,‘‘পূর্ব পাকিস্তানের ৬ কোটি ৯০ লাখ মানুষের মধ্যে ৪ কোটি ৪০ লাখ মানুষ বাংলায় কথা বলে, তাই আমার বিবেচনায় বাংলা হওয়া উচিত রাষ্ট্রভাষা।’’ তার এই বক্তব্যকে জিন্নাহর ‘‘উর্দু হবে রাষ্ট্রভাষা’’ ঘোষণার প্রথম আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ বলা যায়। সুতরাং তাঁকে ‘ভাষা আন্দোলনের জনক’ বললেও অত্যুক্তি হবে না।

বঙ্গবন্ধুর ভাষায়,‘সেই দাবি প্রত্যাখ্যাত হয়ে ভাষা আন্দোলনের সূচনা ঘটে’।

২৭ নভেম্বর ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের করাচিতে অনুষ্ঠিত শিক্ষা সম্মেলনে গৃহীত এক প্রস্তাবে উর্দুকে পাকিস্তানের সাধারণ ভাষা হিসেবে গ্রহণ করা হয়। এই খবর পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ার পর ঢাকার ছাত্র সমাজে জ্বলে উঠে আগুন। ১৯৪৭ সালে ৬ ডিসেম্বর দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয় বিশাল জনসভায় তখন প্রবল উত্তেজনা। সবার চোখে-মুখে মাতৃভাষা রক্ষার অদম্য স্পৃহা। ছাত্রদের এ উত্তেজনা প্রকম্পিত করেছিল সেদিনের ঢাকার আকাশ বাতাস। সাহসী দুর্বার দামাল ছেলেরা রাষ্ট্রভাষা রক্ষার দাবি নিয়ে নেমে পড়ে রাজপথে। আন্দোলন চলতে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় ২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২ সালে ছাত্র জনতা ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’ শ্লোগান মুখে মিছিলে মেতে উঠে ঢাকার পথে। উত্তেজিত জনতার উপর পুলিশ বাহিনী চালায় গুলি। শহীদ হন সালাম রফিক জব্বর বরকত মশিউরসহ নাম না জানা অনেকে। তারা বিশ্ব বুকে বাংলাদেশকে একধাপ এগিয়ে দিয়েছেন। তাদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলী।

বড় পরিতাপের বিষয় হলো- আজো আমরা কি মর্যাদা দিতে পারছি বাংলা ভাষার? ভাষার শুদ্ধ চর্চা কি হচ্ছে আমাদের মাঝে? আমরা কতটুকু চেষ্টা করছি বাংলা বানানের শুদ্ধতা নিয়ে? কতটুকু গুরুত্বের সাথে সন্তানদের শিক্ষা দিচ্ছি বাংলা ভাষা?

আমরা কথায় কথায় মায়ের ভাষা অবজ্ঞা করে বিদেশী বুলি আওড়াই, বাংলাভাষী প্রতিবেশীর চেয়ে হাজার মাইল দুরের বিদেশী স্বধর্মীয় ভাষার ব্যক্তিকে আপন ভাবি, দেশের স্ব-শিক্ষা এড়িয়ে বিদেশে গিয়ে শিক্ষিত হওয়া,দেশের সম্পদ পাচার করে বিদেশে জমা করার মতো কাজ পূর্বপূরুষ বীর সন্তান,ভাষা শহীদ ও মুক্তিযোদ্ধা বীর সন্তানদের অসম্মান করা নয়কি।

দেখা যায়,দিনের শুরু থেকে ঘুমানো পর্যন্ত যেসব শব্দ ব্যবহার করি, সেসব প্রায়ই অন্য ভাষার শব্দ। ফোন রিসিভ করেই হাই/হ্যালো না বলে সম্পর্ক/নাম/শুভ সকাল/শুভ দুপুর/শুভ বিকাল/শুভ অপরাহ্ন/শুভ সন্ধ্যা/শুভ রাত্রি বলতে পারি। অজু(আরবি), নামাজ(আরবি), জল খাবার(বাংলা) না বলে নাস্তা(ফারসি) বলি,  স্নান(বাংলা) না বলে গোসল(আরবি) বলি,সময় জিজ্ঞেস করলে উত্তর দেই বিকেল না বলে বাদ আসর(আরবি) বলি, ভোর(বাংলা) না বলে বাদ ফজর/ ফজরের পর(আরবি) বলি, দুপুরের পর না বলে বাদ জোহর(আরবি)/জোহরের পর বলি, সন্ধ্যার পর(বাংলা) না বলে বাদ মাগরিব/মাগরিবের পর(আরবি) বলি,রাতে(বাংলা) না বলে বাদ এশা(আরবি) বলি, সন্ধ্যার খাবার না বলে ইফতার(আরবি) বলে থাকি,শুভ সকাল না বলে গুড মর্নিং,শুভ দুপুর না বলে গুড নুন,শুভ বিকেল না বলে গুড আফটারনুন,শুভ সন্ধ্যা না বলে গুড ইভিনিং,শুভ রাত্রি(বাংলা) না বলে গুড নাইট(ইংরেজি) বলে থাকি। না খেয়ে থাকাকে উপোস(বাংলা) না বলে রোজা(আরবি) বলে থাকি। সময় কত না বলে টাইম জিজ্ঞেস করা, ভুল স্বীকার করে দুঃখিত না বলে সরি বলা, ক্ষমা করবেন না বলে মাফ করবেন, কথায় কথায় ইংরেজি আরবি উর্দু ব্যবহার বাংলা ভাষায় যারা রক্ত দিয়েছে তাদের অসম্মান নয়কি?

দেখা যায়, আমাদের ছেলেমেয়েরা দেশের উচ্চ শিক্ষা নিয়ে কলেজ ভার্সিটি থেকে বের হওয়ার পরও প্রমিত উচ্চারণে কথা বলতে বা শুদ্ধ বানানে লেখায় পারদর্শী হতে পারে না। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞপ্তিতে বানানের ভুল থাকে দেদার। শুধু কি তাই? না। আমাদের দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কলকারখানা, সংস্থা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ইত্যাদির নাম কিংবা তাদের পণ্যের প্রচার-প্রসারের জন্য বিভিন্ন বিজ্ঞাপন প্রচারের ক্ষেত্রেও ভাষার মান বজায় রাখে না।

আমাদের বানান শিখতে যাওয়া সদ্য সন্তানেরা দ্বিধায় পড়ে যায় শুদ্ধ বানান নির্বাচন নিয়ে। একেক স্থানে একেক বানান দেখে তারা বিভ্রান্ত হয়। অনেক সময় অভিভাবকদের প্রশ্ন করেও সঠিক উত্তর পায় না।

আমরা চাই- রক্তে অর্জিত ভাষার এ মাসে শুদ্ধ ভাষা চর্চা হোক। অভিযান পরিচালনা হোক বানানের শুদ্ধতা রক্ষা ও চর্চার। নিষিদ্ধ করা হোক ভুল বানান ও ভিন্ন ভাষার ব্যবহার। প্রয়োজনে সরকারিভাবে নিযুক্ত করা হোক পর্যবেক্ষক বা প্রতিনিধি দল। বন্ধ করা হোক অশুদ্ধ বানানের সব আয়োজন।

ভাষা আন্দোলনের পথ বেয়ে দেশ স্বাধীন হয়। এটাই ইতিহাস। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্ব দেন। ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত যে স্বপ্ন দেখেছিলেন বঙ্গবন্ধু এর বাস্তবায়ন করেন। সেই অর্থে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা। মহান একুশ বাংলা ভাষার জয়গাথা। অথচ ফেব্রুয়ারি মাসেও ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত অবহেলিত থাকেন, তাকে কেউ খুব একটা স্মরণ করেননা, করতে চাননা?

পাকিস্তানের শাসকেরা ধীরেন্দ্রনাথ দত্তকে ১৯৭১ খ্রীষ্টাব্দের ২৯শে মার্চ ধরে নিয়ে ময়নামতি ক্যান্টনমেন্টে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে। ৮৪ বছর বয়সী মানুষটিকে হাত-পা ভেঙ্গে পঙ্গু এবং দুই চোখে কলম ঢুকিয়ে অন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। মৃত্যুর পর গায়ে থুতু দেয়ার জন্য তাঁর মরদেহ বাইরে রেখে দেওয়া হয়েছিল।

ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্বাধীনতা পুরস্কার পেয়েছেন। একুশে পদক পাননি।

ভারতীয় উপমহাদেশে মুসলমানদের মধ্যে একটা বিরাট অংশের মানুষ বাংলায় কথা বলেন প্রকৃতিগত কারণে। কারণ সপ্তদশ শতকে ইসলাম যখন প্রবর্তিত হয় তখন তাদের ধর্মীয় পরিচয় ভিন্ন ছিল। ফলে অভ্যাসগত কারণে তাদের পক্ষে বাংলা ছাড়া আরবি ভাষায় কথা বলা সম্ভব ছিল না। তখন যদি এখনকার মতো মরু সংস্কৃতির আধিক্য থাকত তাহলে মুসলিমদের ভাষা হতো আরবি। কারণ আরবের মুসলিমরা বিভিন্ন পরিবেশ সৃষ্টি করে ভারতীয় উপমহাদেশে অন্যদের ধর্মান্তরিত করেছিল। তখন যদি তারা ধর্মান্তরের সাথে সাথে ভাষান্তরের প্রথা চালু করে দিত তাহলে নিশ্চিত ভাবেই সকল মুসলমানদের ভাষা আরবি হতো।

বাংলা ভাষার উৎপত্তি সংস্কৃত থেকে আর সংস্কৃত হল দেবভাষা। হিন্দু ধর্মের সব ধর্মগ্রন্থ রচিত হয়েছে সংস্কৃত ভাষায়। মানবজাতির ইতিহাসে ঋকবেদ সর্বপ্রথম গ্রন্থ যা ৪ হাজার বছর আগে সংস্কৃত ভাষায় লিপিবদ্ধ হয়েছিল। ঋগবেদের শ্লোকগুলা হাজার হাজার বছর ধরে শ্রুতি হিসাবে মানুষের মুখেমুখে উচ্চারিত হয়। তাই বাংলা ভাষাকে সংস্কৃত ও ঋগবেদের দর্শন থেকে আলাদা করার উপায় নেই। বাংলা ভাষার উৎস হচ্ছে সংস্কৃত এবং এর দর্শন।

উর্দুও মুসলমানদের ভাষা নয়, মুসলমানরা মধ্যভারতীয় এক ভাষাকে ফার্সি বর্নমালা দিয়ে লিখে সামান্য পরিবর্তন করে দিয়েছে মাত্র। ফার্সি নিজেও মুসলিম ভাষা নয় এটা ইরানের তথা পারস্যাঞ্চলের ভাষা যা মুসলিম ধর্ম আসার আগেই বিদ্যমান ছিল। ভারতবর্ষে ভাষার দুটি ধারা একটি ইন্দো ইউরোপিয়ান ল্যাঙ্গুয়েজস্টিক সিস্টেম আর দ্বিতীয়টি হলো দ্রাবিড়িয়ান ল্যাঙ্গুয়েস্টিক সিস্টেম। প্রথমটির উৎস সংস্কৃত যেখান থেকে দক্ষিণ এশিয়া এবং ইউরোপের বহু ভাষা সৃষ্টি হয়েছে। দ্বিতীয়টির উৎস হলো, দক্ষিণ ভারতের শ্রীলঙ্কায় ব্যবহৃত ভাষা যেমন- মালায়ালাম,তামিল,সিংহলি ইত্যাদি। হিন্দি উর্দু বাংলা গুজরাটি মারাঠি নেপালী তিব্বতি পালি থাই কম্বোডিয়ান মালয় আলবানিয়ান জার্মান এসব ভাষার উৎপত্তি হয়েছে সংস্কৃত থেকে।

ধর্মীয় শব্দগুলো ধর্মীয় কিংবা স্বীয় পরিবেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকতে পারে। ভাষা, দেশ ও সংস্কৃতি থেকে ধর্মের প্রতি বেশী শ্রদ্ধাবোধ হওয়ায় হাজার মাইল দুরের বিদেশী স্বধর্মীয় ব্যক্তিকে আপন মনে করে আর বাংলাভাষী প্রতিবেশী অন্য ধর্মীয়দের দূরে ঠেলে দেয়।

আসুন অতীতের সকল হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে দেশ-ভাষা-সংস্কৃতির পথে একে অপরের বন্ধু হয়ে মিলে মিশে থাকি। বিদেশী ভাষার বন্ধুকে এড়িয়ে বাংলাভাষী প্রতিবেশীকে ভালোবাসি। বিদেশ নয় দেশকে ভালোবেসে দেশের উন্নয়নে একসাথে কাজ করি। বাংলাকে ভালোবাসি, দেশের মানুষকে ভালোবাসি, দেশকে ভালোবেসে সুন্দর শিক্ষিত সমৃদ্ধ একটি জাতি গঠন করি এবং বিশ্বকে একটি শ্রেষ্ঠ জাতি উপহার দিই। ভাষার মাসে এই হোক আগামী দিনের অঙ্গীকার।

http://www.anandalokfoundation.com/